প্রাক্তনের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টে এখনও উঁকি-ঝুঁকি মারেন নাকি?

প্রাক্তনের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টে এখনও উঁকি-ঝুঁকি মারেন নাকি?

তা একটু আধটু মারি বই কী! কিন্তু দোষটা মোটেই আমার নয়। তা হলে করা শুনি! আমাদের মনটাই আসলে সব অশান্তির মূলে। সোজা পথে চলতে-চলতে হঠাৎ করে ব্যাটা ইউ টার্ন মেলে অতীতের দিকে ধাওয়া করে। তখন আর কিছুই করার থাকে না। অগত্যা মনের কাছে হার মেনে ফেসবুকের সার্চ বারে নামটা লিখে টুক করে ঢুকে পরতে মন চায় এক্সের প্রোফাইলে। তাতে কি মন ভাল হয়ে যায়? তা হয় না বটে। কিন্তু ওই যে মনে ধিকধিকে আগুনটা জ্বলছে সেটা তো অতীতকে কোনও মতেই ভুলতে দেয় না, তা হলে কী করি বলুন তো? এই টিপসগুলি অক্ষরে-অক্ষরে মেনে চলুন। দেখবেন, এক্সকে স্টক (stalking) করার প্রবণতা কিছুটা হলেও কমবে।

১. ঝটপট আনফ্রেন্ড করুন তো

এখনো যদি এক্সকে আনফ্রেন্ড করে না থাকেন, তা হলে ঝটপট কাজটা সেরে ফেলুন। সেই সঙ্গে আর একটা কাজও করতে হবে। কী কাজ? সবক'টা সোশ্যাল মিডিয়ায় (social media) আপনাদের যত ছবি আছে সেগুলি ডিলিট করে দিন। তাতে এক্সের স্মৃতি আপনার মন থেকে একেবারে মুছে যাবে, তেমনটা বলছি না। তবু চেষ্টা করতে ক্ষতি কী বলুন! ছোট-ছোট পদক্ষেপ নেওয়া শুরু করলে তবেই না অতীতের খপ্পর থেকে নিস্তার মিলবে। আর যদি এত কিছুর পরেও স্টকিং করতে মন চায়, তা হলে তখনই একবার সেই কারণটার কথা ভাববেন, যে কারণে ব্রেকআপ হয়েছে। দেখবেন, নিমেষেই ইচ্ছেটা মরে যাবে।

২. এক্স বয়ফ্রেন্ডের খোঁজ-খবর নেওয়া বন্ধ করুন

যে সব কমন ফ্রেন্ডরা সারাক্ষণ এক্সের সম্পর্কে আপনাকে আপডেট দিয়ে চলেছে, তাঁদেরও কাঁচি করে দিন। কারণ, এই ভাবে চলতে থাকলে যে কখনই আপনি অতীতকে ভুলে উঠতে পারবেন না। তাতে কি কোনও লাভ হবে? তাই যে সব কারণে আপনার মনে এক্সের খেয়াল আসতে পারে, সেই সবকটা রাস্তাকে চিরদিনের মতো বন্ধ করে দিন তো! তাতে দেখবেন উপকারই হবে। বিশেষ করে অতীতকে পিছনে ফেলে এগিয়ে যেতে পারবেন। জানবেন, জীবনের ট্রেন কখনও এক স্টেশনে দাঁড়িয়ে থাকে না। তাই কে বলতে পারে, জীবনের কোনও এক বাঁকে হয়তো খোঁজ পেয়ে যেতে পারেন সেই মনের মানুষটির, যাঁর সন্ধানে আপনি এতদিন ছিলেন।

৩. বন্ধুদের সঙ্গে চুটিয়ে আড্ডা দিন

এক্স-বয়ফ্রেন্ডের কথা মনে পরা মাত্র কোনও বন্ধুকে ফোন লাগিয়ে ঘণ্টাখানেক চুটিয়ে আড্ডা দিন। ফিউচার প্ল্যান করুন। দেখবেন, এক্সের চিন্তা নিমেষে মন থেকে উধাও হয়ে যাবে।

৪. সোশ্যাল মিডিয়া ডিটক্স

সেটা আবার কী জিনিস মশাই? গবেষণা বলছে, সারাদিন সোশ্যাল মিডিয়ায় মজে থাকার কারণে আমাদের মাথায় নানা বিষাক্ত চিন্তা এসে ভিড় জমায়। তার একটা হল এক্স-বয়ফ্রেন্ডকে স্টকিং করার ইচ্ছে। তাই ব্রেকআপের পরে ঝটপট সবক'টা সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট ডিলিট করে দিন। মাসদু'য়েক আফলাইন থাকলে দেখবেন সোশ্যাল মিডিয়ার প্রতি আগে যে ঝোঁক ছিল, সেটা তো কমবেই, সঙ্গে এক্সের প্রোফাইলে ঢুঁ মারার ইচ্ছাও আর থাকবে না। এবার বুঝেছেন তো সোশ্যাল মিডিয়া ডিটক্স কাকে বলে? প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বেশ কিছু স্টাডিতে একথা প্রমাণিত হয়েছে যে মাঝে মধ্যে সোশ্য়াল মিডিয়া ডিটক্স করলে বাস্তবিকই উপকার মেলে। তাহলে কী ঠিক করলেন, আতীতকে ভুলে আগে এগবেন, নাকি চিউয়িংগামের মতো এক্স-বয়ফ্রেন্ডের প্রোফাইলের সঙ্গে চিপকে থেকে সারা জীবন দুঃখেই কাটাবেন?

৫. হবির দিকে নজর ফেরান

এবার থেকে যখনই এক্সের প্রাফাইল ঘাঁটতে মন চাইবে, তখনই নিজের পছন্দ মতো কাজ করতে শুরু করে দিন। ইচ্ছা হলে বই পড়তে পারেন। আঁকতে ভালবাসলে রং-তুলি নিয়ে বসে পরুন। ইচ্ছে হলে একটা সিনেমাও দেখে ফলতে পারেন। মোট কথা যেন-তেন-প্রকারেণ মন থেকে বয়ফ্রেন্ডের চিন্তাটা দূর করতে হবে। তা হলেই দেখবেন আর স্টকিং করার ইচ্ছে থাকবে না। সাইকোলজিস্টরা বলেন, এমনটা কয়েকবার করলে নাকি মনের জোর এতটাই বেড়ে যাবে যে এক্সের চিন্তা ধারে কাছেও ঘেঁষতে পারবে না।

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

আপনি যদি রংচঙে, মিষ্টি জিনিস কিনতে পছন্দ করেন, তা হলে POPxo Shop-এর কালেকশনে ঢুঁ মারুন। এখানে পাবেন মজার-মজার সব কফি মগ, মোবাইল কভার, কুশন, ল্যাপটপ স্লিভ ও আরও অনেক কিছু!