পুজোর রেসিপি: প্রায় ভুলতে বসা এই খাঁটি বাঙালি আমিষ পদগুলি রেঁধে ফেলুন এই পুজোতে

পুজোর রেসিপি: প্রায় ভুলতে বসা এই খাঁটি বাঙালি আমিষ পদগুলি রেঁধে ফেলুন এই পুজোতে

মা দুগ্গার পুজোর (durga puja) পাশাপাশি পেটপুজোর আয়োজনে যাতে কোনও খামতি না থাকে, তার জন্যই তো নিরামিষ পদের পরে এবার এসে গিয়েছি তিনটি প্রায় ভুলতে বসা অথচ জাতে খাঁটি বাঙালি (Bengali) আমিষ (non veg) পদের রেসিপি (recipe) নিয়ে। কোন কোন পদের কথা বলছি তাই ভাবছেন? সেই উত্তর পেতে গেলে যে রান্নার আয়োজনে আমাদের সঙ্গে আপনাদেরও হাত মেলাতে হবে। তবে ঠিক ঠিক পদ্ধতি মেনে যদি এই পদগুলি তৈরি করে ফেলতে পারেন, তা হলে পরিবারের সকলের রসনা তৃপ্তি যে হবেই হবে, তাতে কোনও সন্দেহ নেই। তাই আর অপেক্ষা না করে চলুন রান্নার আয়োজন শুরু করে দেওয়া যাক!

১. মটন কিমা ঘুগনি

Instagram

উপকরণ
১. ঘুগনি মটর- ২০০ গ্রাম (জলে ভেজানো)।
২. সরষের তেল- ৩ চামচ।
৩. তেজ পাতা- ২ টো।
৪. আলু- ১ টা (ছোট ছোট টুকরো করে নিতে হবে)।
৫. নুন- স্বাদ অনুসারে।
৬. জিরে গুঁড়ো- ১ চামচ।
৭. হলুদ গুঁড়ো- ১ চামচ।
৮. লঙ্কা গুঁড়ো- ১ চামচ।
৯. গোটা জিরে গুঁড়ো- ১ চামচ।
১০. আদা-রসুনের পেস্ট- ২ চামচ।
১১. টোম্যাটো- ১ টা।
১২. পেঁয়াজ- ১টা।
১৩. কাঁচা লঙ্কা- ৩ টে।
১৪. গরম মশলা- ১ চামচ।
১৫. ঘি- ১ চামচ।
১৬. মটন- ৫০০ গ্রাম।

প্রণালী
১. ঘুগনি মটরটা ঘণ্টাচারেক জলে ভিজিয়ে রাখার পরে প্রেসার কুকারে সেদ্ধ করে নিন। তবে তিনটে সিটির বেশি দেবেন না যেন! যখন দেখবেন মটরটা হাতে চিপলেই গলে যাচ্ছে, তখন আঁচ বন্ধ করে দিন। এবার টোম্যাটো পিউরি তৈরি করে ফেলার পালা।

২. এই কাজগুলি মিটে গেলে বড় কড়াইয়ে পরিমাণ মতো সরষের তেল গরম করে নিয়ে তাতে এক এক করে তেজ পাতা, শুকনো লঙ্কা এবং গোটা জিরে ফেলে নাড়াতে হবে। যখন সুন্দর গন্ধ বেরতে শুরু করবে, তখন আলু এবং পেঁয়াজের টুকরোগুলো যোগ করে নাড়াতে থাকুন। পেঁয়াজ এবং আলুর টুকরোগুলো হালকা ভেজে নেওয়ার পরে আদা-রসুনের পেস্ট মিশিয়ে ক্রমাগত নাড়াতে থাকুন। যখন দেখবেন আদা-রসুনের কাঁচা গন্ধটা চলে গেছে, তখন আদা এবং জিরে গুঁড়োর সঙ্গে পরিমাণ মতো লঙ্কা গুঁড়ো মেশাতে ভুলবেন না যেন! এবার মিনিটতিনেক নাড়ানো মাস্ট!

৩. মশলার কাঁচা গন্ধটা কেটে যাওয়া মাত্র মটন কিমাটা মিশিয়ে ভাল করে নাড়াতে হবে, যাতে কিমাটা ভাল করে মিশে যাওয়ার সুযোগ পায়। এবার স্বাদ অনুসারে নুন এবং টোম্যাটো পিউরি মিশিয়ে নাড়াতে থাকুন। মিনিটদশেক নাড়ানোর পরে কড়াইটা চাপা দিয়ে দিন। সেই সঙ্গে আঁচটাও একটু কমিয়ে দিন। ধিমে আঁচে মাংসটা এবার সেদ্ধ হবে। যখন দেখবেন তেল ছাড়তে শুরু করেছে, তখন একটু নাড়িয়ে নিয়ে আগে থেকে সেদ্ধ করে রাখা মটর মিশিয়ে দিন।

৪. এবার কড়াইটা চাপা দিয়ে মিনিটচারেক ফোটালেই তৈরি হয়ে যাবে কিমা ঘুগনি। এই সময় পরিমাণ মতো ঘি এবং গরম মশলা মিশিয়ে মিনিট খানেক নাড়িয়ে আঁচ বন্ধ করে দিন। মিনিট খানেক পরে পরিবেশন করুন।

ভেটকি মাছের মাথা দিয়ে পুঁই শাক

Instagram

উপকরণ
১. ভেটকি মাছের মাথা- ১৫০ গ্রাম (নুন-হলুদ মাখিয়ে রাখতে হবে)।
২. পুঁই শাক- ২৫০ গ্রাম।
৩. আলু- ৫-৬ টা (ডুমো ডুমো করে কেটে নিতে হবে)।
৪. কুমড়ো- ৪-৫ টা পিস। ছোট ছোট করে কেটে নিতে হবে।
৫. কাঁচা লঙ্কা- ৩ টে। লঙ্কাগুলো মাঝখান থেকে চিড়ে নেবেন।
৬. সরষের তেল- ২ চামচ।
৭. নুন- স্বাদ অনুসারে।
৮. হলুদ গুঁড়ো- ১ চামচ।
৯. চিনি- স্বাদ অনুসারে।
১০. সরষে গুঁড়ো- ১ চামচ। চামচ তিনেক গরম জলে সরষে গুঁড়োটা মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিতে হবে।
১১. পেঁয়াজ- ২ টো।

প্রণালী
১. বড় কড়াইয়ে পরিমাণ মতো সরষের তেল একটু গরম করে নিয়ে তাতে এক এক করে মাছের মাথার পিসগুলো দিয়ে লাল করে ভেজে নিয়ে বাটিতে তুলে রাখুন। এবার কড়াইয়ে আরও একটু তেল নিয়ে তাতে আলু এবং কুমড়োর টুকরোগুলো ফেলে ভেজে নিন। অল্প ভাজা হয়ে যাওয়ার পরে তাতে পেঁয়াজ কুচি এবং রসুনের পেস্ট যোগ করে ভাল করে নাড়াতে থাকুন। পেঁয়াজটা হালকা লাল হওয়া মাত্র পরিমাণ মতো হলুদ গুঁড়ো, কাঁচা লঙ্কা বাটা, খান তিনেক গোটা কাঁচা লঙ্কা এবং স্বাদ অনুসারে নুন মিশিয়ে ক্রমাগত নাড়ান, যাতে প্রতিটি উপকরণ ভাল করে মিশে যাওয়ার সুযোগ পায়।

২. মিনিটদুয়েক নাড়ানোর পরে আগে থেকে ভেজে রাখা মাছের মাথাটা মিশিয়ে পুনরায় নাড়াতে থাকুন। এবার পুঁই শাক মেশানোর পালা।

৩. পুঁই শাক মেশানোর পরে কড়াইটা মিনিটদুয়েক চাপা দিয়ে ধিমে আঁচে রান্না করুন। সময় হওয়া মাত্র ধীরে ধীরে নাড়াতে থাকুন, যাতে কড়াইয়ের বাইরে পরে না যায়। জল ছাড়তে শুরু করলে কড়াইটা চাপা দিয়ে ঢিমে আঁচে রান্না করুন।

৪. যখন দেখবেন জল শুকতে শুরু করেছে, তখন স্বাদ অনুসারে চিনি মিশিয়ে নাড়াতে থাকুন। ততক্ষণ নাড়ান, যতক্ষণ না জলটা পুরোপুরি শুকিয়ে যায়। এবার সরষে বাটা মিশিয়ে মিনিটখানেক নাড়িয়ে আঁচ বন্ধ করে দিন।

৫ মিনিট কুড়ি বাদে গরম গরম ভাতের সঙ্গে মাছের মাথা দিয়ে তৈরি পুঁই শাক পরিবেশন করুন।

সরষে চিকেন

Instagram

উপকরণ
১. মুরগির মাংস- ২৫০ গ্রাম।
২. টক দই- ১ চামচ।
৩. সরষের তেল- ২ চামচ।
৪. কাঁচা লঙ্কার পেস্ট- ১ চামচ।
৫. রসুনের পেস্ট- ১ চামচ।
৬. কাঁচা লঙ্কা- ৫ টা।
৬. সরষের পেস্ট- ১ চামচ। এক চামচ সাদা সরষে, এক চামচ কালো সরষে, হাফ চামচ নুন, একটা কাঁচা লঙ্কা এবং চামচ দুয়েক জল মিক্সিতে নিয়ে সরষের পেস্ট তৈরি করতে হবে।
৭. হলুদ গুঁড়ো- ১/২ চামচ।
৮. নুন- স্বাদ অনুসারে।
৯. চিনি- স্বাদ অনুসারে।

প্রণালী
১. একটা বাটিতে মাংসের পিসগুলো নিয়ে তাতে রসুন, কাঁচা লঙ্কার পেস্ট এবং অল্প করে সরষের তেল মিশিয়ে ভাল করে মেখে নিয়ে তাতে অল্প করে হলুদ গুঁড়ো এবং নুন মিশিয়ে আরেকবার ভাল করে মেখে নিন। মাখা হয়ে গেলে ম্যারিনেট করা মাংসের পিসগুলো আরেকটা বাটিতে নিয়ে চাপা দিয়ে কম করে আধ ঘন্টা রেখে দেওয়াটা জরুরি।

২. এবার একটা বাটিতে পরিমাণ মতো দই নিয়ে ভাল করে ফেটিয়ে নিয়ে একটা বড় কড়াইয়ে পরিমাণ মতো সরষের তেল অল্প গরম করে তাতে এক এক করে ম্যারিনেট করা মাংসের পিসগুলি দিয়ে ততক্ষণ নাড়াতে হবে, যতক্ষণ না জলটা এক্কেবারে শুকিয়ে যায়। এরপর দই মিশিয়ে মিনিটদুয়েক ভাল করে নাড়াতে থাকুন। এবার কড়াইটা চাপা দিয়ে ধিমে আঁচে ততক্ষণ রান্না করুন, যতক্ষণ না জল ছাড়ছে। এমনটা হওয়া মাত্র পরিমাণ মতো জিরে গুঁড়ো, চিনি, খান দুয়েক গোটা লঙ্কা এবং অল্প করে নুন মিশিয়ে মিনিটপাঁচেক নাড়াতে থাকুন। এই সময় অল্প করে জল মেশাতে ভুলবেন না যেন!

৩. জল মেশানোর পরে কড়াইটা চাপা দিয়ে ততক্ষণ রান্না করুন, যতক্ষণ না জলটা একেবারে শুকিয়ে যায়। জল শুকিয়ে যাওয়া মাত্র পরিমাণ মতো সরষে বাটা মিশিয়ে ক্রমাগত নাড়াতে থাকুন। তারপর অল্প করে কাঁচা সরষের তেল মেশাতে ভুলবেন না যেন! তাতে স্বাদ আরও বাড়বে।

৪. সরষের তেল মেশানোর পরে মিনিটদুয়েক নাড়িয়ে আঁচটা বন্ধ করে দিন। এবার পরিবেশনের পালা। বাসন্তী পোলাও অথবা গরম ভাতের সঙ্গে এই পদটি খেতে দারুণ লাগবে কিন্তু!

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

এসে গেল #POPxoEverydayBeauty - POPxo Shop-এর স্কিন, বাথ, বডি এবং হেয়ার প্রোডাক্টস নিয়ে, যা ব্যবহার করা ১০০% সহজ, ব্যবহার করতে মজাও লাগবে আবার উপকারও পাবেন! এই নতুন লঞ্চ সেলিব্রেট করতে প্রি অর্ডারের উপর এখন পাবেন ২৫% ছাড়ও। সুতরাং দেরি না করে শিগগিরই ক্লিক করুন POPxo.com/beautyshop-এ এবার আপনার রোজকার বিউটি রুটিন POP আপ করুন এক ধাক্কায়...