কলকাতার সেরা wedding ফোটোগ্রাফারের সন্ধান থাকলো এখানে। in bengali | POPxo

কলকাতার বিখ্যাত কয়েকজন wedding ফোটোগ্রাফারের তালিকা, আপনার পছন্দের লোককে বেছে নিন

কলকাতার বিখ্যাত কয়েকজন wedding ফোটোগ্রাফারের তালিকা, আপনার পছন্দের লোককে বেছে নিন

ফোটোগ্রাফি হল সেকেন্ডের খেলা। সঠিক লাইট আর মুহূর্তকে যদি সঠিক সময়ে ক্যাপচার করা না যায়, তা হলে ম্যাজিক ক্রিয়েট সম্ভব নয়। আর তার জন্যই বিশেষ কিছু স্কিল এবং ক্রিয়েটিভিটির প্রয়োজন পড়ে। তাই ফোটোগ্রাফি মোটেই বাচ্চাদের খেলা নয়। বিশেষ করে ওয়েডিং ফোটোগ্রাফি তো নয়ই। তাই তো বলি, বিয়ে-বউভাতের বিশেষ মুহূর্তগুলিকে যদি সুন্দর ভাবে ফ্রেমে ধরে রাখতে চান, তাহলে ফোটোগ্রাফার নির্বাচনের ক্ষেত্রে হটকারি সিদ্ধান্ত নেবেন না যেন! বরং একটু খোঁজ-খবর নিয়ে দেখুন তো কলকাতার সেরা ওয়েডিং ফোটোগ্রাফার (photographers) করা। তারপর না হয় ভেবে-চিন্তে সিদ্ধান্ত নেবেন। আর যদি এত রিসার্চ করার সময় না থাকে, তাহলেও চিন্তার কোনও কারণ নেই। কারণ, popxo bangla আছে তো। আমরা আপনাকে কলকাতার সেরা কয়েকজন ফোটোগ্রাফারের সন্ধান দিতে চলেছি। তবে সেই লিস্ট থেকে বেছে নেওয়ার দায়িত্ব কিন্তু আপনার!

Table of Contents

    ফোটোগ্রাফার নির্বাচনের আগে মাথায় রাখুন এই বিষয়গুলি

    pixabay
    pixabay

    ফোটোগ্রাফারের ক্রিয়েটিভিটিই যেহেতু সাধারণ একটা ফ্রেমকে একেবারে অন্য মাত্রায় নিয়ে যায়। তাই ঠিক মতো ফোটোগ্রাফার নির্বাচন করাটা সহজ কাজ নয়। এক্ষেত্রে কতগুলি বিষয় মাথায় রাখা একান্ত প্রয়োজন। যেমন ধরুন...

    ১. তাড়াহুড়ো করলে কিন্তু ভুল করবেন

    বিয়েটা যখন একবারই হবে, তাই বারে-বারে তো আর ফোটোশুট হবে না। সেই কারণেই ফেটোগ্রাফার নির্বাচনের ক্ষেত্রে তাড়াহুড়ো করলে কিন্তু ভুল সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলতে পারেন। তাই মাথা ঠান্ডা করে বেশ কয়েক জন ফোটোগ্রাফারের পোর্টফোলিও এবং ওয়েডিং (wedding) ট্রেলার দেখে একটা লিস্ট বানিয়ে ফেলুন। এবার সেই লিস্ট থেকে একজনকে বেছে নিন। এক্ষেত্রে আরও কতগুলি বিষয় মাথায় রাখতে হবে। যেমন ধরুন, যে ফোটোগ্রাফারকে নির্বাচন করেছেন, সে আপনার বিয়ের দিনে ফ্রি আছেন কিনা, সেটা জেনে নিতে ভুলবেন না! সেই সঙ্গে ফোটোগ্রাফারের ফি এবং মোট কত টাকা খরচ হতে পারে, সে সম্পর্কেও জেনে নেবেন।

    ২. আপনার স্টাইলের সঙ্গে ফোটোগ্রাফারের চিন্তা-ভাবনা মিলছে তো?

    আপনি এবং আপনার পার্টনার হয়তো একটা বিশেষ স্টাইল মাথায় রেখে ফোটোশুট করার কথা ভেবে রেখেছেন। এদিকে ফোটোগ্রাফার অন্য় চিন্তায় মশগুল, তাহলে কিন্তু মুশকিল। কারণ, সেক্ষেত্রে তাঁর সঙ্গে ঝগড়া বেঁধে যেতে পারে। তাই প্রথম থেকেই এই নিয়ে ফোটোগ্রাফারের সঙ্গে আলোচনা করে নিতে হবে। যদি দেখেন আপনার পছন্দের সঙ্গে ফোটোগ্রাফারের ভাবনা-চিন্তা মিলছে না, তাহলে অন্য কোনও ফোটোগ্রাফারকে বেছে নিতে দেরি করবেন না যেন!

    ৩. বাজেট

    যত টাকা খরচ করবেন, ততই ভাল ফল পাবেন। কিন্তু তাই বলে তো আর ফোটোশুটের পিছনে পুরো ব্যাঙ্ক-ব্যালেন্স খালি করে দিলে চলবে না। তাই পার্টনারের সঙ্গে আলোচনা করে একটা বাজেট ঠিক করে নিন। আর সেই মতো ফোটোগ্রাফার নির্বাচন করুন।

    ফোটোগ্রাফারের সঙ্গে এই সব বিষয়গুলি নিয়ে আলোচনা করে নেওয়া জরুরি

    ফোটোগ্রাফারের সঙ্গে আপনাদের বোঝাপড়া যত ভাল হবে, ততই সুন্দর ভাবে কাজটা মিটে যাবে। তাই বিয়ের মাস দেড়েক আগেই ফোটোগ্রাফারের সঙ্গে কতগুলি বিষয় নিয়ে আলোচনা সেরে নাওয়া মাস্ট! যেমন ধরুন...

    ১. আপনাদের পছন্দ-অপছন্দ সম্পর্কে জানিয়ে রাখবেন

    বিয়ে-বউভাতের দিন আপনারা কেমন ধরনের ছবি তুলতে চান বা কোন কোন ধরনের পোজ আপনাদের একেবারে না পাসান্দ, সে সব নিয়ে ফোটোগ্রাফারের সঙ্গে একবার আলোচনা করে নেওয়া উচিত। সেই সঙ্গে পরিবারের কার কার সঙ্গে আপনি আলাদা করে ক্যানডিড বা স্টিল ফোটোগ্রাফ তুলতে চান, সেই নিয়েও তাঁকে জানিয়ে রাখবেন। তাতে কোনও রকমের ভুল বোঝাবুঝি হওয়ার আশঙ্কা আর থাকবে না। এক্ষেত্রে আরেকটা বিষয় মাথায় রাখা জরুরি। কী বিষয়? ফোটোগ্রাফারও নিশ্চয় কিছু আইডিয়া ভেবে রেখেছেন। তাঁর চিন্তা-ভবনাকেও কদর দিতে হবে। তবেই না ম্যাজিক ক্রিয়েট হবে।

    ২. টাইমটেবিল সম্পর্কে ফোটোগ্রাফারকে জানিয়ে রাখবেন

    গায়ে হলুদ থেকে বউভাত, কোন সময় কোন অনুষ্ঠানটা হবে, সে সম্পর্কে ফোটোগ্রাফারকে আগে থাকতেই জানিয়ে রাখবেন। তা না হলে তিনি হয়তো কোনও অনুষ্টান মিস করে যেতে পারেন। বিশেষ করে বিয়ের লগ্ন এবং বউভাতের দিন আপনারা কটার সময় অনুষ্ঠান বাড়িতে পৌঁছাবেন, সে সম্পর্কে জানিয়ে রাখা তো একান্ত প্রয়োজন। তাছাড়া ফোটোগ্রাফারের হাতে টাইমটেবিল থাকলে তার পক্ষেও প্ল্যানিং করতে কোনও অসুবিধা হবে না। ফলে কাজটা সহজে হয়ে যাবে।

    ৩. কোনও সারপ্রাইজ প্ল্যান করছেন নাকি?

    বিয়ে বা বউভাতের দিন বরকে কোনও সারপ্রাইজ দেওয়ার প্ল্যান করে থাকলে, সে সম্পর্কেও ফোটোগ্রাফারকে আলাদা করে জানিয়ে রাখবেন, তা না হলে সেই বিশেষ মুহূর্তটা মিস হয়ে আশঙ্কা থাকবে বই কী!

    ৪. লাইটিং সম্পর্কে আলোচনা করে নেবেন

    কোন এক ছুটির দিনে ফোটোগ্রাফারকে সঙ্গে নিয়ে বিয়ে-বইভাত যে অনুষ্ঠান বাড়িতে হবে, সেখানে একবার ঢুঁ মারবেন। তাতে ফোটোগ্রাফারের পক্ষে লাইটিং এবং অ্যাম্বিয়েন্স সম্পর্কে একটা ধরণা করে নেওয়া সম্ভব হবে। কোনও অতিরিক্ত লাইটের প্রয়োজন থাকলে, সে সম্পর্কেও তিনি জেনে-বুঝে নিতে পারবেন। আর যদি একান্তই এমনটা করা সম্ভব না হয়, তাহলে একাই একদিন অনুষ্ঠান বাড়িতে পৌঁছে দিয়ে সবকটা আলো জ্বালিয়ে ফোনে গোটা দশেক ছবি তুলে সেগুলি ফোটোগ্রাফারকে পাঠিয়ে দিতে পারেন। তাতেও তাঁর কিছু সুবিধা হবে।

    ৫. 'পয়েন্ট অব কনট্যাক্ট' কে হবে সে সম্পর্কে ফোটোগ্রাফারকে জানিয়ে রাখবেন

    বিয়ে-বউভাতের দিন তো আপনারা ব্যস্ত থাকবেন। তাই সেদিন আর আপনাদের বিরক্ত করা চলে না। তাই নানা প্রয়োজনে আপনাদের পরিবারের কার সঙ্গে ফোটোগ্রাফার কথা বলবেন, সে সম্পর্কে তাঁকে আগে থাকতেই জানিয়ে রাখাই শ্রেয়। আর যদি সেই ব্যক্তির ফোন নম্বর ফোটোগ্রাফারকে দিয়ে রাখতে পারেন, তাহলে তো কথাই নেই!

    কলকাতার সেরা ওয়েডিং ফোটোগ্রাফার

    গত কয়েক বছরে সারা দেশের পাশাপাশি কলকাতাতেও ক্যানডিড ফোটোশুটের জনপ্রিয়তা এতটাই বেড়েছে যে সেই চাহিদার সঙ্গে তাল মিলিয়ে বহু ফোটোগ্রাফারই প্রি-ওয়েডিং ফোটোশুটের পাশাপাশি থিম নির্ভর ওয়েডিং ফোটোশুট করছেন। তাই বিকল্প অনেক। কিন্তু সেই ভিড়ের মধ্যে সেরার সেরা কারা, সে সম্পর্কে জানতে চান নাকি?

    ১. ফোটোসূত্র

    প্রশান্ত সিংহ হলেন এই সংস্থার কর্ণধার। কলকাতার প্রথম সারির ওয়েডিং ফোটোগ্রাফারদের মধ্যে অন্যতম হলেন তিনি। শুধু তাই নয়, ইতিমধ্যেই তাঁর স্কিল এবং ক্রিয়েটিভিটির গুণে ২০১০ সালে নিকন এশিয়া কাউন্টডাউন অ্যাওয়ার্ড এবং ওই সালেই নেট জিও মোমেন্ট অ্যাওয়ার্ড জিতে নিয়েছেন। যদিও এর পিছনে কিছু কারণও রয়েছে। প্রশান্তর তোলা প্রায় প্রতিটি ফ্রেম এতটাই নজরকাড়া যে একবার দেখে মন ভরে না। তাই ওয়েডিং ফোটোগ্রাফার হিসেবে প্রশান্তের উপর ভরসা রাখলে যে ভুল করবেন না, তা হলফ করে বলতে পারি।

    খরচ: ওয়েডিং ফোটোগ্রাফি ৩৫,০০০ টাকা থেকে শুরু। ভিডিওগ্রাফি করলে আলাদা করে ২৫,০০০ টাকা খরচ করতে হবে।

    ফোন নং: ৯৮৭৪৫৯৪৫৪৬/ ৯৮৩১৯২৮৩১৪

    ওয়েবসাইট: www.fotosutra.in

    ঠিকানা: ৭৮, ডি ডি মন্ডল ঘাট রোড, দক্ষিণেশ্বর, কলকাতা-৭০০০৭৬

    ২. কুন্তল গুপ্ত

    ক্যানডিড ফোটোশুটে তো বটেই, সেই সঙ্গে প্রি-ওয়েডিং ফোটোগ্রাফি, ক্রিয়েটিভ ওয়েডিং ফোটোগ্রাফি, ইভেন্ট ফোটোগ্রাফি এবং সিনেম্যাটিক ভিডিও সার্ভিসেও কুন্তলের দক্ষতা প্রশ্নাতীত। তাই তো গত কয়েক বছরে ওয়েডিং ফোটোগ্রাফার হিসেবে তিনি বেশ সুনাম অর্জন করেছেন। বিশেষ করে ছোট ছোট মুহূর্তকে কুন্তল যে ভাবে ক্যামেরায় ক্যাপচার করেন, তা প্রশংসার দাবি রাখে।

    খরচ: ৪৯,৯৯৯ টাকা থেকে শুরু।

    ফোন নং: ৮০১৭৮২৪০০২/৯০৫১৫৮৭৬৫৫

    ওয়েবসাইট: pixonova.com

    ঠিকানা: ফ্ল্যাট-১/বি, বাসন্তী অ্যাপার্টমেন্ট, জয় গোপাল রায়চৌধুরী রোড, আগরপাড়া।

    ৩. রিগ ফোটোগ্রাফি

    pexels
    pexels

    বিয়ে-বইভাতের প্রতিটি ছবি একটু 'হাটকে' হোক, এমনটা যদি চান, তাহলে এই সংস্থার উপর ভরসা রাখতেই পারেন। এরা off-beat এবং candid style ফোটোগ্রাফিতে স্পেশালিস্ট। সেই সঙ্গে প্রি-ওয়েডিং, স্টেজ এবং ডেস্টিনেশন ওয়েডিং ফোটোগ্রাফিতেও এরা সমান পটু।

    খরচ: ৩০,০০০ টাকা থেকে শুরু।

    ফোন নং: ৯৮৩০৬৯৩৯৩৯

    ওয়েবসাইট: www.rigbiswas.com

    ঠিকানা: ২২, নবীন সেন রোড, বারাসাত, কলকাতা- ৭০০১২৬।

    ৪. অনির্বাণ ব্রহ্ম

    গত ছ'বছর ধরে ওয়েডিং ফোটোগ্রাফার হিসেবে কাজ করছেন অনির্বাণ। এছাড়াও কমার্শিয়াল এবং পোর্টফোলিও ফোটোগ্রাফিতেও তিনি সমান দক্ষতা অর্জন করেছেন। সেই কারণেই তো শুধুমাত্র কলকাতায় নয়, দেশের অন্যান্য জায়গার পাশাপাশি বিদেশে গিয়েও কাজ করে এসেছেন অনির্বাণ। তাই যদি চান, বিয়ের প্রতিটি ছবি চোখ ধাঁধানো হোক, তাহলে অনির্বাণের সঙ্গে যোগাযোগ করতে দেরি করবেন না যেন!

    খরচ: ওয়েডিং প্যাকেজ এক লক্ষ টাকা থেকে শুরু।

    ফোন নং: ৯৮৮৩৩৬৬৬৬৬

    ওয়েবসাইট: www.anirbanbrahma.com

    ঠিকানা: ২৪, শহীদ গণেশ দত্ত রোড, বিরাটি, কলকাতা-৭০০০৫১।

    ৫. পিক্সোনোভা (pixonova)

    ঋষব চক্রবর্তী হলেন এই সংস্থার কর্ণধার। তিনি বহুদিন ধরেই ফিল্ম এবং ফোটোগ্রাফি ইন্ডাস্ট্রির সঙ্গে যুক্ত। স্কিল এবং অভিজ্ঞতার মিশেলে ঋষবের প্রতিটি ফ্রেমই যেন নতুন কোন গল্প বলে। তাই একবার ওর পোর্টফলিও ঘাঁটলে আপনার যে আর কারও ফটোগ্রাফি মনে ধরবে না, সে বিষয়ে বাজি ধরতে পারি।

    খরচ: ৪৯,৯৯৯ টাকা থেকে শুরু।

    ওয়েবসাইট: pixonova.com

    ঠিকানা: ১/২ এল, রামকৃষ্ণ নস্কর লেন, কলকাতা-৭০০০১০।

    ৬. ঋতব্রত মুখার্জি

    গত চার বছর ধরে কাজ করছেন ঋতব্রত। তিনি ওয়েডিং ফোটোগ্রাফিতে তো বটেই, সেই সঙ্গে প্রি-ওয়েডিং ফোটোশুট, ডেস্টিনেশন ওয়েডিং এবং কাপল পোট্রেটের মতো ফোটোগ্রাফিতেও সমান দক্ষতা অর্জন করেছেন। এমনকী, ক্যানডিড ফোটোগ্রাফিতেও তাঁর দক্ষতা প্রশ্নাতীত। এছাড়াও তাঁর সংস্থা সিনেম্যাটিক ভিডিও সির্ভিসও প্রদান করে থাকে।

    খরচ: ২৫,০০০ টাকা থেকে শুরু।

    ফোন নং: ৯১৬৩০৬০৯১১

    ওয়েবসাইট: www.ritabrata.com

    ঠিকানা: ৯/১৩ হেমচন্দ্র মুখার্জি রোড, কলকাতা-৭০০০০৮।

    ৭. রাহুল বিশনই

    কলকাতার প্রথম সারির ওয়েডিং ফোটোগ্রাফারদের মধ্যে অন্যতম হলেন রাহুল। স্কিল এবং ক্রিয়েটিভিটির দিক থেকে তিনি যে বাকি অনেকের থেকেই এগিয়ে, তাতে কোনও সন্দেহ নেই। বিশেষ করে প্রতিটি ছবিতেই রাহুল যে দক্ষতায় লাইটকে কাজে লাগান, তা সত্যি নজরকাড়া। শুধু তাই নয়, ক্যানডিড ফোটোগ্রাফির পাশাপাশি ব্রাইডাল পোট্রেট, কাপল পোট্রেট এবং প্রি-ওয়েডিং ফোটোগ্রাফিতেও তিনি সমান দক্ষ। রাহুল, কলকাতার পাশাপাশি দেশের বাকি শহরেও কাজ করে থাকেন। তাই হাতে সময় থাকতে থাকতে তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করতে ভুলবেন না যেন!

    খরচ: ২৫,০০০ টাকা থেকে শুরু।

    ফোন নং: ৯৮১৮৬০৬০৬৯

    ওয়েবসাইট: www.rahulvishnoi.com

    ৮. সন্দীপ কর

    pexels
    pexels

    গত পনেরো বছর ধরে ফোটোগ্রাফি করছেন সন্দীপ। শুধু তাই নয়, কলকাতার প্রথম পাঁচজন ওয়েডিং ফোটোগ্রাফারদের অন্যতম হলেন তিনি। তাঁর সংস্থা ওয়েডিং ফোটোগ্রাফির পাশাপাশি ওয়েডিং সিনেমাটোগ্রাফি, ক্যানডিড ফোটোগ্রাফি এবং প্রি-ওয়েডিং ফোটোশুটের মতো সার্ভিসও প্রদান করে থাকে। সেই সঙ্গে Full HD Wedding Cinematography-এর ব্যবস্থাও রয়েছে।

    খরচ: ৪৫,০০০ টাকা থেকে শুরু।

    ফোন নং: ৯১৬৩৫২২০০৯

    ওয়েবসাইট: www.sudipto-kar.com

    ঠিকানা: ৭, ওমডা রাজা লেন, কলকাতা-৭০০০১৫।

    ৯. সৃজন ইমেজারি

    ক্যানডিড ফোটোগ্রাফির মাধ্যমে বিয়ের ছোট ছোট মুহূর্তগুলিকে ধরে রাখাই সৃজন রায়ের বৈশিষ্ট্য। শুধু তাই নয়, বিয়ের সময়কার সুক্ষ সব অভিব্যক্তিকে যে দক্ষতায় সৃজন ক্যামেরা বন্দী করেন, তা সত্যিই অনবদ্য। বিশেষ করে তাঁর ছবিতে আলোর ব্যবহার বাস্তবিকই নজরকাড়া। তাই তো তাঁর ক্যামেরায় ধরা পড়া প্রতিটি ফ্রেমই কোনও না কোনও গল্প বলে।

    খরচ: কেমন ধরনের ফোটোগ্রাফ তুলবেন, তার উপর খরচ নির্ভর করছে। তাই এক্ষেত্রে ফোটোগ্রাফারের সঙ্গে যোগাযোগ করা চাড়া আর কোনও উপায় নেই।

    ফোন নং: ৯৮৩০৬৫৮৫৪২

    ওয়েবসাইট: srejonimagery.com

    ঠিকানা: ১১৪/২, নব মহাজতি রোড, দমদম, কলকাতা-৭০০০২৮।

    ১০. দ্য ওয়েডিং ক্যানভাস

    আমাদের অভিব্যক্তিই যে বিশেষ কোনও মুহূর্তকে আরও স্পেশাল করে তোলে, সে খবর রাখেন ওয়েডিং ক্যানভাসের ফোটোগ্রাফাররাও। তাই তো তাঁদের তোলা প্রতিটি ফোটোগ্রাফই কোনও না কোনও দুষ্টু-মিষ্টি গল্প বলে। তাই তো বলি, আপনার বিয়ের অ্যালবামে থাকা প্রতিটি ছবিই চোখ ধাঁধানো হোক, এমনটা যদি চান, তাহলে এই সংস্থার উপর ভরসা রাখতেই পারেন।

    খরচ: ৩০,০০০ টাকা থেকে শুরু।

    ইমেল: theweddingcanvas2014@gmail.com

    ওয়েবসাইট: www.theweddingcanvasindia.com

    ঠিকানা: এস পি-১৩৩, যোধপুর গার্ডেন, কলকাতা-৭০০০৪৫। সাউথ সিটি মলের উল্টো দিকে।

    ১১. অনুরূপ মন্ডল

    খুব কম সময়েই কলকাতার অন্যতম সেরা ওয়েডিং ফোটোগ্রাফারের তকমা পকেটস্থ করছেন এই ফোটোগ্রাফার। তাই এই বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই যে দক্ষতা এবং ক্রিয়েটিভিটির দিক থেকে বাকি অনেকের থেকেই যোজন খানেক এগিয়ে অনুরূপ এবং তাঁর টিম। তবে অরূপের সংস্থা শুধুমাত্র ওয়েডিং ফোটোশুটই করে না। সেই সঙ্গে ব্রাইডাল পোট্রেট, প্রি-ওয়েডিং ফোটোশুট, রিসেপশন ফোটোশুট এবং কাপল পোট্রেট শুটও করে থাকে।

    খরচ: ২৫,০০০ টাকা থেকে শুরু।

    ফোন নং: ৯৮৭৪৭৮৭৫৪০

    ওয়েবসাইট: www.anurupmondal.com

    ঠিকানা: ৭/১, কালী বাড়ি রোড, দমদম, কলকাতা-৭০০০৩০।

    ১২. মালবিকা পেরিওয়াল (Malvika Periwal)

    ছোট থেকেই আর্ট এবং ফোটোগ্রাফির সখ ছিল মালবিকার। কিন্তু সেই মেয়ে যে একদিন কলকাতার সেরা ফোটোগ্রাফারদের একজন হয়ে উঠবেন, তা হয়তো সে সময় কেউ ভাবেননি। কলকাতার পাশাপাশি বিদেশেও নিজের জমি শক্ত করেছেন মালবিকা। আজ ওয়েডিং ফোটোগ্রাফির পাশাপাশি, পোট্রেট এবং ফ্যাশন ফোটোগ্রাফিতেও সমান দক্ষতায় চলেছে তাঁর সংস্থা।

    খরচ: পরিষেবার উপর নির্ভর করছে খরচ। তাই এই বিষয়ে ফোটোগ্রাফারের সঙ্গেই একবার আলোচনা করে নিতে হবে।

    ইমেল: malvika@malvikaperiwal.com

    ওয়েবসাইট: www.malvikaperiwal.com

    ঠিকানা: ১২ ই জাজেস কোর্ট রোড, আলিপুর। তৃতীয় তল, পেরিওয়াল হাউজ।

    ১৩. কলকাতা ওয়েডিং টেলস

    এদের ক্যানডিড এবং ক্রিয়েটিভ ফোটোগ্রাফি সত্যিই মনে রাখার মতো। তাই আপনাদের জীবনের সবথেকে বড় অনুষ্ঠানের ছোট-বড় নানা মুহূর্তগুলি ফোটো ফ্রেমে আরও সুন্দর ভাবে ধরা পরুক, এমনটা যদি চান, তাহলে এই সংস্থার সঙ্গে একবার যোগাযোগ করতেই পারেন।

    খরচ: ৫৫,০০০ টাকা থেকে শুরু।

    ওয়েবসাইট: www.kolkataweddingtales.com

    ঠিকানা: ৩৩৪/বি, আচার্য জগদীশ চন্দ্র বোস রোড, কলকাতা-৭০০০৬৩।

    ১৪. স্টুডিও চিত্ররূপা

    ওয়েডিং ফোটোগ্রাফির দুনিয়ায় এরা সবথেকে পুরনো খিলাড়ি। সেই ১৯৬৫ সাল থেকে এই সংস্থা ছবি তুলে চলেছে। বলতে দ্বিধা নেই, সময়ের সঙ্গে নিজেকে বদলে নিয়ে আজ এই সংস্থা ক্রিয়েটিভ এবং ক্যানডিড ফোটোগ্রাফিতেও সমান দক্ষতা অর্জন করেছে। তাই কলকাতার পাশাপাশি অন্যান্য রাজ্যেও স্টুডিও চিত্ররূপার ফোটোগ্রাফাররা সুনামের সঙ্গে কাজ করে চলেছেন।

    খরচ: ২৫,০০০ টাকা থেকে শুরু।

    ফোন নং: ০৩৩-২৪৪৭১১৫৫/৯৬৭৪৮৬৬৩৪৭

    ওয়েবসাইট: www.studiochitrarupa.net

    ঠিকানা: ৭৩৮, ডায়মন্ড হারবার রোড, বেহালা, কলকাতা-৭০০০০৮।

    সাধারণ কিছু প্রশ্নের উত্তর

    ১. বিয়ের কত মাস আগে ফোটোগ্রাফারের সঙ্গে যোগাযোগ করা উচিত?

    কম করে মাস ছয়েক আগেই যোগাযোগ সেরে ফেলবেন। তাতে নানা বিষয নিয়ে আলোচনা করার সময় যেমন পাবেন, তেমনই ফোটোগ্রাফির 'থিম' চুরান্ত করতেও দেখবেন কোনও সমস্যা হবে না।

    ২. কলকাতার বাইরের কোনও ফোটোগ্রাফারকে দায়িত্ব দিলে কি ভুল কাজ হবে?

    ফোটোশুটের পিছনে যখন এতগুলো টাকা খরচ করার কথা ভেবেই ফেলেছেন, তখন কোনও ভাবেই আপস করা উচিত নয়। তাই প্রয়োজন মনে করলে রাজ্যের বাইরের কোনও ফোটোগ্রাফারকেও দায়িত্ব দিতে পারেন। মোট কথা এক্ষেত্রে ফোটোগ্রাফারের দক্ষতাই শেষ কথা হওয়া উচিত।

    picture courtesy: RIG PHOTOGRAPHY, 

    POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

    আপনি যদি রংচঙে, মিষ্টি জিনিস কিনতে পছন্দ করেন, তা হলে POPxo Shop-এর কালেকশনে ঢুঁ মারুন। এখানে পাবেন মজার-মজার সব কফি মগ, মোবাইল কভার, কুশন, ল্যাপটপ স্লিভ ও আরও অনেক কিছু!