সারা বছর জুড়ে neem leaves খাওয়া উচিত কেন জানো!

সারা বছর জুড়ে neem leaves খাওয়া উচিত কেন জানো!

আয়ুর্বেদশাস্ত্র মতে প্রায় ৫০০০ বছর ধরে মানব শরীরকে নানাবিধ রোগের খপ্পর থেকে বাঁচাতে নিম পাতাকে (neem leaves) কাজে লাগানো হয়ে আসছে। আর কেন হবে নাই বা বলো! এই গাছটির প্রতিটি অংশ, তা পাতা হোক, কী ডাল, এমনকি নিম ফুলও নানাভাবে শরীরকে চাঙ্গা রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।


নিম পাতার সঙ্গে শরীরের ভালো-মন্দের সম্পর্কটা ঠিক কোথায়, সে সম্পর্কে আলোচনা করা হবে বৈকি। কিন্তু তার আগে একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় সম্পর্কে জেনে রাখা একান্ত প্রয়োজন। তা হল, বিশেষজ্ঞদের মতে টানা এক মাসের বেশি নিম পাতা খাওয়া উচিত নয়। কারণ তাতে শরীরের উপকার হওয়ার থেকে অপকার হওয়ার আশঙ্কা যায় বেড়ে (neem leaves side effects)। কিন্তু টানা এক মাস, সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর খালি পেটে যদি ১-২ টো নিম পাতা খেতে পারো, তাহলে শরীর নিয়ে আর কোনও চিন্তাই থাকবে না (benefits of neem leaves)। কারণ...


নিমের গুণাবলি:


১. রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা শক্তিশালী হয়ে উঠবে:


n-1
নিম পাতায় (benefits of eating neem leaves on empty stomach) উপস্থিত অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল, অ্যান্টিভাইরাল এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট প্রপাটিজ শরীরে প্রবেশ করার পর এমন খেল দেখায় যে দেহের রোগ প্রতিরোধক ব্যবস্থা বেজায় শক্তিশালী হয়ে ওঠে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই ছোট-বড় কোনও রোগই ধারে কাছে ঘেঁষতে পারে না। সেই সঙ্গে নানাবিধ সংক্রমণে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও যায় কমে।


২. হজম ক্ষমতা বাড়ে:


n-2
বাঙালি যখন, তখন ভোজনরসিক তো বটেই! আর রসনা তৃপ্তির ঝোঁকে গ্যাস-অম্বল যে রোজের সঙ্গী হয়ে উঠবে, সে আবার নতুন কথা কী! তাই তো বলি, এই গরমে হজম ক্ষমতাকে যদি চাঙ্গা রাখতে হয়, তাহলে কব্জি ঢুবিয়ে খাবার খাওয়ার পাশাপাশি সকালে ঘুম থেকে উঠে নিম পাতা খাওয়ার প্রয়োজনও রয়েছে। কারণ এই প্রাকৃতিক উপাদানটিতে উপস্থিত নানাবিধ উপকারী উপাদান শরীরে প্রবেশ করা মাত্র পাকস্থলিতে উপস্থিত খারাপ ব্যাকটেরিয়ারা সব মারা পরে। ফলে একদিকে যেমন পেটে খারাপ হওয়ার আশঙ্কা কমে, তেমনি গ্যাস-অম্বলের মতো সমস্যার প্রকোপ কমতেও সময় লাগে না।


৩. ত্বকের সৌন্দর্য বাড়বে:


n-3
আয়ুর্বেদ বিশেষজ্ঞদের মতে নিয়মিত খালি পেটে নিম পাতা খাওয়া শুরু করলে রক্তে উপস্থিত ক্ষতিকর উপাদানেরা ধ্বংস হয়ে যায়। সেই সঙ্গে টক্সিক উপাদানেরাও বেরিয়ে যেতে বাধ্য হয়। ফলে ত্বকের সৌন্দর্য তো বাড়েই, সেই সঙ্গে কোনও ধরনের ত্বকের সংক্রণে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও আর থাকে না (neem leaves for skin)।


৪. চুল এবং স্ক্যাল্পের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটে:


n-4
গরমকালে অতিরিক্ত ঘাম হওয়ার কারণে স্ক্যাল্প এবং চুলের অবস্থা বেজায় বেহাল হয়ে পরে। তাই তো এই সময় যদি চুলের যত্ন নেওয়া না হয়, তাহলে হেয়ার ফলের মাত্রা যেমন বাড়ে, তেমনি স্ক্যাল্পের স্বাস্থ্যের অবনতি হওয়ার কারণে একাধিক রোগ মাথা চাড়া দিয়ে ওঠার আশঙ্কাও থাকে। কিন্ত এত সব সমস্যা তখনই হয়, যখন রোজের ডায়েটে নিম পাতাকে অন্তর্ভুক্ত করা হয় না (neem leaves for hair)। আসলে প্রতিদিন নিম পাতা খাওয়া শুরু করলে শরীরে এমন কিছু উপাদানের মাত্রা বৃদ্ধি পেতে শুরু করে, যার প্রভাবে চুলের সৌন্দর্য তো বাড়়েই, সেই সঙ্গে স্ক্যাল্প কোনও রোগ মাথা চাড়া দিয়ে ওঠার সম্ভাবনাও আর থাকে না।


নিয়মিত নিম পাতা খাওয়ার পাশাপাশি যদি নিম পাতা ভেজানো জলে দিয়ে চুল ধোয়া যায়, তাহলেও কিন্তু সমান উপাকার মেলে।


৫. শরীরকে বিষ মুক্ত করে:


n-5
কখনও খাবারের মাধ্যমে, তো কখনও অন্য নানা ভাবে আমাদের শরীরে টক্সিক উপাদানের প্রবেশ ঘটে। এই সব ক্ষতিকর উপাদানগুলিকে যদি ঠিক সময়ে শরীর থেকে বের করে দেওয়া না যায়, তাহলে কিন্তু বিপদ! তাই তো প্রতিদিন নিম পাতা খাওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। আসলে এই প্রাকৃতিক উপাদানে মজুত রয়েছে এমন কিছু উপকারী উপাদান, যা এইসব টক্সিক উপাদানদের শরীর থেকে বের করে দেয়। ফলে দেহের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলির কোনও ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা প্রায় থাকে না বললেই চলে।


ছবির কৃতজ্ঞতা স্বীকার: wikipedia


POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!