নাক ডাকার সম্ভাব্য কারণ এবং ঘরোয়া উপায়ে এই সমস্যার চিকিৎসা

নাক ডাকার সম্ভাব্য কারণ এবং ঘরোয়া উপায়ে এই সমস্যার চিকিৎসা

আমরা সবাই মাঝেমধ্যে কখনও না-কখনও নাক ডাকি (snoring)! তবে কেউ-কেউ আছেন, যাঁরা ঘুমোলেই নাক ডাকেন এবং তাঁদের নাসিকাগর্জনে বাকিদের টেকা দায় হয়ে দাঁড়ায়! নাক ডাকা ব্যাপারটা যতই বিরক্তিকর হোক না কেন, নাক ডাকা কিন্তু একটি সমস্যা। নাসিকাপথ কোনও কারণে বন্ধ থাকলে অথবা কোনও কারণে শ্বাস-প্রশ্বাসের স্বাভাবিক প্রক্রিয়া বন্ধ থাকলে, তখনই আমাদের নাকের থেকে অদ্ভুত শব্দ বের হয়, যাকে পাতি বাংলায় ‘নাক ডাকা’ বলা হয়। নাক ডাকার কিন্তু চিকিৎসা রয়েছে (treatment) এবং ঘরোয়া পদ্ধতিতেই এই নাসিকাগর্জনের হাত থেকে রেহাই পাওয়া সম্ভব। তবে তার আগে জানতে হবে নাক ডাকে কেন (reasons)।

নাক ডাকার কারণ

যখন আমরা ঘুমোই, তখন যেহেতু আমাদের শরীরের বেশি মুভমেন্ট হয় না কাজেই অনেকসময়েই আমরা বুঝতে পারি না যে, আমরা যখন শ্বাস নিচ্ছি! তখন আমাদের নাক থেকেও নানা সুরে শব্দ বের হচ্ছে! অনেকেই আমরা নাক ডাকার শব্দে বিরক্ত হই, আবার অনেকেই এটা নিয়ে হাসাহাসিও করেন! তবে নাক ডাকার কিন্তু বেশ কিছু কারণ থাকতে পারে এবং নাক ডাকা কিন্তু নানা শারীরিক সমস্যার উপসর্গও হতে পারে।

১। অতিরিক্ত ওজন

নাক ডাকার একটি অন্যতম কারণ হল আমাদের শরীরের অতিরিক্ত ওজন। ওজন বাড়তে শুরু করলে পেশি দুর্বল হতে শুরু করে। কারণ পেশির উপরে ফ্যাটের আস্তরণ জমে যায়, এর ফলে কিন্তু নাক ডাকার সমস্যা হতে পারে।

২। সাইনাস

অনেক সময়ে নাকে পলিপের সমস্যা হয় বা সাইনাসের সমস্যা হয়, সেক্ষেত্রেও কিন্তু নাসিকাগর্জন হতে পারে।

৩। বয়স বৃদ্ধি

বয়স বাড়ার সঙ্গে-সঙ্গে মানুষের কণ্ঠনালী সরু হতে থাকে এবং নাক ডাকার মতো সমস্যা শুরু হয়।

৪। মদ্যপান বা ধূমপান

নিয়মিত মদ্যপান করলে আমাদের শরীরের নার্ভগুলি রিল্যাক্সড হয়ে যায় এবং শরীর ছেড়ে দেয়। সেক্ষেত্রে নাক ডাকার সমস্যা দেখা দিতে পারে। আবার নিয়মিত ধূমপানের ফলেও শ্বাসনালীতে সমস্যা দেখা দিতে পারে এবং নাক ডাকার সমস্যা হতে পারে।

৫। শারীরিক গঠন

খেয়াল করে দেখবেন, মহিলাদের তুলনায় পুরুষদের কিন্তু নাসিকাগর্জন বেশি হয়! এর কারণ হল মহিলা এবং পুরুষের শারীরিক গঠনের মধ্যে পার্থক্য।

৬। স্লিপ অ্যাপনিয়া

অনেক সময়ে স্লিপ অ্যাপনিয়ার সমস্যা থাকলেও নাক ডাকার সমস্যা হয়। স্লিপ অ্যাপনিয়া এমন একটি শারীরিক সমস্যা যখন নিঃশ্বাসের সমস্যার জন্য নাক ডাকা শুরু হয়। যদি স্লিপ অ্যাপনিয়া হয়ে থাকে, সেক্ষেত্রে দেরি না করে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া অত্যন্ত জরুরি। কারণ, এটি কিন্তু সরাসরি হার্টে প্রভাব ফেলে।

৭। শোওয়ার পদ্ধতি

আপনি কীভাবে শুয়ে ঘুমোচ্ছেন, তার উপরেও কিন্তু নির্ভর করে যে আপনার নাক ডাকছে নাকি ডাকছে না। পিঠের উপরে ভর দিয়ে সোজা হয়ে শুলে নাক ডাকার সমস্যা বেশি হয় আবার পাশ ফিরে শুলে কিন্তু তা অনেকটাই কমে যায়।

ঘরোয়া পদ্ধতিতে কীভাবে নাক ডাকার সমস্যা থেকে রেহাই পাওয়া যেতে পারে

নাক ডাকার চিকিৎসা রয়েছে, তবে বাড়িতেও যদি কিছু-কিছু বিষয় মেনে চলা যায়, তা হলে কিন্তু এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব...

  • মদ্যপান এবং ধূমপান ত্যাগ করতে হবে
  • নিয়মিত ব্যায়াম করা প্রয়োজন
  • অতিরিক্ত মেদ ঝরিয়ে ফেলুন
  • শোওয়ার পদ্ধতি বদলাতে হবে
  • বালিশ এবং বিছানা পরিষ্কার রাখুন
  • খাবারদাবারে কিছু পরিবর্তন আনুন
  • শব্দের উৎস খুঁজে বের করুন
  • স্ট্রেসমুক্ত থাকার চেষ্টা করুন

এত কিছু করার পরেও যদি দেখেন যে নাসিকাগর্জনের সমস্যার সামাধান হয়নি, দেরি না করে নাক-কান-গলা বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

আপনি যদি রংচঙে, মিষ্টি জিনিস কিনতে পছন্দ করেন, তা হলে POPxo Shop-এর কালেকশনে ঢুঁ মারুন। এখানে পাবেন মজার-মজার সব কফি মগ, মোবাইল কভার, কুশন, ল্যাপটপ স্লিভ ও আরও অনেক কিছু!

আরও পড়ুন - 

Causes of Snoring in Hindi