মোটা নয়, রোগা হন নিয়মিত কলা খেয়ে!

মোটা নয়, রোগা হন নিয়মিত কলা খেয়ে!

ওজন কমাতে নিয়মিত একটা করে কলা (banana) খান। দেখবেন, ফল মিলবে হাতে-নাতে। জানি, অনেকেই বলেন যে কলা খেলে নাকি ওজন বাড়ে। কথাটা যে ভুল, তা নয়। কিন্তু এটাও ঠিক যে, ওজন কমাতেও (Lose Weight) সেই একই ফল নানা ভাবে সাহায্য করে থাকে (Lose Weight)! বিশেষত, কলায় উপস্থিত স্টার্চ এবং ফাইবার বহুক্ষণ পেট ভরিয়ে রাখে। ফলে খিদে কমে যায়। আর কম খেলে যে ওজন কম, তা কি আর বলার অপেক্ষা রাখে!


কলা কীভাবে ওজন কমায়?


bananas-1 final


গ্লাইসেমিক ইনডেক্সে একেবারে নীচের দিকে রয়েছে এই ফলটি। অর্থাৎ কলা খেলে হঠাৎ করে সুগার লেভেল বেড়ে যাওয়ার ভয় থাকে না। উপরন্তু রক্তে যাতে শর্করার মাত্রা বেড়ে না যায়, সেদিকেও খেয়াল রাখে এই ফলটি। সঙ্গে মেটাবলিক রেটকেও নিয়ন্ত্রণ করে। এই কারণে শরীরকে অনেক বেশি মাত্রায় ফ্যাট বার্ন করে এনার্জির ঘাটতি মেটাতে হয়। আর এত পরিমাণে চর্বি ঝরার কারণে ওজন কমতে সময় লাগে না।


আরও পড়ুন: ত্বক ও চুলের যত্নে এবং স্বাস্থ্য রক্ষায় সবেদার উপকারিতা


ওজন কমাতে গেলে কতগুলি কলা খেতে হবে?


দিনে একটা করে মাঝারি মাপের কলা খেলে শরীরে ১০৫ ক্যালরি, ২৭ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট, ৩ গ্রাম ফাইবার এবং আরও নানা সব মাইক্রো-নিউট্রিয়েন্টের প্রবেশ ঘটে। এমনকী, ভিটামিন এবং মিনারেলের ঘাটতিও মেটে। বাড়ে ফাইবারের মাত্রাও। ফলে পুষ্টির ঘাটতি তো দূর হয়ই, সঙ্গে বহুক্ষণ পেট ভরা থাকে। বেশি পরিমাণে খাওয়ার ইচ্ছাটাই যদি আর না থাকে, তা হলে ওজনও নিয়ন্ত্রণে থাকবে।


এক্সারসাইজের আগে ও পরে কলা খান


শরীরচর্চা শুরু করার আগে বা পরে যদি একটা করে কলা খাওয়া যায়, তা হলে ক্লান্তি দূর হয়। পেশির গঠনও সুঠাম হয়। সেই সঙ্গে শরীরে পটাশিয়ামের ঘাটতি মেটে, যে কারণে শরীরে জল জমে থাকার আশঙ্কা কমে। আর ওয়াটার রিটেনশন (water retention) যত কম হয়, ওজন বাড়ার আশঙ্কাও তত কমবে।


ওজন কমাতে কীভাবে কলা খেতে হবে?


bananas-2 final


এমনিই-এমনিই খেতে পারেন! আবার ওটসের সঙ্গে মিশিয়ে খেলেও চলবে। দইয়ের সঙ্গে কলা আর মধু মিশিয়ে বানানো স্মুদি খেলেও সমান উপকার পাওয়া যায়। কিন্তু ভুলেও হাই ফ্যাট দুধের সঙ্গে কলা, বাদাম এবং চকোলেট মিশিয়ে খাবেন না। তাতে ওজন বাড়াতে পারে। আর দিনে একটার বেশি কলা খাওয়া চলবে না। এই নিয়মগুলি মানলে ওজন তো কমবেই, শরীরও সুস্থ থাকবে।


আরও পড়ুন: অতিরিক্ত মেদ ঝরাতে (fat burning) ব্রেকফাস্টে (breakfast) খান স্মুদি (smoothie)


কলা খাওয়ার উপকারিতা


১. নিয়মিত একটা করে কলা খেলে হার্টের ক্ষমতা বাড়ে। এতে উপস্থিত ফইবার এক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।


২. কলায় রয়েছে প্রচুর মাত্রায় পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, আয়রন, ফলেট, নিয়াসিন এবং রাইব্লোফবিন (riboflavin), যা একাধিক রোগকে দূরে রাখে।


৩. ব্লাড প্রেসারকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে চান? প্রতিদিন একটা করে কলা খাওয়া শুরু করুন। দেখবেন, উপকার পাবেন হাতে-নাতে। এতে উপস্থিত পটাশিয়াম এক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।


৪. এই ফলটিতে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় আয়রন, যা লোহিত রক্তকণিকার উৎপাদন বাড়িয়ে দেয়। ফলে অ্যানিমিয়ার মতো রোগ ধারে কাছেও ঘেঁষতে পারে না।


 


POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!


আপনি যদি রংচঙে, মিষ্টি জিনিস কিনতে পছন্দ করেন, তা হলে POPxo Shop-এর কালেকশনে ঢুঁ মারুন। এখানে পাবেন মজার-মজার সব কফি মগ, মোবাইল কভার, কুশন, ল্যাপটপ স্লিভ ও আরও অনেক কিছু!