মাত্র সাতদিনে মুখের মেদ কমাবেন কীভাবে?

মাত্র সাতদিনে মুখের মেদ কমাবেন কীভাবে?

কথাতেই রয়েছে, গাল ফোলা গোবিন্দর মা। বাংলার চলতি প্রবাদ। বিভিন্ন অর্থে ব্যবহৃত হয়। কিন্তু ফোলা গাল নিয়ে নিশ্চয়ই থাকতে চান না আপনি। না! আপনি রেগে গিয়েছেন বলে গাল ফুলেছে, সেকথা বলতে চাইনি আমরা। বরং আপনার মুখে এত মেদ জমেছে যে সৌন্দর্য হারিয়েছে, সে কারণেই গাল ফোলা! এই পরিস্থিতি বদলাতে চান। কিন্তু ধরুন, নিজেকেই নিজে টার্গেট দিলেন। এক সপ্তাহ। সাতাদিনের মধ্যে কমিয়ে ফেলবেন মুখের মেদ (fat)। সম্ভব কি? অবশ্যই সম্ভব। কিন্তু তার জন্য আপনাকে কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে চলতে হবে। একবার ট্রাই করবেন নাকি? 

১) ফেসিয়াল এক্সসারসাইজ

মুখের বিভিন্ন অংশে জমে থাকা ফ্যাট কমাতে সবথেকে উপকারী ফেসিয়াল এক্সসারসাইজ (exercise)। অর্থাৎ মুখের পেশির ব্যায়াম। মুখের ভেতর হাওয়া নিয়ে গান দুটো ফুলিয়ে রাখতে পারেন কিছুক্ষণ। ঠোঁট চওড়া করে দিন যতটা সম্ভব, ফের স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে নিন। চওড়া করে হাসুন। দিনে অন্তত ১০ মিনিট করে দু'বার এই এক্সসারসাইজগুলো করলে সপ্তাহ খানেকের মধ্যেই অতিরিক্ত মেদ ঝরতে শুরু করবে। 

২) কার্ডিও এক্সসারসাইজ

আপনার শরীরচর্চার রুটিনে কার্ডিওর জন্য প্রতিদিন অন্তত ২০ মিনিট বরাদ্দ রাখুন। হাঁটা, দৌড়নো, সাইকেল চালানো, সাঁতার কাটার মতো সাধারণ কার্ডিও এক্সসারসাইজের মাধ্যমে সারা শরীরের মেদ ঝরবে। বাদ যাবে না মুখও। 

৩) প্রচুর জল খেতে হবে

প্রচুর পরিমাণে জল খাওয়া আপনার শরীরের জন্য ভাল। আর ওজন কমাতে বেশি পরিমাণে জল খাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকদের একটা বড় অংশ। এক সপ্তাহের মধ্যে মুখের মেদ কমানোর টার্গেট থাকলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে দৈনন্দিন রুটিনে জলের পরিমাণ নির্দিষ্ট করে নিন। 

৪) অ্যালকোহল বন্ধ

কৃত্রিম ভাবেও ফেসিয়াল ফ্যাট কমানো সম্ভব। কিন্তু তার আগে একবার নিজেই চেষ্টা করে দেখুন। ছবি ইনস্টাগ্রামের সৌজন্যে।

অ্যালকোহলে প্রচুর পরিমাণ ক্যালোরি থাকে। যার ফলে দ্রুত ওজন বেড়ে যায়। শরীরে ফ্যাটের পরিমাণ বেড়ে যায়। বেশিরভাগ মানুষের ক্ষেত্রেই মুখ, পেট, হাতের কিছুটা অংশে দ্রুত চর্বি জমতে শুরু করে। ফলে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে গেলে অ্যালকোহলের মাত্রা কন্ট্রোল করতে হবে। কিন্তু এক সপ্তাহের মধ্যে আপনি মুখকে স্লিম করে তুলতে চাইলে অ্যালকোহল বন্ধ করে দেওয়াই সবথেকে ভাল উপায়। 

৫) জাঙ্ক ফুড বন্ধ

অ্যালকোহলের মতো একই কথা জাঙ্ক ফুডের ক্ষেত্রেও সত্যি। এমনিতেই জাঙ্ক ফুড ওজন বাড়িয়ে দেয়। ফলে তা নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। কিন্তু নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে রোগা হওয়ার টার্গেট থাকলে যত দ্রুত সম্ভব বন্ধ করে দিতে হবে। পিৎজা, বার্গার, ফুচকা, রোলের মতো খাবার এক্কেবারে বন্ধ করে বাড়িতে তৈরি হালকা রান্না ডায়েটে রাখুন। 

৬) ঘুম জরুরি

ছয় থেকে আট ঘণ্টা ঘুম আপনাকে ভাল থাকতে সাহায্য করে। সাহায্য করে ওজন নিয়ন্ত্রণেও। আপনার বয়স, পেশা অনুয়ায়ী নির্দিষ্ট হয় ঘুমের চাহিদা। কিন্তু কমপক্ষে ছয় ঘণ্টা ঘুম প্রত্যেকের প্রয়োজন। পরিমাণ মতো ঘুম না হলে অনেক সময় খিদে পায় বেশি। ফলে ভুল খাবার বেশি পরিমাণে খেয়ে ফেলবেন কম ঘুমের কারণে। যা আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণের পথে বাধা হয়ে দাঁড়াবে।  

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!

২০২০ শুরু করুন আমাদের দারুণ দারুণ প্ল্যানার আর স্টেটমেন্ট সোয়েটশার্ট দিয়ে। এগুলো সবকটাই আপনারই মতো একশ শতাংশ মজার এবং অসাধারণ! ওহ হ্যাঁ, শুধুমাত্র আপনার জন্য রয়েছে ২০ শতাংশ ছাড়ের ব্যবস্থাও। দেরি কিসের আর, এখনই POPxo.com/shop থেকে কেনাকাটা সেরে ফেলুন আর নিজেকে আরেকটু পপ আপ করে ফেলুন!