শরীর নামক যন্ত্রটিকে সচল রাখতে চাইলে নিয়মিত এই খাবারগুলি খেতেই হবে

শরীর নামক যন্ত্রটিকে সচল রাখতে চাইলে নিয়মিত এই খাবারগুলি খেতেই হবে

গাড়ি কি ডিজেল বা পেট্রোল ছাড়া চলবে? এ কেমন প্রশ্ন মশাই! তেল ছাড়া গাড়ি তো এক পাও এগবে না। এক্কেবারে ঠিক বলেছেন! গাড়ির খোরাক যেমন তেল, তেমনই শরীর নামক যন্ত্রটির তেল হল বিশেষ কিছু ভিটামিন এবং মিনারেল, যা খাবারে মজুত থাকে। তাই তো শরীর বাবাজিকে সুস্থ রাখতে বিশেষ কিছু খাবারকে রোজের ডায়েটে জায়গা করে দিতেই হবে, না হলেই আজ মাথা ব্যথা, নয়তো কাল পায়ে ব্যথা, পরশু কোলেস্টেরল, ডায়াবেটিস বা হার্টের ব্যামোর মতো জটিল সব রোগ ঘাড়ে চেপে বসবে, তখন কিন্তু হাজার হাজার টাকার ওষুধ খাওয়া ছাড়া আরও কোনও গতি থাকবে না। তাই তো বলি, 'প্রিভেনশন ইজ বেটার দ্যান কিউর', এই নীতিতে বিশ্বাস রেখে আজ থেকেই এই খাবারগুলি ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে খাওয়া শুরু করে দিন। তাতে ডাক্তারের পিছনে গুচ্ছের টাকা খরচের আশঙ্কা কমবে বই কী! কী কী খাবার (Foods) খেলে এত সব উপকার মিলবে?

১. পালং শাক

গরম গরম ভাতের সঙ্গে বড়ি দিয়ে পালং শাক খেতে যেমন মন্দ লাগে না, তেমনই পালং শাক দিয়ে তৈরি ডাল বা পালক পনিরও কম মুখরোচক নয়। তবে মজার বিষয় কী জানেন, পালং শাক খেতে যতটা সুস্বাদু, ততটাই স্বাস্থ্যকর। এতে মজুত রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড এবং ফলেট, যা হার্টের খেয়াল রাখে। সেই সঙ্গে স্ট্রোকের আশঙ্কাও আর থাকে না। পালং শাকে lutein নামক আরেকটি উপকারী উপাদান রয়েছে, যা চোখের স্বাস্থ্যের দেখভালে বিশেষ ভূমিকা নেয়। তাই তো নিয়ম করে হাফ বাটি পালং শাক খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন বিশেষজ্ঞরা।

২. দই

দিনে এক বাটি করে দই খাওয়ার অভ্যাস করলে শরীর নিয়ে যে আর কোনও চিন্তাই থাকবে না, সে কথা হলফ করে বলতে পারি। কেন এমন দাবি, তাই ভাবছেন? আসলে এই দুগ্ধজাত খাবারটিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে উপকারী ব্যাকটেরিয়া, যা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে এতটাই শক্তিশালী করে তোলে যে ছোট-বড় কোনও রোগই ধারে কাছে ঘেঁষতে পারে না। বিশেষ করে সিজন চেঞ্জের সময় শরীর খারাপ হওয়ার আশঙ্কা আর কমে।

আরও পড়ুন: বাঙালির প্রিয় ভাত-ডাল-মাছেই লুকিয়ে আরোগ্যের চাবিকাঠি

৩. টোম্যাটো

দিনে দুটো করে কাঁচা টোম্যাটো, নয়তো এক গ্লাস করে টোম্যাটোর জুস খাওয়া শুরু করুন। ভাবছেন, তাতে কী উপকার মিলবে? এই সবজিটিতে উপস্থিত lycopene এবং নানা অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের গুণে ব্লাডার, ফুসফুস, প্রস্টেট এবং স্টমাকের ক্ষমতা বাড়বে। সেই সঙ্গে ত্বকের সৌন্দর্য বাড়তেও দেখবেন সময় লাগবে না। শরীরে লাইকোপেনের ঘাটতি দূর হলে নানা ধরনের করোনারি আর্টারি ডিজিজে আক্রান্ত হওয়ার ভয়ও দূর হয়। তাই বুঝতেই পারছেন, আজকের দিনে যে যে রোগের প্রকোপ বেড়েছে, সেই সবকটি রোগকে দূরে রাখতে টোম্যাটোর কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে।

৪. গাজর

দিনে খান তিনেক গাজর খেলে শরীরে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদানের মাত্রা বাড়তে শুরু করে, যে কারণে অ্যাস্থেমা এবং rheumatoid arthritis-এর মতো রোগের খপ্পরে পড়ার আশঙ্কা আর থাকে না। তবে এখানেই শেষ নয়, এই সবজিটিতে carotenoids নামক একটি উপাদান রয়েছে, যা ক্যান্সার সেলগুলিকে নিমেষে ধ্বংস করে দেয়। ফলে এমন মারণ রোগ ধারে কাছেও ঘেঁষতে পারে না।

আরও পড়ুন: শুষ্ক ত্বক থেকে পিগমেন্টেশন, ত্বকের ছোট-বড় সব সমস্যা দূর হবে গাজরের গুণে!

৫. ওটস

বলেন কী, শরীর সুস্থ রাখতে ওটস খেতে হবে! কেন শুনি? কারণ, শরীরকে সচল রাখতে যে যে উপাদানগুলির প্রয়োজন পড়ে, তার মধ্যে অন্যতম হল ফাইবার। আর এই উপদানটি প্রচুর মাত্রায় মজুত রয়েছে ওটসে। সেই সঙ্গে রয়েছে কার্বোহাইড্রেটও। তাই তো শরীরকে রোগ মুক্ত রাখতে নিয়মিত ব্রেকফাস্টে এক বাটি ওটস খেতেই হবে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গ্যাস-অম্বল এবং কোষ্ঠকাঠিন্য সহ নানা ধরনের পেটের রোগের প্রকোপ কমাতেও ফাইবারের জুড়ি মেলা ভার। তাই এমন কোনও রোগে ভুগলে বেশি করে ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার খেতে ভুলবেন না যেন! ওটস ছাড়াও হোল গ্রেন, জাম, গাজর, বাদাম এবং খোসা সমেত আলুতেও প্রচুর পরিমাণ ফাইবার রয়েছে।

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

এসে গেল #POPxoEverydayBeauty - POPxo Shop-এর স্কিন, বাথ, বডি এবং হেয়ার প্রোডাক্টস নিয়ে, যা ব্যবহার করা ১০০% সহজ, ব্যবহার করতে মজাও লাগবে আবার উপকারও পাবেন! এই নতুন লঞ্চ সেলিব্রেট করতে প্রি অর্ডারের উপর এখন পাবেন ২৫% ছাড়ও। সুতরাং দেরি না করে শিগগিরই ক্লিক করুন POPxo.com/beautyshop-এ এবার আপনার রোজকার বিউটি রুটিন POP আপ করুন এক ধাক্কায়...