বাটারমিল্ক বা দইয়ের ঘোল, খেতে তো ভালই, ত্বকের যত্নেও এটি অসাধারণ উপকারী!

বাটারমিল্ক বা দইয়ের ঘোল, খেতে তো  ভালই, ত্বকের যত্নেও এটি অসাধারণ উপকারী!

বাড়িতে দই পাতেন নিশ্চয়ই? তা হলে ত্বকের যত্নে বাটারমিল্ককে কাজে লাগান না কেন! জানেন, ত্বকের পরিচর্যায় এই পানীয়টির কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে। কারণ, দইয়ে রয়েছে নানা ভিটামিন এবং মিনারেল। সঙ্গে মজুত রয়েছে আরও নানা সব উপকারী উপাদান এবং নানা সব অ্যাসিড, যা ত্বকের লাবণ্য তো বাড়ায়ই, সঙ্গে দইয়ে উপস্থিত lactic acid-এর গুণে ছোট-বড় নানা ত্বকের রোগও আর ধারেকাছে ঘেঁষতে পারে না। বিশেষ করে ব্রণর প্রকোপ কমে নিমেষেই। সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মির কারণে ত্বকের (Skin) কোনও ধরনের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কাও কমে। তবে এখানেই শেষ নয়, সপ্তাহে বারতিনেক বাটারমিল্কের সঙ্গে আরও নানা সব প্রকৃতিক উপাদান মিশিয়ে তৈরি নানা সব ফেসপ্যাক যদি মুখে লাগানো যায়, তা হলে বলিরেখা কমে, ত্বক টানটান হয়ে ওঠে এবং ত্বকের উপরে জমে থাকা মৃত কোষের স্তর সরে যায়, যে কারণে ত্বকের সৌন্দর্য বাড়ে! বাটারমিল্ক কাজে লাগিয়ে এমন কয়েকটি ফেস প্যাকের সন্ধান দিচ্ছি আমরা, যেগুলি ত্বকের নানা সমস্যার চট করে সমাধান করবে! 

বাটারমিল্ক তৈরির উপায়

মিক্সিতে চার চামচ টক দই নিয়ে তাতে অল্প করে জল মিশিয়ে ভাল করে মিক্স করে নিন, তা হলেই তৈরি হয়ে যাবে বাটারমিল্ক। তবে বাজার থেকে, নয়তো অনলাইন স্টোর থেকেও রেডিমেড বাটারমিল্ক কিনতে পারেন।

popxo recommends: Go Buttermilk

বাটারমিল্ক দিয়ে তৈরি নানা ফেসপ্যাক

১. বাটারমিল্ক এবং হলুদ

একটা বাটিতে চামচ তিনেক বাটারমিল্ক (Buttermilk) নিয়ে তার সঙ্গে এক চামচ বেসন এবং হাফ চামচ হলুদ গুঁড়ো মিশিয়ে তৈরি পেস্ট সারা মুখে লাগিয়ে মিনিটকুড়ি অপেক্ষা করতে হবে। যখন দেখবেন পেস্টটা মোটের উপর শুকিয়ে গেছে, তখন ঠান্ডা জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে বারদুয়েক এই ফেসপ্যাক মুখে লাগালে ত্বকের ভিতরে lactic acid-এর মাত্রা বাড়তে শুরু করবে, যার প্রভাবে ত্বকের হারিয়ে যাওয়া আর্দ্রতা ফিরে আসবে, সঙ্গে ত্বকের সংক্রমণ সহ নানা ধরনের স্কিন ডিজিজের খপ্পরে পড়ার আশঙ্কাও আর থাকবে না। ত্বকের বয়সও কমবে। শুধু তাই নয়, সূর্যরশ্মির কারণে ত্বকের কোনও ধরনের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কাও দূর হবে।

২. বাটারমিল্ক আর মধু

ত্বকের জৌলুস বাড়াতে মধুর কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে। আর তার সঙ্গে যদি বাটারমিল্ক মেশানো যায়, তা হলে তো কথাই নেই। এই মিশ্রণ ব্রণর প্রকোপ কমাতেও সাহায্য করে। এমনকী, ব্যাকটেরিয়াল ইনফেকশনের আশঙ্কাও কমায়। বাড়বে ত্বকের আর্দ্রতাও। এক চামচ বাটার মিল্কের সঙ্গে সম পরিমাণ মধু মিশিয়ে তৈরি মিশ্রণ সারা মুখে লাগিয়ে মিনিটপাঁচেক ভাল করে মালিশ করুন। মিনিটকুড়ি অপেক্ষা করার পরে মুখ ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে বারতিনেক এভাবে ত্বকের যত্ন নিন।

৩. বাটারমিল্ক এবং বেসন

pixabay

সারা বছরই কি ত্বক শুষ্ক থাকে, সঙ্গে লেজুড় হয় ত্বকের জেল্লা কমে যাওয়ার মতো সমস্যাও? তা হলে আজ থেকেই ত্বকের যত্নে বাটারমিল্ক আর বেসনকে কাজে লাগাতে শুরু করুন। ত্বকের হারিয়ে যাওয়া আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনতে এবং সৌন্দর্য বাড়াতে এক চামচ বাটার মিল্কের সঙ্গে সম পরিমাণ বেসন মিশিয়ে তৈরি ফেসপ্যাক মুখে লাগিয়ে মিনিটপনেরো অপেক্ষা করে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে মাত্র একবার এই মিশ্রণটি মুখে লাগালেই দেখবেন উপকার মিলতে শুরু করেছে।

৪. বাটার মিল্ক, আম আর মধু

ত্বকের সৌন্দর্য বাড়াতে নিয়ম করে ত্বক পরিষ্কার করা একান্ত প্রয়োজন। এক্ষেত্রে এক চামচ বাটারমিল্কের সঙ্গে কয়েক টুকরো পাকা আম এবং এক চামচ মধু মিশিয়ে তৈরি পেস্ট সারা মুখে লাগিয়ে মিনিটপাঁচেক সার্কুলার মোশনে মালিশ করতে হবে। তারপর আধঘণ্টা অপেক্ষা করে মুখ ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে বারতিনেক এভাবে মুখ পরিষ্কার করতে হবে। 

৫. বাটারমিল্ক এবং সৈন্ধব লবণ

pexels

বাজার চলতি স্ক্রাবারের ব্যবহার তো অনেক হল, এখন থেকে না হয় বাড়িতেই তৈরি করে ফেলুন স্ক্রাবার। হাফ কাপ বাটারমিল্কের সঙ্গে সম পরিমাণ সৈন্ধব লবণ এবং কয়েক ফোঁটা আমান্ড তেল মিশিয়ে একটা পেস্ট তৈরি করুন। এবার সেই মিশ্রণটি সারা মুখে লাগিয়ে মিনিটপাঁচেক ধীরে-ধীরে ঘষে নিয়ে, মিনিটদশেক অপেক্ষা করে মুখ ধুয়ে ফেলতে হবে। সপ্তাহে একবার ঘরে তৈরি এই ফেস স্ক্রাবটি ব্যবহার করলে ত্বকের উপরে মৃত কোষ আর জমতে পারবে না। ফলে ত্বকের জৌলুস বাড়বে!

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

আপনি যদি রংচঙে, মিষ্টি জিনিস কিনতে পছন্দ করেন, তা হলে POPxo Shop-এর কালেকশনে ঢুঁ মারুন। এখানে পাবেন মজার-মজার সব কফি মগ, মোবাইল কভার, কুশন, ল্যাপটপ স্লিভ ও আরও অনেক কিছু!