ডিজাইন ও বুননের প্রকারভেদে কত রকমের বেনারসি হয় জানেন?

ডিজাইন ও বুননের প্রকারভেদে কত রকমের বেনারসি হয় জানেন? in bengali

কনের বেনারসি! এটা ছাড়া আজ পর্যন্ত বাঙালি বিয়ে ভাবতে পেরেছেন কখনও? যদিও আজকাল অন্য ধরনের শাড়ি, লেহেঙ্গা ইত্যাদি পরার চল হয়েছে। কিন্তু প্রথম স্থান থেকে বেনারসিকে কেউ সরাতে পারেনি।জানেন কি যে মহাভারত এবং বৌদ্ধ ধর্মগ্রন্থেও এই শাড়ির উল্লেখ আছে? এর অর্থ জলের মতো সোজা। বেনারসির ইতিহাস অতি প্রাচীন। বিয়ের মরশুম চলছে। তাই হবু কনেদের কথা চিন্তা করে আমাদের এই প্রতিবেদন। বেনারসি শাড়ির (various types of banarasi saree according to design) যে কত রূপ আর রং হয়, এটা পড়ার পর বুঝতে পারবেন। এটা শুধু একটা পরিধান নয় এটা একটা শিল্পকর্ম। আর শিল্পের সমঝদার হতে গেলে এইটুকু সময় তো দিতেই হবে। কী বলেন?

এর আগে আমরা বলেছিলাম শাড়ির জমি বা মেটেরিয়ালের উপরে ভিত্ত করে কিভাবে বেনারসির শ্রেণীবিভাগ করা যায়। শাড়ির জমির পরেই যার উপর ভিত্তি করে বেনারসির শ্রেণীবিভাগ করা সম্ভব সেটি হল শাড়ির নকশা বা ডিজাইন। কোনও কোনও বেনারসি খুব ঘন ডিজাইনের হয় আবার কোনও কোনও শাড়িতে থাকে হাল্কা কাজ। এই একেকটি কাজ বা প্যাটার্ন দিয়েও বেনারসি শাড়ি (various types of banarasi saree according to design) আলাদা করা যায়। দেরি না করে দেখে নিন বরং

১। তাঞ্চই বেনারসি

এই জাতীয় বেনারসির বুনন পদ্ধতি খুব জটিল

খুব সূক্ষ্মভাবে বোনা বেনারসি যার উপর বাড়তি সুতো দিয়ে হাল্কা কাজ করা আছে, তাকেই বলে তাঞ্চই বেনারসি। এই জাতীয় বেনারসির বুনন পদ্ধতি খুব জটিল কারণ এখানে এখানে প্রায় পাঁচ রকমের রং ব্যবহার হয়। তাঞ্চই মোটিফের শাড়ি খুব হাল্কা হয় এবং পরতে সুবিধা হয়।বলা হয় যে এই শাড়ি বুনন পদ্ধতি চিন দেশ থেকে এসেছে। চিনের তিন ভাই যাঁদের নামের শেষে ছিল চই শব্দটি, তাঁরা এসে সুরাটের তাঁতিদের এটি সেখান। সেখান থেকে এটি বেনারসে আসে। তিন বা তান আর চই সি দুটি শব্দ মিলে তাঞ্চই শব্দটি এসেছে।

২। জামদানী বেনারসি

এখানে দুই রকমের সুতো দিয়ে শাড়ি বোনা হয়

এই শাড়ি কে না পছন্দ করে বলুন দেখি? কারণ এই শাড়ির আকর্ষণই আলাদা। জামদানি আসলে এক বিশেষ ধরনের মসলিন। এখানে দুই রকমের সুতো দিয়ে শাড়ি বোনা হয়। জামদানির কাজ করা বেনারসিতে (various types of banarasi saree according to design) থাকে সিল্কের ফ্যাব্রিক যার সঙ্গে সুতির ব্রোকেড মেশানো থাকে।

কারুয়া বেনারসি

এখানে যে ধরনের সুতো ব্যবহার করা হয় সেটি এমব্রয়ডারি করা থাকে

এই জাতীয় বেনারসি খুব উজ্জ্বল হয়। এই শব্দটি এসেছে কড়া হুয়া শব্দদ্বয় থেকে। যার অর্থ হল এমব্রয়ডারি করা। কারণ এখানে যে ধরনের সুতো ব্যবহার করা হয় সেটি এমব্রয়ডারি করা থাকে, তাই এইরকম নামকরণ করা হয়েছে। সনাতনী তাঁতে এই শাড়ি বুনতে হয় এবং একেকটি শাড়ি বুনতে প্রায় দুই মাস সময় লাগে।

৪। বুটিদার বেনারসি

বুটিরও নানা রকম প্রকারভেদ দেখা যায়

বুটিদার বেনারসিকে অনেক সময় গঙ্গা যমুনা বেনারসিও বলা হয়। কারণ এখানে রূপালি আর সোনালি দুই ধরনের শেডস দেখা যায়।বুটিদার বেনারসি (various types of banarasi saree according to design) ঘন নীল রঙের হয় এবং এর মধ্যে থাকে সিল্ক, সোনা ও রূপার জরির সুতো। খুব গাঢ় রং হয় আর সেখানে দুটো শেড দেখা যায় বলে শাড়িটি দেখতে খুব সুন্দর লাগে।বুটিরও নানা রকম প্রকারভেদ দেখা যায়। যেমন আশরফি বুটি, লতিফা বুটি, রেশম বুটি, ঝুমর বুটি ইত্যাদি।  

৫। জরদৌসি বেনারসি

এটি একটি বিশেষ রকমের কারুকার্য

এটি একটি বিশেষ রকমের কারুকার্য। এই ধরনের কারুকার্য যদি বেনারসি শাড়িতে দেখা যায় তাহলে সেটাকে জারদৌসি বেনারসি বলা হবে।জারদৌসি আসলে খুব ঘন করে করা এমব্রয়ডারি যা মেটালিক বা ধাতব সুতো ব্যবহার করে করা হয়। এই জাতীয় সুতোকে বলা হয় বুলিয়ন সুতো, ফ্রেঞ্চ ওয়্যার বা মেটালিক স্প্রিং থ্রেড। এই সুতো চকচকে হয় এবং প্যাঁচানো হয়। আর যেহেতু এটি ধাতব সুতো তাই সোনালি ও রূপালি এই দুটি শেড এই শাড়িতে (various types of banarasi saree according to design) দেখা যায়।

POPxo এখন চারটে  ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!            

বাড়িতে থেকেই অনায়াসে নতুন নতুন বিষয় শিখে ফেলুন। শেখার জন্য জয়েন করুন #POPxoLive, যেখানে আপনি সরাসরি আমাদের অনেক ট্যালেন্ডেট হোস্টের থেকে নতুন নতুন বিষয় চট করে শিখে ফেলতে পারবেন। POPxo App আজই ডাউনলোড করুন আর জীবনকে আরও একটু পপ আপ করে ফেলুন!