শেলফ লাইফ পার হয়ে যাওয়া প্রসাধনী ফেলে না দিয়ে অন্য কাজে লাগান

শেলফ লাইফ পার হয়ে যাওয়া প্রসাধনী ফেলে না দিয়ে অন্য কাজে লাগান

আমি জানি না, আপনাদের মধ্যে কারও কারও এমন অভ্যাস রয়েছে কিনা, তবে আমার একটি অদ্ভুত অভ্যাস রয়েছে, এবং আমি যতই চেষ্টা করি না কেন, কিছুতেই এই অভ্যাস বদলাতে পারিনা। যে-কোনোও প্রসাধনীর (cosmetics) প্রতি আমার এক অদ্ভুত ঝোঁক! হয়তো আমার কাছে এখনও টুথপেস্ট, ডিওডরেন্ট বা ময়শ্চারাইজার রয়েছে, কিন্তু বাজারে গেলে বা অনলাইনে যদি আমি কোনও প্রোডাক্ট দেখি, আমি আবার ওই জিনিসগুলো কিনে ফেলি। ফলে যে সমস্যাটা হয়, কোনও না কোনও একটা প্রোডাক্টের (products) শেলফ লাইফ (shelf life) শেষ হয়ে যায়, কিন্তু প্রোডাক্ট শেষ হয় না। সত্যি কথা বলতে কী, কষ্ট করে অর্জিত টাকা দিয়ে কেনা প্রোডাক্টগুলো ফেলে দিতেও ইচ্ছে করে না, আবার ব্যবহার করতেও ভয় লাগে। অনেক ভেবে শেষ পর্যন্ত একটা উপায় বার করেছি শেলফ লাইফ (shelf life) শেষ হয়ে যাওয়ার পরেও কিভাবে কিছু কিছু প্রসাধনী (cosmetics) ব্যবহার করা যায়! আপনাদের সঙ্গে সে’কথা শেয়ার করতেই আজকের প্রতিবেদন, তবে তার আগে জেনে নিন, কোনও প্রোডাক্টের সেলফ লাইফ বলতে কী বোঝায়।

প্রডাক্টের শেলফ লাইফের অর্থ কী

শেলফ লাইফ উত্তীর্ণ হয়ে যাওয়া প্রসাধনী (ছবি সৌজন্য - ইনস্টাগ্রাম)

যে-কোনও প্রোডাক্টেরই (products) একটা শেলফ লাইফ (shelf life) থাকে – তা সে খাবারই হোক বা প্রসাধনী (cosmetics) অথবা ওষুধ। অনেকেই ভাবেন প্রোডাক্টের শেলফ লাইফ এবং এক্সপায়ারি ডেট এক বিষয়, তবে এমনটা মোটেও নয়। যে-কোনও প্রোডাক্টের শেলফ লাইফ বলতে বোঝানো হয় যে ওই প্রোডাক্টটি কতদিন পর্যন্ত ব্যবহার যোগ্য। একটা নির্দিষ্ট সময় পর প্রতিটি জিনিসই একটু একটু করে তার ফ্রেশনেস হারাতে থাকে কিন্তু কিছুদিন পর্যন্ত ব্যবহারযোগ্য থাকে; তাকে বলা হয় প্রোডাক্টের শেলফ লাইফ। অন্যদিকে প্রোডাক্টটি যখন একেবারেই নষ্ট হয়ে যায় এবং ব্যবহারযোগ্য থাকে না, এমনকি ব্যবহার করলে ক্ষতি ছাড়া লাভ কিছু হয় না, সেই নির্দিষ্ট সময়টিকে বলা হয় এক্সপায়ারি ডেট।

কোন কোন প্রসাধনী শেলফ লাইফ শেষ হওয়ার পরও অন্য কাজে ব্যবহার করা যায়

১। ডিওডোরেন্টের শেলফ লাইফ মোটামুটি এক-দু’বছর হয়। তার পরে এই প্রসাধনীটি নষ্ট হতে শুরু করে। যদি আপনার কাছেও শেলফ লাইফ পার হয়ে যাওয়া ডিওডোরেন্ট থেকে থাকে, তাহলে তা গায়ে না মেখে অন্য কাজে ব্যবহার করতে পারেন। বাথরুমে স্প্রে করতে পারেন, জুতোর র‍্যাকে অথবা আলমারিতে বা কাবার্ডের মধ্যে স্প্রে করতে পারেন। সুন্দর গন্ধ হবে।

২। সাধারণত যে-কোনও ময়শ্চারাইজার দুই বছর পর্যন্ত ভাল থাকে, তার পরে তার শেলফ লাইফ পার হয়ে যায়। যখনই দেখবেন ময়শ্চারাইজারের গন্ধ বা টেক্সচার একটু অন্যরকম হতে শুরু করেছে, বুঝবেন যে এই প্রসাধনীটির শেলফ লাইফ উত্তীর্ণ হয়েছে। আপনি এই ময়শ্চারাইজারটি তখন কোনও ধাতব শো পিস চকচকে করতে, জং তুলতে বা ড্রেসের ও জিনসের আটকে যাওয়া জিপ ঠিক করতে ব্যবহার করতে পারেন।

৩। শেলফ লাইফ পার হয়ে যাওয়া শ্যাম্পু ফেলে দেবেন না, আবার চুলেও লাগাবেন না যেন! কাচের বাসন মাজতে, গাড়ি পরিষ্কার করতে, জাঙ্ক জুয়েলারি পরিষ্কার করতে বা রান্নাঘর ও বাথরুমের টাইলস পরিষ্কার করতে ব্যবহার করতে পারেন।

POPxo এখন চারটে  ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!

বাড়িতে থেকেই অনায়াসে নতুন নতুন বিষয় শিখে ফেলুন। শেখার জন্য জয়েন করুন #POPxoLive, যেখানে আপনি সরাসরি আমাদের অনেক ট্যালেন্ডেট হোস্টের থেকে নতুন নতুন বিষয় চট করে শিখে ফেলতে পারবেন। POPxo App আজই ডাউনলোড করুন আর জীবনকে আরও একটু পপ আপ করে ফেলুন!