দৈনন্দিন কাজের চাপ কিছুটা হলেও কমাতে সাহায্য করবে এই টিপসগুলো in bengali | POPxo

দৈনন্দিন কাজের চাপ কিছুটা হলেও কমাতে সাহায্য করবে এই টিপসগুলো

দৈনন্দিন কাজের চাপ কিছুটা হলেও কমাতে সাহায্য করবে এই টিপসগুলো

আজকাল আমরা মানে মহিলারা মোটামুটি সবাই কর্মরতা। কেউ বা অফিসে চাকরি করি, আবার কেউ নিজের ব্যবসা। কিন্তু তারপরেও বাড়ির নানা কাজ আমাদের সামলাতেই হয়। যারা গৃহবধূ, তাঁদেরও যে কাজের পরিমাণ কিছু কম তা নয়, বরং অন্যান্যদের তুলনায় হয়ত একটু বেশিই। তবে তারপরেও শুনতে হয় “সারা দিন বাড়িতে থেকে কী করো”! সে আপনি যাই করুন না কেন। আপনার কাজ যাতে সামান্য হলেও কমে বা তাড়াতাড়ি হয়। সেজন্য কিছু দারুণ টিপস নিয়ে হাজির হয়ে গিয়েছি আবার! (DIY Life Hacks)

ডি আই ওয়াই লাইফ হ্যাকস - রোজের কাজে কিছুটা সুরাহা পাবেন

টিপস ১। আমাদের সবার বাড়িতেই প্লাস্টিকের ব্যাগ থাকে আর মধ্যবিত্তের বাড়িতে এই ব্যাগগুলো জমিয়ে রাখা যেন তাঁদের ‘জন্মগত অধিকার’! কিন্তু সুন্দরভাবে গুছিয়ে রাখাটাও কিন্তু একটা আর্ট। প্লাস্টিকের এই ব্যাগগুলো ভাঁজ করে কোনও ডিজইনফেক্টরের বোতলে ভরে রাখুন। দরকারের সময়ে খুঁজে পেতেও সুবিধে হবে আর একগাদা জায়গাও নষ্ট হবে না।

টিপস ২। যাদের বাড়িতে শিশু রয়েছে বা পোষ্য রয়েছে তাঁদের আসবাবের যে কী অবস্থা হয় সে আর বলার নয়। মোটামুটি সব আসবাবেই নানা ধরনের আঁচড়ের দাগ দেখা যায় যা দেখতে খুব খারাপ লাগে। কিন্তু এই দাগের জন্য তো আর পুরনো আসবাব ফেলে দিয়ে নতুন আসবাব কেনার কোনও মানে হয় না! এক কাজ করতে পারেন, সামান্য টুথপেস্ট লাগিয়ে দিন আসবাবের দাগওয়ালা অংশে এবং সার্কুলার মোশনে মাখিয়ে রেখে দিন। ২০-২৫ মিনিট পর নরম শুকনো তোয়ালে দিয়ে মুছে নিন। (DIY Life Hacks)

টিপস ৩। আমরা প্রত্যেকেই রান্নাঘরের কাজের জন্য এখন নানারকমের ইলেক্ট্রিক গ্যাজেটের উপরে নির্ভরশীল। মশলা করা থেকে শুরু করে কোনও কিছু ব্লেন্ড করা – সবই আমরা করি ফুড প্রসেসরে। কিন্তু ফুড প্রসেসরের জারগুলো পরিষ্কার করা মহা ঝক্কির কাজ। বিশেষ করে গ্রাইন্ডার ও ব্লেন্ডারের ব্লেডের নীচের অংশ ঠিক ভাবে পরিষ্কার করা যায় না এবং ফলে সেখানে খাবারের অংশ লেগে থাকে। কিন্তু আমাদের কাছে সহজ একটি উপায় আছে। সামান্য ডিশ সোপ ও উষ্ণ জল মিশিয়ে ওই মিশ্রণ জারে ঢেলে পাঁচ থেকে দোষ সেকেন্ডের জন্য ফুড প্রসেসর চালিয়ে দিন। এবারে ঠান্ডা জলে ভাল করে একবার জারগুলো ধুয়ে নিন। একদম সাফসুতরো হয়ে যাবে! (DIY Life Hacks)

টিপস ৪। বাড়িতে থাকাকালীন আপনি কতবার বাথরুমে যান? না, আমাকে বলতে হবে না। জিজ্ঞেস করলাম যাতে আপনি বুঝতে পারেন যে যতবার বাথরুমে যান ততবার ফ্লাস করেন এবং এক একবার ফ্লাসে মোটামুটি লিটার দশেক জল খরচ হয়। তাহলেই ভেবে দেখুন মাত্র একজন সারাদিনে কতটা জল খরচ করেন! তা বলে কি বাথরুমে যাবেন না? নিশ্চয়ই জাবেন তবে জল যাতে অপচয় না হয় সেদিকেও নজর দিতে হবে। ফ্লাস ট্যাঙ্কে ভারী কিছু একটা রেখে দিন। তা জল ভরা বোতলই হোক বা অন্য কিছু, তাতে জল খরচ কম হয়। (DIY Life Hacks)

টিপস ৫। অনেক সময়ই বেসিনে বা সিঙ্কের পাইপে ময়লা আটকে যায় এবং জল জমতে শুরু করে। সেক্ষেত্রে সম পরিমাণে বেকিং সোডা ও ভিনিগার মিশিয়ে সিঙ্কের মুখে ঢেলে দিন। দশ মিনিট পর ফুটন্ত জল ঢেলে কল খুলে দিন। দেখবেন পাইপের ময়লা সাফ হয়ে যাবে। 

টিপস ৬। আপনার বাড়িতে যদি পোষ্য থাকে তাহলে আপনি নিশ্চয়ই জানেন যে বছরে বেশ কয়েকবার তাদের লোম ঝরে এবং আপনার সারা বাড়ি কাশ ফুলের বনে পরিণত হয়। বিশেষ করে বিছানার চাদর, আপনার পোশাক, তোয়ালে ইত্যাদি থেকে লোম ঝাড়া সত্যিই কঠিন। এক কাজ করতে পারেন। বড় সেলোটেপ কেটে নিন কিছুটা এবং যেখানে যেখানে পোষ্যের লোম আটকে রয়েছে সেখানে একবার করে সেলোটেপ লাগিয়ে তুলে নিন। আঠাত সঙ্গে লোমও উঠে আসবে অনায়াসে।

POPxo এখন চারটে ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!