ঘরোয়া টোটকা দিয়ে ভুরু রং করবেন কীভাবে?

ঘরোয়া টোটকা দিয়ে ভুরু রং করবেন কীভাবে?

আমাদের মুখের সৌন্দর্যের অনেকটাই কোন বিষয়ের উপরে নির্ভর করে বলুন তো? মেকআপ? মুখের গড়ন? ত্বকের রং? চোখের আকৃতি? না! কোনোটাই হল না। মুখের সৌন্দর্য অনেকটাই নির্ভর করে আপনার ভ্রূয়ের (eyebrows) উপরে। কাজল কালো ভ্রূ-যুগল নিয়ে নানা কবি নানা কাব্য রচনা করেছেন। নারীর সৌন্দর্যের বর্ণনা করার সময়ে বারবার কথা বলা হয়েছে ভ্রূ নিয়েই। কাজেই বুঝতেই পারছেন যে আপনার সাধের ভ্রূ-যুগলের গুরুত্ব ঠিক কতটা। কিন্তু নানা কারণে কখনও আমাদের ভ্রূয়ের লোম সাদা হয়ে যায়, আবার কখনও লোম পড়েও যায়। তবে আপনি কি জানেন, আপনি প্রাকৃতিকভাবেই (home remedies) আপনার ভ্রূ কালো করতে পারেন? জেনে নিন কীভাবে!

প্রাকৃতিকভাবে ভ্রূ কালো করার উপায়

ঘরোয়া টোটকায় সুন্দর করে তুলুন আপনার ভ্রূ (ছবি - ইনস্টাগ্রাম)

আমরা অনেক সময়েই আইব্রো পেনসিল বা আইশ্যাডোর সাহায্যে ভ্রূয়ের (eyebrows) নানা খুঁত ঢাকি। হয়তো, কোথাও প্যাচ ফিল করতে হয় অথবা ভ্রূয়ের শেপ ঠিক করার ক্ষেত্রেও মেকআপ ব্যবহার করি। কিন্তু প্রাকৃতিকভাবেই (naturally) যদি আপনি আপনার ভ্রূ কালো করতে পারেন বা নানা খুঁত ঢেকে ফেলতে পারেন, তাহলে তার থেকে ভাল বোধয় আর কিছু হয় না তাই না! জেনে নিন কিভাবে ঘরোয়া উপায়ে (home remedies) আপনি এই কাজটি করবেন।

১। প্রাকৃতিকভাবে ভ্রূ কালো করে তুলতে আমলকি ব্যবহার করতে পারেন। আমলকি আমাদের শরীরে নানা উপকারে লাগে। আবার একইসঙ্গে রূপচর্চার ক্ষেত্রেও বেশ কাজে দেয়। আপনার যদি ভ্রূ বয়সের আগে সাদা হয়ে যায়, অথবা ভ্রূয়ের লোম পড়ে যায়, সেক্ষেত্রে আপনি আমলকি ব্যবহার করতে পারেন। একটি গোটা আমলকি পাতলা করে কেটে এক গ্লাস জলে দিয়ে ফুটিয়ে নিন। জল ঠান্ডা করে রেখে দিন কিছুক্ষণ। দেখবেন একটা পেস্টের মত তৈরি হয়েছে। এবারে ওই পেস্টটি ভ্রূ-তে থিক শেপে লাগিয়ে মিনিট কুড়ি পর ভেজা তোয়ালে দিয়ে মুছে নিন। সপ্তাহে তিন-চারবার এই টোটকাটি প্রয়োগ করতে পারেন।

২। সম পরিমাণে কফি ও জল মিশিয়ে একটু গরম করে নিন। এবারে মিশ্রণটি ঠান্ডা হলে ব্রাশের সাহায্যে আপনার ভ্রূয়ের শেপে সুন্দর করে লাগিয়ে নিন। আধ ঘন্টা পর ঠান্ডা জল দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। মুখ ধোওয়ার সময়ে ফেস ওয়াশ লাগাবেন না। দেখবেন সুন্দরভাবে একটা খয়েরি রং ধরেছে ভ্রূ-তে; আর বাদবাকি খুঁতও ঢেকে গেছে।

৩। চন্দন পাটা বা কোনও সমতল জায়গায় সামান্য জলের সাহায্যে হরিতকী ঘষে রস বার করে নিন। ঠিক যেমন চন্দন বাটা হয়, এটিও তেমন দেখতে হবে। এবারে ব্রাশের সাহায্যে ভ্রূয়ের শেপে হরিতকী বাটা লাগিয়ে নিন। শুকিয়ে গেলে ভেজা তোয়ালে দিয়ে মুছে নিন। যাদের ভ্রূ খুব পাতলা, তারা এই টোটকাটি কাজে লাগাতে পারেন। সদ্যোজাত শিশুদের ভ্রূয়ের সুন্দর শেপ তৈরি করতেও হরিতকী বাটা লাগানো যায়।

POPxo এখন চারটে  ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!