ওয়ার্ক ফ্রম হোম করে মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে ত্বকের, কী করবেন?

ওয়ার্ক ফ্রম হোম করে মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে ত্বকের, কী করবেন?

সোম থেকে শুক্র টানা অফিস। কারও আবার শনিবারও। সপ্তাহের শেষে একটা বা দুটো ছুটি। কারও ছুটি সপ্তাহের মধ্যিখানে। অর্থাৎ সপ্তাহে পাঁচ থেকে ছয়দিন বেশ অনেকটা সময় বাড়ির বাইরে থাকা। সূর্যের তাপে ট্যান পড়ে যায় ত্বকের বিভিন্ন অংশে। পার্লারে গিয়ে সেই ট্যান রিমুভ করাতে হয়। অথবা বাড়িতেই যত্নে রাখতে হয় ত্বক।

এই চেনা রুটিন গত কয়েক মাস হল বদলে দিয়েছে করোনা আতঙ্ক এবং লকডাউন। কারণ বাড়ি থেকেই সামলাতে হচ্ছে অফিসের কাজ (Work)। প্রথমদিকে ব্যাপারটা এনজয় করছিলেন অনেকে। অফিস যাওয়ার দীর্ঘ রুটিন থেকে একটা লম্বা ব্রেক। সূর্যের তাপে ত্বক পুড়ে যাওয়া নেই। রাস্তার ধুলো, গাড়ির ধোঁয়ায় ত্বক নষ্ট হওয়া নেই। এ যেন এক অন্য আরাম। 

না! এতদিন আরাম ভেবে যে নিশ্চিন্তে ছিলেন, তা আপনার ভুল ধারণা। কারণ ওয়ার্ক ফ্রম হোমের অভ্যেস আদতে ত্বকের (skin) বড় ক্ষতি করছে। দিনভর মোবাইলে ব্যস্ত থাকা বা ল্যাপটপে ঘাড় গুঁজে কাজ করছেন আপনি। জানতেও পারছেন না, মোবাইল, ল্যাপটপ, ট্যাব বা টিভি থেকে বেরনো নীল আলো আপনার ত্বকের বিশাল ক্ষতি করছে। স্কিন স্ট্রেস বাড়ছে। ত্বক তাড়াতাড়ি বুড়ো হয়ে যাচ্ছে। এমনকি পিগমেনটেশনের সমস্যাও দেখা দিচ্ছে। 

ত্বকের ক্ষতি আটকাতে কাজের ফাঁকে যত্ন নিন। ছবি ইনস্টাগ্রামের সৌজন্যে।

কী করবেন?

দেখুন, এই মুহূর্তে গোটা বিশ্বের যা করোনা পরিস্থিতি তাতে কবে আবার সব স্বাভাবিক হবে, সত্যিই বলা মুশকিল। ফলে বাড়ি থেকে কাজ এখন চলবেই। অন্তত আরও কয়েক মাস। আপনার ত্বককে ভাল তো রাখতে হবে। এই অবস্থায় কী করবেন?

১) আপনার দিনে কাজের সময়ের মধ্য়ে স্ক্রিন টাইম আগের থেকে কমিয়ে দিন। একটানা ল্যাপটপে বসে না থেকে কয়েকটা ছোট ছোট ব্রেক নিয়ে কাজ করুন। সেই ব্রেকে চোখ বন্ধ করে ত্বককে রেস্ট দিতে পারেন। আবার চাইলে বই পড়া বা গান শোনার মতো কাজে নিজেকে রিফ্রেশ করতে পারেন।

২) ফোন নাইট মোডে রেখে দিন। এতে কম আলো বের হবে।

৩) ঘুমের সময় অন্তত আট ঘণ্টা রাখতেই হবে। কাজের মাঝে যে ব্রেক নিচ্ছেন, তাতে কিন্তু ঘুমিয়ে পড়বেন না। কারণ কাজের তাড়ায় আপনার ঘুম কমপ্লিট হবে না। ত্বকও পুরো রেস্ট পাবে না।

 

৪) বাড়িতেও সানস্ক্রিন লাগিয়ে রাখুন। বাইরে বেরচ্ছেন না বলে সানস্ক্রিনের কোনও প্রয়োজন নেই, এই ধারণা একেবারে ভুল।

৫) প্রচুর জল খেতে হবে। জল ছাড়া বাইরে থেকে কোনও ময়শ্চারই কিন্তু শরীরের ভিতরটা হাইড্রেট করতে পারে না।

৬) ডায়েটে ভিটামিন সি রাখতে হবে। ভিটামিন সি যুক্ত যে কোনও একটা ফল প্রতিদিন খান। তা একান্তই সম্ভব না হলে ভিটামিন সি সিরাম ত্বকে অ্যাপ্লাই করুন।

৭) যতটা সময় সোশ্যাল মিডিয়ায় কাটাচ্ছেন, কাজের পরও যে সময়টা ফোনে বা ট্যাবে সিনেমা বা সিরিজ দেখে কাটাচ্ছেন, সেই সময়টা একটু কমিয়ে ফেলুন। বরং ত্বকচর্চায় মন দিন। এমনিই আপনার ত্বক ভাল থাকবে।

মূল ছবি ইনস্টাগ্রামের সৌজন্যে।

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!

বাড়িতে থেকেই অনায়াসে নতুন নতুন বিষয় শিখে ফেলুন। শেখার জন্য জয়েন করুন #POPxoLive, যেখানে আপনি সরাসরি আমাদের অনেক ট্যালেন্ডেট হোস্টের থেকে নতুন নতুন বিষয় চট করে শিখে ফেলতে পারবেন। POPxo App আজই ডাউনলোড করুন আর জীবনকে আরও একটু পপ আপ করে ফেলুন!