কার্লি চুলের (Curly hair) যত্ন আর স্টাইলিংয়ের সাত-সতেরো

কার্লি চুলের (Curly hair) যত্ন আর স্টাইলিংয়ের সাত-সতেরো

যাঁদের কার্লি চুল (Curly hair), অনেক সময় তাঁরা বুঝে উঠতে পারেন না যে, চুলে (Hair) ঠিক কোন স্টাইলটা (Style) মানাবে। মনে মনে ভাবেন, স্ট্রেট চুলই বোধহয় ভাল! অনেকে তো তাই চুল (Hair) স্ট্রেট করিয়েও নেন। ও দিকে আবার যাঁদের ন্যাচারালি স্ট্রেট চুল, তাঁরাও ঠিক উল্টোটাই ভাবেন! আসলে ব্যাপারটা হচ্ছে, ন্যাচারাল যেটা, সেটাই আপনার জন্য বেস্ট। মানে আপনার যদি ন্যাচারালি কার্লি হেয়ার (Curly hair) হয়, তা হলে সেটাই রাখুন। অযথা স্ট্রেট করানো বা কেমিক্যাল ট্রিটমেন্ট থেকে দূরেই থাকুন। আর কে বলেছে, কার্লি চুল (Curly hair) মেইন্টেন করা এবং স্টাইলিং (Styling) করা খুব কঠিন! অনায়াসেই যত্ন নেওয়া যেতে পারে কার্লি চুলের (Curly hair)।


কার্লি চুলের যত্ন


curls


প্রথমেই আসি কার্লি চুলের (Curly hair) যত্নের প্রসঙ্গে। কয়েকটা স্টেপস ফলো করলে আর মনে হবে না যে, কার্লি চুলের (Curly hair) যত্ন নেওয়া খুব কঠিন ব্যাপার।


হেয়ার ব্রাশ নয়


চুল (Hair) আঁচড়ানোর সময় হেয়ার ব্রাশ ব্যবহার করলে চলবে না। বড় দাঁতের চিরুনি ব্যবহার করতে হবে। এতে আপনার কার্লসও ঠিকঠাক থাকবে। না হলে জট ছাড়াতে গিয়ে চুল ছিঁড়ে যেতে থাকবে।


আঁচড়ানোর পদ্ধতি


কার্লি চুলে (Curly hair) তো একটুতেই জট পড়ে যায়। সে ক্ষেত্রে জট ছাড়ানোর জন্য নীচের দিক থেকে চুল আঁচড়ে নিতে হবে। কার্লি চুলের ক্ষেত্রে কিন্তু একদম উপর থেকে আঁচড়ালে চুলের (Hair) ক্ষতি হতে পারে।


নিয়মিত ট্রিমিং


কার্লি চুলের (Curly hair) যত্নে নিয়মিত ট্রিমিং কিন্তু মাস্ট। কারণ স্প্লিট এন্ডস থাকলে কার্লি চুল দেখতেও খারাপ লাগবে আর ম্যানেজও করা যাবে না সহজেই। তাই ৪ অথবা ৬ সপ্তাহে এক বার ট্রিম করাতেই হবে।


ডিপ কন্ডিশনিং


কার্লি চুলে ময়েশ্চার যাতে লকড থাকে, তাই তার জন্য ডিপ কন্ডিশনিং করতে হবে। চুলে নারকেল তেল লাগিয়েও ডিপ কন্ডিশনিং করা যায়। স্নানের আগে কন্ডিশনিংয়ের পরে একটা শাওয়ার ক্যাপ আটকে নেবেন। প্রথমে গা ধুয়ে নেবেন, তার পর চুল ধুতে হবে। পুরোপুরি কন্ডিশনার না ধুলেও চলবে।


কন্ডিশনিং পদ্ধতি


অল্প করে সালফেট-ফ্রি শ্যাম্পু নিন। তার মধ্যে বেশি করে ক্লিনজিং কন্ডিশনার মেশান। কারণ এটা চুল পরিষ্কার করার সঙ্গে সঙ্গে আপনার চুলকে ময়েশ্চারাইজও করবে। এ বার এই মিশ্রণকে চুলে ও স্ক্যাল্পে ভাল করে মাসাজ করুন। চুলের গোড়ায় ভাল করে মাসাজ করতে হবে কারণ এই জায়গাটা বেশি অয়েলি হয়। কয়েক মিনিট পরে ধুয়ে ফেলুন। এই পদ্ধতি আপনার চুলের ন্যাচারাল অয়েলস না নষ্ট করেই চুলকে পরিষ্কার করবে।


তোয়ালে নয়


স্নানের পরে চুলে তোয়ালে জড়িয়ে রাখেন নিশ্চয়ই! এ বার থেকে তোয়ালে না ব্যবহার করে পুরনো টি-শার্ট জড়িয়ে রাখুন। কারণ তোয়ালে চুলের জল এবং ময়েশ্চার অতিরিক্ত পরিমাণে শুষে নেয়। টি-শার্টের মসৃণ ভাব আপনার কার্লগুলোকে আরও সুন্দর রাখবে আর ময়েশ্চারও শুষে নেবে না।


পাইন্যাপল ট্রিক


শুতে যাওয়ার সময় কার্লি চুল নিয়ে কী করবেন, বুঝে উঠতে পারেন না? সে ক্ষেত্রে ফলো করুন পাইন্যাপল ট্রিক। সে আবার কী! পাইন্যাপল ট্রিক হল- মাথার এক দম উপরে চুলটাকে আলগা করে আটকে নেওয়া। ব্যস! এ ভাবে ঘুমোলে দেখবেন, চুলে আর জট সে রকম পড়ছে না।


কার্লি চুলের স্টাইল


curly hair


কার্লি চুলের (Curly hair) যত্ন না হয় হল! কিন্তু এ বার স্টাইলিংয়ের (Styling) দিকেও নজর দিতে হবে। কারণ কার্লি চুল নিয়ে কী ভাবে স্টাইল করবেন, অনেকেই তা ভেবে পান না। দেখে নিন, কার্লি চুলের (Curly hair) কিছু স্টাইল (Style)। যা খুবই সহজ।


টপ নট


গরমের জন্য কার্লি চুলের (Curly hair) দারুণ স্টাইল (Style) এটা। চুলগুলোকে জড়ো করে একটা পনিটেলের মতো করে রাবার ব্য়ান্ড আটকে নিন। এ বার পনিটেলটাকে ২ ভাগে ভাগ করে ফেলুন। এ বার প্রথমে একটা ভাগকে নিয়ে আপনার রাবার ব্যান্ডের চারপাশ দিয়ে জড়িয়ে শেষ প্রান্তে একটা হেয়ার পিন আটকে নিন। তার পর দ্বিতীয় অংশটাকেও একই ভাবে জড়িয়ে নিয়ে হেয়ার পিন আটকাতে হবে। রেডি আপনার টপ নট স্টাইল!


kangana top knot bun


ব্রেইডেড টপ নট


টপ নট তো না হয় রোজকার জন্য ঠিক আছে। কিন্তু কোথাও স্পেশ্যাল কিছু থাকলে অথবা পার্টিতে যেতে এই স্টাইলটা করতে পারেন। খুবই সোজা। সাধারণ টপ নট করার সময় কিছুটা চুল ছেড়ে রাখবেন। এ বার সেই ছাড়া অংশটাকে বিনুনি করে টপ নটের সামনে দিয়ে জড়িয়ে নিয়ে শেষ প্রান্তে একটা হেয়ার পিন আটকে দিন।


ব্রেইডেড হেড ব্যান্ড


ধরুন, আপনার কার্লি চুল (Curly hair) ছেড়ে রাখতে চাইছেন। কিন্তু আবার মনে হচ্ছে চুল (Hair) হাওয়ায় উড়লেই তো সেই মুখে এসে পড়বে অথবা জট পড়বে। তাই সেটা যাতে না হয়, তার জন্যই তো এই হেয়ার স্টাইলটা (Styling)। চুলটা ভাল করে আঁচড়ে নিয়ে সাইড থেকে ২ ভাগে ভাগ করে নিন। এ বার বাঁ কানের দিক থেকে সামনের দিকের চুলের কিছুটা অংশ নিয়ে বিনুনি করতে শুরু করুন। বিনুনি শেষ হলে তার শেষ প্রান্তটি ডান কানের পিছনে হেয়ার পিন দিয়ে আটকে নিন।


কার্লি চুলের কিছু হেয়ার কেয়ার প্রোডাক্টস


কার্লি চুলের জন্য কিছু হেয়ার কেয়ার প্রোডাক্টসেরও সন্ধান দিচ্ছি আমরা। দেখে নিন সেগুলো।


StBotanica মরোক্কান আর্গন হেয়ার শ্যাম্পু উইথ অর্গ্যানিক আর্গন অয়েল (নো সালফেট, প্যারাবেন)


বুঝতেই পারছেন, সালফেট ফ্রি শ্যাম্পু এটা। যেটা কার্লি চুলের জন্য এক কথায় দারুণ। তা ছাড়াও নানা রকম অয়েলস আপনার চুলকে সুন্দর ও মজবুত করার সঙ্গে সঙ্গে চুলে জৌলুসও ফিরিয়ে আনবে আর আপনার কার্লগুলিকেও সুন্দর মেইন্টেন করবে। 


দাম- ৪৯৯ টাকা


এখান থেকে কিনতে পারেন


দ্য বডিশপ রেনফরেস্ট রেডিয়্যান্স ডিট্যাংলিং স্প্রে


চুলে জট পড়তে দেবে না এই স্প্রে। চুলে শ্যাম্পু করার পরে এই স্প্রে লাগিয়ে নিলে চুলে জট পড়বে না আর চুলও থাকবে সিল্কি-শাইনি।


দাম- ৭৯৫ টাকা


এখান থেকে কিনতে পারেন


ফ্লাকসীড হেয়ার জেল ফর কার্লি হেয়ার- কায়োস বোটানিক্যালস


এই জেলটির মধ্যে রয়েছে রিচ ওমেগা-৩ ফ্যাটস। যা চুলকে মজবুত এবং ঝলমলে করে তোলে। বিশেষ করে কার্লি চুলের জন্যই এটা বানানো। আপনার কার্লগুলোকে সুন্দর ভাবে মেইন্টেন করবে।


দাম- ৫৯৯ টাকা


এখান থেকে কিনতে পারেন


ছবি সৌজন্যে: ইনস্টাগ্রাম


POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি এবং বাংলাতেও!