খাস কলকাতার মলগুলিতে পুজোর কেনাকাটা করতে চান? রইল শপিং গাইড

খাস কলকাতার মলগুলিতে পুজোর কেনাকাটা করতে চান? রইল শপিং গাইড

পুজো মানেই নতুন জামা, নতুন জুতো আর বাদবাকি সবকিছুও নতুন! ছোটবেলায় আমরা মোটামুটি সকলেই অপেক্ষা করে থাকতাম এই সময়টার জন্য, তখন তো আর কথায় কথায় কেনাকাটা করার ব্যাপার খুব একটা ছিল না, পুজোর সময়টাতেই কখনও মা কিংবা কোনও কোনও সময়ে মা-বাবা দু’জনের সঙ্গেই বেরনো হত ‘পুজোর জামা’ কিনতে (puja shopping)। এখন দিনকাল বদলেছে, মোটামুটি সারা বছরই কিছু না-কিছু কেনাকাটা চলতেই থাকে, তবে পুজোর আগ দিয়ে জামাকাপড় বা নতুন জুতো কেনার আনন্দটাই কিন্তু অন্যরকম। আর পুজোর আগে কেনাকাটা (shopping guide) করতে যাওয়া মানে তো শুধু কেনা নয়, পেটপুরে খাওয়া-দাওয়াও বটে। চলুন, আজ বেরিয়ে পড়া যাক খাস কলকাতার কয়েকটি শপিং মলের (malls) উদ্দেশ্যে!

সাউথ সিটি মল

দক্ষিণ কলকাতার খুব পরিচিত এই শপিং মলে আপনি যখনই যান না কেন, বেশ ভিড়! শুধুমাত্র জামাকাপড় না, জুতো থেকে শুরু করে রান্নাঘরের জিনিস – সব কিছুই পাবেন এখানে। জামাকাপড়ের ক্ষেত্রে নানা নামী-দামি ব্র্যান্ড রয়েছে এখানে, Vero Moda থেকে শুরু করে Zara, Shopper’s Stop, Pantaloons, Biba, Fab India – যেমন পছন্দ, তেমন পোশাক আপনি কিনতে পারেন। কেনাকাটা করে খিদে তো পাবেই, সেক্ষেত্রে টুক করে মুখ চালিয়ে নিতে পারেন মলের একদম উপরের তলার ফুডকোর্টে।

ঠিকানা – ৩৭৫, প্রিন্স আনোয়ার শাহ রোড, কলকাতা – ৭০০০৬৮

সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত খোলা থাকে। 

কোয়েস্ট মল

এবার পুজোয় কি Jimmy Choo-এর জুতো কেনার ইচ্ছে আছে, কিংবা Satya Paul-এর শাড়ি, বা Gucci-র একটা হ্যান্ডব্যাগ? যদি উত্তরটা ‘হ্যাঁ’ হয়, তা হলে চলে যান কোয়েস্ট মলে। ২০১৩ সালে সেপ্টেম্বর মাসে এই মলটি খুলেছিল এবং তারপর থেকে এমন কোনও আন্তর্জাতিক লাক্সারি ব্র্যান্ড নেই, যা কলকাতায় আসেনি! তবে লাক্সারি ব্র্যান্ডের সঙ্গে আমাদের চেনা ব্র্যান্ডগুলিও রয়েছে কোয়েস্ট মলে। তবে একটা কথা, এখানে কেনাকাটা করতে চাইলে ভাল মতো খরচ হবে, একথা মাথায় রেখে তারপরই এখানে পুজোর শপিং করতে আসবেন!

ঠিকানা – ৩৩, সৈয়দ আমির আলি অ্যাভেনিউ, পার্ক সার্কাস, বেক বাগান রো, কলকাতা – ৭০০০১৭

সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত খোলা থাকে।

ফোরাম মল

কলকাতায় এখন না হয় শপিং মলের ছড়াছড়ি, কিন্তু তা বলে তিলোত্তমার বাসিন্দাদেরকে প্রথম যে মলটি ঝাঁ-চকচকে শপিং মলের কনসেপ্টের সঙ্গে পরিচয় করাল, তাকে ভুলে গেলে কী করে চলবে? কলকাতার প্রথম শপিং মল, ফোরাম, এখন আবার ফোরাম কোর্টিয়ার্ড-এর কথা বলছি। শহরের অন্যান্য মলের থেকে আয়তনে ছোট হলেও এখানে রয়েছে নস্ট্য়ালজিয়া। নামীদামি ডিপার্টমেন্টাল স্টোর তো আছেই, ফোরামের সর্বশেষ সংযোজন কোর্টিয়াডে আছে বেশ কিছু নামী দেশি-বিদেশি ব্র্যান্ড। ফলে দু ধরনের শপিংই চলতে পারে এখানে। 

ঠিকানা – ১০/৩, এলগিন রোড, ভবানীপুর, কলকাতা – ৭০০০২০

সকাল ১১টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত খোলা থাকে।

অ্যাক্রোপলিস মল

পূর্ব কলকাতা বা পূর্ব শহরতলির বাসিন্দাদের জন্য অ্যাক্রোপলিস মল হাতের নাগালে। পুজোর জন্য কেনাকাটা করতে চাইলে এখান থেকেই করতে পারেন। আপনার বাড়ির খুদে সদস্যদের পোশাক থেকে শুরু করে বয়স্ক মা-বাবার জন্য শাড়ি বা পায়জামা-পাঞ্জাবি সব কিছুই পেয়ে যাবেন এখানে। শুধু পোশাক নয়, ফ্যাশন অ্যাকসেসরিজ থেকে শুরু করে জুতো, মেকআপের সরঞ্জাম, ঘড়ি, চশমা, এমনকী, লঁজেরিও পেয়ে যাবেন এখানেই। চাইলে সিনেপলিস-এ কোনও সিনেমাও দেখে নিতে পারেন বা খেয়ে নিতে পারেন ফুডকোর্টে।

ঠিকানা – ১৮৫৮/১, রাজডাঙ্গা মেন রোড, সেক্টর ১, ইস্ট কলকাতা টাউনশিপ, কলকাতা – ৭০০১০৭

সকাল সাড়ে ১০টা থেকে রাত সাড়ে ৯টা পর্যন্ত খোলা থাকে।

মলে শপিং করার সময়ে মাথায় রাখুন কয়েকটি বিষয়

খাস কলকাতার এই শপিং মলগুলিতে যখন পুজোর কেনাকাটা করতে যাবেন, তখন কয়েকটি জরুরি ব্যাপার মাথায় রাখুন।

  • যদি আপনি ফোরাম থেকে পুজোর শপিং সারবেন ভাবেন, তা হলে সবচেয়ে ভাল হয় যদি আপনি নিজের গাড়ি নিয়ে যান বা ক্যাব নিয়ে যান। কারণ, মলের আশপাশে কোনও মেট্রো স্টেশন বা রেল স্টেশন নেই। হ্যাঁ, আপনি রবীন্দ্র সদন মেট্রো স্টেশনে নামতে পারেন। কিন্তু তারপর অনেকটা রাস্তা আপনাকে হেঁটে যেতে হবে।
  • আবার যেদিন সাউথ সিটিতে বা অ্যাক্রোপলিস মলে কেনাকাটা করতে যাবেন, সেদিন টুক করে গড়িয়াহাটেও একবার ঘুরে আসতে পারেন।
  • পার্কিংয়ের সমস্যা কলকাতার প্রায় সব মলেই আছে। যেমন, সাউথ সিটিতে এমনি সময়েই খুব ভিড় থাকে আর পুজোর আগে যে আরও বেশি ভিড় থাকবে সেকথা বলাই বাহুল্য! কাজেই পারকিং নিয়ে সমস্যায় পড়তে হতে পারে। যদি গাড়ি ভাড়া করে যান, তা হলে ভাল। তা না হলে ট্রেনে যাদবপুর স্টেশনে নেমে দুটো অটো বদলে আপনি পৌঁছে যেতে পারবেন এই মলে। কোয়েস্ট বা অ্যাক্রোপলিসে পুজোর শপিং করতে যাওয়ার সময়ে বরং গাড়ি ভাড়া করে নিন। কারণ, পার্কিং না পেলে রাস্তায় আপনি গাড়ি রাখতে পারবেন না। সঙ্গে যদি ড্রাইভার থাকেন তা হলে তিনি আপনাদেরকে মলের বাইরে নামিয়ে অন্য কোথাও গাড়ি পার্ক করতে পারবেন। আবার আপনাদের কেনাকাটা শেষ হলে মলের বাইরে থেকেই আপনারা গাড়িতে উঠতে পারবেন।
  • কলকাতার নামী শপিং মলগুলি সবই দক্ষিণ কলকাতায়। তাই উত্তরের বাসিন্দারা এই সব মলে শপিং করতে চাইলে হাতে পুরো একটা দিন নিয়ে বেরন।

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

আপনি যদি রংচঙে, মিষ্টি জিনিস কিনতে পছন্দ করেন, তা হলে POPxo Shop-এর কালেকশনে ঢুঁ মারুন। এখানে পাবেন মজার-মজার সব কফি মগ, মোবাইল কভার, কুশন, ল্যাপটপ স্লিভ ও আরও অনেক কিছু!