ত্বকের যত্নে অ্যাপেল সাইডার ভিনিগারের উপকারিতা

ত্বকের যত্নে অ্যাপেল সাইডার ভিনিগারের উপকারিতা

আমাদের হাতের কাছেই এমন অনেক কিছু রয়েছে, যা শরীরের দেখভালে বেশ কাজে আসে। যেমন অ্যাপেল সাইডার ভিনিগারের কথাই ধরুন না। এই ভিনিগারটি জলে মিশিয়ে খাওয়া শুরু করলে নাকি শরীর রোগমুক্ত হতে সময় লাগে না। সঙ্গে মস্তিষ্কের ক্ষমতাও বাড়ে। অনেকে এও বলেন যে নিয়মিত অ্যাপেল সাইডার ভিনিগার খেলে নাকি ওজনও কমে (Apple Cider Vinegar Beauty Benefits) । তবে এখানেই শেষ নয়, এই উপাদানটির গুণ অনেক। ইতিহাসের পাতা ওল্টালে জানা যায় জাপানের সামুরাই যোদ্ধারা নাকি নিয়মিত অ্যাপেল সাইডার ভিনিগার পান করতেন। তাঁরা এমনটা বিশ্বাস করতে যে এই পানীয়টি খেলে নাকি শরীরের ক্ষমতা বাড়ে। প্রথম বিশ্ব যুদ্ধের সময়ও অ্যাপেল সাইডার ভিনিগারের ব্যবহার চোখে পরে। সে সময় ক্ষতের চিকিৎসায় এই উপাদানটিকে কাজে লাগাতেন সৈনিকরা। তবে অ্যাপেল সাইডার ভিনিগার (Apple Cider Vinegar Beauty Benefits) শুধুমাত্র শরীরেরই খেয়াল রাখে না, ত্বকের যত্নেও কাজে আসে। কিন্তু প্রশ্ন হল, রূপচর্চায় কীভাবে এই ভিনিগারকে কাজে লাগানো যেতে পারে, সে সম্পর্কে জানা আছে কি?

রূপচর্চায় অ্যাপেল সাইডার ভিনিগার কিভাবে কাজে লাগাবেন

১। বাটিতে চামচ চারেক জল নিয়ে তাতে এক চামচ অ্যাপেল সাইডার ভিনিগার মিশিয়ে সেই মিশ্রণ চুলে লাগিয়ে ধীরে ধীরে মাসাজ করুন। মিনিট দশেক মাসাজ করার পরে কম করে মিনিট কুড়ি অপেক্ষা করার পরে চুল ধুয়ে নিন। সপ্তাহে বার দুয়েক এইভাবে চুলের যত্ন (Apple Cider Vinegar Beauty Benefits) নিলে খুশকির প্রকোপ কমতে সময় লাগবে না, সেই সঙ্গে চুলের সৌন্দর্য বাড়বে এবং হেয়ার ফলে মাত্রাও কমবে।

২। রূপচর্চায় অ্যাপেল সাইডার ভিনিগারকে কাজে লাগালে ত্বকের ভিতরে flavonoids, quercetin এবং ক্যাটাচিনের মাত্রা বাড়তে শুরু করে, যে কারণে বলিরেখা প্রকাশ পাওয়ার আশঙ্কা আর থাকে না। ফলে ত্বকের বয়স কমে। তবে এক্ষেত্রে একটা বিষয় মাথায় রাখা একান্ত প্রয়োজান। তা হল অ্যাপেল সাইডার ভিনিগার হল প্রকৃতিতে অ্যাসিডিক, তাই এ জিনিস সরাসরি মুখে লাগানো উচিত নয়। তাহলে কী করণীয়? এক কাপ জলে এক বা দু'চামচ অ্যাপেল সাইডার ভিনিগার মিশিয়ে সেই মিশ্রণ তুলো দিয়ে মুখে লাগান, তাতেই উপকার মিলবে।

Beauty

GLOW Iridescent Brightening Body Lotion

INR 1,095 AT MyGlamm

৩। অ্যাপেল সাইডার ভিনিগারের ব্যবহার ব্রণর প্রকোপ কমায়। এক গ্লাস জলে এক চামচ অ্যাপেল সাইডার ভিনিগার (Apple Cider Vinegar Beauty Benefits)  মিশিয়ে সেই মিশ্রণ তুলোর সাহায্যে সারা মুখে লাগালে ত্বকের acidic layer ঠিক থাকে, যে কারণে ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়াগুলি মারা যায়। সেই সঙ্গে পরিবেশ দূষণের কারণে ত্বকের কোনও ধরনের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কাও কমে। ফলে ব্রণর মতো ত্বকের রোগ দূরে থাকতে বাধ্য হয়।

৪। সারা দিন রোদে ঘুরে কি ত্বকে পুড়ে কালো হয়ে গেছে? কোনও চিন্তা নেই! হাতের কাছে অ্যাপেল সাইডার ভিনিগার থাকলে এক বালতি স্নানের জলে আধ কাপ অ্যাপেল সাইডার ভিনিগার মিশিয়ে স্নান সেরে ফেলুন। নিয়মিত এমনটা করলে দেখবেন ত্বক (Apple Cider Vinegar Beauty Benefits) একেবারে আগের অবস্থায় ফিরে যাবে। কীভাবে এমনটা সম্ভব, তাই ভাবছেন? অ্যাপেল সাইডার ভিনিগারে এমন কিছু উপাদান রয়েছে, যা ত্বকের ভিতরে pH level ঠিক রাখতে সাহায্য করে, যে কারণে ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পেতে সময় লাগে না।

POPxo এখন চারটে  ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!

বাড়িতে থেকেই অনায়াসে নতুন নতুন বিষয় শিখে ফেলুন। শেখার জন্য জয়েন করুন #POPxoLive, যেখানে আপনি সরাসরি আমাদের অনেক ট্যালেন্ডেট হোস্টের থেকে নতুন নতুন বিষয় চট করে শিখে ফেলতে পারবেন। POPxo App আজই ডাউনলোড করুন আর জীবনকে আরও একটু পপ আপ করে ফেলুন!