স্বাস্থ্য-স্কিন-চুলের যত্নে রসুন (Garlic)

স্বাস্থ্য-স্কিন-চুলের যত্নে রসুন (Garlic)

ছোটবেলা থেকে নিশ্চয়ই ঠাকুমা-দিদিমাদের বলতে শুনে আসছেন যে, প্রতিদিন এক কোয়া করে রসুন (Garlic) খেতে। বাড়ির রান্নাঘরে তো রসুন থাকেই। মশলা বলেই তো জানেন। কারণ খাবারে টেস্ট যোগ করে রসুন (Garlic)। কিন্তু জানেন কি, রসুনের (Garlic) কিন্তু ঔষধি গুণও দারুণ। যার প্রভাব পড়ে আপনার স্বাস্থ্যে (Health)। শুধু স্বাস্থ্যে (Health) বললে ভুল হবে। স্কিন (Skin) ও চুলের (Hair) জন্যও দারুণ উপকারী রসুন (Garlic)। প্রতি ১০০ গ্রাম রসুনের মধ্যে রয়েছে প্রায় ১৫০ ক্যালোরি, ৩৩ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট, ৬.৩৬ গ্রাম প্রোটিন। পাশাপাশি রয়েছে ভিটামিন বি১, বি২, বি৩, বি৬, ফোলেট, ভিটামিন সি, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, ফসফরাস, পটাশিয়াম, সোডিয়াম, জিঙ্ক। ফলে বুঝতেই পারছেন, রান্নাঘরে রাখা এই মশলার মধ্যেই লুকিয়ে রয়েছে আপনার হাজারো সমস্যার সমাধান। তাই জেনে নিন, রসুনের (Garlic) উপকারিতাগুলো।


স্বাস্থ্যের জন্য রসুন


শরীরের (Health) বিভিন্ন রকম সমস্যা দূর করতে উপকারী রসুন (Garlic)। অনেক বড় বড় রোগের ক্ষেত্রেও সম্ভাবনা অথবা ঝুঁকি কমিয়ে দেয় এই রসুন (Garlic)।


lemon garlic


ইমিউনিটি বাড়াতে


প্রতিদিন সকালে ব্রেকফাস্টের পরে নিয়ম করে এক কোয়া রসুন (Garlic) গিলে ফেলেন, তা হলে ইমিউনিটি বেড়ে যায়। তবে হ্যাঁ, চিবিয়ে খাবেন না, শুধু গিলে ফেলবেন। এর ফলে দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে এবং ঋতু পরিবর্তনের সময় অসুস্থও হয়ে পড়বেন না।


সর্দি-কাশি-জ্বরের দাওয়াই


প্রায়ই ঠান্ডা ও জ্বরে পড়েন, এমন ব্যক্তিদের জন্য রসুন (Garlic) হতে পারে এক মহৌষধ। শরীর (Health) থেকে জ্বর আর ঠান্ডা দূর করতে প্রতিদিন দু-তিন কোয়া কাঁচা রসুন খেতে হবে। এ ছাড়া রান্না করা অথবা চায়ের সাথেও রসুন (Garlic) খেতে পারেন। আর রসুনের গন্ধ খারাপ লাগলে এর সাথে আদা ও মধু মিশিয়ে খাওয়া যেতে পারে। এ ভাবে নিয়মিত রসুন (Garlic) সেবনে ঠান্ডা ও জ্বর তো দূর হবেই, সেই সঙ্গে দেহের (Health) রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বৃদ্ধি পাবে।


দাঁত ও মাড়ির ইনফেকশন দূর করতে


ব্যাকটেরিয়া ও জীবাণুঘটিত রোগ প্রতিরোধে হাজার বছর ধরেই রসুন (Garlic) ব্যবহৃত হয়। গবেষণায় দেখা গেছে, শিশুদের কৃমি দূর করতে রসুনের নির্যাস ভালো কাজ করে। রসুনের নির্যাস থেকে ‘মাউথ ওয়াশ’ (মুখের ভেতর পরিষ্কারের তরল) তৈরি করা যায়। এটি নিয়মিত ব্যবহারে মাড়িতে ব্যাকটেরিয়ার বিস্তার বন্ধ হয়ে যায়। দাঁতের ব্যথা সারাতে (Garlic) রসুন সহায়তা করে থাকে।


অন্ত্রের সংক্রমণ সারাতে


খালি পেটে রসুন খাওয়ার ফলে লিভার ও মূত্রাশয় ঠিকঠাক ভাবে কাজ করে। এ ছাড়াও ডায়েরিয়ার মতো সমস্যাও দূর হয়। এই রসুন হজম ও ক্ষুধার উদ্দীপক হিসেবে কাজ করে। রসুন স্ট্রেস দূর করতেও সক্ষম। স্ট্রেসের কারণে অনেক সময় গ্যাস্ট্রাইটিসের সমস্যা দেখা দিতে পারে। তখন খালি পেটে রসুন (Garlic) খেতে হবে। কারণ এটি আমাদের স্নায়বিক চাপ কমিয়ে সব সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে। তা ছাড়া পরিপাক তন্ত্রেরও নানা সমস্যা দূর করে এই রসুন (Garlic)।


ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে


কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধ করে থাকে রসুন। গলব্লাডারের ক্যান্সারের সম্ভাবনাও কমিয়ে দেয়। শুধু কি তা-ই, স্তন ক্যান্সার ঝুঁকি কমায়। এমনকি রেক্টাল ক্যান্সারের হাত থেকে রক্ষা করে। রসুন প্রস্টেট ক্যান্সার প্রতিরোধে অনেক বড় ভূমিকা পালন করে। ফলে বুঝতেই পারছেনএ ছাড়া নিয়মিত রসুন খেলে শরীরে সব ধরনের ক্যান্সার প্রতিরোধক্ষমতা তৈরি হয়।


ব্লাড প্রেসার কমাতে


গবেষণায় দেখা গিয়েছে, যাঁরা উচ্চরক্তচাপের সমস্যায় ভোগেন, তাঁরা রসুন খাওয়ার পরে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে এসেছে।


হার্টের রোগ প্রতিরোধ করতে


হার্ট যাতে সুস্থ থাকে, তার জন্য রসুন (Garlic) অনেক উপকার করে থাকে। রসুন (Garlic) কোলস্টেরল কমাতে খুবই কার্যকর। এই কারণে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকিও কমে যায়। ফলে বুঝতেই পারছেন, হার্টের জন্য রসুনের উপকারিতাটা। প্রতিদিন রসুনের (Garlic) কয়েকটি কোয়া কাঁচা বা আধা সেদ্ধ করে খেলে কোলস্টেরলের মাত্রা কমে।


ডায়াবিটিস সারাতে


রক্তে চিনির মাত্রা ঠিক রাখতেও রসুন দারুণ ভূমিকা পালন করে। রসুনের (Garlic) মধ্যে থাকা সালফার-ভিত্তিক যৌগ অ্যালিসিন মূলত স্বাস্থ্যে এই ইতিবাচক প্রভাব ফেলে। এ ক্ষেত্রে একটি বিষয় মনে রাখতে হবে, রসুন কাঁচা খাওয়াই সব চেয়ে ভালো।


ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে


ওজন বেড়ে যাওয়ার সমস্যায় জর্জরিত বহু মানুষই। কিন্তু জানেন কি, সহজেই রসুন আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারে। তার জন্য রোজ সকালে ঘুম থেকে উঠে ইষদুষ্ণ গরম জলে লেবুর রস মিশিয়ে তো নিশ্চয়ই খাচ্ছেন। তা হলে এ বার থেকে লেবু জলের সঙ্গে ২ কোয়া রসুনও খেয়ে দেখুন। খুব শিগগিরিই ফল পাবেন। কারণ রসুন আপনার সিস্টেমকে সাফ রাখে আর টক্সিনগুলোকে শরীর থেকে বার করে দেয়।


শরীরকে ডিটক্স করতে


অন্যান্য ওষুধের তুলনায় শরীরকে (Health) ডিটক্স করতে রসুন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। বিশেষজ্ঞদের মতে, রসুন প্যারাসাইট, কৃমি পরিত্রাণ, জিদ, সাঙ্ঘাতিক জ্বর, ডায়াবিটিসের মতো বড় বড় রোগ প্রতিরোধ করতে অনেক উপকারী।


বাতের সমস্যা দূর করতে


রসুন (Garlic) গাঁটের বাতে অনেক উপকার করে থাকে। নিয়মিত ২ কোয়া করে রসুন (Garlic) খেলে গাঁটের বাত সেরে যেতে পারে।


যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধিতে


প্রতিদিন নিয়ম করে কয়েক কোয়া কাঁচা রসুন খেলে যৌবন দীর্ঘস্থায়ী হয়। যৌন ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য প্রতিদিন দু’কোয়া রসুন খাঁটি গাওয়া ঘিয়ে ভেজে মাখন মাখিয়ে খেতে পারেন। তবে খাওয়ার শেষে একটু গরম জল অথবা দুধ খাওয়া উচিত। এতে ভাল ফল পাওয়া যাবে। তবে এর জন্য রসুন অন্য ভাবেও খাওয়া যেতে পারে। কাঁচা আমলকির রস দুই বা এক চামচ নিয়ে তার সঙ্গে এক বা দুই কোয়া রসুন বাটা খাওয়া যায়।


যক্ষ্মা প্রতিরোধে


রসুনে (Garlic) এতো উপাদান যে, যদি আপনার যক্ষ্মা বা টিবি জাতীয় কোনও সমস্যা ধরা পড়ে, তা হলে সারা দিনে একটি গোটা রসুন কয়েক অংশে ভাগ করে বার বার খেতে থাকলে যক্ষ্মা রোগ নির্মূলে করা সম্ভব।


ব্লাড পিউরিফায়ার


স্কিনের (Skin) হাজারো সমস্যা, শরীরেরও হাজারো সমস্যা। এই সব সমস্যা গোড়া থেকে নির্মূল করতে সাফ রাখতে হবে রক্ত। আর তার জন্যও চাই রসুন (Garlic)। প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে কাঁচা রসুনের (Garlic) ২টো কোয়া নিয়ে ইষদুষ্ণ গরম জল দিয়ে খান আর সারা দিনে প্রচুর পরিমাণ জল খান, তা হলে রক্ত পরিষ্কার হবে। আর স্কিনের (Skin) নানা সমস্যাও দূর হবে।


দাঁতের ব্যথা সারাতে


রসুনের মধ্যে রয়েছে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল ও অ্যানেস্থেটাইজিং উপাদান। তাই দাঁতের ক্ষয়ে যাওয়া আটকানো থেকে শুরু করে সমস্ত দাঁতের সমস্যা দূর করতে রসুন (Garlic) দারুণ। মারাত্মক দাঁতের ব্যথায় কষ্ট পেলে কয়েকটা রসুন কোয়া নিয়ে চিবিয়ে নিন। সঙ্গে সঙ্গে দাঁতের ব্যথা দূর হবে। অথবা যে দাঁতে ব্যথা হচ্ছে, সেই জায়গায় রসুনের পেস্ট লাগিয়ে রাখুন। ২০ মিনিট রাখুন। দেখবেন, দাঁতের ব্যথা নিমেষে গায়েব!


স্কিনের জন্য রসুন


বুঝতেই পারছেন, রক্তকে পরিষ্কার রাখতে রসুন দারুণ উপকারী। আর তার ফলে স্কিনও (Skin) ভিতর থেকে পুষ্ট হয়। পরিষ্কার ও সুন্দর থাকে। আর স্কিনের (Skin) যাবতীয় সমস্যাও দূর করে।


cloves of garlic


অ্যাকনে পিম্পল দূর করতে


রসুনের (Garlic) মধ্যে রয়েছে অ্যান্টি-অক্সিড্যান্টস। স্কিনের (Skin) নানা ইনফেকশন তো দূর করেই। আর পিম্পলও সারিয়ে তোলে। রসুনের রস বার করে নিন। এর পর যেখানে যেখানে পিম্পল, সেখানে সেখানে লাগিয়ে ফেলুন। ১৫ মিনিট রাখার পরে ধুয়ে ফেলুন।


তিল অথবা আঁচিল দূর করতে


গবেষণায় প্রমাণিত যে রসুন (Garlic) ব্যাকটেরিয়াল ইনফেকশন থেকে স্কিনকে রক্ষা করে। তাই তিল অথবা আঁচিল দূর করতে রসুন দারুণ। তিলের উপর রোজ এক কোয়া রসুন নিয়ে ঘষতে থাকুন। দেখবেন, তিল অথবা আঁচিল দূর হয়েছে।


ব্ল্যাকহেডস দূর করতে


মুখে অতিরিক্ত তেল বার হয়ে ব্ল্যাকহেডস হয়। রসুনের মধ্যে রয়েছে স্কিন প্রোটেকটিভ পলিফেনল। যা অয়েল সিক্রেশন কন্ট্রোল করে। রসুন আর টোম্যাটো একসঙ্গে থেঁতলে নিয়ে পেস্ট বানিয়ে নিন। দারুণ এই ফেস মাস্ক। তা স্কিন পোরস বন্ধ করে দেয়। ব্ল্যাকহেডস দূর করে। আর স্কিনকেও সুন্দর করে তোলে।


অ্যান্টি-এজিং


রোজ রসুন খেলে অথবা রসুনের মাস্ক লাগালে স্কিনের (Skin) বলিরেখা বা রিঙ্কলস হয় না। মানে এটা অ্যান্টি-এজিং উপাদানও বটে। স্কিনের যৌবনও ধরে রাখে। কয়েকটা রসুন নিয়ে থেঁতো করে পেস্ট বানিয়ে নিন। তার মধ্যে মধু যোগ করুন। এ বার সেই পেস্টটা মুখে লাগিয়ে রাখুন। ১০ মিনিট পরে ইষদুষ্ণ গরম জলে ধুয়ে ফেলুন।


স্ট্রেচ মার্কস দূর করতে


স্ট্রেচ মার্কস দূর করতেও রসুন দারুণ উপকারী। রসুনের (Garlic) মধ্যে সালফার রয়েছে, য়া দেহের মার্কস দূর করে। স্কিনের (Garlic) ইলাস্টিসিটিও বাড়ায়। স্ট্রেচ মার্কসের উপর গরম রসুনের তেল লাগিয়ে নিন। এক সপ্তাহ টানা লাগানো হলে খুব শিগগিরিই পরিবর্তনটা দেখতে পাবেন।


নখ বড় করতে


রসুন (Garlic) নখকে ভঙ্গুর ও দুর্বল হয়ে যাওয়ার হাত থেকেও রক্ষা করে। নখের উপর গরম রসুনের তেল মাসাজ করুন। রোজ শুতে যাওয়ার আগে এই পদ্ধতি অবলম্বন করুন। তাতে কাজ হবে ভাল। নখের হলদেটে ভাবও দূর করে এই টোটকা।


চুলের জন্য রসুন


শুধু কি স্কিনের (Skin) জন্য, চুলের জন্যও দারুণ টোটকা রসুন (Garlic)। চুলের (Hair) নানা সমস্যায় চুল (Hair) বাড়াতে অথবা খুশকি তাড়াতে রসুন (Garlic) দারুণ উপকারী।


garlic paste


চুল বড় করতে


রসুনের মধ্যে থাকা অ্যালিসিন ব্লাড সার্কুলেশন বাড়াতে সাহায্য করে। ফলের চুলের বৃদ্ধিতেও অনেকটা সাহায্য হয়। তাই ডায়েটে রসুন (Garlic) থাকলে চুল বাড়ে। চুল শ্বাস-প্রশ্বাসও নিতে পারে এবং লম্বা ও ঘন সুন্দর চুল হয়।


খুশকি তাড়াতে


খুশকির সমস্যায় যাঁরা জেরবার, তাঁরা জেনে রাখুন যে খুশকি তাড়ানোর দারুণ টোটকা রসুন। কারণ এর মধ্যে থাকা অ্যান্টি-ফাংগাল উপাদান ড্রাই স্ক্যাল্প থেকে মুক্তি দেয় আর খুশকিও তাড়ায়। এর জন্য এক কাজ করতে পারেন। একটা প্যানে জল নিয়ে তার মধ্যে কয়েকটা রসুনের কোয়া ফেলে ফুটিয়ে নিন। এ বার ছেঁকে নিয়ে জলটা ঠান্ডা করুন। ওই জলটা দিয়ে চুল (Hair) ধুতে থাকুন সপ্তাহে অন্তত তিন বার। তার পর দেখতে পাবেন, খুশকির সমস্যা দূর হয়েছে।


ঝলমলে চুলের জন্য


অনেক সময় অপুষ্টিজনিত কারণে চুলের (Hair) ঝলমলে ভাবটা চলে যায়। সেটা ফিরিয়ে আনে রসুন। কারণ পুষ্টির অভাব দূর করে রসুন। পাশাপাশি এর মধ্যে থাকা নিউট্রিয়েন্টস চুলের ঝলমলে ভাব ফিরিয়ে আনে। ২-৩টে রসুন কোয়া থেঁতো করে আপনার শ্যাম্পুতে মিশিয়ে নিন। এ বার শ্যাম্পু ব্যবহার করার পরে দেখবেন, চুল (Hair) অনেক সফট আর শাইনি হয়ে উঠেছে।


হেয়ার ফল রোধ করতে


স্ক্যাল্প থেকে বিষাক্ত পদার্থ দূর করে রসুন। পাশাপাশি হেয়ার ফল বন্ধ করার অন্যতম ঘরোয়া টোটকা হল রসুন। অলিভ অয়েলের মধ্যে কয়েকটা রসুন কোয়া দিয়ে ফুটিয়ে নিন। সপ্তাহে অন্তত এক বার এই তেল চুলে মাসাজ করলে দেখবেন চুল পড়া বন্ধ হয়ে গিয়েছে।


চুল পেকে যাওয়া রোধ


চুল পেকে যাওয়া বন্ধ করার খুব ভাল দাওয়াই হল রসুন (Garlic)। গরম করা নারকেল তেলে ২-৩টে রসুন কোয়া যোগ করুন। তেলটা ঠান্ডা করে শুতে যাওয়ার আগে চুলে লাগিয়ে রেখে দিন। সকালে উঠে শ্যাম্পু করে নিন। এই পদ্ধতিটা সপ্তাহে অন্তত এক বার অবলম্বন করে দেখুন। দেখবেন, চুল পেকে যাওয়ার সমস্যা অনেকটা দূর করছে।


রসুনের ব্যবহার নিয়ে কিছু প্রশ্নোত্তর


garlic in kitchen


প্রশ্ন: সেদ্ধ রসুন খেলে কি উপকার পাওয়া যাবে?


উত্তর: হ্যাঁ, সিদ্ধ রসুন খেলে অবশ্যই উপকার পাওয়া যায় কিছু রোগের ক্ষেত্রে। তবে কাঁচা রসুন খাওয়াই ভাল। কারণ কাঁচা রসুনের গুণাগুণ অনেক বেশি।


প্রশ্ন: রসুন খাওয়ার ২-৩ মিনিট পরে জল খেলে কি রসুনের গুণাগুণ কমে যাবে?


উত্তর: না, সেটা কখনওই কমে যাবে না। অনেক সময় খালি পেটে রসুন খাওয়ার সময় ঝাল লাগে এবং পেটে ব্যথা হয়। ফলে আপনাকে জল খেতেই হবে। তবে এতে গুণাগুণ কমে যাবে না।


ছবি সৌজন্যে: পেক্সেলস ও পিক্সঅ্যাবে


POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি এবং বাংলাতেও!