হবু শাশুড়ির সঙ্গে প্রথম সাক্ষাতের দিন এই কথাগুলি ভুলেও বলবেন না

হবু শাশুড়ির সঙ্গে প্রথম সাক্ষাতের দিন এই কথাগুলি ভুলেও বলবেন না

'ফার্স্ট ইমপ্রেশন ইজ দ্য লাস্ট ইমপ্রেশন', এই কথাটা মনে আছে নিশ্চয়? এই কারণেই শাশুড়ি মায়ের সঙ্গে প্রথম সাক্ষাতের দিন একটু 'সেফ' খেলাটাই বুদ্ধিমানের কাজ। তাই বলে এক্কেবারে চুপ থাকলেও বিপদ! কেন, শুনেছি যে বোবার কোনও শত্রু হয় না? তা ঠিক! কিন্তু তেমন একটা কথা না বললে শাশুড়ি মা হয়তো নিজের মতো করেই আপনার স্বভাব-চরিত্র সম্পর্কে কিছু একটা ভেবে ফেলবেন। আর পরে যদি সেই ভাবনার সঙ্গে বাস্তবের মিল না থাকে, তাহলেই মুশকিল। এই রে, তাহলে কী করণীয়? অল্প বিস্তর কথা বলুন, মুচকি হেসে শাশুড়ির কথায় সঙ্গে তাল দিন, এসবে কোনও ক্ষতি নেই! কিন্তু এই ভুল কাজগুলো ভুলেও করবেন না যেন! তাতে কিন্তু তীরে এসে তরী ডুবতে পারে।

১.মিথ্যা বললেই বিপদ

শাশুড়ির (in-law) মন জয় করার চক্করে মিথ্যা কথা বলা চলবে না। কারণ, নিজের সম্পর্কে false impression দিলে আরও বিপদ! তাই নিজেকে নিজের মতো করে মেলে ধরুন। আপনার পছন্দ-অপছন্দ নিয়ে কথা বলুন। তবেই না সবাই আপনাকে চিনতে পারবেন, বুঝতে পারবেন। আর যদি ভেবে থাকেন মিথ্যা বলে বাজিমাত করবেন, তাহলে ভুল ভাবছেন। কারণ, মিথ্যা একদিন সামনে আসবেই, তখন কী করবেন শুনি? পারবেন তো সেই ঝড় সামলাতে!

২. পার্টনারের সম্পর্কে কোনও নেতিবাচক কথা বলা চলবে না

ছেলেরা হল মায়েদের চোখের মণি। সেই ছেলের সম্পর্কে কিছু বেফাঁস শুনলে মায়েদের মেজাজ গরম হতে কিন্তু সময় লাগে না। এই কারণেই বলছি, প্রথম সাক্ষাতের (meeting) দিন ভুলেও শাশুড়ির সামনে হবু পার্টনারকে নিয়ে কোনও নেতিবাচক কথা বলতে যাবেন না। তাতে করে আপনার শাশুড়ি কিন্তু প্রথম দিনেই আপনারে বিরুদ্ধে চলে যেতে পারেন। তাই সাবধান! আচ্ছা, নিজের ছেলের স্বভাব-চরিত্র নিয়ে যদি শাশুড়ি কোনও প্রশ্ন করেন, তাহলে কী করণীয়? এমন পরিস্থিতিতে একটু ডিপ্লোম্যাটিক উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করবেন। ধরুন, আপনার বর ছুটির দিন দুপুর বারোটায় ঘুম থেকে ওঠেন। এদিকে শাশুড়ি হলেন আর্লি রাইজার। সেই নিয়ে মা ঠাকরণ কিছু বললে, ঝপ করে বেফাঁস কিছু বলে দেবেন না প্লিজ! বরং বলতে পারেন বিয়ের পর আপনি এদিকটায় একটু নজর রাখবেন। এইভাবে 'ধরি মাছ না ছুঁই পানি' গোছের একটা উত্তর দেওয়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ।

৩. অতীত সম্পর্কে একটা কথাও নয়

শাশুড়ি সঙ্গে প্রথম দিনেই বন্ধুর মতো সম্পর্ক হয়ে গিয়েছে? তাহলে তো আর কোনও চিন্তাই নেই! কিন্তু তাই বলে মন খুলে কথা বলতে গিয়ে আবার শাশুড়ির সামনে নিজের অতীত সম্পর্কে কিছু বলে ফেলবেন না যেন! কেন, তাতে কী ক্ষতি? আপনার আতীত নিয়ে জানার পরে প্রিয় বাউমার স্বভাব-চরিত্র সম্পর্কে কিছুটা হলেও যে শাশুড়ির মনে সন্দেহ জাগবে, তাতে কিন্তু কোনও সন্দেহ নেই! তাই বেকার সাধু সাজার কোনও মানে হয় না। বরং নিজের স্বার্থের কথা ভেবে অতীত ভুলে সামনের দিকে এগিয়ে যান, তাতেই সবার মঙ্গল।

৪. ভুলেও তর্ক নয়

শাশুড়ির কোনও কথা আপনার মনে ধরতে নাই পারে। তাই বলে প্রথম দিনই তাঁর সঙ্গে তর্ক যুদ্ধে নামাটা কোনও কাজের কথা নয়। বরং চুপ করে বড়দের কথা শুনে যাওয়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ। কোনও সময় কেউ যদি আপনার মতামত চান, তাহলে কথা বলুন। তাও নম্র ভাবে। হয়তো বলতে পারেন, ভুলের প্রতিবাদ না করাটা মস্ত বড় ভুল। তাহলে বলবো, লক্ষ্যটা যখন অনেক বড়, তখন ছোটখাটো ভুলকে প্রশ্রয় দিলে কোনও ক্ষতি হবে না। পরে তো সুযোগ পাবেনই, তখন না হয় হিসেব মিলিয়ে নেবেন।

picture courtesy: youtube

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

এসে গেল #POPxoEverydayBeauty - POPxo-র স্কিন, বাথ, বডি এবং হেয়ার প্রোডাক্টস নিয়ে, যা ব্যবহার করা ১০০% সহজ, ব্যবহার করতে মজাও লাগবে আবার উপকারও পাবেন! এই নতুন লঞ্চ সেলিব্রেট করতে প্রি অর্ডারের উপর এখন পাবেন ২৫% ছাড়ও। সুতরাং দেরি না করে শিগগিরই ক্লিক করুন POPxo.com/beautyshop-এ এবার আপনার রোজকার বিউটি রুটিন POP আপ করুন এক ধাক্কায়...