ওয়ার্ক ফ্রম হোম করছেন, জেনে নিন অফিসের পোশাকের যত্ন নেবেন কিভাবে

ওয়ার্ক ফ্রম হোম করছেন, জেনে নিন অফিসের পোশাকের যত্ন নেবেন কিভাবে

এ’বছরের প্রায় শুরুর দিক থেকেই করোনার প্রকোপে পড়ে আমাদের জীবনযাত্রা ৩৬০ ডিগ্রী ঘুরে গিয়েছে। ভয় বলুন, আতঙ্ক বলুন বা সাবধানতা অবলম্বন বলুন; প্রয়োজন ছাড়া আমরা বাড়ির বাইরে পা রাখছি না। করোনার দাপট কমাতে সারা দেশ জুড়ে জারি হয়েছিল লকডাউন (lockdown)। কিন্তু এভাবে কতদিন চলতে পারে বলুন! সেজন্য এখন সারা দেশে চালু হয়েছে ‘আনলক’ প্রক্রিয়া। তবে জরুরি পরিষেবা ছাড়া বাকি সবাই-ই কিন্তু ‘ওয়ার্ক ফ্রম হোম’ (work from home) করছেন বেশ অনেক দিন হল। বাড়ি বসে কাজ করার জন্যই হয়ত, বাইরে পরার পোশাকগুলো (office outfits) আলমারি বন্দি হয়ে রয়েছে, আর ভাঁজে ভাঁজে নষ্ট হয়ে যাওয়ার অবস্থায় পৌঁছে গিয়েছে। কিন্তু আর যাই হোক, ভাল পোশাকগুলো তো আর এভাবে নষ্ট হতে দেওয়া যায় না! তার উপরে এখন মাঝে মাঝেই বৃষ্টি হচ্ছে, ফলে আলমারি বন্দি পোশাকগুলোর যে কী দশা হয়েছে, তা বলাই বাহুল্য। এখন যেহেতু বাড়ি থেকে কাজ করছেন, কিছুটা হলেও হয়তো হাতে সময় পাচ্ছেন। এই বেলা তাই ঝটপট জেনে নিন, পোশাকের যত্ন করবেন কিভাবে।

লকডাউনে পোশাকের যত্ন করবেন কীভাবে

বেশিদিন না পরলে ভাঁজে ভাঁজে পোশাক নষ্ট হয়ে যায় (ছবি - পেক্সেলস ডট কম)

১। প্রথমেই আলমারি থেকে পোশাকগুলো বার করে তা ভাঁজমুক্ত করুন। বেশিরভাগ সময়েই পোশাক, বিশেষ করে শাড়ি না পরে পরে ভাঁজে ভাঁজেই নষ্ট হয়ে যায়। আর এই বর্ষায় অনেক সময়েই অব্যবহৃত পোশাকে ফাঙ্গাস ধরে যায়। সবার আগে ভাঁজ খুলে কেচে নিতে হবে।

২। একে বর্ষা তার উপরে আবার পোশাকগুলো পরা হচ্ছে না। আর বর্ষাকালে কাপড় কেচে শুকনোও মুশকিল। এক কাজ করতে পারেন, প্রতিদিন না কেচে বরং যেদিন যেদিন রোদ উঠবে সেদিন কাপড় কেচে নিন। বর্ষার পর বেশ কড়া রোদ ওঠে। সেই সুযোগটি কাজে লাগান।

৩। যদি রোদের দেখা না পান, সেক্ষেত্রে ভাল করে জল নিংড়ে ফ্যান চালিয়ে ঘরেই পোশাক শুকোতে দিন। দরজা-জানালা খোলা রাখবেন, যাতে ক্রস ভেন্টিলেশনের সুযোগ থাকে। এতে পোশাক তাড়াতাড়ি শুকিয়ে যাবে।

৪। আপনি যে পোশাকগুলো পরে অফিসে যেতেন বা কোনও কাজে বাইরে যেতেন, তার মধ্যে সব পোশাক কিন্তু বাড়িতে কাচা যায় না। যেমন ভারী কোনও সিল্ক বা দামী ফ্যাব্রিক বাড়িতে কাচলে নষ্ট হয়ে যেতে পারে। এ’ধরনের পোশাকগুলো ভাল কোনও লন্ড্রিতে কাচতে দিন।

৫। সব পোশাক যে জলে কাচতে হবে তা কিন্তু নয়। অনেকেই শাড়ি পরে অফিস যাতায়াত করতেন। কিন্তু এখন লকডাউন আর ওয়ার্ক ফ্রম হোমের জন্য সে’সব কিছুই পরা হচ্ছে না। শাড়িগুলোর ভাঁজ খুলে রোদে দিন। ভাল করে রোদ লাগিয়ে অন্যভাবে ভাঁজ করে আলমারিতে তুলে রাখুন।

৬। শাড়ির ভাঁজে নিম পাতা বা পুটলি করে কালো জিরে রেখে দিতে পারেন। এতে চট করে শাড়িতে বা দামী পোশাকে পোকা ধরে না। সিল্কের শাড়ি বা পোশাক হলে তা কাঠের হ্যাঙ্গারে ঝুলিয়ে রাখুন। এতে ভাঁজ পড়বে না এবং পোশাক বেশিদিন টিকবে।

৭। শুধু পোশাকের যত্ন নেওয়াই যথেষ্ট নয়। আলমারিও পরিষ্কার করুন মাঝে মাঝে।

ছবি সৌজন্য - পেক্সেলস ডট কম

POPxo এখন চারটে  ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!