আপনার কেনা সোনা আসল কিনা, তা বাড়িতেই ঠিক করে যাচাই করে নিন!

আপনার কেনা সোনা আসল কিনা, তা বাড়িতেই ঠিক করে যাচাই করে নিন!

গয়না হোক কিংবা কয়েন বা বিস্কুট, gold-এ আমরা সবাই কখনও না কখনও বিনিয়োগ করেছি। কিন্তু আপনি কি কখনও ভেবে দেখেছেন যে আপনি যে সোনা কিনেছেন সেটা খাঁটি কি না। অনেকসময়েই আমরা কিন্তু ব্র্যান্ডেড সোনা কিনি না, অর্থাৎ যেগুলো বিশ্বাসযোগ্য ব্র্যান্ড সেখান থেকে না কিনে ছোটখাটো জায়গা থেকে কিনি, কারণ সেখানে হয়তো মজুরিটা তুলনামুলক ভাবে কম; কিন্তু কিছু পয়সা বাঁচাতে গিয়ে অনেকক্ষেত্রেই আমরা ঠকে যাই। আপনি যে সোনাটা কিনছেন, সেটা গয়না হোক বা অন্য কোনও ফর্মে সোনাই হোক, সেটা কতটা খাঁটি সেটা পরীক্ষা করার দায়িত্ব কিন্তু আপনারই। কীভাবে পরীক্ষা করবেন? বলে দিচ্ছি –


সোনা খাঁটি কি না সেটা বাড়িতেই পরীক্ষা করুন এই সহজ ধাপগুলো মেনে


কষ্টার্জিত অর্থে কেনা সোনা আসল নাকি নকল সেটা হয়তো সব সময়ে চোখে দেখে বোঝা সম্ভব নয়, কিন্তু কয়েকটা সহজ পদ্ধতিতে আপনি ঠিক বুঝে যাবেন যে আপনার কেনা সোনা খাঁটি নাকি নয় -


১। নাইট্রিক অ্যাসিড দিয়ে


আপনার গয়না অথবা সোনার কয়েন থেকে সামান্য একটু অংশ ঘষে সংগ্রহ করে নিন। এবারে একটা ড্রপারে নাইট্রিক অ্যাসিড ভরে নিয়ে সংগ্রহ করা সোনার ওপরে ফোঁটা ফোঁটা করে ফেলুন। যদি সোনার রঙ পরিবর্তিত না হয় তাহলে বুঝবেন যে আপনি যে সোনাটি কিনেছেন সেটি খাঁটি। কিন্তু যদি দেখেন যে ধাতুর রঙ বদলে যাচ্ছে এবং হালকা একটা সবজে আস্তরণ পড়ছে তাহলে বুঝতে হবে যে আপনার সোনাটি খাঁটি নয়, অন্য কোনও ধাতু যেমন তামা বা ব্রোঞ্জ মেশানো আছে। নাইট্রিক অ্যাসিড সোনার সাথে কোনও রাসায়নিক বিক্রিয়া করে না, কিন্তু অন্য ধাতুর সাথে এর রাসায়নিক বিক্রিয়া হয়।


২। হলমার্ক দেখে নিন


goldখুব সহজে দোকানে থাকাকালীনই আপনি যাচাই করে নিতে পারেন, যে সোনার গয়না বা কয়েন অথবা বাট আপনি কিনছেন সেটি খাঁটি কিনা। কীভাবে? হলমার্ক চিন্হ দেখে। বেশিরভাগ সময়েই হলমার্ক চিন্হ গয়নার ভেতরের দিকে দেওয়া থাকে। সাধারণত ২৪, ২২, ১৮, ১৪ বা ১০ এই নম্বরগুলি লেখা থাকে। এগুলো হল ক্যারেট নম্বর যা দিয়ে বোঝা যায় যে সোনা কতটা খাঁটি। নম্বর যত বেশির দিকে থাকবে বুঝতে হবে সোনার গুণগত মান তত ভালো। সাধারণত ২২ বা ২৪ ক্যারেটের সোনাই কেনা উচিত।


৩। চুম্বকের সাহায্যে


সোনা খাঁটি নাকি অন্য কোনও ধাতু মেশানো আছে সেটা জানার আরও একটা সহজ পদ্ধতি হল চুম্বকের সাহায্যে পরীক্ষা করা। একটা ভালো কোয়ালিটির শক্তিশালী চুম্বক হার্ডওয়্যারের দোকান থেকে নিয়ে আসুন এবং আপনার কেনা সোনার গয়না বা কয়েন বা বাটের কাছাকাছি নিয়ে যান। যদি দেখেন যে সোনা চুম্বকের সাথে লেগে যাচ্ছে না তাহলে বুঝবেন যে সোনা খাঁটি, কারণ চুম্বক সোনাকে আকৃষ্ট করে না।


৪। কামড়ে দেখুন


how-to-identify-real-gold-at home %281%29হ্যাঁ, একদম ঠিক পড়েছেন। সোনা আসল নাকি সোনার নামে আপনাকে পেতল দিয়ে দিয়েছে সেটা বোঝার আরও একটা সহজ উপায় হল যে সোনাটি আপনি কিনেছেন তাতে বেশ জোড়ে একটা কামড় বসান। যদি দেখেন যে দাঁতের দাগ পড়েছে তাহলে বুঝবেন যে ওটি সোনাই, কারণ সোনা খুবই নরম ধাতু।


৫। সেরামিক প্লেট দিয়ে


সেরামিকের একটা প্লেট নিন, এবারে তার ওপর দিয়ে সোনার বাট বা কয়েন বা গয়না যেটাই কিনে থাকুন, সেটা আস্তে আস্তে ঘষুন। যদি দেখেন কালচে দাগ পড়ছে প্লেটের ওপরে তাহলে বুঝবেন যে আপনাকে ঠকিয়ে নকল সোনা দেওয়া হয়েছে L


POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!