লাফটার ইজ দ্য বেস্ট থেরাপি! তাই হাসি-খুশি থেকে সুস্থ থাকুন

লাফটার ইজ দ্য বেস্ট থেরাপি! তাই হাসি-খুশি থেকে সুস্থ থাকুন

আজকের দিনে যদি হও রামগরুড়ের ছানা (serious face), তাহলে হাজারো রোগ কিন্তু দেবে হানা! আর যদি থাকো হাসি-খুশি, তাহলে কোনও চিন্তা নেই! কারণ ফিজিওলজিকাল রিসার্চারদের করা বেশ কিছু স্টাডিতে দেখা গেছে দিনের বেশিরভাগ সময় হাসি-খুশি (smile) থাকলে একদিকে যেমন মস্তিষ্কের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটে, তেমনি আরও একাধিক শারীরিক উপকার মেলে (5 health benefits of smiling)। বিশেষত, বেশ কিছু জটিল সমস্যা ধারে কাছেও ঘেঁষতে পারে না। যেমন ধরো...


১. স্ট্রেস এবং মানসিক অবসাদের প্রকোপ কমে:


smile-6
২০১০ সালে এনসিবিআই (NCBI)-এর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত একটি স্টাডি অনুসারে সারাদিন হাসি মুখে থাকলে শরীরের ভিতরে ফিল গুড হরমোনের ক্ষরণ বাড়তে শুরু করে, যে কারণে মানসিক অবসাদ, অ্যাংজাইটি এবং স্ট্রেসের মাত্রা কমতে শুরু করে (smile and stress)। ফলে স্বাভাবিকভাবেই শরীরের কোনও ধরনের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা আর থাকে না (benefits of smiling)। তাই তো আজকের দিনে নানা কারণে স্ট্রেস যেখানে আমাদের রোজের সঙ্গী হয়ে উঠেছে, সেখানে শরীর এবং মনকে চাঙ্গা রাখতে একটু বেশি মাত্রায় হাসাহাসি করার প্রয়োজন যে বেড়েছে, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।


২. রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে চলে আসে:


smile-2
আমাদের দেশের শহরাঞ্চলে বসবাসরত প্রায় ৩৩-৪০ শতাংশ মানুষ হাই ব্লাড প্রেসারের মতো রোগে ভুগছে, যাদের মধ্যে ২৩.৫ শতাংশ পুরুষ এবং ২২.৬০ শতাংশ মহিলা। আর সবথেকে ভয়ের বিষয় হল এই রোগে আক্রান্তের সংখ্যা কিন্তু ক্রমশ বাড়ছে। তাই সময় থাকতে থাকতে সাবধান না হলে কিন্তু বিপদ! আর ঠিক এই কারণেই যতটা সম্ভব হাসি-খুশি থাকতে হবে। কারণ নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অব মেডিসিন পত্রিকায় প্রকাশিত এক গবেষণাপত্র অনুসারে সারা দিন হাসাহাসি করলে শরীরের ভিতরে এমন কিছু পরিবর্তন হতে শুরু করে, যার প্রভাবে একদিকে যেমন রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে চলে আসে, তেমনি হার্টের ক্ষমতাও বৃদ্ধি পায়। ফলে হঠাৎ করে কোনও ধরনের হার্টের রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা প্রায় থাকে না বললেই চলে।


৩. রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার উন্নতি ঘটে:


smile-3
২০১৫ সালে এনসিবিআই-এর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত একটি স্টাডি অনুসারে মন খুলে হাসলে মস্তিষ্কে একটি বিশেষ সিগনাল গিয়ে পৌঁছায়, যে কারণে ব্রেন এতটাই অ্যাকটিভ হয়ে ওঠে যে একদিকে যেমন স্ট্রেস এবং নানাবিধ ব্রেন ডিজিজের প্রকোপ কমে, তেমনি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়তে শুরু করে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই ছোট-বড় নানা রোগ যেমন ধারে কাছেও ঘেঁষতে পারে না, তেমনি সংক্রমণে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও যায় কমে।


৪. যন্ত্রণা কমে:


smile-4
হাসির সঙ্গে যন্ত্রণা কমার সম্পর্কটা ঠিক কোথায়? ২০১২ সালে হওয়া একটি গবেষণায় দেখা গেছে একসঙ্গে অনেকে মিলে হাসিহাসি করলে শরীরের ভিতরে যে প্রাকৃতিক পেনকিলার রয়েছে, তার মাত্রা বাড়তে শুরু করে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই যে কোনও ধরনের যন্ত্রণার অনুভূতি কমতে যেমন সময় লাগে না, তেমনি ব্যথা সহ্য করার ক্ষমতাও যায় বেড়ে। এবার বুঝেছো তো হাসির সঙ্গে আমাদের শরীরের ভালো-মন্দের যোগ কতটা!


৫. আয়ু বৃদ্ধি পায়:


smile-5
একেবারে ঠিক শুনেছো! "সাগা" পত্রিকায় প্রকাশিত একটি গবেষণা পত্র অনুসারে সারাদিন হাসি-খুশি থাকলে এবং খারাপ চিন্তাকে গুরুত্ব না দিলে আমাদের শরীরের ভিতরে এমন কিছু পরিবর্তন হতে শুরু করে যে তার প্রভাবে আয়ু বৃদ্ধি পায় চোখে পড়ার মতো। তাই তো বলি, দীর্ঘদিন সুস্থভাবে বাঁচতে চাইলে কথায় কথায় হাসতে থাকো! দেখবে উপকার মিলবে একেবারে হাতে-নাতে!


POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!