বিয়েবাড়ির ভোজের মেনু ঠিক করার আগে অতি অবশ্যই মাথায় রাখুন এই বিষয়গুলি

বিয়েবাড়ির ভোজের মেনু ঠিক করার আগে অতি অবশ্যই মাথায় রাখুন এই বিষয়গুলি

বিয়ে-বউভাতের মেনুতে যেন বৈচিত্র থাকে, আর খাবার যেন হয় সুস্বাদু, না হলে মান সম্মান যে চুলোয় যাবে, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। কারণ, বাঙালি বিয়েতে বর-কনে কী পরল, সেদিকে সিংহভাগেই নজর থাকে না। বরং মেনুতে কী-কী পদ রয়েছে, তা নিয়েই নিমন্ত্রিতদের আগ্রহ থাকে সবচেয়ে বেশি। কারণ, আমরা হলাম গিয়ে জাত খাদ্যরসিক, তাই বিয়েবাড়িতে (wedding) কব্জি ডুবিয়ে না খেলে আমাদের ঠিক মনই ভরে না। এই কারণেই বিয়ে-বউভাতের মেনু হতে হবে নজরকাড়া, না হলেই কিন্তু নম্বর কাটা যাবে! উপরি পাওনা হবে পাড়া-প্রতিবেশীদের সমালোচনা। তাই সারা জীবন যদি এই নিয়ে অত্মীয়-বন্ধুদের খোঁটা শুনতে না চান, তা হলে মেনু ঠিক করুন ভেবে-চিন্তে! স্টার্টার থেকে ডেজার্ট, বিয়েবাড়িতে খাবারের এই লম্বা লিস্টটা তৈরির সময় মেনে চলুন এখানে বলে দেওয়া টিপসগুলি।

১. নিজেদের নয়, বরং নিমন্ত্রিতদের পছন্দের কথা মাথায় রাখাটা জরুরি

একথা ঠিক যে, বিয়েটা যখন আপনাদের, তখন মেনুতে আপনাদের পছন্দমতো খাবার থাকাটাই উচিত। কিন্তু আপনার পছন্দের সঙ্গে যদি আম বাঙালির পছন্দ মিলে না যায়, তা হলেই বিপদ! তাই তো একটু সাবধানে খেলাটাই নিরাপদ। সেই কারণেই স্ন্যাক্সের মেনুতে চিকেন পকোড়ার পাশাপাশি বেকড বা তন্দুর আইটেম রাখতে পারেন। বিশেষ করে কয়েক রকমের কাবাব থাকলে তো কথাই নেই! সঙ্গে পরিবেশন করা যেতে পারে ফিশ ফিঙ্গার, ফিশ কবিরজি অথবা ফিশ কাটলেটের মতো জনপ্রিয় পদও। তবে আমিষের পাশাপাশি নিরামিষ স্ন্যাক্সের আয়োজন থাকাটাও জরুরি। সেক্ষেত্রে মেনুতে রাখতে পারেন পনির টিক্কা, মোচার চপ অথবা ভেজিটেবল চপের মতো পদ। আর যদি বাজেট একটু বেশির দিকে থাকে, তা হলে স্ন্যাক্সের মেনুতে আরও কিছু পদও ঢোকাতে পারেন। এমনকী, ইচ্ছে হলে ফুচকা-দই বড়া-পাপড়ি চাটের স্টলও বসাতে পারেন।

২. সফট ড্রিঙ্কসের জায়গায় থাকুক নানা ধরনের মকটেল

pixabay

স্ন্যাক্স খেতে-খেতে নিমন্ত্রিতদের তেষ্টা তো পাবেই। তাই অল্পবিস্তর পানীয়ের ব্যবস্থা না করলেই নয়। এক্ষেত্রে বাজারচলতি ড্রিঙ্ক পরিবেশন না করে, তার জায়গায় যদি মকটেলের ব্যবস্থা করতে পারেন, তা হলে আসর একেবারে জমে যাবে। সঙ্গে নানা ধরনের জুসও রাখলেও মন্দ হয় না। তাতে মেনুতে একটু বৈচিত্র আসবে! তাছাড়া নানা স্বাদের মকটেলের আয়োজন থাকলে তাতে গলা ভেজাতে-ভেজাতে আপনার সুখ্যাতিও যে কম হবে না, তা তো বলাই বাহুল্য। গরমের সময় যেহেতু বিয়ে, তাই ইচ্ছে থাকলে মকটেলের পাশাপাশি আমপানার সরবতও পরিবশন করতে পারেন।

৩. মেন কোর্সই কিন্তু আসল

স্ন্যাক্স, স্টার্টারে বৈচিত্র আনতে গিয়ে মেন কোর্স যেন ঝুলে না যায়। কারণ, স্ন্যাক্স খেয়ে তো আর কারও পেট ভরবে না। তাই মেন কোর্সে বৈচিত্র থাকাটাই আসল ব্যাপার। তাই বাজেটের কথা ভেবে স্ন্যাক্সের মেনুতে একটু কাটছাঁট করলে কোনও ক্ষতি নেই! কিন্তু মেন কোর্স যেন হয় নজরকাড়া।

মেন কোর্সে চিকেন আর মটন বিরিয়ানির সঙ্গে চিকেন রেজালা আর মটন চাঁপের মতো পদ যেমন রাখতে পারেন, তেমনি বিরিয়ানির পরে স্টিমড রাইস, নয়তো জিরা রাইসের সঙ্গে দই মাছ অথবা পাতুরি, নয়তো চিংড়ি মাছের মালাইকারির মতো পদ পরিবেশন করলেও মন্দ হয় না। মাছের পরে মটনের কোনও পদ থাকা মাস্ট! এক্ষেত্রে মটন কষার মতো পদ যদি পরিবেশন করা যায়, তা হলে তো কথাই নেই! প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, আজকাল ভাত এবং বিরিয়ানির পাশাপাশি অনেকে রুটির আয়োজনও করে থাকেন। আপনিও যদি তেমনটা করতে চান, তা হলে গরম গরম নান, রুমালি রুটি অথবা তন্দুরি রুটি পরিবশন করতে পারেন।

৪. দই-মিষ্টির গুরুত্বও কম নয় কিন্তু

pixabay

কবজি ঢুবিয়ে মটন-চিকেন খাওয়ার পরেও বাঙালির পেটে কিন্তু মিষ্টির জন্য আলাদা একটা জায়গা বরাদ্দ থাকে। তাই মেন কোর্সের পাশাপাশি ডেজার্টের মেনুতেও বৈচিত্র থাকাটা জরুরি। এক্ষেত্রে প্রথমেই চাটনির সঙ্গে পাঁপড় পরিবেশন করতে পারেন। এখন আম যেহেতু ঢেলে বিক্রি হচ্ছে, তাই কাঁচা আমের চাটনি করলে মন্দ হয় না। টোম্যাটোর চাটনি, নয়তো খেজুর, আনারস অথবা আমসত্ত্বের চাটনিও পরিবেশন করা যেতে পারে।

এবার মিষ্টির পালা। এক্ষেত্রে রসগোল্লার থেকে সেরা চয়েস আর কিছু হতে পারে না। তবে রসগোল্লার পরিবর্তে গোলাপ জামুন, নয়চো ল্যাংচা অথবা ক্ষীরকদম্বও পরিবশন করতে পারেন। শেষে সন্দেশ থাকা মাস্ট! আর যদি মিষ্টির মেনুতে একটু বৈচিত্র আনতে চান, তা হলে গরম-গরম মালপোয়া, কিংবা ঘন রাবড়ি সহযোগে জিলিপি পরিবেশন করলেও কিন্তু মন্দ হয় না।

৫. পানের স্টল

এত পদ খাওয়ার পরে তা হজম করতে হবে তো! তাই বাজেট যদি সঙ্গ দেয়, তা হলে পানের একটা স্টল দিতে পারেন। এক্ষেত্রে একটা বিষয় মাথায় রাখা জরুরি। তা হল, পান পিছু কত টাকা আপনাকে দিতে হবে, সে বিষয়ে যেমন আগে থাকতে কথা বলে নেবেন, তেমনি কতগুলি পান দেওয়া হল, তার একটা হিসেব রাখতেও ভুলবেন না যেন! না হলে কিন্তু খরচ বাড়বে।

মেনু ঠিক করার আগে মাথায় রাখতে হবে এই বিষয়গুলিও

১. অপনার মেনু অনুযায়ী মাথা পিছু কত টাকা খরচ হতে পারে, সে বিষয়ে ক্যাটারারের সঙ্গে আলোচনা করে নেবেন। তাতে কত টাকা খরচ হবে, সে বিষয়ে স্পষ্ট ধরণা হয়ে যাবে। ফলে বাজেট অনুযায়ী নিমন্ত্রিতদের লিস্ট তৈরি করতে দেখবেন আর কোনও সমস্যাই হবে না।

২.বসে খাওয়ার আয়োজন করবেন, নাকি buffet, সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়াটা জরুরি। বেশ কিছু সমীক্ষায় নাকি দেখা গেছে বাফে সিস্টেমে খাবার কম নষ্ট হয়। তাই বাফের আয়োজন করলেই মনে হয় ভাল হয়।

৩. ঠিক মতো ক্যাটারার নির্বাচন করাটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ। তাই বিষয়ে একবার চেনা পরিচিতদের সঙ্গে পরামর্শ করে নিতে পারেন। প্রয়োজনে ইন্টারনেটে একটু রিসার্চ করলেও মন্দ হয় না, তাতে ভুল সিদ্ধান্ত নেওয়ার আশঙ্কা কমবে!

৪. বিয়েটা শীতকালে, নাকি বর্ষাকালে নাকি ভরা গরমে, তার উপর নির্ভর করে মেনুর পদগুলি একটু এদিকওদিক করে নিতে হবে।

৫. আমিষ খাবারের সঙ্গে-সঙ্গে যথেষ্ট নিরামিষ খাবারের অপশনও যেন থাকে। নইলে নিরামিষভোজীদের অসুবিধে হবে।

৬. মেনু প্ল্যানিংয়ের সময় কুইজিন গুলিয়ে ফেলবেন না। মোগলাই পছন্দ হলে পুরো মেনুটাই মোগলাই আইটেমে ভরে দিন। চাইনিজ হলে তার সঙ্গে বাঙালি খানা রাখবেন না কিংবা কন্টিনেন্টাল পদের সঙ্গে বিরিয়ানি সার্ভ করাবেন না।

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

আপনি যদি রংচঙে, মিষ্টি জিনিস কিনতে পছন্দ করেন, তা হলে POPxo Shop-এর কালেকশনে ঢুঁ মারুন। এখানে পাবেন মজার-মজার সব কফি মগ, মোবাইল কভার, কুশন, ল্যাপটপ স্লিভ ও আরও অনেক কিছু!