এই দশটি যোগাব্যায়ামের মাধ্যমে Stress থেকে মুক্তি পান

এই দশটি যোগাব্যায়ামের মাধ্যমে Stress থেকে মুক্তি পান

ভারতীয় যোগবিদ্যার (Yoga) ইতিহাস বহু প্রাচীন। হাজার হাজার বছর ধরে চলে আসা এই যোগবিদ্যার (Yoga) দ্বারা বহু মানুষ উপকৃত হয়েছেন এবং এখনও হচ্ছেন। যোগ ব্যায়ামের (Yogasana) মাধ্যমে আমাদের যে শুধু শারীরিক সমস্যার সমাধান হয় তাই নয়, মানসিক চাপ (stress) থেকেও ঘটে মুক্তি। হ্যাঁ, ঠিক শুনেছেন। সেইজন্যও আজকের দুনিয়ায় বহু অফিসে শুরু হয়েছে যোগব্যায়ামের (yogasana) ক্লাস। যাতে কর্মীরা কাজের চাপ সহজে নিতে পারেন। আর শুধু অফিসের কাজের কথা ভাবলেই তো আর হল না, আছে সংসারের দায়িত্ব আর সম্পর্কের টানাপোড়েন। এত চাপ (stress) আছে বলেই তো চাপ মুক্তির উপায় নিয়ে হাজির হয়েছি আমরা। দেখে নিন দশটি যোগ ব্যায়াম যার মাধ্যমে আপনি পেয়ে যাবেন স্ট্রেস আর মানসিক চাপ থেকে মুক্তি। তাহলে আর দেরি না করে রিল্যাক্স করা শুরু করে দিন।


মানসিক চাপ আসলে কী?


শারীরিক অসুস্থতার মতো মনে যখন ডিসব্যালান্স দেখা দেয় এবং আমরা অকারণে ভয় পাই,নারভাস হয়ে পড়ি বা রেগে যাই তখন বুঝতে হবে আমরা স্ট্রেসের শিকার।


যোগব্যায়াম কীভাবে স্ট্রেস কমায়?


যেহেতু যোগব্যায়াম করার সময় শ্বাস প্রশ্বাস নেওয়া হয় সেহেতু আমাদের শরীরের মধ্যে যে নার্ভাস সিস্টেম আছে সেটা রিল্যাক্স করার সুযোগ পায়। যোগব্যায়াম করার সময় পেশি শিথিল হয়ে জায়ে ফলে টেনশন মুক্তি হয়। আমাদের নার্ভাস সিস্টেম ব্যালেন্সে ফিরে আসে বলে শরীর থেকে হ্যাপি হরমোন নিঃসৃত হয় তাই স্ট্রেস অনেকটাই কমে যায়।


#আসন ১


উসট্রাসন


ustrasana


হাঁটু ভাঁজ করে পিঠ সোজা করে বসুন। মাথা পিছনে হেলিয়ে দুই হাট দিয়ে দুটো গোড়ালি ধরুন। এতে সারা শরীরে রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পাবে এবং শরীরের কোষে অক্সিজেন সাপ্লাই হবে। মন আর শরীরে আসবে স্ফূর্তি।


#আসন ২


সেতু বন্ধাসন


setubandhasana


দুই হাত পাশাপাশি রেখে শুয়ে পড়ুন। এবার পায়ের পাতা মাটিতে রেখে কোমরের ঠেলে উপরে তুলুন। হাত দুটো একসাথে করে পিঠের পিছনে দিয়ে দিন। বুকের অংশও ঠেলে উপরে দিকে করুন। দেখতে যেন একটা উল্টো ব্রিজের মতো লাগে। 


# আসন ৩


বদ্ধ কোনাসন


baddhakonasana


এই আসন থাইয়ের অংশে স্ট্রেচ করার জন্য বেশ ভালো। মেরুদণ্ড সোজা করে বসুন। দুটো পায়ের পাতা একসাথে করে বসুন। হাত দিয়ে পা শক্ত করে ধরে থাকুন। হিপ, গ্রোইন ও পিঠ রিল্যাক্স করতে এই আসন কাজে দেয়।  সামনের দিকে মাথা ঝুঁকিয়ে হাত ঘুরিয়ে পিছন দিকেও নিয়ে যেতে পারেন। তবে যোগব্যায়ামে অভ্যস্ত না হলে এটা করবেন না।  


# আসন ৪


পশ্চিমোত্তানাসন


paschimanottasana


পা ছড়িয়ে বসে সামনের দিকে ঝুঁকে দু’হাত দিয়ে পায়ের পাতা ধরুন। মুখ হাঁটুর কাছে গুঁজে দিন। আবার উঠুন লম্বা শ্বাস নিন। আবার ঝুঁকে পড়ে একই জিনিস রিপিট করুন।


# আসন ৫


দণ্ডাসন


dandasana 2


কোর স্ট্রেংথ বা ভিতরের শক্তির জন্য এই আসন প্রয়োজন। দু পা সোজা করে মেরুদণ্ড সোজা রেখে বসুন। দুই হাত দুপাশে রাখুন। এবার লম্বা লম্বা শ্বাস নিন আর ছাড়ুন। এটা খুবই সোজা আসুন। দেখবেন যখন এটা হয়ে যাচ্ছে অসম্ভব ফুরফুরে লাগছে। কারণ মেরুদণ্ড শিথিল হলেই অনেকটা চাপমুক্ত হয়ে যায় শরীর।


# আসন ৬


উত্থিত ত্রিকোনাসন


utthita trikonasana


দু পা ফাঁক করে দাঁড়ান। এবার এক দিকে সাইডে ঝুঁকে একটা হাত দিয়ে পায়ের পাতা ধরুন আর অন্য হাত সোজা করে উপরে তুলে রাখুন। একই জিনিস অন্যদিকে রিপিট করুন। এই আসন দুই বিপরীত শক্তির মিলন ঘটিয়ে শরীরে সাম্য বা ব্যালেন্স নিয়ে আসে। এই আসনের জন্য যে টুইস্ট ও স্ট্রেচ করতে হয় তার প্রভাব পড়ে মেরুদণ্ডে যার ফলে স্ট্রেস মুক্তি হয়।


# আসন ৭


মার্জারীসন


marjarasan


মার্জার মানে বেড়াল। একে তাই বেড়াল বা গরু পোজও বলা হয়। কারণ চারপেয়ে জন্তুর মতো দেখতে লাগে এই আসন করার সময়। হাঁটু মুড়ে নীচের দিকে ঝুঁকে দু হাত সোজা করে থাকুন। এতে শরীরের নমনীয়তা বাড়ে এবং চাপ মুক্তি ঘটে। এবার এক পায়ে ভর দিয়ে আরেকটা পা স্ট্রেচ করুন আর হাত দিয়ে সেই পায়ের পাতা ধরুন। যদি ডান পা তলেন তাহলে বাঁ হাত দিয়ে ধরবেন। 


# আসন ৮


বালাসন


balasana


বালাসন অর্থাৎ একটি শিশুর মতো পোজ। এটি শরীর ও মনকে খুব শান্ত করে দেয়। যেহেতু এই পোজে ব্যাক স্ট্রেচ হয় তাই এটি মেরুদণ্ডে রিল্যাক্সেশান হয়। তাছাড়াও এটি পেশীঘটিত সমস্যা যেমন ঘাড়ে, পিঠে ও কাঁধে ব্যথা কমায়। টেনডনস, পেশী এবং হাঁটুর জয়েন্ট অনেক নমনীয় করে দেয় এই পোজ। গর্ভস্থ শিশুর পোজ বলে এটি মানসিক চাপ অনেকটাই কমিয়ে দেয়। দু পা ভাঁজ করে জড়ো করুন। পেটের অংশ পায়ের উপর দিকে বাকি শরীর সামনের দিকে ঝুঁকিয়ে মাটিতে দুই হাত দিয়ে মাথা ঝুঁকিয়ে থাকুন।  


# আসন ৯


ধনুরাসন


dhonurasana


অর্থাৎ ধনুকের মতো আসন। উপুড় হয়ে শুয়ে পড়ুন। এবার দুটো পা উল্টো দিকে ভাঁজ করে দুটো হাত দিয়ে পা ধরুন। আপনার শারীরিক পোজ যেন একটা ধনুকের মতো লাগে। পেটের পেশীর উপর কাজ করে এই আসন। পিঠে কোনও সমস্যা থাকলে সেটাও নিয়ন্ত্রণে আসে।  


 


# আসন ১০


শবাসন  


shabasana


মানসিক চাপ, উদ্বেগ আর দুশ্চিন্তা কাটাতে শবাসনের জুড়ি নেই। শবাসন শরীরকে বলে বিশ্রাম নিতে এবং তার মাধ্যমেই আবার শরীরে এনার্জি প্রবেশ করে। প্রতিদিন ৫ থেকে ১০ মিনিট এই আসন করুন। দু হাত দু পাশে রেখে শরীর টান টান করে পা ছড়িয়ে শুয়ে পড়ুন।


POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!


Picture Courtsey: IndianYoga and Rohini Daswani