আপনার বাড়িতে রান্নাঘরটি কোথায় তার উপরে কিন্তু সুখ ও সমৃদ্ধি নির্ভর করে - রইল বাস্তু টিপস

আপনার বাড়িতে রান্নাঘরটি কোথায় তার উপরে কিন্তু সুখ ও সমৃদ্ধি নির্ভর করে - রইল বাস্তু টিপস

রান্নাঘর (kitchen) বাড়ির মধ্যে এমন একটি জায়গা যার উপরে বাড়ির সদস্যদের স্বাস্থ্য অনেকটাই নির্ভর করে। আসলে রান্নাঘরে আমরা খাবার তৈরি করি এবং খাবারই আমাদের সুস্বাস্থ্যের সিক্রেট। তবে শুধুমাত্র স্বাস্থ্য নয়, বাড়ির সুখ-সমৃদ্ধিও নাকি নির্ভর করে বাড়িতে রান্নাঘরটি (kitchen) কোথায় অবস্থিত তার উপরে। একথা আমি বলছি না, বলছেন বাস্তু (vastu tips) বিশেষজ্ঞরা। আপনার বাড়ির রান্নাঘরের পজিশনের উপরে এবং রান্নাঘরে কোথায় কী রয়েছে তার উপরে নির্ভর করে আপনার বাড়ির উরজা বা এনার্জি। যদি আপনার রান্নাঘরের পজিশন ঠিক থাকে, রান্নাঘরে রাখা জিনিসপত্রের পজিশনও ঠিক থাকে, তাহলে আপনার বাড়ি ভরে উঠতে পারে সুখ ও সমৃদ্ধিতে। তবে উল্টোটি হলেও জীবনে আসতে পারে নানা সমস্যা।

সে যাই হোক, একবার বাড়ি তৈরি হয়ে গেলে বা ফ্ল্যাট কেনা হয়ে গেলে বারবার করে তো আর রান্নাঘরের (kitchen) পজিশন বদলানো সম্ভব হয় না, সেক্ষেত্রে রইল খুব সিম্পল অথচ গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি বাস্তু টিপস (vastu tips) যা আপনার বাড়িতে সুখ ও সমৃদ্ধি নিয়ে আসতে পারে।

রান্নাঘরের বাস্তু টিপস – সুখ ও সমৃদ্ধিতে ভরে উঠুক বাড়ি

রান্নাঘরের দেওয়ালে বা জানালায় কিচেন গার্ডেন করতে পারেন (ছবি সৌজন্য - শাটারস্টক)

১। প্রত্যেকটি বাড়িতেই রান্নাঘরে (kitchen) নানা বাসন ব্যবহার করা হয়। রান্না করতে তো বটেই এবং খেতেও আমরা নানা বাসন ব্যবহার করি। বাস্তু বিশেষজ্ঞদের মতে, যখনই আপনি রাতে রান্না করবেন, রান্না করা হয়ে গেলে বাসনগুলো ধুয়ে রাখুন। এঁটো বাসন যত বেশি জমা হয়, বাড়িতে তত বেশি নেগেটিভ এনার্জি ছড়ায়। এছাড়াও অনেকেই রান্নাঘরে বাসন ছড়িয়ে রাখেন। এতেও কিন্তু নেগেটিভ এনার্জি ছড়ায় এবং বাড়িতে সুখ ও সমৃদ্ধির চূড়ান্ত অভাব হয়। (vastu tips)

২। আপনি যদি বাড়িতে কোনও রেনোভেশন করেন বা নতুন বাড়ি তৈরি করেন, তাহলে এই বাস্তু টিপসটি (vastu tips) আপনার খুবই কাজে লাগবে। রান্নাঘর তৈরি করার সময়ে তা দক্ষিণপূর্বে তৈরি করুন। দক্ষিণ-পূর্ব কোন হল অগ্নিকোণ এবং রান্নাঘরেও যেহেতু অগ্নির কাজই বেশি হয় কাজেই রান্নাঘরের (kitchen) পজিশন বাড়ির সাউথ-ইস্ট বা দক্ষিণপূর্বে হওয়াই ভাল। তবে যাঁদের রান্নাঘর এদিকে নয়, তাঁরা অন্তত চেষ্টা করুন রান্নাঘরের দক্ষিণপূর্ব দিকে রান্নার আয়োজন করার।

৩। গ্যাস বা স্টোভ বা মাইক্রোওয়েভ – অর্থাৎ যাতে আপনি রান্না করবেন, সেই বস্তুটি কোথায় রাখবেন তা-ও কিন্তু খুব গুরুত্বপূর্ণ। আপনার রান্নাঘর বাড়ির যেখানেই হোক, অগ্নিকোণেই গ্যাস বা স্টোভ রাখুন এবং বাড়ির মহিলারা সেদিকে মুখ করে রান্না করলে ভাল।

৪। আপনি যদি চান আপনার বাড়ি সুখ সমৃদ্ধিতে পরিপূর্ণ হয়ে উঠুক, সেক্ষেত্রে রান্নাঘরে (kitchen) যতটা সম্ভব সবুজের সমারোহ রাখার চেষ্টা করুন (vastu tips)। রান্নাঘরের দেওয়ালে বা জানালায় কিচেন গার্ডেন করতে পারেন। যদি জায়গা না থাকে সেক্ষেত্রে রান্নাঘরের মেঝে বা স্ল্যাব সবুজ গ্রানাইট বা মার্বেল দিয়ে করতে পারেন। কোনও কিছুই সম্ভব না হলে রান্নাঘরে সবুজ কোনও ছবি টাঙাতে পারেন। এতে বাড়িতে শান্তিও বজায় থাকে।

খেয়াল রাখবেন রান্নাঘরের কোনও কল থেকে যেন জল চুইয়ে না পড়ে (ছবি সৌজন্য - শাটারস্টক)

৫। আপনারা যদি রান্নাঘরে বসে খান, তাহলে খুবই ভাল। তবে রান্নাঘরে টেবিলে বা মাটিতে বসে খাওয়ার সময়ে খেয়াল রাখবেন কেউ যেন দক্ষিণ দিকে মুখ করে না খান। এতে পেটের সমস্যা হতে পারে বলে বাস্তু বিশেষজ্ঞরা মনে করেন।

৬। রান্নাঘরেই (kitchen) আজকাল বাসন মাজার সিঙ্ক থাকে। খেয়াল রাখবেন রান্নার গ্যাস এবং বাসন মাজার সিঙ্ক যেন একে অন্যের খুব কাছাকাছি না থাকে। বাস্তু (vastu tips) অনুযায়ী অগ্নি ও জল বিপরীতমুখী এনার্জি। কাজেই এই দুই বিপরীতমুখী এনার্জি পাশাপাশি থাকলে তা কেবলমাত্র অশান্তিই ডেকে আনে। রান্নাঘরের উত্তরপূর্ব দিকে মাসন মাজার সিঙ্ক রাখুন। খেয়াল রাখবেন রান্নাঘরের কোনও কল থেকে যেন জল চুইয়ে না পড়ে। এতে বাড়ি থেকে টাকাপয়সা বেরিয়ে যায় বলে বাস্তু বিশেষজ্ঞরা মনে করেন।

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!