ত্বকের সমস্যায় দুধ কীভাবে কাজে লাগে?

ত্বকের সমস্যায় দুধ কীভাবে কাজে লাগে?

'দুধ (milk) না খেলে হবে না ভাল ছেলে'- ফের বাংলা ব্যান্ড চন্দ্রবিন্দু-র কথাই ধার নিলাম। ছোট থেকেই বাড়িতে দুধ নিয়ে মারপিট তো দেখেছেন অনেকেই। আহা! মারপিট অর্থাৎ বাড়ির ছোট সদস্য দুধ খেতে নারাজ। আর তাকে দুধ খাওয়ানোর জন্য তার পিছনে দৌড়ে যাচ্ছেন পরিবারের বাকি সদস্য়রা। এ তো পরিচিত দৃশ্য। সোনা মুখ করে শিশু দুধ খেয়ে নিচ্ছে, এ দৃশ্যও পাবেন। তবে তা সংখ্যায় কম।

দুধের পুষ্টিগুণ সম্পর্কে আমরা প্রায় সকলেই জানি। পরিমাণ মতো দুধ খেলে শরীরে অনেক কিছুর ঘাটনি পূরণ হয়। তাই যে কোনো বয়সেই ডায়েটে দুধ রাখতে পারলে তা আখেরে লাভ। চিকিৎসকরাও তেমন পরামর্শই দেন। 

শুধু খাওয়া নয়। দুধ আপনার রূপচর্চাতেও (Beauty) দৈরুণ উপকারি। কীভাবে দুধ দিয়ে রূপচর্চা করতে পারেন, তা নিয়েই আলোচনা করব আমরা। তার আগে দুধ রূপ রুটিনের কোন কোন সমস্যার সমাধানে কাজে লাগে এক নজরে দেখে নেওয়া যাক।

রূপচর্চায় দুধ

১) দুধের মধ্যে প্রচুর পরিমাণে ময়শ্চারাইজার থাকে। যে কোনও ত্বকের ( skin) জন্য টোনার হিসেবে দুধ খুব ভাল কাজ করে। ত্বকের টিস্যুগুলি টোন করতে এর জুড়ি মেলা ভার। দুধ ত্বককে টানটান রাখতেও সাহায্য করে।

২) যে কোনও ত্বকের জন্য ক্লিনজার হিসেবে দুধ ব্যবহার করা যেতে পারে। ত্বকের ভিতর থেকে ময়লা বের করে দেয় দুধ। ব্ল্যাকহেডস এবং ত্বকের অতিরিক্ত তেল বের করে দেয় দুধের ক্লিনজার।

৩) সূর্যরশ্মিতে ত্বকের কোনও অংশ পুড়ে গেলে, ট্যান পড়ে। দুধের সঙ্গে টোম্যাটোর রস মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে লাগালে ট্যান রিমুভারের কাজ করে। ত্বকের উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে দিতে পারে দুধের প্যাক।

৪) দুধের মধ্যে থাকা ময়শ্চারাইজার জাতীয় উপাদান ত্বককে খুব তৈলাক্তও করবে না, আবার শুষ্কও করবে না। ফলে ব্রণ বা দাগছোপ ত্বকে অনেক কম হবে।

৫) শুধু ট্যাান রিমুভার নয়, দুধ প্রাকৃতিক সানস্ক্রিনেরও কাজ করে। বাড়ির বাইরে বেরনোর অন্তত ৩০ মিনিট আগে দুধের সঙ্গে দই মিশিয়ে মুখে লাগিয়ে নিন। শুকিয়ে গেলে ঠাণ্ডা জলে ধুয়ে নিন। অন্তত চার ঘণ্টা পর্যন্ত এই প্যাক সূর্যের ক্ষতিকারক রশ্মি থেকে ত্বককে রক্ষা করবে।

রূপচর্চায় দুধ নানা ভাবে কাজে লাগাতে পারেন। ছবি ইনস্টাগ্রামের সৌজন্যে।

কীভাবে ব্যবহার করবেন

১) এক টেবিল চামচ কাঁচা দুধের সঙ্গে ১/৪ টেবিল চামচ হলুদ গুঁড়ো মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে ত্বকে লাগান। কমপ্লেকশন উজ্জ্বল হবে।

২) এক টেবিল চামচ কাঁচা দুধ, এক টেবিল চামচ শসার পেস্ট, এক টেবিল চামচ মধু ও একটি ভিটামিন ই ক্যাপসুলের তেল একসঙ্গে মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি ত্বকের ট্যান পড়ে যাওয়া অংশে অ্যাপ্লাই করুন। সপ্তাহে অন্তত তিনদিন ব্যবহার করলে আলাদা করে ট্যান রিমুভারের প্রয়োজন হবে না।

৩) এক কাপ দুধে দুই টেবিল চামচ ওটমিলের গুঁড়ো মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি ত্বকে হালকা মাসাজ করে লাগিয়ে নিন। শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন। এটি ব্ল্যাকহেডস দূর করার পাশাপাশি ব্রণ ও ত্বকের মরা কোষ তুলে ফেলতে সাহায্য করবে।

৪) দুই টেবিল চামচ কাঁচা দুধের সঙ্গে এক টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে নিন। এই প্যাক প্রাকৃতিক ময়শ্চারাইজারের কাজ করবে।

৫) ত্বকের অতিরিক্ত তেল দূর করতে মুলতানি মাটির সঙ্গে পরিমাণ মতো দুধ মিশিয়ে ত্বকে অ্যাপ্লাই করুন।

মূল ছবি ইনস্টাগ্রামের সৌজন্যে।

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!

বাড়িতে থেকেই অনায়াসে নতুন নতুন বিষয় শিখে ফেলুন। শেখার জন্য জয়েন করুন #POPxoLive, যেখানে আপনি সরাসরি আমাদের অনেক ট্যালেন্ডেট হোস্টের থেকে নতুন নতুন বিষয় চট করে শিখে ফেলতে পারবেন। POPxo App আজই ডাউনলোড করুন আর জীবনকে আরও একটু পপ আপ করে ফেলুন!