চুলের নানা সমস্যা দূর করতে ভরসা রাখুন এই ঘরোয়া হেয়ারমাস্ক দুটিতে

চুলের নানা সমস্যা দূর করতে ভরসা রাখুন এই ঘরোয়া হেয়ারমাস্ক দুটিতে

চুল আঁচড়াতে গেলেই চুল উঠছে অথবা ঘুম থেকে যখন উঠছেন, বালিশে চুল লেগে আছে; চুলে শ্যাম্পু করার সময়ে গোছা গোছা চুল উঠছে, মাথায় খুশকির (dandruff) সমস্যায় জেরবার অবস্থা – এরকম অবস্থা হলে যে কত কষ্ট হয়, তা যার না হয়েছে সে ছাড়া অন্য কেউ বুঝতেও পারে না। অল্পসল্প চুল ওঠা স্বাভাবিক, কিন্তু চুল ঝরে গিয়ে নতুন চুল যদি না গজায়; বুঝতে হবে কোনও সমস্যা হচ্ছে।

আমরা অনেকেই চুল নিয়ে নানা এক্সপেরিমেন্ট চালাই। নানা রকম কেমিক্যাল ট্রিটমেন্ট থেকে শুরু করে বার বার হেয়ার প্রোডাক্ট বদলানো, চুলে সঠিকভাবে পুষ্টি না দেওয়া, চুলের যত্ন না করা – এগুলোর পর যখন চুল দুর্বল হয়ে ঝরে যায়, তখন দোষ দিই হেয়ার প্রোডাক্টকে। সুন্দর জেল্লাদার চুল পেতে গেলে একটু তো যত্ন করতেই হবে তাই না? চুলের নানা সমস্যার সমাধানে রইল ঘরোয়া (home made) কয়েকটি হেয়ার মাস্কের (hair mask) হদিশ, যা তৈরি করা কঠিন না আর ব্যবহার করা তো আরও সহজ!

চুল পড়ার সমস্যা দূর করতে প্রোটিন প্যাকড হেয়ার মাস্ক

চুল পড়া বন্ধ করতে প্রোটিন প্যাকড ঘরোয়া হেয়ার মাস্কের কোনও তুলনা হয় না (ছবি সৌজন্য - শাটারস্টক)

কী কী উপকরণ প্রয়োজন – কয়েক টুকরো অ্যাভোকাডো, একটি ডিম, এক টেবিল চামচ নারকেল তেল, আধ টেবিল চামচ মধু

কীভাবে ব্যবহার করবেন – প্রতিটি উপকরণ ভাল করে মিশিয়ে একটা পেস্ট তৈরি করে নিন। পেস্টটি যেন খুব থকথকে বা পাতলা না হয় খেয়াল রাখবেন। এবারে এই পেস্টটি চুলের গোড়ায় ও স্ক্যাল্পে লাগিয়ে নিন। আধঘন্টা পর মাইল্ড কোনও শ্যাম্পু দিয়ে ঠান্ডা জলে চুল ধুয়ে ফেলুন।

কতদিন ব্যবহার করবেন – সপ্তাহে একবার করে এই প্রোটিন প্যাকড ঘরোয়া (home made) হেয়ার মাস্কটি (hair masks) ব্যবহার করুন। মাস খানেকের মধ্যেই ফল পাবেন।

খুশকি দূর করতে সর্ষের তেল ও লেবুর হেয়ার মাস্ক

খুশকি দূর করতে সর্ষের তেল দারুণ কাজে দেয় (ছবি সৌজন্য - শাটারস্টক)

কী কী উপকরণ প্রয়োজন – একটা গোটা পেতিলেবুর রস, দুই টেবিল চামচ সর্ষের তেল

কীভাবে ব্যবহার করবেন – একটি কাচের বাটিতে পাতিলেবুর রস ও সর্ষের তেল মিশিয়ে একটা পেস্ট তৈরি করে নিন। একটু ভাল করে সময় নিতে উপকরণ দুটো মেশাতে হবে যাতে একটা পেস্ট তৈরি হয়। এবার চুলের গোড়ায়, স্ক্যাল্পে এবং চুলের ডগায়ও ওই পেস্টটি ভাল করে লাগিয়ে নিতে হবে। ঠিক যেভাবে চুলে তেল মাসাজ করা হয়, সেভাবেই এই হেয়ার মাস্কটিও লাগাতে হবে। ঘন্টা দুয়েক পর মাইল্ড কোনও শ্যাম্পু দিয়ে ঠান্ডা জলে চুল ধুয়ে নেবেন। স্ক্যাল্পে খুশকি থাকলে কখনওই গরম জল বা উষ্ণ জল ব্যবহার করবেন না, স্ক্যাল্প শুষ্ক হয়ে এতে খুশকি (dandruff)  হওয়ার প্রবণতা আরও বেড়ে যায়।

কতদিন ব্যবহার করবেন – দুই সপ্তাহে একবার করে এই ঘরোয়া (home made) হেয়ার মাস্ক (hair masks) ব্যবহার করতে পারেন খুশকি দূর করার জন্য।

ছবি সৌজন্য - শাটারস্টক

POPxo এখন চারটে ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!