পরিবারের ব্যক্তিগত বিষয় পরিচারিকার সঙ্গে শেয়ার করছেন শাশুড়ি! কী করে সামলাবেন?

পরিবারের ব্যক্তিগত বিষয় পরিচারিকার সঙ্গে শেয়ার করছেন শাশুড়ি! কী করে সামলাবেন?

শাশুড়ি (mother in law) নাকি কখনও মায়ের মতো হন না। এটা চলতি কথা বা চলতি ধারণা বলতে পারেন। সত্যিই কি তাই? এই ধারণা কারও ক্ষেত্রে সঠিক হয়তো। আবার কারও ক্ষেত্রে বিষয়টা একেবারে উল্টো। শাশুড়ি এবং বৌমাই বেস্ট ফ্রেন্ড, এমন উদাহরণও দেখা যায় বৈকি!

তবে কিছু ক্ষেত্রে শাশুড়ি মায়ের কোনও আচরণে অস্বস্তিতে পড়েন বৌমা। দুটো মানুষ আলাদা। ফলে প্রকাশভঙ্গি আলাদা হবেই। তাছাড়া জেনারেশন গ্যাপও কিছু ক্ষেত্রে দায়ী বটে।

ধরুন, আপনাদের পরিবারের যাবতীয় বিষয় নিয়ে বাড়ির পরিচারিকার (maids) সঙ্গে কথা বলেন শাশুড়ি মা। আপনার অফিসের সমস্যা হোক বা মাইনে যেমন তার আওতায় পড়ে, তেমনই আপনার সঙ্গে শাশুড়ি মা বা বরের ঝামেলা হোক অথবা সম্পত্তির হিসেব, সবই হয়তো তিনি শেয়ার করেন বাড়ির পরিচারিকার সঙ্গে। নিঃসন্দেহে খুবই অস্বস্তিকর পরিস্থিতি। কীভাবে সামলাবেন? তারই একটা গাইডলাইন তৈরির চেষ্টা করলাম আমরা। দেখুন হয়তো আপনার কাজে লাগতে পারে।

শাশুড়িকে সময় দিন, হয়তো সম্পর্ক অনেক সহজ হবে।

১) প্রত্যেক মানুষের প্রতিটি আচরণের পিছনে নির্দিষ্টি কোনও কারণ থাকে। আপনার শাশুড়ি মা ঘরের যাবতীয় ব্যক্তিগত কথা কেন একজন বাইরের মানুষের সঙ্গে শেয়ার করছেন, সেই কারণটা খুঁজে বের করার চেষ্টা করুন।

২) অনেক বাড়িতে পরিচারিকা অনেক পুরনো হন। হয়তো আপনার বিয়ের আগে থেকে শ্বশুরবাড়িতে তিনি কাজ করছেন। অথবা আপনার স্বামীর ছোটবেলা থেকেই তিনি ওই বাড়িতে রয়েছেন। ফলে তাঁর দিক থেকেও একটা অধিকারবোধ তৈরি হয়। পাশাপাশি আপনার শাশুড়ি হয়তো তাঁকে পরিবারের এক সদস্য বলেই মনে করেন। তবুও কিছু কথা সকলের সঙ্গে শেয়ার করা যায় না। সেটা ঠাণ্ডা মাথায় শাশুড়ি মাকে বোঝাতে হবে।

৩) পারিবারিক ভাবে এমন কোনও সমস্যা রয়েছে কিনা দেখুন, যেটা আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করতে শাশুড়ি মা স্বচ্ছন্ন নন। সে কারণেই পরিচারিকাকে বেছে নিয়েছেন তিনি। সেই সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করুন।

৪) পুরো বিষয়টা আপনার স্বামীকে জানিয়ে রাখুন। প্রয়োজন হলে তাঁর মাধ্যমেই প্রাথমিক ভাবে শাশুড়ি মাকে বোঝানোর চেষ্টা করুন।

 

৫) শাশুড়ির সঙ্গে একটু বেশি সময় কাটান। তাঁকে তাঁর পছন্দের জিনিস কিনে দিন। সম্পর্কের মধ্যে একটা কমফর্ট লেভেল তৈরি করুন। যাতে তিনি আপনার উপর ভরসা বা বিশ্বাস করতে পারেন অনায়াসে।

৬) আপনার শাশুড়ি যে পরিবারের ব্যক্তিগত কথা পরিবারের বাইরের একজনের সঙ্গে শেয়ার করছেন, এর পরিমাণ মারাত্মক হতে পারে, সেটা তাঁকে বোঝান। প্রয়োজন হলে সোশ্যাল মিডিয়া বা সিনেমা থেকে উদাহরণ নিয়ে বোঝান। 

৭) এই ঘটনার ফলে আপনার বা আপনার পরিবারের সম্মানহানি হচ্ছে, সেটা শাশুড়ি মাকে বোঝাতে হবে। এতে আপনাদের খারাপ লাগছে, সেটা বোঝাতে চেষ্টা করুন।

৮) সর্বোপরি এই অভ্যেস বন্ধ করানোর জন্য ধৈর্য্য ধরে পুরো বিষয়টা সামলাতে হবে। রেগে গেলে বা এড়িয়ে গেলে কিন্তু এই সমস্যার সমাধান সম্ভব নয়।

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!

বাড়িতে থেকেই অনায়াসে নতুন নতুন বিষয় শিখে ফেলুন। শেখার জন্য জয়েন করুন #POPxoLive, যেখানে আপনি সরাসরি আমাদের অনেক ট্যালেন্ডেট হোস্টের থেকে নতুন নতুন বিষয় চট করে শিখে ফেলতে পারবেন। POPxo App আজই ডাউনলোড করুন আর জীবনকে আরও একটু পপ আপ করে ফেলুন!