সংসারের কাজকর্মটাও কিন্তু একটা এক্সারসাইজ!(advantages of doing household chores)

সংসারের কাজকর্মটাও কিন্তু একটা এক্সারসাইজ!(advantages of doing household chores)

ব্যস্ততার কারণে তো বটেই, তবে অনেক ক্ষেত্রে কতকটা অনিইচ্ছার কারণেও অনেকে ঘর মোছা, বাসন মাজা বা কাপড় কাচার মতো সংসারের কাজ (house work) করতে চায় না। আর ঠিক এই কারণেই কিন্তু গত কয়েক দশকে আমাদের দেশের মহিলা নাগরিকদের মধ্যে নানাবিধ জটিল রোগে আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা বেড়েছে চোখে পরার মতো! কিন্তু নানান রোগের সঙ্গে বাড়ির কাজ করা বা না করার সম্পর্কটা ঠিক কোথায়(are chores healthy for you)?


আসলে নিয়মিত অল্পবিস্তর বাড়ির কাজ করলে (advantages of doing household chores) শরীরের সচলতা বৃদ্ধি পায় চোখে পরার মতো। ফলে স্বাভাবিকভাবেই দেহের কর্মক্ষমতা বাড়ার কারণে পিঠে ব্যথা এবং জয়েন্ট পেইনের মতো সমস্যা দূরে পালায়। শুধু তাই নয়, ক্যালিফর্নিয়া ইউনিভার্সিটির গবেষকদের করা এক স্টাডিতে দেখা গেছে নিয়মিত বাড়িঘর পরিষ্কার করার পাশাপাশি সংসারের নানা কাজ নিজে হাতে করলে শরীর এবং মন এতটাই চাঙ্গা হয়ে ওঠে যে স্ট্রেস এবং মানসিক চাপের প্রকোপ তো কমেই, সেই সঙ্গে আরও একাধিক রোগ ধারে কাছে ঘেঁষতে পারে না। যেমন ধরো...


১. বিছানা পরিষ্কার করার শারীরিক উপকারিতা:


house-work-cleaninf-bed
প্রতিদিন ঘুম থেকে ওঠার পর এই কাজটি মন দিয়ে করলে পেশীর সচলতা বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে একদিকে যেমন দৈহিক ক্ষমতার উন্নতি ঘটে, তেমনি সারা শরীরে অক্সিজেন সমৃদ্ধ রক্তের প্রবাহ বেড়ে যাওয়ার কারণে মন-মেজাজও চাঙ্গা হয়ে ওঠে। সেই সঙ্গে দেহের প্রতিটি অঙ্গের ক্ষমতাও যায় বেড়ে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই ছোট-বড় কোনও রোগ-ব্যাধিই ধারে কাছে ঘেঁষতে পারে না। শুধু তাই নয়, সকাল সকাল শরীর এতটা অ্যাকটিভ হয়ে ওঠার কারণে সারাদিনব্যাপী ক্লান্তি দূরে থাকে।


২. ঘর ঝাঁট দেওয়ার উপকারিতা:


house-work-moping
আমেরিকান জেরিয়াট্রিক সোসাইটির করা এক গবেষণা অনুসারে যারা নিয়মিত ঘর ঝাঁট দেওয়ার পাশাপাশি কম করে ১৫-৩০ মিনিট ঘর সংসারের বাকি কাজ (benefits of doing house work) করে থাকে, তাদের হঠাৎ করে হার্ট অ্যাটাক হওয়ার আশঙ্কা প্রায় ৩০ শতাংশ কমে যায়। সেই সঙ্গে মস্তিষ্কে রক্তের প্রবাহ বেড়ে যাওয়ার কারণে স্ট্রোকের আশঙ্কাও আর থাকে না। শুধু তাই নয়, প্রায় ৬০০০ জন মহিলার উপর করা এই স্টাডিতে আরও দেখা গেছে যে এমন কাজকর্ম করলে আয়ু বৃদ্ধি পায় প্রায় ১২ শতাংশ। তাই তো বলি বন্ধু, বহুদিন যদি সুস্থ শরীরে বাঁচতে হয়, তাহলে নিয়মিত ঘর ঝাঁট দিতে ভুলো না যেন!


৩. বাসন মাজা:


house-work-cleaning
একাধিক গবেষণায় একথা প্রমাণিত হয়ে গেছে যে নিয়মিত বাসন মাজার অভ্যাস করলে নার্ভাস সিস্টেমের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। সেই সঙ্গে নানা কারণে শ্বাস-প্রশ্বাস নেওয়ার যে প্রক্রিয়া, তারও উন্নতি ঘটে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই শরীর এবং মস্তিষ্কের কোনও ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা প্রায় থাকে না বললেই চলে।


৪. বাথরুম পরিষ্কার করা:


house-work-bathroom
যারা প্রায়শই বাথরুম পরিষ্কার করে থাকে, তাদের শরীর নিয়ে আর কোনও চিন্তা থাকারই কথা নয়! কারণ শরীরচর্চা করলে সাধারণত যে যে উপকারগুলি পাওয়া যায়, তার সবকটি সুফলই মেলে যদি দু দিন অন্তর বাথরুম পরিষ্কার হয় তো! আসলে এই কাজটি (house work) করার সময় শরীরের প্রতিটি পেশী এতটাই অ্যাকটিভ হয়ে ওঠে যে দেহের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি পেতে সময় লাগে না। সেই সঙ্গে রক্তের প্রবাহ বেড়ে যাওয়ার কারণে হার্ট এবং কিডনির ক্ষমতাও বাড়ে চোখে পরার মতো। সেই সঙ্গে আরও একটা উপকার মেলে। তা হল, বাথরুম পরিষ্কার থাকলে স্বাভাবিকভাবেই ক্ষতিকর জীবাণুদের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওযার আশঙ্কা থাকে না। ফলে সংক্রমণ সহ নানাবিধ রোগ-ব্যাধি দূরে থাকতে বাধ্য হয়।


তথ্য সূত্র: ন্যাশনাল স্যাম্পল সার্ভে অর্গানাইজেশনের রিপোর্ট


POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!