কিছু-কিছু খাবার ভুলেও একসঙ্গে খাওয়া উচিত নয়!

কিছু-কিছু খাবার ভুলেও একসঙ্গে খাওয়া উচিত নয়!

আলু সহযোগে কষা করে তৈরি মুরগির মাংস খেতে তো মন্দ লাগে না। কিন্তু চিকিৎসা বিজ্ঞান বলছে, কার্বোহাইড্রেট এবং অ্যানিমাল প্রোটিন নাকি একসঙ্গে খাওয়া উচিত নয়! তাতে বদহজমের খপ্পরে পড়ার আশঙ্কা তো থাকেই, সঙ্গে এতটাই ক্লান্ত লাগে যে বিছানা ছেড়ে উঠতে ইচ্ছে করে না। তবে শুধু কার্ব আর প্রোটিনই নয়, আরও বেশ কিছু খাবার একসঙ্গে খাওয়া উচিত নয়, যা আমরা কবজি ডুবিয়ে খেয়ে থাকি। কী-কী খাবার (Food) সেই লিস্টে রয়েছে, তা জানা আছে কি? জানা না থাকলে ঝটপট জেনে ফেলুন আমাদের কাছ থেকে।

আরও পড়ুনঃ মাথার যন্ত্রণা কমাতে জোয়ানের উপকারিতা

১. ডিম আর মাংস

বিরিয়ানিতে ডিম না থাকলে বাঙালির কান্না পায় ঠিকই। কিন্তু ডিম এবং মাংস একসঙ্গে খাওয়া একেবারেই উচিত নয়। কারণ কী? আচ্ছা, আপনার কাঁধে যদি পঞ্চাশ কিলো ওজনের বোঝা চাপিয়ে দেওয়া হয়, তা হলে কি আপনি নড়তে পারবেন? নিশ্চয়ই পারবেন না! ঠিক তেমনই ডিম এবং মাংস একসঙ্গে খেলে শরীরে প্রোটিনের পরিমাণ এতটাই বেড়ে যায় যে digestive system-এর উপর মারাত্মক চাপ পড়ে, যে কারণে খাবার হজম হতে সময় নেয়। ফলে গ্যাস-অম্বলের মতো সমস্যা ঘাড়ে চেপে বসতে সময় লাগে না। তা হলে কি বিরিয়ানির সঙ্গে আর ডিম খাওয়া চলবে না? না না তেমন নয়, খেতেই পারেন। তবে একসঙ্গে খাবেন না। প্রথমে ডিমটা খেয়ে নিয়ে তারপর মটনে কামড় বসান না, তাতে সমস্যা হবে কম।

২. খাবারের সঙ্গে জল বা জুস

সেই ছোট বেলা থেকেই মা বলে আসছেন যে খাবার খেতে-খেতে জল খেতে নেই। কিন্তু সে কথা তো আজ পর্যন্ত কানে তুললেন না। তাই না এত গ্যাস-অম্বলের খপ্পরে পড়েন! বলেন কী, খাবার খেতে-খেতে জল খেলে অম্বল হয়? আলবাত হয়। কারণ, খাবার খাওয়ার সময় জল খেলেই হজমে সহায়ক পাচক রসের ক্ষমতা কমতে শুরু করে, যে কারণে প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট এবং ফ্যাট জাতীয় খাবার হজম হতে সময় নেয়। ফলে বদহজমের মতো সমস্যা মাথা চাড়া দিয়ে ওঠে। একই ঘটনা ঘটে খাবার খাওয়ার সময় ফলের রস খেলেও। তাই গ্যাস-অম্বল এবং বদহজমের মতো সমস্যাকে দূরে রাখতে চাইলে খাবার খাওয়ার সময় জল খাওয়া একেবারেই চলবে না। বরং খাবার খাওয়ার অন্তত মিনিটদশেক আগে যদি জল খেয়ে নেন, তা হলে হজম সংক্রান্ত নানা সমস্যা দূরে থাকবে।

৩. দই এবং ফল

অনেকেই দইয়ের সঙ্গে নানা ধরনের ফল খেতে ভালবাসেন। কিন্তু চিকিৎসক বিজ্ঞান বলছে এমন যুগলবন্দি বেজায় ক্ষতিকারক। কারণ দইয়ে রয়েছে নানা উপকারী ব্যাকটেরিয়া, যা ফলের সঙ্গে বিক্রিয়া করে শরীরে এমন কিছু টক্সিনের মাত্রা বড়িয়ে দেয় যে তার প্রভাবে অ্যালার্জির মতো সমস্যার খপ্পরে পড়ার আশঙ্কা যায় বেড়ে। সঙ্গে লেজুড় হতে পারে আরও নানা রোগও। তাই ভুলেও দইয়ের সঙ্গে ফল খাওয়া চলবে না। বরং এক বাটি দইয়ে মধু, দারচিনি গুঁড়ো অথবা কিশমিশ মিশিয়ে যদি খেতে পরেন, তা হলে আরও বেশি উপকার পাবেন।

৪. দুধ আর কলা

বাঙালিরা দুধ-কলা একসঙ্গে খেতে খুব ভালবাসেন। বিশেষত, কলা আর দুধ দিয়ে তৈরি মিল্কশেক তো সবারই খুব পছন্দের। কিন্তু জেনে রাখা ভাল যে কলা এবং দুধ একসঙ্গে খাওয়া একেবারেই উচিত নয়। তাতে হজম ক্ষমতা এতটাই দুর্বল হয়ে পরে যে নানা ধরনের পেটের রোগের প্রকোপ বেড়ে যায়। তাই সুস্থ থাকতে এমন যুগলবন্দি এড়িয়ে চলাই উচিত। আর যদি বানানা মিল্ক শেক খেতে খুব ইচ্ছে করে, তা হলে তাতে এক চিমটে দারচিনি গুঁড়ো মিশিয়ে নিতে ভুলবেন না যেন, তাতে গ্যাস-অম্বল হওয়ার আশঙ্কা একটু কমবে বই কী!

৫.কার্বোহাইড্রেট এবং অ্যানিমাল প্রোটিন

শুরুতেই আলেচনা করা হয়েছে যে কার্বোহাইড্রেট এবং প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার একসঙ্গে না খাওয়াই শ্রেয়। কারণ, প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেটকে একদম সহ্য করতে পারে না। তাই তো সামনা-সামনি আসা মাত্র যুদ্ধে বেঁধে যায়, যে কারণে গ্যাস-অম্বলের প্রকোপ তো বাড়েই, সঙ্গে লেজুড় হয় বদহজমের মতো সমস্যাও। তা হলে কি রুটি আর ভাতের সঙ্গে মাংস খাওয়া চলবে না? চিকিৎসা বিজ্ঞান বলছে, না খাওয়াই উচিত। কিন্তু আপনি যদি খেয়ে হজম করতে পারেন, তা হলে খাবেন না কেন! তবে যদি দেখেন কোনও সমস্যা হচ্ছে, তা হলে চিকিৎসকের সঙ্গে একবার পরামর্শ করে নিতে ভুলবেন না যেন!

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

আপনি যদি রংচঙে, মিষ্টি জিনিস কিনতে পছন্দ করেন, তা হলে POPxo Shop-এর কালেকশনে ঢুঁ মারুন। এখানে পাবেন মজার-মজার সব কফি মগ, মোবাইল কভার, কুশন, ল্যাপটপ স্লিভ ও আরও অনেক কিছু!