পুরনো লিপস্টিক ফেলে দেওয়াই ভাল, না হলে হতে পারে নানা পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

পুরনো লিপস্টিক ফেলে দেওয়াই ভাল, না হলে হতে পারে নানা পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

লিপস্টিক (lipstick) লাগাতে কে না ভালবাসে বলুন তো? একটা সময় ছিল লাল, মেরুন, গোলাপি আর খয়েরি – এই চারটি শেডের লিপস্টিক খুব জনপ্রিয় ছিল। মোটামুটি সব মহিলার কাছেই হয় এই চারটি শেড বা যে-কোনও একটি শেডের লিপস্টিক তো থাকতই। তবে এখন দিন বদলের সঙ্গে সঙ্গে লিপস্টিকের শেডও বদলেছে। বোল্ড ব্লু থেকে শুরু করে ওয়াইন, পার্পল, শকিং পিঙ্ক বা নুড – নানা শেডের লিপস্টিক এখন বাজারে ছেয়ে গিয়েছে। আর আপনিও লিপস্টিক কিনে আলমারি বোঝাই করেছেন। কিন্তু সব সময়ে তো আর লিপস্টিক লাগানো যায় না। কাজেই পড়ে থেকে থেকে অনেক সময়ই লিপস্টিক এক্সপায়ার (expired lipsticks) করে যায়, অর্থাৎ নষ্ট হয়ে যায়। কিন্তু প্রাণে ধরে ফেলতেও পারেন না বলে অনেক সময়ই হয়ত ঠোঁটে এক্সপায়ার হয়ে যাওয়া লিপস্টিকই লাগিয়ে নেন। এতে যে কী মারাত্মক ক্ষতি (harmful) হতে পারে জানেন কি?

এক্সপায়ার হরে যাওয়া লিপস্টিক ব্যবহারের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

ইংরেজিতে একটা কথা আছে ‘Old is Gold’, কিন্তু লিপস্টিকের (lipstick) ক্ষেত্রে এই কথাটি একেবারেই খাটে না। বরং লিপস্টিক পুরনো হয়ে এক্সপায়ার (expired lipsticks) করে গেলে তা একপ্রকার বিষাক্ত হয়ে যায়। আর পুরনো লিপস্টিক ব্যবহার করলে কী কী ক্ষতি (side effects) হতে পারে, তা জেনে নিন –

১। অনে সময়ই আমরা খুব প্রিয় কোনও একটা শেডের লিপস্টিক কিছুতেই ফেলে দিতে পারি না, সে যতই পুরনো হয়ে যাক! তবে এরকম কোনও লিপস্টিক যদি আপনার কাছে থাকে, তাহলে মন শক্ত করে তা বাতিল করাই ভাল। কারন, পুরনো ও এক্সপায়ার হয়ে যাওয়া লিপস্টিকে নানা জীবাণু বাস করতে শুরু করে এবং ওই লিপস্টিক একবার ঠোঁটে লাগালে ত্বকের মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। খেয়াল করে দেখবেন অনেক সময় ঠোঁট সাদা হয়ে যায়।

২। লিপস্টিকে যেহেতু নানারকমের রাসায়নিক থাকে, কাজেই এক্সপায়ার হয়ে গেলে তা যদি আপনি ঠোঁটে লাগান তাহলে কিন্ত আপনার শরীরের হরমোনাল ব্যালান্স বিগড়ে যেতে পারে! ভাবছেন পুরনো লিপস্টিকের সঙ্গে হরমোনের কী সম্পর্ক, তাই তো! পুরনো লিপস্টিক ঠোঁটের থেকে আপনার লালারসের সঙ্গে মিশে শরীরের ভিতরে প্রবেশ করতে পারে।

৩। অনেকেই আজকাল একটি মেকআপ প্রোডাক্ট দিয়েই মুখের সম্পূর্ণ মেকআপ করেন। যেমন লিপস্টিক ঠোঁটে লাগানোর সঙ্গেই আইশ্যাডো ও ব্লাশ হিসেবেও ব্যবহার করেন। সেক্ষেত্রে যদি পুরনো বা বাজে কোয়ালিটির লিপস্টিক ব্যবহার করা হয়, ত্বকে র‍্যাশ বেরতে পারে। এমনকি, আইশ্যাডো হিসেবে ব্যবহার করলে, চোখেরও ক্ষতি হতে পারে।

৪। লিপস্টিক তৈরিতে অনেক ধরণের কেমিক্যাল ব্যবহার করা হয়। তাদের একটি নির্দিষ্ট সময়সীমা থাকে, এর পরে এই রাসায়নিকগুলি আমাদের ত্বকে তাদের খারাপ প্রভাব দেখাতে শুরু করে। যার কারণে শরীরে বিষাক্ত প্রভাব পড়তে পারে। এ কারণে আপনার ঠোঁট শুকতে শুরু করে এবং কালো হতে শুরু করে।

POPxo এখন চারটে  ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!