আপনার আর আপনার বরের সম্পর্কের মধ্যে ঢুকে পড়ছেন শাশুড়ি! কী করবেন?

আপনার আর আপনার বরের সম্পর্কের মধ্যে ঢুকে পড়ছেন শাশুড়ি! কী করবেন?

কথায় আছে, শাশুড়ি (mother in law) নাকি কখনও মা হতে পারে না। সত্যিই, এর সত্যতা অনেকে নিজের জীবন দিয়ে জানেন। আবার ব্যতিক্রমও রয়েছে। শাশুড়ি-বৌমার বন্ধুত্বের সম্পর্ক (relationship) যেমন দেখা যায়, তেমনই কখনও মায়ের মতো শাসন করছেন শাশুড়ি আবার বৌমাও মেয়ের আবদার করতে পারছেন, এ ঘটনাও বিরল নয়।

শাশুড়ি-বৌমার কেমিস্ট্রি যে কোনও সম্পর্কের মতোই সারা জীবন তো সরল রেখায় চলতে পারে না। ওঠা-পড়া থাকবেই। কে কীভাবে মানিয়ে নিচ্ছেন, সেটাই আসল। তবে মানিয়ে নিতে গিয়ে নিজের সাধপূরণের খাতায় শূন্য অথবা নিজের আত্মসম্মানে আঘাত লাগছে, এই পরিস্থিতি কোনও পক্ষের জন্যই ঠিক নয়।

করোনা আতঙ্ক এবং লকডাউন আমাদের জীবন আমূল পাল্টে দিয়েছে। নতুন করে অনেক বিষয়ে অভ্যস্ত হতে হচ্ছে সকলকেই। কেউ দ্রুত অভ্যস্ত হতে পারছেন। কারও বা সময় লাগছে। এই পরিস্থিতিতে বেশ কিছু পরিবারে শাশুড়-বৌমার সম্পর্ক একেবারে তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে। দু তরফেই স্পেস প্রবলেম হচ্ছে। কখনও শাশুড়ি ছেলে-বউমার সম্পর্কও অজান্তেই নষ্ট করে ফেলছেন। আজ আমরা বৌমাদের দিক থেকে এই সমস্যা সমাধানের জন্য কিছু পরামর্শ দেব। বৌমাদের বয়স কম। ধরে নেওয়া যেতে পারে, তাঁদের ধৈর্য্য বেশি। তাই চেষ্টা প্রথমে আপনি শুরু করুন। দেখুন, পরিস্থিতি নিশ্চয়ই ভাল হবে।   

পৃথা চক্রবর্তী পরিচালিত 'মুখার্জী দার বউ' ছবিতে ব্যবহার করা হয়েছিল এমন পোস্টার। ছবি ইনস্টাগ্রামের সৌজন্যে।

১) করোনা আতঙ্কের আগে আপনি হয়তো দিনের অনেকটা সময় বাড়ির বাইরে থাকতেন। এখন বাড়িতে থাকছেন পুরো সময়টা। ফলে শাশুড়ির অনেক আচরণ আগে আপনি ইগনোর করতেন। এখন সেটা পুরোপুরি সম্ভব না হলেও বেশিরভাগটাই অ্যাভয়েড করুন।

২) বাড়িতে থেকে যদি আপনাকে অফিসের কাজ সামলাতে হয়, তাহলে স্পষ্ট করে দিন ওয়ার্ক ফ্রম হোম আর ওয়ার্ক ফর হোমের পার্থক্য। অফিসের সময়টুকু অফিসের কাজ নিয়েই ব্যস্ত থাকুন। কারণ বাইরে তো সেটাই করতেন। এতে কাজের কোয়ালিটি যেমন ভাল হবে, তেমনই সংসারের অশান্তি থেকে দূরে থাকতে পারবেন। কাজের সময়ের পর বাড়ির কাজে অবশ্যই সাহায্য করুন।

৩) যদি আপনি গৃহবধূ হন, তাহলে এই লকডাউনের সময় আপনার কাজের চাপ অনেকটাই বেড়েছে। কারণ বাড়ির প্রায় সব সদস্যই এখন ২৪ ঘণ্টা বাড়িতে রয়েছেন। এবার এই কাজের পরিমাণ সামলানোর ক্ষেত্রে শাশুড়ির সঙ্গে সমস্যা হলে তা আগে থেকে আলোচনা করে নিন। প্রয়োজনে কিছু কাজ ভাগ করে নিন। আগের পরিস্থিতিতে আপনি একাই হয়তো সবটা করতে পারতেন গৃহ-পরিচারিকার সাহায্যে। এখন সেই সাহায্য পরিবারের অন্যান্যদের থেকে নিতে হবে।

৪) সাংসারিক ঝামেলা অনেক শাশুড়ি ছেলেদের সঙ্গে শেয়ার করতে গিয়ে কখনও ইচ্ছাকৃত কখনও বা অনিচ্ছাকৃত ভাবে বউমার নিন্দে করে ফেলেন। এই প্রবণতা অবিলম্বে বন্ধ করুন। আপনার কোনও আচরণ শাশুড়ির পছন্দ না হলে আপনাকে সরাসরি বলতে অনুরোধ করুন। একই ভাবে আপনিও তাঁকে সরাসরি বলুন। অভিযোগের ঝুলি নিয়ে স্বামীর কাছে হাজির হবেন না।

৫) যদি আপনার এবং আপনার স্বামীর পার্সোনাল স্পেসে শাশুড়ি বারবার ঢুকে পড়েন, তা হলে তা নিয়ে প্রথমে স্বামীর সঙ্গে আলোচনা করুন। তিনিও এটা সমস্যা বলে মনে করছেন কিনা, সেটা জেনে নেওয়া জরুরি। আলোচনার মাধ্যমে সমাধান বেরবেই।

৬) ছেলের বিয়ে হয়ে গেলেও অনেক মা এতটাই প্যাম্পার করেন, যে ছেলের বউয়ের কাছে সেই আচরণ অস্বাভাবিক ঠেকে। এ নিয়ে শাশুড়ির সঙ্গে সমস্যা তৈরি হতে পারে। সেক্ষেত্রে বাস্তব পরিস্থিতি শাশুড়িকে বুঝিয়ে বলুন।

৭) করোনা আতঙ্ক এবং লকডাউন পরিস্থিতি আমাদের সকলের সিলেবাসের বাইরে। ফলে সকলেই যে পরিণত আচরণ করতে পারবেন এমন নয়। আপনার শাশুড়ি যদি অজানা কারণে ভয় পান, তাহলে রেগে না গিয়ে তাঁর সমস্যাটা বোঝার চেষ্টা করুন। হতে পারে সেই ভয় থেকেই হয়তো উনি ছেলেকে আরও বেশি আঁকড়ে ধরতে চাইছেন।

৮) সর্বোপরি প্রথম থেকেই শাশুড়ি সম্পর্কে নেগেটিভ ধারণা তৈরি করবেন না। তাঁর দিকে আপনি বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দেখুন। তিনি হয়তো বয়সজনিত ইগো থেকে বন্ধুত্বের বাত বাড়াতে ইতস্তত করছেন। আপনি হাত বাড়ালে তিনিও হয়তো এগিয়ে আসবেন।

মূল ছবি ইনস্টাগ্রামের সৌজন্যে

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!

বাড়িতে থেকেই অনায়াসে নতুন নতুন বিষয় শিখে ফেলুন। শেখার জন্য জয়েন করুন #POPxoLive, যেখানে আপনি সরাসরি আমাদের অনেক ট্যালেন্ডেট হোস্টের থেকে নতুন নতুন বিষয় চট করে শিখে ফেলতে পারবেন। POPxo App আজই ডাউনলোড করুন আর জীবনকে আরও একটু পপ আপ করে ফেলুন!