পুজোর পেটপুজো: কলকাতার নামী তিন শেফের এক্সক্লুসিভ রেসিপি শুধুমাত্র আপনাদের জন্য়

পুজোর পেটপুজো: কলকাতার নামী তিন শেফের এক্সক্লুসিভ রেসিপি শুধুমাত্র আপনাদের জন্য়

পুজোর সময় গিফ্ট পেতে কার না ভাল লাগে লাগে বলুন! আর সেই উপহার যদি হয় মনের মতো, তাহলে তো কথাই নেই! তাই তো আজ খাদ্যরসিক পাঠক-পাঠিকাদের বিশেষ উপহার দিতে চলেছে POPxo বাংলা। কী উপহার? কলকাতার বেশ কয়েকটি নামী রেস্তরাঁর তিনজন প্রখ্যাত শেফের এক্সক্লুসিভ তিনটে রেসিপির হদিশ থাকলো শুধুমাত্র আপনাদের জন্য। এই পদগুলির নাম যতটা হাটকে, স্বাদে ততটাই মুখরোচক। তাই পুজোর সময় নিজের তো বটেই, সেই সঙ্গে পরিবারের বাকি ভোজনরসিকদের রসনা তৃপ্তি করতে যে কোনও দিনই তৈরি করে ফেলতে পারেন এই পদগুলি। চলুন তাহলে আর সময় নষ্ট না করে শেফেদের (chef) থেকে তাঁদের রেসিপিগুলো জেনে নেওয়া যাক!

আটারলি-বাটারলি চিকেন

উপকরণ
১. মুরগির মাংস- ৫০০ গ্রাম।
২. দই- এক বাটি।
৩. হলুদ গুঁড়ো- ৪ চামচ।
৪. লঙ্কা গুঁড়ো- ২ চামচ।
৫. মশলার মিশ্রণ- ৩ চামচ।
৬. সরষের তেল- ৪ চামচ।
৭. ঘি- হাফ বাটি।

আটারলি-বাটারলি সস তৈরির উপকরণ
১. দই- ৪-৫ চামচ।
২. ক্রিম- ১ চামচ।
৩. আদা-রসুন পেস্ট- ছোট চামচের ১ চামচ।
৪. কাঁচা লঙ্কার পেস্ট- ১ চামচ।
৬. হলুদ- ২ চামচ।
৭. এলাচ গুঁড়ো- ২ চামচ।
৮. নুন- স্বাদ অনুসারে।
৯. ধনে পাতা- ছোট বাটির হাফ বাটি।
১০. মাখন- হাফ বাটি।

প্রণালী
১. একটা বড় বাটিতে পরিমাণ মতো মাংস নিয়ে তাতে এক এক করে দই, হলুদ গুঁড়ো, লঙ্কা গুঁড়ো, মশলার মিশ্রণ এবং সরষের তেল ঢেলে নিয়ে ভাল করে মেখে নিন, যাতে প্রতিটি উপকরণ মাংসের মধ্যে ঠিক করে প্রবেশ করার সুযোগ পায়। এবার ম্যারিনেট করা মাংসের পিসগুলি একটা থালাতে অথবা স্টিকে একটা একটা করে ঢুকিয়ে নিয়ে মাইক্রোওয়েভে রেখে 'রোস্টিং' বাটনটা ক্লিক করে কম করে মিনিটপনেরো ফ্রাই করতে হবে। যখন দেখবেন মাংসের পিসগুলো খয়েরি বর্ণ নিতে শুরু করেছে, তখন মাইক্রোওয়েভ বন্ধ করে দিয়ে পিসগুলির গায়ে ব্রাশ দিয়ে ঘি অথবা তেল লাগিয়ে পুনরায় মিনিটছয়েকের জন্য ফ্রাই করতে হবে।

২. মাংসটা যতক্ষণ রান্না হচ্ছে, ততক্ষণে তৈরি করে ফেলতে হবে আটারলি-বাটারলি সস। এই সস তৈরির জন্য একটা মাঝারি মাপের বাটিতে পরিমাণ মতো দই, ক্রিম, আদা-রসুনের পেস্ট, কাঁচা লঙ্কার পেস্ট, হলুদ এবং এলাচ গুঁড়ো নিয়ে ভাল করে মিক্স করে নিতে হবে। যখন দেখবেন প্রতিটি উপদান একে অপরের সঙ্গে ভাল করে মিশে গেছে, তখন পরিমাণ মতো মাখন, ধনে পাতা এবং স্বাদ অনুসারে নুন মিশিয়ে আরেকবার ভাল করে মেখে নিন, তাহলেই তৈরি হয়ে যাবে আটারলি-বাটারলি সস।

৩. এবার মাংসের পিসগুলি মাইক্রোওয়েভ থেকে বের করে একটা থালাতে নিয়ে তার উপর ধীরে ধীরে সসটা ছড়িয়ে দিন। এরপর হয় রুমালি রুটি, নয়তো নান অথবা হাতে করা রুটির সঙ্গে পরিবেশন করুন।

রেসিপি: শেফ রঞ্জিত পোদ্দার, হেড শেফ, রং দে বসন্তী ধাবা, বেহালা শকুন্তলা পার্ক

চিকেন টিক্কা পাও

উপকরণ
১. সাদা তেল- ১ চামচ।
২. পেঁয়াজ কুচি- ৪ চামচ।
৩. কাঁচা লঙ্কা কুচি- ১ চামচ।
৪. ধনে পাতা- ১ চামচ।
৫. চিকেন টিক্কা- ১০০ গ্রাম (আগে থেকে রান্না করা)।
৬. মাখন- ছোট বাটির হাফ বাটি।
৭. পাও- ৪ টে।

প্রণালী
১. মাঝারি মাপের প্যানে এক চামচ সাদা তেল নিয়ে মিনিট খানেক একটু গরম করে নিয়ে তাতে চার চামচ পেঁয়াজ কুচি ফেলে একটু ভেজে নিন। পেঁয়াজের রং হালকা খয়েরি বর্ণ নিলে তাতে এক চামচ কাঁচা লঙ্কা, এক চামচ ধনে পাতা এবং আগে থাকতে রান্না করে রাখা ১০০ গ্রাম চিকেন টিক্কা মিশিয়ে মিনিটপাঁচেক ভাল করে নাড়াতে হবে। যখন দেখবেন প্রতিটি উপকরণ ভাল করে মিশে গেছে, তখন আঁচটা বন্ধ করে দিতে হবে। এবার পাও তৈরির পালা।

২. চারটে পাও মাঝ খান থেকে কেটে নিয়ে তাতে হাফ চামচ করে মাখন লাগিয়ে প্যানে রেখে একটু ফ্রাই করে নিতে হবে। এই সময় প্যানে তেল দেবেন না, আর ধিমে আঁচে রান্না করবেন।

৩. পাওগুলি মিনিট খানেক হলকা ফ্রাই করে নেওয়ার পরে দু'টুকরো পাওয়ের মাঝে মাংসের মিশ্রণটা রেখে পাওয়ের উপর থেকে একটা টুথ পিক গুঁজে দিন, যাতে মাংসের পুরটা পরে না যায়। এবার পরিবেশনের পালা।

রেসিপি: শেফ রামকৃষ্ণ, হেড শেফ, বরফ-সোডা-পানি, পার্ক স্ট্রিট

সরষে পারশের ঝাল

উপকরণ
১. সরষের তেল- ৩ চামচ।
২. আদা বাটা- ১ চামচ।
৩. কালো জিরে- হাফ চামচ।
৪. হলুদ- ১ চামচ।
৫. জিরে গুঁড়ো- ১ চামচ।
৬. ধনে গুঁড়ো- ১ চামচ।
৭. লঙ্কা গুঁড়ো- ১ চামচ।
৮. জল- বড় চামচের ৪ চামচ।
৯. পারশে মাছ- ৪ পিস।

প্রণালী
১. মাঝারি মাপের প্যান চামচ দুয়েক সরষের তেল একটু গরম করে নিয়ে তাতে এক চামচ আদা বাটা এবং হাফ চামচ কালো জিরে মিশিয়ে মিনিটপাঁচেক একটু নাড়াতে হবে। এরপরে এক এক করে পরিমাণ মতো হলুদ গুঁড়ো, জিরে গুঁড়ো, ধনে গুঁড়ো এবং লঙ্কা গুঁড়ো মিশিয়ে মিনিটদুয়েক নাড়িয়ে বড় চামচের দু'চামচ জল মিশিয়ে আবার মিনিট খানেক নাড়াতে হবে। এবার চামচ দুয়েক জল মিশিয়ে মিনিটপাঁচেক রান্না করলেই তৈরি হয়ে যাবে ঝোল। এবার তাতে ডিপ ফ্রাই করে রাখা পারশে মাছগুলো এক এক করে দিয়ে মিনিটদশেক ভাল করে নাড়াতে হবে। মাঝে একবার মাছগুলো উল্টেপাল্টে নেবেন, তাতে মশলাগুলো মাছের মধ্যে ঠিক করে প্রবেশ করার সুযোগ পাবে।

২. আরও মিনিটদশেক ধিমে আঁচে রান্না করলেই তৈরি হয়ে যাবে সরষে পারশের ঝাল। এবার গরম গরম ভাতের সঙ্গে পদটি পরিবেশন করুন। পুজোর কোনও একদিন দুপুরের মেনুতে এই পদটি থাকলে মন্দ হবে না কিন্তু!

রেসিপি: শেফ শচীন হালদার, মোনোটেল, সল্ট লেক

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

এসে গেল #POPxoEverydayBeauty - POPxo Shop-এর স্কিন, বাথ, বডি এবং হেয়ার প্রোডাক্টস নিয়ে, যা ব্যবহার করা ১০০% সহজ, ব্যবহার করতে মজাও লাগবে আবার উপকারও পাবেন! এই নতুন লঞ্চ সেলিব্রেট করতে প্রি অর্ডারের উপর এখন পাবেন ২৫% ছাড়ও। সুতরাং দেরি না করে শিগগিরই ক্লিক করুন POPxo.com/beautyshop-এ এবার আপনার রোজকার বিউটি রুটিন POP আপ করুন এক ধাক্কায়...