বর্ষাকালে সুস্বাদু ইলিশ কিনতে ও খেতে ঢুঁ মারুন কলকাতার এই বাজার ও রেস্তরাঁগুলিতে

বর্ষাকালে সুস্বাদু ইলিশ কিনতে ও খেতে ঢুঁ মারুন কলকাতার এই বাজার ও রেস্তরাঁগুলিতে

কথায় বলে, মাছেদের মধ্যে ইলিশ নাকি রাজা, আর রুই-কাতলা তার প্রজা! কথাটা যে ষোলো আনাই খাঁটি, সেকথা মেনে নেবেন প্রতিটি বাঙালি খাদ্যরসিকই। কারণ, টিপটিপ বৃষ্টির দিনে প্রথম পাতে গরম গরম ঘি-ভাতের সঙ্গে সরষের তেলে কড়া করে ভাজা ইলিশের স্বাদ, শীতের দিনে কম্বল মুড়ি দিয়ে শোওয়ার মতোই মনোরম। সঙ্গে যদি থাকে সরষে ইলিশ বা তেল ইলিশের (Hilsa) মতো পদ, তা হলে তো খাবার টেবিলে ঝড় উঠতে বাধ্য! ইলিশ মাছ এতটাই সুস্বাদ যে, এই মাছ দিয়ে হরেক স্বাদের নানা পদ তৈরি করা হয়ে থাকে। কোনও-কোনও বাঙালি বাড়িতে যেমন ভাপা ইলিশের জনপ্রিয়তা তুঙ্গে, তেমনই কেউ-কেউ আবার মুড়ো আর ল্যাজার সঙ্গে গুড়-তেঁতুল মিশিয়ে তৈরি টক খেতে বেজায় পছন্দ করেন। সরষে ইলিশ বা জিরে-লঙ্কা দিয়ে রান্না করা পাতলা ইলিশের ঝোলও কম মুখরোচক নয়। তবে আজ থেকে বছরদশেক আগেও বর্ষকালে প্রতিটি বাঙালি বাড়িতে যে হারে ইলিশের নানা পদ রান্না হত, সেভাবে এখন আর হয় না। যদিও এর পিছনে একটা কারণও রয়েছে। বর্তমানে বেশিরভাগ গৃহকর্ত্রীই ব্যস্ত তাঁদের চাকরি নিয়ে। সারা দিন অফিসের হাল টেনে তাঁরা এতটাই ক্লান্ত থাকেন যে, বাড়ি ফিরে 'ভাপা ইলিশ' রাঁধতে তাঁদের যে মন চাইবে না, তা তো বলাই বাহুল্য। এমনকী, ইলিশ মাছ কাটার পরে পিসগুলিকে যে আর জলে ধোওয়া উচিত নয়, সেকথাও অনেকেরই অজানা। তাই তো অনেকেরই আজ বাড়িতে তৈরি ইলিশের স্বাদ সেভাবে আর মুখে রোচে না। অগত্যা খাঁটি ইলিশের স্বাদ পেতে বাঙালিরা ভিড় জমান কলকাতার নানা বাঙালি রেস্তরাঁয়। আপনিও কি ইলিশ খেতে হোটেল মুখি হন? তাহলে জেনে নিন কলকাতার (Kolkata) সেরা সেই সব বাঙালি রেস্তাঁরাগুলি সম্পর্কে, যেখানে নানা স্বাদের খাঁটি ইলিশের সব পদ পরিবেশন করা হয়ে থাকে।

এখনও যে সব বাঙালি বাড়িতে হেঁসেলের দায়িত্ব ঠাকুমা-দিদিমা, নয়তো মা-মাসিদের হাতে, তাঁরা যে রেস্তরাঁয় গিয়ে ইলিশ খেতে চাইবেন না, সেকথা তো হলফ করে বলতেই পারি। তাই তো কলকাতা শহরের এমন কিছু বাজারেরও উল্লেখ থাকল এই প্রতিবেদনে, যেখানে প্রমাণ সাইজের ইলিশের সন্ধান তো মিলবেই, সঙ্গে মিলবে ডিমে ঠাসা কিলোখানেক ইলিশের খোঁজও। তাই বর্ষার দিনে যদি বড় সাইজের ইলিশ মাছ কিনতে মন চায়, তা হলে এই বাজারগুলির কোনওটিতে ঢুঁ মারতে ভুলবেন না যেন!

আরো পড়ুনঃ প্রতিদিন মাছ খাওয়ার উপকারিতা

কলকাতার সেরা মাছের বাজার

১. মানিকতলা বাজার

স্থানীয় বাজারে যেখানে সাতশো-আটশো গ্রামের বেশি ইলিশের খোঁজ মেলে না, সেখানে মানিকতলা বাজারে আপনি প্রায় দিনই এক কিলো বা তার চেয়েও বেশি ওজনের ইলিশের খোঁজ পেয়ে যাবেন। ইচ্ছে হলে কিনতে পারেন ডিম সমেত ইলিশও। তাতে খরচ একটু বেশি হবে বই কী! কিন্তু স্বাদে যে খাসা হবে, তা হলফ করে বলতে পারি।

২. হাওড়ার মাছের বাজার

টাটকা ইলিশ মাছ কিনতে চাইলে এই মাছ বাজারই সেরা ঠিকানা। হাওড়ার মাছের বাজার হল দেশের সবচেয়ে বড় মাছের বাজার, যেথানে নানা সাইজের ইলিশ মাছের পাশপাশি কম-বেশি প্রায় হাজার রকমের মাছ বিক্রি হয়। তাই যাঁরা নানা স্বাদের মাছ খেতে খুব ভালবাসেন, তাঁদের একবার এই মাছের বাজারে ঢুঁ মারতেই হবে।

৩. গড়িয়াহাটের মাছের বাজার

আপনি কি দক্ষিণ কলকাতার বাসিন্দা? তা হলে ইলিশ মাছ কেনার সময় যদি ঠকতে না চান, তা হলে গড়িয়াহাট মার্কেটে পৌঁছে যান। এখানে তাজা ইলিশ মাছের সন্ধান মিলবে, যেগুলির স্বাদ অনবদ্য। তবে মাছটা কেনার সময় একটু দরদাম করতে ভুলবেন না যেন! তাতে খরচ একটু কম হবে।

৪. বেহালা এবং ঠাকুরপুকুর বাজার

দক্ষিণ শহরতলির এই দুই বাজারের যেমন টাটকা ইলিশের সন্ধান মিলবে, তেমনই বেশি ওজনের ইলিশ মাছ কিনতে চাইলে তা-ও পেয়ে যাবেন। তবে গড়িয়াহাট বা মানিকতলা বাজারের চেয়ে এখানে মাছের দামটা একটু বেশি। তাই দরদাম করতে ভুলবেন না যেন!

সুস্বাদু সব ইলিশ মাছের পদ মিলবে এসব রেস্তরাঁয়

১. আহেলি, পিয়ারলেস ইন

খাঁটি বাঙালি খানাপিনা চেখে দেখতে মন চাইলে আহেলির চেয়ে সেরা ঠিকানা আর কিছু আছে বলে তো মনে হয় না। এখানে ভেটকির পাতুরি এবং চিংড়ি মাছের মালাইকারির মতো সুস্বাদু বাঙালি পদ যেমন পরিবেশন করা হয়ে থাকে, তেমনই ইলিশ মাছ দিয়ে তৈরি নানা পদও চেখে দেখার সুযোগ মিলবে এখানে। তাই এই বর্ষায় ইলিশের নানা পদ চেখে দেখতে মন চাইলে আহেলিতে আসা মাস্ট!

ঠিকানা: দ্য পিয়ারলেস ইন হোটেল, ১২, জওহরলাল নেহরু রোড, ধর্মতলা, কলকাতা। ফোন নং- ৯৮৩১৭৮০৪০৩ /৯০০৭৭৭০৮৪১

মাস্ট ট্রাই: ভাপা ইলিশ তো চেখে দেখা মাস্ট! সঙ্গে চিতল মুইঠ্যা অথবা ধূম্রগন্ধী ইলিশের মতো পদের স্বাদও নিতে পরেন।

দু'জনের খরচ: ২,০০০-৩,৫০০ টাকা।

২. ৬ বালিগঞ্জ প্লেস

বাড়িতে ইলিশ রান্নার সময় নেই? তাতে কী! কোনও এক ছুটির দিনে ৬, বালিগঞ্জ প্লেসে পৌঁছে গেলেই রসনা তৃপ্তি হবে ষোলো আনা। কারণ, এখানকার ভাপা ইলিশ যেমন বেজায় সুস্বাদু, তেমনই ইলিশের তেল-ঝালের মতো পদও কম মুখরোচক নয়। বাজারে সেভাবে ইলিশের দেখা মেলেনি বলে এদের মেনুতে নতুন কোনও ইলিশের পদের অন্তর্ভুক্তি ঘটেনি এখনও। তবে ইলিশের যেসব পদ রয়েছে, সেগুলি আপনার রসনা তৃপ্তির জন্য যথেষ্ট।

ঠিকানা: ৬, বালিগঞ্জ প্লেস, বালিগঞ্জ, কলকাতা। এছাড়াও কলকাতা শহরে এদের বেশ কয়েকটি শাখা রয়েছে। ফোন নং- ০৩৩-২৪৬০৩৯২২/৯৮৩০৩৫৩৮৮১।

মাস্ট ট্রাই: এখানে সাত রকমের ইলিশের ডিশ পরিবেশন করা হয়ে থাকে। সবকটিই বেজায় সুস্বাদু। কিন্তু তার মধ্যে দই ইলিশ আর ভাপা ইলিশের স্বাদ না ভোলার মতো। চেখে দেখতে পারেন কুমড়োর ডগা দিয়ে তৈরি আচারি ইলিশের মতো পদও।

দু'জনের খরচ: ২,৫০০-৩,৫০০ টাকা।

৩. কস্তুরী

খাঁটি বাঙাল রান্নার স্বাদ পেতে পৌঁছে যেতে পারেন এই রেস্তরাঁয়। এদের সরষে ইলিশ ভাপা আর দই ইলিশ যেমন খুব জনপ্রিয়, তেমনই কচুপাতা দিয়ে তৈরি ইলিশ ভাপা এবং ইলিশ ঢাকাই কোরমার মতো পদও কম মুখরোচক নয়। মিলবে 'সরষে ইলিশি ভাপা' থালিও। সবচেয়ে মজার বিষয় হল কলকাতার বাকি বাঙালি রেস্তরাঁগুলির চেয়ে এখানকার ইলিশের পদগুলির দাম তুলনামূলকভাবে খুবই কম। তাই বর্ষার মরসুমে কস্তুরীতে একবার আসা চাইই চাই!

ঠিকানা: ৭ এ, মুস্তাক আহমেদ স্ট্রিট, নিউ মার্কেট, কলকাতা। ফোন নং- ৮৩৩৪৯২২২২১/৯৮৩৬৩৬৭৫৪৪।

মাস্ট ট্রাই: ইলিশ ঢাকাই কোরমা এবং দই ইলিশ

দু'জনের খরচ: ১,০০০-২,৫০০ টাকা।

৪. কিউপিস

কলকাতার প্রথম বাঙালি রেস্তরাঁ হল এটি। এখানে পরিবেশিত প্রায় প্রতিটি ডিশই বেজায় মুখরোচক। বিশেষত, এদের ভাপা ইলিশের স্বাদ মন্দ নয়। এই রেস্তরাঁয় ইলিশের মেনুতে তেমন একটা বিকল্প নেই ঠিকই। কিন্তু কম খরচে ইলিশের স্বাদ নিতে এর চেয়ে সেরা জায়গা আর হয় না বললেই চলে।

ঠিকানা: ২, এলগিন রোড, কলকাতা। নেতাজি ভবনের কাছেই। ফোন নং- ০৩৩-২৪৮৬-১৬০০/ ৯৮৩১৬৭৭৬১০

মাস্ট ট্রাই: ভাপা ইলিশ

দু'জনের খরচ: ৮০০-১,২০০ টাকা।

৫. সুদীপার রান্নাঘর

ইলিশের বিরিয়ানি খেয়েছেন কখনও? না খেয়ে থাকলে এই রেস্তরাঁয় একবার ঢুঁ মারতেই পারেন। এছাড়াও এখানে আরও তিন রকমের ইলিশের পদ পরিবেশিত হয়ে থাকে। প্রতিটিই কিন্তু বেজায় মুখরোচক। বিশেষ করে বরিশালি ইলিশের স্বাদ তো মুখে লেগে থাকবে।

ঠিকানা: ৩৭/১, পূর্ণদাস রোড, হিন্দুস্থান পার্ক, কলকাতা। ট্রায়াঙ্গুলার পার্কের কাছে। ফোন নং- ০৩৩৩০৯৯০১৮৩।

মাস্ট ট্রাই: বরিশালি ইলিশ আর ভাপা ইলিশ। চেখে দেখতে পারেন ইলিশের তেল ঝোলের মতো পদও।

দু'জনের খরচ: ১,৫০০-২,০০০ টাকা।

মূল ছবি সৌজন্য: ইনস্টাগ্রাম

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

এগুলোও আপনি পড়তে পারেন

বড়দিনের উৎসবে বানিয়ে ফেলুন মাছের নানা রেসিপি

আপনি যদি রংচঙে, মিষ্টি জিনিস কিনতে পছন্দ করেন, তা হলে POPxo Shop-এর কালেকশনে ঢুঁ মারুন। এখানে পাবেন মজার-মজার সব কফি মগ, মোবাইল কভার, কুশন, ল্যাপটপ স্লিভ ও আরও অনেক কিছু!