ঝাল হোক বা মিষ্টি, রইল কয়েকটি অন্য রকমের ভাপা রান্নার হদিশ

ঝাল হোক বা মিষ্টি, রইল কয়েকটি অন্য রকমের ভাপা রান্নার হদিশ

বাঙালিদের রান্না মানেই কিন্তু শুধুমাত্র ঝালে-ঝোলে বা তেল-মশলায় ভরপুর কোনও পদ নয়। হ্যাঁ আমরা লুচি খেতে ভালবাসি, রবিবারের দুপুরে তেল ভাসা পাঁঠার মাংস না হলে অনেক বাঙালিরই মন খারাপ লাগে, তা বলে যে সব রান্নাই অস্বাস্থ্যকর, তা কিন্তু নয়। আমরা নানারকম ভাপা (bhapa or steamed food) রান্নাও খাই। দেখুন না, ভাপা ইলিশ, ডিম ভাপা, ভাপা দই – কত কিছুই রয়েছে আমাদের খাদ্যতালিকায়। তবে আজ দুটো প্রায় হারিয়ে যাওয়া বাঙালি (Bengali) ভাপা রান্নার রেসিপি আপনাদের সঙ্গে ভাগ করে নেব। খেয়ে জানাবেন কিন্তু কেমন খেলেন!

ঝিঙে ভাপা

ইউটিউব

উপকরণ

ঝিঙে – ৩০০ গ্রাম, নারকেল কোরা – তিন টেবিল চামচ, পোস্ত – দুই টেবিল চামচ, কালো সর্ষে – এক টেবিল চামচ, চিনি – আধ চা চামচ, হলুদ – এক চা চামচের এক চতুর্থাংশ, কাঁচা লঙ্কা – তিন-চারটি (যতটা ঝাল খেতে চান সে হিসেবে কাঁচা লঙ্কার পরিমাণ বাড়াতে বা কমাতে পারেন), কাশ্মিরি লঙ্কা গুঁড়ো – আধ চা চামচ, সর্ষের তেল – এক চা চামচ (উপর থেকে ছড়ানোর জন্য)

কীভাবে রাঁধবেন

একটি ব্লেন্ডারে নারকেল কোরা, সর্ষে, পোস্ত, একটি কাঁচা লঙ্কা ও সামান্য জল দিয়ে ব্লেন্ড করে পেস্ট তৈরি করে নিন। এবারে একটি স্টিলের টিফিনবক্সে সামান্য সর্ষের তেল মাখিয়ে ওই পেস্ট ঢেলে দিন। পেস্টের মধ্যে একে একে হলুদ গুঁড়ো, নুন, চিনি ও লঙ্কা গুঁড়ো দিয়ে ভাল করে মিশিয়ে নিন। অন্য একটি ফ্রাইং প্যানে সামান্য সর্ষের তেল দিয়ে আগে থেকে কেটে রাখা ঝিঙে সামান্য নাড়াচাড়া করে নিন। ঝিঙে একটু নরম হয়ে এলে টিফিন বক্সে রাখা পেস্টটির মধ্যে ঝিঙে দিয়ে দিন। পেস্টের সঙ্গে ঝিঙে মিশিয়ে উপর থেকে কাঁচা সর্ষের তেল ঢেলে দিন। বাকি কাঁচা লঙ্কা মাঝখান থেকে চিরে মিশ্রনের মধ্যে দিয়ে দিন। এবারে টিফিন বক্স ঢাকা দিয়ে দিন। একটি বড় ডেকচিতে খানিকটা জল নিয়ে ফুটতে দিন। একটি খাবার রাখার স্ট্যান্ড জলের মধ্যে বসিয়ে তার উপর তিদিন বক্স বসিয়ে দিন ও উপরে একটি ভারী কিছু চাপা দিয়ে দিন যাতে টিফিন বক্সের ঢাকা না খুলে যায়। এবারে দেকচির মুখে ঢাকা দিয়ে আঁচ কমিয়ে মিনিট ২০ ভাপা হতে দিন। এবারে গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করুন। দুপুরের খাওয়াটা জমে যাবে!

ভাপা পিঠে

ইনস্টাগ্রাম

উপকরণ

চালের গুঁড়ো – দুই কাপ, খেজুর – এক কাপ (কুচিয়ে রাখা), নারকেল কোরা – এক কাপ, নুন – সামান্য, ঝোলা গুড় – এক কাপ

কীভাবে রাঁধবেন

একটি পাত্রে চালের গুঁড়ো ও নুন মিশিয়ে সামান্য জল ছিটিয়ে মেখে নিন। ময়দা মাখার মতো ডো পাকাবেন না, ঝুরো করে মেখে নিন। এবারে ছোট একটি স্টিলের বাটির অর্ধেকটা ভরে নিন চালের গুঁড়ো দিয়ে। ভর্তি করা হয়ে গেলে মাঝখানটা একটু গর্ত করে নিন। তাতে সামান্য খেজুর কুচি ও ঝোলা গুড় দিয়ে দিন। উপরে নারকেল কোরা দিন এবং বাটির বাকি অংশটা চালের গুঁড়ো দিয়ে ভরে চেপে দিন। প্রয়োজনে চামচের পেছন দিয়ে চেপে দিতে পারেন। বাকি বাটিগুলিতেও একইভাবে চালের গুঁড়ো, খেজুর কুচি, ঝোলা গুড় ও নারকেল কোরা দিয়ে মিনিট দশেক রাখুন। একটি হাড়ি বা ডেকচিতে জল ফুটতে দিন এবং মুখের কাছে ছিদ্রযুক্ত থালা বসিয়ে দিন। ওই থালার উপরে একটি সাদা সুতির কাপড় রেখে একে একে বাটিগুলি উল্টো করে বসিয়ে দিন। এবারে বাটিগুলি তুলে নিন আর মিশ্রনের উপর ঢাকা দিয়ে ভাপা হতে দিন। দশ মিনিট পর দেখবেন স্টিম দেখা যাচ্ছে। তখন বুঝবেন আপনার ভাপা পিঠে তৈরি। গরম গরম খান ও খাওয়ান।  

মূল ছবি সৌজন্যে - ইনস্টাগ্রাম

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

আপনি যদি রংচঙে, মিষ্টি জিনিস কিনতে পছন্দ করেন, তা হলে POPxo Shop-এর কালেকশনে ঢুঁ মারুন। এখানে পাবেন মজার-মজার সব কফি মগ, মোবাইল কভার, কুশন, ল্যাপটপ স্লিভ ও আরও অনেক কিছু!