করোনা এড়াতে মাংস-ডিম খাবেন না? ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ড অথরিটি অফ ইন্ডিয়ার কী মত?

করোনা এড়াতে মাংস-ডিম খাবেন না? ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ড অথরিটি অফ ইন্ডিয়ার কী মত?

ছোটবেলায় বাড়িতে বড়রা হোক বা স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকা, একটা বিষয় আমাদের সবাই শিখিয়েছেন, যখনই কোনও কিছু খাবে, হাত ধুয়ে তারপরে খাবে। অনেক সময়েই এমন হয় যে আমরা হয়ত বাইরে রয়েছি আর খুব খিদে পেয়েছে, দোকান থেকে এক প্যাকেট বিস্কুট কিনে হাত না ধুয়েই খেতে শুরু করে দিই। আবার বাইরের জাঙ্ক ফুড খাওয়ার সময়ে তো হাত ধোওয়ার কথা মনেও থাকে না। তবে সাম্প্রতিক করোনা ভাইরাসের (coronavirus) আতঙ্কের জেরে আমরা শুধুমাত্র খাওয়ার আগে বা পরেই না, যখন তখন হাত ধুয়ে নিচ্ছি, স্যানিটাইজ করছি। বলা যেতে পারে, আর কিছুদিনের মধ্যে স্যানিটাইজারের মতোই জলের ঘাটতিও হয়ত দেখা দেবে! কিন্তু প্রশ্ন হল, খাবার (food) থেকে কি করোনা ভাইরাস ছড়াতে পারে? চলুন, খুঁজে বার করি উত্তর।

সোশ্যাল মিডিয়া থেকে শুরু করে হোয়াটসঅ্যাপ – সর্বত্রই করোনা ভাইরাস (coronavirus) নিয়ে নানা মুনির নানা মত দেখা যাচ্ছে। এক এক জন বলছেন গোমূত্র পান করলে নাকি করোনা ভাইরাসের প্রকোপ থেকে বাঁচা সম্ভব, আবার কেউ বলছেন মদ্যপান করলে নাকি করোনা ভাইরাস দূর হবে! মানে, সত্যি! ২০২০ সালে দাঁড়িয়ে এই কথাগুলো বলার কি সত্যিই কোনও অর্থ হয়? এছাড়াও এক এক জন বলছেন যে মুরগির মাংস খেলে করোনা ভাইরাস আপনার শরীরে প্রবেশ করতে পারে, আবার কেউ বলছেন যে নিরামিষ তরকারি বা ফলের থেকেও নাকি এই জীবাণু জন্ম নেয়।

সঠিকভাবে রান্না করা খাবার থেকে করোনা ভাইরাস ছড়ায় না (ছবি - শাটারস্টক)

কোন কথাটি সত্যি আর কোনটি নয়, তা যাচাই করতে আমরা বেছে নিয়েছি একটি পাকাপোক্ত খবরের সূত্র। ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ড অথরিটি অফ ইন্ডিয়া (fssai) তাঁদের সাম্প্রতিক একটি রিপোর্টে জানিয়েছে যে করোনা ভাইরাস (coronavirus) এবং খাবারের (food) মধ্যে কোনও সম্পর্ক নেই। তবে হ্যাঁ, খাবার খাওয়ার আগে ও পরে কিছু সাবধানতা অবলম্বন করতেই হবে। সেগুলো কী কী জেনে নিন।

১। ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ড অথরিটি অফ ইন্ডিয়া-র (fssai) মতে, কোনওরকম খাবার (food) থেকে করোনা ভাইরাস (coronavirus) জন্ম নিতে পারে না। করোনা ভাইরাস তৈরি হতে গেলে একটি শরীরের প্রয়োজন – তা সে মানব শরীর হোক বা পশুর। কাজেই আপনি যখন মাছ বা মাংস খাচ্ছেন, তার আগে খুব ভাল করে ধুয়ে নিতে হবে এবং কমপক্ষে ৩০ মিনিট ধরে বেশি আঁচে রান্না করতে হবে। এতে করোনা ভাইরাস সহ অন্যান্য জীবাণুও নাশ হবে।

২। ফল, সব্জি ইত্যাদি বাজার থেকে এনেই ফ্রিজে বা রান্নাঘরে রেখে দেবেন না। হতেই পারে বাজার থেকে কোনওভাবে এই মারণ জীবাণু আপনার কেনা ফল বা সব্জিতে লেগে গিয়েছে। বড় একটি গামলায় উষ্ণ জলে ফল ও সব্জি কিছুক্ষন ভিজিয়ে রাখুন। এরপরে মুছে ফ্রিজে তুলে রাখুন।

৩। আপনার বা আপনার বাড়ির কারও যদি বাসি খাবার (food) খাওয়ার অভ্যেস থাকে, তাহলে এই অভ্যেস ত্যাগ করুন। ফ্রিজে রাখা খাবার কিছুদিন না খাওয়াই ভাল। একান্তই যদি কোনও উপায় না থাকে, সেক্ষেত্রে ফ্রিজ থেকে খাবার বার করে ঘরের তাপমাত্রায় এনে ভালভাবে গরম করে তবেই খাবার খান।

৪। যদি আপনি বাইরে খেতে যান, সেক্ষেত্রে যে রেস্তোরাঁয় খেতে যাচ্ছেন, দেখে নিন সেখানকার পরিচ্ছন্নতা কেমন। অনেক ফাইন ডাইনিং রেস্তোরাঁ বাসনপত্র ডিশ ওয়াশারে ধুয়ে রাখে, যাতে জীবাণু নাশ হয়। কিন্তু অনেকেই এই কাজটি করেন না। কাজেই যদি বাইরে রেস্তোরাঁয় খেতে যেতেই হয় তাহলে ভাল কোনও রেস্তোরাঁয় যান।

POPxo এখন চারটে ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!

২০২০ শুরু করুন আমাদের দারুণ দারুণ প্ল্যানার আর স্টেটমেন্ট সোয়েটশার্ট দিয়ে। এগুলো সবকটাই আপনারই মতো একশ শতাংশ মজার এবং অসাধারণ! ওহ হ্যাঁ, শুধুমাত্র আপনার জন্য রয়েছে ২০ শতাংশ ছাড়ের ব্যবস্থাও। দেরি কিসের আর, এখনই POPxo.com/shop থেকে কেনাকাটা সেরে ফেলুন আর নিজেকে আরেকটু পপ আপ করে ফেলুন!