প্রেম ভেঙেছে, কাজের অনিশ্চয়তায় এসেছে ডিপ্রেশন, তবুও অভিনয়ে ফোকাস হারাননি মিশমি দাস

প্রেম ভেঙেছে, কাজের অনিশ্চয়তায় এসেছে ডিপ্রেশন, তবুও অভিনয়ে ফোকাস হারাননি মিশমি দাস

অভিনয় নয়, চাটার্ড অ্যাকাউন্টেন্সি তাঁর পেশা হবে। এমনটাই ভেবেছিলেন তিনি। অর্থাৎ অভিনেত্রী মিশমি (Mishmee) দাস।মহাদেবী বিড়লার প্রাক্তনী একটি জনপ্রিয় ম্যাগাজিনে মডেলিংয়ের মাধ্যমে কেরিয়ার শুরু করেন। ২০১৪-এ প্রথম সুযোগ পান 'রাজযোটক' ধারাবাহিকে। তারপর থেকেই বদলে যায় কেরিয়ারের ট্র্যাক। আপাতত তিনি সান বাংলার 'জিয়নকাঠি' ধারাবাহিকে অভিনয় করে দর্শকের প্রশংসা আদায় করে নিচ্ছেন।

"এখানে হিরোর এক্স গার্লফ্রেন্ডের চরিত্র আমার। বিয়ে ঠিক হয়েছিল একসময়। অনেকদিন পরে আবার হঠাৎই ফিরে আসে। আরও টুইস্ট আছে। একটু একটু করে রিভিল হবে। পজিটিভ ক্যারেক্টারের সঙ্গেও কানেকশন আছে। সেটাও পরে জানা যাবে" শেয়ার করলেন মিশমি। তাঁর চরিত্র কি নেগেটিভ? অভিনেত্রীর (Actress) জবাব, লীনা গঙ্গোপাধ্যায় চিত্রনাট্য লিখছেন। ফলে পজিটিভ বা নেগেটিভ ওরকম আলাদা শেপে ফেলা যাবে না।

মিশমির সিভিতে রয়েছে 'প্রেমের ফাঁদে', 'গাছকৌটো', 'ফাগুন বউ', 'সীমানা পেরিয়ে'-এর মতো জনপ্রিয় ধারাবাহিক। 'বুড়ো সাধু' ছবিতে ঋত্বিক চক্রবর্তীর কলেজ বেলার প্রেমিকার চরিত্রে অভিনয় করেছেন। জি-ফাইভের জন্য করেছেন 'রিঙ্গা রিঙ্গা রোজেস'-এর মতো কাজ। অর্থাৎ প্রায় সব ক'টি মাধ্যমেই অভিনয়ের অভিজ্ঞতা রয়েছে মিশমির ঝুলিতে। আবার মুম্বইতে বালাজি টেলিফিল্মের 'ডায়ন', 'সিলসিলা বদল দে রিস্তোকা'র মতো কাজও করেছেন তিনি। কতটা আলাদা এসব মাধ্যম? মিশমি বললেন, "টেলিভিশনে সময় কম থাকে। অনেক তাড়াহুড়ো করে শুট করা হয়। ফিল্মে অনেক রিয়ালিস্টিক ওয়েতে কাজ হয়।"

 

'জিয়নকাঠি' ধারাবাহিকে মিশমি।

বাইরে থেকে অভিনয় জগৎ সম্পর্কে অনেক ধারণা থাকলেও, তা যে আদৌ সব ঠিক নয়, তা পেশাদার হিসেবে বুঝেছেন মিশমি। কাজের কোনও নিশ্চয়তা নেই এই ইন্ডাস্ট্রিতে। একটার পর আর একটা প্রজেক্টের মধ্যে গ্যাপ চলে এলেই, ডিপ্রেশনের শিকার হন অনেকেই। মিশমিও ব্যতিক্রম নন। এ হেন পরিস্থিতি ফেস করেছিলেন তিনিও। "আমার প্রথম প্রজেক্ট দু'বছর চলেছিল। ওটা শেষ হওয়ার পর আবার একটা প্রজেক্ট করি। সেটার পর একটা ন'মাসের গ্যাপ ছিল। সে সময়টা ডিপ্রেশন এসেছিল। কঠিন সময় ছিল সেটা। খুব খারাপ কেটেছিল আমার। লোকে বলেছে ওভার ইউজড মুখ। ভেবেছিলাম কেউ আর কাজ দেবে না। কনফিডেন্স চলে গিয়েছিল। সাইক্রিয়াটিক হেল্প নিয়েছিলাম। আর এটা বলতে তো কোনও লজ্জা নেই। বাড়ির লোক বা বন্ধুরা সাপোর্ট করেছিল। দেখুন, ডিপ্রেশন সকলের হয়। স্ট্রেস হলেও সেটা জানানো উচিত। কাউন্সেলিং করানো উচিত। তাতে একটা নিউট্রাল পারস্পেকটিভ পাওয়া যায়" অকপটে বললেন অভিনেত্রী।

পাঁচ বছরের সম্পর্ক ভেঙে গিয়েছে মিশমির। কিন্তু তা নিয়ে আজ আর কোনও আফশোস নেই তাঁর। আপাতত হ্যাপিলি সিঙ্গল মিশমি আরও বেশি করে কাজে মন দিতে চান। 

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

এসে গেল #POPxoEverydayBeauty - POPxo Shop-এর স্কিন, বাথ, বডি এবং হেয়ার প্রোডাক্টস নিয়ে, যা ব্যবহার করা ১০০% সহজ, ব্যবহার করতে মজাও লাগবে আবার উপকারও পাবেন! এই নতুন লঞ্চ সেলিব্রেট করতে প্রি অর্ডারের উপর এখন পাবেন ২৫% ছাড়ও। সুতরাং দেরি না করে শিগগিরই ক্লিক করুন POPxo.com/beautyshop-এ এবার আপনার রোজকার বিউটি রুটিন POP আপ করুন এক ধাক্কায়..