আপনি বা আপনার সঙ্গী গ্রে-সেক্সুয়াল কিনা কীভাবে বুঝবেন?

আপনি বা আপনার সঙ্গী গ্রে-সেক্সুয়াল কিনা কীভাবে বুঝবেন?

বন্ধুদের মধ্যে সেদিন নানা বিষয়ে কথা হচ্ছিল, কথা প্রসঙ্গে যার যার সেক্সুয়াল লাইফ (sex) বা যৌনজীবন নিয়েও কথা উঠল স্বাভাবিকভাবেই। মোটামুটি সবার কথা শুনেই একটা বিষয় বেশ পরিষ্কার হল যে এক এক জনের যৌনজীবন এক এক রকমের। আর এটাই তো স্বাভাবিক! কিন্তু একটা অদ্ভুত শব্দ আমি জানলাম সেদিন যৌনতা প্রসঙ্গে। ‘গ্রে-সেক্সুয়াল’ (gray sexual)। আমরা অনেকেই জানি এক এক জনের যৌন চাহিদা এক এক রকমের হয়। অনেকেই আছেন যাদের মধ্যে সেক্সুয়াল ডিজায়ার বা যৌন চাহিদা খুব বেশি, আবার অনেকে আছেন যাদের মধ্যে এটি এক্কেবারে নেই। হোমো-সেক্সুয়াল, বাই-সেক্সুয়াল, এ-সেক্সুয়াল, প্যান-সেক্সুয়াল – এরকম অনেক শব্দই হয়ত আপনারা শুনেছেন, তবে বিশ্বাস করুন ‘গ্রে-সেক্সুয়াল’  (gray sexual) কথাটি আমি প্রথমবার শুনলাম।

গ্রে-সেক্সুয়াল ব্যাপারটা কী?

সেক্স লাইফ না থাকাটাই একটা বড় সমস্যা (ছবি সৌজন্য - শাটারস্টক)

আমি যখন প্রথবার শব্দটা শুনেছিলাম, আমি ভেবেছিলাম হয়ত ‘ফিফটি শেডস গ্রে’-র মতো কিছু অদ্ভুত সেক্সুয়াল ফেটিস সংক্রান্ত কিছু হবে। কিন্তু সেরকম কিছুই না, বরং বলতে পারেন ব্যাপারটা খানিকটা উল্টোই। ‘গ্রে-সেক্সুয়াল’ (gray sexual) কথাটির অর্থ হল, এমন একজন মানুষ যার কখনও কখনও যৌন চাহিদা (sex) হয়, কিন্তু বলা যেতে পারে তা কালে-ভদ্রে। বলতে পারেন, যার বা যাঁদের মধ্যে সেক্সুয়াল ডিজায়ার খুবই কম, কিন্তু বিশেষ কিছু সময়ে তাদের মধ্যে যৌন চাহিদা জন্মায়। মানে, মাঝামাঝি একটা ব্যাপার। সেজন্যই হয়ত এই শব্দটির নাম ‘গ্রে-সেক্সুয়াল’।

অনেক কাপলের যৌন জীবনে একটা খুব কমন সমস্যা আছে, তাদের মধ্যে সেক্সুয়াল ইনটিমেসি নেই, বা থাকলেও খুবই কম। কারণ হিসেবে তাঁরা বলেন যে হয় তাঁদের বা তাঁদের সঙ্গীর (partner) সেক্সুয়াল ডিজায়ার কম বা স্ট্রেসের কারণে তাদের সেক্সুয়াল (sex) লাইফে সমস্যাটি দেখা যায়। ‘গ্রে-সেক্সুয়াল’ (gray sexual) ব্যাপারটা কিন্তু সেরকম নয়। গ্রে-সেক্সুয়ালদের মধ্যে যৌন চাহিদাই খুব কম থাকে এবং এটি সম্পূর্ণভাবে একটি মানসিক সমস্যা।

আরও পড়ুন - আপনাদের সম্পর্কটা শুধুমাত্র শরীরী মিলনের উপরে ভিত্তি করে দাঁড়িয়ে নেই তো?

কেমন হল গ্রে-সেক্সুয়াল মানুষরা? আপনি নিজেও একবার বুঝে নিন, আপনি বা আপনার সঙ্গীও গ্রে-সেক্সুয়াল নন তো!

গ্রে-সেক্সুয়াল মানুষরা শারীরিক মিলনের তুলনায় অন্য কোনও কাজ করতে বেশি পছন্দ করেন (ছবি সৌজন্য - শাটারস্টক)

১। গ্রে-সেক্সুয়াল (gray sexual) মানুষরা প্লেটোনিক প্রেমে বিশ্বাসী। এঁরা কিন্তু সব্বার সঙ্গে, বিশেষ করে কাছের মানুষের সঙ্গে যখন সম্পর্কে থাকেন, তখন খুব তাদের প্রতি একনিষ্ঠ থাকেন। পরিবার, বন্ধু-বান্ধব, মনের মানুষ – মোটকথা প্রতিটি সম্পর্ককেই এঁরা খুব সিরিয়াসলি নেন, তবে তাতে কোনও রকম যৌনতার গন্ধ থাকে না। প্রেমের সম্পর্কের ক্ষেত্রে এঁদের কাছে যৌনতা (sex) অতটা প্রাধান্য পায় না যতটা বিশ্বাস, ভালবাসা, একে অন্যের প্রতি বিশ্বস্ত থাকা – এগুলোই বেশি প্রাধান্য পায়।

২। যাঁদের মধ্যে গ্রে-সেক্সুয়ালিটির (gray sexual)প্রবণতা রয়েছে, তাদের জীবনে শারীরিক মিলন (sex) খুব কম থাকলেও সঙ্গীকে জড়িয়ে ধরা, চুমু (কপালে বা গালে) খাওয়া, হাত ধরা – এগুলো তাঁরা করেন। আগেই যেমন বললাম যে গ্রে-সেক্সুয়াল মানুষদের মধ্যে সেক্সুয়াল ডিজায়ার বা যৌন চাহিদা খুব একটা থাকে না।

৩। এঁদের সঙ্গীরা (partner) যদি কখনও শারীরিক মিলনের (sex) কথা বলেন, গ্রে-সেক্সুয়াল (gray sexual)মানুষরা অনায়াসে তা এড়িয়ে যান। আর সত্যি কথা বলতে কী, এই বিষয়টি নিয়ে এঁদের কোনও মাথাব্যথাও নেই। তবে এঁদের জীবনে যৌন চাহিদা না থাকলেও এঁরা নিজেদের সঙ্গীর সঙ্গে ওয়েভলেন্থ ম্যাচ করানোর উপরে খুবই জোর দেন। অর্থাৎ, যতক্ষণ পর্যন্ত না কারও সঙ্গে এঁদের মনের মিল হচ্ছে, বুদ্ধিমত্তা মানানসই হচ্ছে, যতক্ষণ পর্যন্ত না এঁরা ইমোশনালি কারও উপরে সম্পূর্ণ নির্ভর করতে পারছেন, ততক্ষণ পর্যন্ত এঁরা কারও সঙ্গে সম্পর্কেও জড়াতে পারেন না।

৪। এঁরা সারাজীবন শারীরিক মিলন ছাড়াই কাটিয়ে দিতে পারেন।  

ছবি সৌজন্য - শাটারস্টক

POPxo এখন চারটে ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!

২০২০ শুরু করুন আমাদের দারুণ দারুণ প্ল্যানার আর স্টেটমেন্ট সোয়েটশার্ট দিয়ে। এগুলো সবকটাই আপনারই মতো একশ শতাংশ মজার এবং অসাধারণ! ওহ হ্যাঁ, শুধুমাত্র আপনার জন্য রয়েছে ২০ শতাংশ ছাড়ের ব্যবস্থাও। দেরি কিসের আর, এখনই POPxo.com/shop থেকে কেনাকাটা সেরে ফেলুন আর নিজেকে আরেকটু পপ আপ করে ফেলুন!