নিয়মিত দাঁত ব্রাশ নিশ্চয়ই করেন, কিন্তু সঠিক নিয়ম মেনে ব্রাশ করছেন তো?

নিয়মিত দাঁত ব্রাশ নিশ্চয়ই করেন, কিন্তু সঠিক নিয়ম মেনে ব্রাশ করছেন তো?

সকাল-বিকাল মটন-চিকেন, ডাল-কোফতা খেতে তো মন্দ লাগে না। কিন্তু যে দাঁতের সাহায্যে খাবার খাওয়া হয়, সেই দাঁতের যত্ন কেউই নেন না। ফলে ক্যাভিটি, plaque-এর মতো সমস্যা তো লেজুড় হয়ই, সঙ্গে নানা ধরনের মাড়ির সমস্যাও ঘাড়ে চেপে বসে। ফলে টপাটপ দাঁত পড়ে গিয়ে ফোকলা হতে সময় লাগে না। এই কারণে দাঁত থাকাকালীনই দাঁতের যত্ন নেওয়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ। রোজ তো ব্রাশ করি, আর কী করতে হবে বলুন? দিনে একবার ব্রাশ করলেই কিন্তু আপনার দায়িত্ব শেষ হয়ে যায় না। বরং সঠিক নিয়ম মেনে ব্রাশ (brush) করছেন কিনা, সেদিকেও নজর ফেরাতে হবে। তবেই কিন্তু দাঁতের (Teeth) স্বাস্থ্য ঠিক থাকবে। 

১. দিনে দু'বার, দু'মিনিট করে ব্রাশ করা মাস্ট

সকালে তো বটেই, সেই সঙ্গে রাতেও একবার ব্রাশ করতে ভুলবেন না যেন! আর ঘড়ি ধরে মিনিটদুয়েক ব্রাশ করা জরুরি। তাতে প্রতিটা দাঁতই পরিষ্কার করার সুযোগ পাবেন। ফলে ক্যাভিটি বা plaque, কোনও সমস্যাই ধারে কাছে ঘেঁষতে পারবে না। ব্রাশ করা হয়ে গেলে নিয়ম করে Flossing করতেই হবে। সেই সঙ্গে মাউথওয়াশ (Mouthwash) মুখে নিয়ে মিনিটখানেক কুলকুচি করা মাস্ট! তাতে দাঁতের ফাঁকে ব্যাকটেরিয়া জমার আশঙ্কা কমবে। ফলে অসময়ে দাঁতের ক্ষতি হয়ে যাওয়ার আশঙ্কাও আর থাকবে না।

আমাদের পছন্দ: কোলগেট প্লাক্স ফ্রেশ মিন্ট মাউথওয়াশ এবং ক্লোজ আপ রেড হট মাউথওয়াশ

২. দাঁত মাজতে হবে সঠিক নিয়ম মেনে

নিয়মিত সবাই দাঁত মাজেন ঠিকই। কিন্তু দুর্ভাগ্যের বিষয় হল দাঁত মাজার সঠিক নিয়ম সম্পর্কে অনেকেই খোঁজ রাখেন না। ফলে সকাল-রাতে দাঁত মেজেও তেমন কোনও উপকার মেলে না। তাই তো বিশেষজ্ঞদের মতামত মেনে ব্রাশ করতে হবে। কী মতামত? সামনের দিকের দাঁতগুলি মাজার সময় ব্রাশ উপর-নিচে ঘষতে হবে। আর দু'পাশের দাঁত মাজতে হবে সার্কুলার মোশন, তাতে দাঁতের ফাঁকে ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া জমার আশঙ্কা কমবে। এমনকী, অসময়ে দাঁতের উপরের স্তর, অর্থাৎ এনামেলের কোনও ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কাও আর থাকবে না। দাঁত মাজার পরে আঙুল দিয়ে মাড়ি ঘষতে ভুলবেন না যেন! তাতে মাড়িতে রক্ত চলাচল বাড়বে। ফলে দাঁত এবং মাড়ির সমস্যা দূরে থাকতে বাধ্য হবে।

আমাদের পছন্দ: ওরাল বি ভাইটালিটি ক্রস অ্যাকশন রিচার্জেবল টুথব্রাশ এবং কোলগেট স্লিম সফট চারকোল টুথব্রাশ

৩. টুথপেস্টের দিকে নজর রাখতে হবে

fluoride রয়েছে এমন টুথপেস্ট ব্যবহার করলে দাঁত শক্তপোক্ত হয়, সঙ্গে ক্যাভিটি এবং প্লাকের সমস্যাও দূরে থাকে। কিন্তু তাই বলে বেশি মাত্রায় টুথপেস্ট ব্যবহার করা চলবে না। বরং মটর দানার যা মাপ সেই অনুযায়ী টুথপেস্ট ব্যবহার করলেই উপকার মিলবে। আসলে বেশি পরিমাণে টুথপেস্ট ব্যবহার করলে ব্রাশ করাকালীন তা গিলে ফেলার আশঙ্কা থাকে, যা মারাত্মক ক্ষতিকারক।

আমাদের পছন্দ: কোলগেট ভিজিবল হোয়াইট টুথপেস্ট এবং নিম অ্যাক্টিভ টুথপেস্ট

৪. দাঁতের ভিতরের অংশও পরিষ্কার করতে হবে

খেয়াল করে দেখবেন আমাদের মধ্যে অনেকেই ব্রাশ করার সময় দাঁতের সামনের দিকটা শুধু পরিষ্কার করেন, পিছনের দিকটা পরিষ্কার করার কথা ভুলেই যান। ফলে সেই সব অংশে ব্যাকটেরিয়া জমতে শুরু করে। ফলে দাঁতের ক্ষতি হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা বাড়ে। তাই তো ব্রাশ করার সময় দাঁতের সামনের দিকের পাশাপাশি পিছনের দিকটাও সমানভাবে পরিষ্কার করতে হবে। তবেই কিন্তু দাঁতের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটবে।

এই টিপসগুলিও মেনে চলা জরুরি

১. এমন ব্রাশ কিনতে হবে যা মুখগহ্বরের প্রতিটা কোণায় পৌঁছে যাবে। তবে খেয়াল রাখবেন ব্রাশের দাঁড়গুলো যেন বেশি শক্ত না হয়, তাতে দাঁতের এবং মাড়ির ক্ষতি হয়ে যেতে পারে।

২. নিয়মিত নুন জলে কুলকুচি করলে ক্ষতিকর সব ব্যাকটেরিয়াগুলি মারা যাবে। ফলে দাঁতের কোনও ধরনের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা তো কমবেই, সঙ্গে মুখের দুর্গন্ধও দূর হবে।

৩. দাঁত মাজার পরে ভাল করে ব্রাশটা ধুয়ে নেবেন। তাতে করে ব্রাশে কোনও ধরনের ব্যাকটেরিয়া জমে থাকার আশঙ্কা আর থাকবে না।

৪. দাঁত মাজার পরে জিভ পরিষ্কার করতে হবে। এতে করে মুখ থেকে বদ গন্ধ বেরনোর আশঙ্কা কমবে।

৫. ব্রাশটা ৪৫ ডিগ্রি অ্যাঙ্গলে রেখে দাঁত মাজলে বেশি উপকার পাবেন।

৬. মিষ্টি জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলাটাই বুদ্ধিমানের কাজ। কারণ, এমন ধরনের খাবার দাঁতের ক্ষতি করে।

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

এসে গেল #POPxoEverydayBeauty - POPxo Shop-এর স্কিন, বাথ, বডি এবং হেয়ার প্রোডাক্টস নিয়ে, যা ব্যবহার করা ১০০% সহজ, ব্যবহার করতে মজাও লাগবে আবার উপকারও পাবেন! এই নতুন লঞ্চ সেলিব্রেট করতে প্রি অর্ডারের উপর এখন পাবেন ২৫% ছাড়ও। সুতরাং দেরি না করে শিগগিরই ক্লিক করুন POPxo.com/beautyshop-এ এবার আপনার রোজকার বিউটি রুটিন POP আপ করুন এক ধাক্কায়...