সহস্র দীপ জ্বেলে ‘অলক্ষ্মী’ বিদায় করে অমাবস্যায় পূজিতা হন দীপান্বিতা লক্ষ্মী

সহস্র দীপ জ্বেলে ‘অলক্ষ্মী’ বিদায় করে অমাবস্যায় পূজিতা হন দীপান্বিতা লক্ষ্মী

কিছুদিন আগেই গৃহস্থ বাড়িতে ধূপ ধুনো জ্বেলে ঘটা করে মা লক্ষ্মীর (Lakshmi) আরাধনা হয়েছে। সুখ সমৃদ্ধি আর ধন সম্পত্তি প্রাপ্তি লাভের আশায় আমরা এই পুজো করে থাকি। কিন্তু অমাবস্যা তিথিতেও অর্থাৎ কালীপুজোর (Kali) সময়ও অনেক বাঙালি বাড়িতে লক্ষ্মী পুজো হয়ে থাকে। এই লক্ষ্মীকে বলাহয় দীপান্বিতা লক্ষ্মী বা দীপান্বিতা (Dipannita) কালী। কার্তিক মাসের অমাবস্যা তিথিতে এই পুজো বাঙালিদের মধ্যে বেশ জনপ্রিয়। কিন্তু কেন কালীপুজোর সময় এই লক্ষ্মী দেবীর আরাধনা প্রচলিত হয়েছে তার বিশেষ কোনও তথ্য পাওয়া যায়না। 


তবে ষোড়শ শতাব্দীতে নবদ্বীপে ছিলেন একজন বিখ্যাত স্মার্ত পণ্ডিত। তিনি নব্যস্মৃতি শাস্ত্রের প্রণেতা ছিলেন। তাঁর নাম ছিল রঘুনন্দন। তিনি অমাবস্যা তিথিতে লক্ষ্মীপুজোর বিধান দিয়েছিলেন। তবে তিনি কিন্তু সেইদিন কোনও কালীপুজোর কথা উল্লেখ করেননি। অমাবস্যা তিথিতে কালীপুজো শুরু হয় সপ্তদশ শতক থেকে। কিছু কিছু বাঙালি বাড়িতে কোজাগরী পূর্ণিমার পরিবর্তে অমাবস্যা তিথিতে লক্ষ্মী পুজোর প্রচলন আছে। এইদিন মা লক্ষ্মীর আরাধনা ছাড়াও করা হয় অলক্ষ্মী বিদায়। যেহেতু সেদিন আলো বা প্রদীপ জ্বালিয়ে দেওয়া হয় তাই এই লক্ষ্মীকে বলা হয় দীপান্বিতা লক্ষ্মী। আর এইদিন প্রথা মেনে লক্ষ্মীর সাথে আরাধনা করা হয় অলক্ষ্মীরও।

আরও পড়ুনঃ লক্ষ্মী পুজোর কয়েকটি রঙিন আলপনার ডিজাইন

Instagram

কে এই অলক্ষ্মী?

অলক্ষ্মীকে মা ধূমাবতীর রূপ বলা হয়

তিনি হলেন মা লক্ষ্মীর বড় বোন। গৃহস্থরা বিশ্বাস করেন, মা লক্ষ্মী স্বয়ং সময় বিশেষে অলক্ষ্মীর রূপ ধারণ করেন। তাই তাই লক্ষ্মী যাতে চঞ্চলা না হয়ে বাড়িতেই অধিষ্ঠান করেন তার জন্য দুই বোনকেই তুষ্ট রাখতে পুজো করা হয়। তবে অলক্ষ্মীকে অনেক সময় দশ মহাবিদ্যার একজন দেবী ধূমাবতীর সঙ্গেও তুলনা করা হয়। যে গোষ্ঠী এই দেবী ধূমাবতীর উপাসনা করেন তাঁদেরকে বলা হয় “অলক্ষ্মী উপাসক”। 

এই লক্ষ্মী পুজোর সঙ্গে দীপাবলির কী সম্পর্ক?

মূলত এই লক্ষ্মী পুজোর সঙ্গে দীপাবলি বা দিওয়ালির কোনও সম্পর্ক নেই। পশ্চিমবঙ্গে তন্ত্র সাধনার প্রভাব অনেক বেশি। তাই এই সময় এখানে পূজিতা হন দেবী কালী বা শ্যামা। আবার একই সময়ে উত্তর, পশ্চিম ও দক্ষিণ ভারতে লক্ষ্মী পুজো করা হয়। যদিও এই লক্ষ্মীকে দীপান্বিতা লক্ষ্মী বলা হয়। আর এই দীপান্বিতা শব্দটি এসেছে দীপমুক্তা থেকে। তবে দীপাবলির দিন এই লক্ষ্মী পুজো হয়ে থাকে বলে একে “ছোটা দিওয়ালি”ও বলা হয়ে থাকে অনেক সময়। পুরাণে অলক্ষ্মীর রূপ বর্ণনা করা আছে পেঁচা হিসেবে। যদিও পেঁচাই হল মা লক্ষ্মীর বাহন। বলা হয় যে আজকের দিনে যদি অলক্ষ্মী বাড়িতে প্রবেশ করে তাহলে মা লক্ষ্মী তাঁকে বাধা দেন। 

 

 

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

এসে গেল #POPxoEverydayBeauty - POPxo Shop-এর স্কিন, বাথ, বডি এবং হেয়ার প্রোডাক্টস নিয়ে, যা ব্যবহার করা ১০০% সহজ, ব্যবহার করতে মজাও লাগবে আবার উপকারও পাবেন! এই নতুন লঞ্চ সেলিব্রেট করতে প্রি অর্ডারের উপর এখন পাবেন ২৫% ছাড়ও। সুতরাং দেরি না করে শিগগিরই ক্লিক করুন POPxo.com/beautyshop-এ এবার আপনার রোজকার বিউটি রুটিন POP আপ করুন এক ধাক্কায়...