বই পোকা হন ক্ষতি নেই, তবে বইতে যেন পোকা না লাগে!

বই পোকা হন ক্ষতি নেই, তবে বইতে যেন পোকা না লাগে! in bengali

আপনি কি বই পোকা? তা হলে তো আপনাকে স্যালুট জানাতে হয়। কারণ, ইদানীংকালে আমাদের সিংহভাগেরই তো বইয়ের সঙ্গে বন্ধুত্ব চুকেছে!

সবাই এখন টেক স্যাভি। ইউটিউবে ডকুমেন্টারি, আর নেটফ্লিক্স-হটস্টারে সিনেমা দেখি, খুব বেশি হলে কিন্ডলে বই ডাউনলোড করে পড়ি আমরা। এভাবেই টেকনোলজির হাতে নিজেকে সঁপে দিয়ে আমাদের সময় কেটে যায়। বই পড়ার সময় কই মিলেনিয়ালদের? আজ তাই বইপ্রেমীরা (smart tips to take care of your books) সংখ্যালঘু। যদিও তাতে কোনও ক্ষতি নেই! আপনি যদি বই পড়তে ভালবাসেন, পড়ুন না। সমাজের সংখ্যাগরিষ্ঠদের দলে নাম না লেখালে যে জাত যাবে, এমন তো নয়। বরং উল্টোটাই।

কিন্ত হঠাৎ করে বই পড়া নিয়ে এত জ্ঞানের কথা হচ্ছে কেন? আসলে কী জানেন, সম্প্রতি বেশ কয়েকটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, বইপ্রিয় মানুষেরা তাঁদের প্রিয় বইগুলিকে কীভাবে যত্নে রাখতে হয়, তা জানেন না। ফলে কয়েকবছর যেতে না-যেতেই হয় পোকার চক্করে, নয়তো অন্য কোনও কারণে বইগুলি নষ্ট হতে শুরু করে। আর যদি বাড়িতে উইপোকা থাকে, তা হলে তো শিরে সংক্রান্তি। এই কারণেই তো এমন কিছু টিপসের সন্ধান দিতে চলেছি, যা অক্ষরে-অক্ষরে মেনে চললে দেখবেন বইয়ে (smart tips to take care of your books) আর পোকা লাগবে না।

স্যাঁতস্যাঁতে জায়গা এড়িয়ে যান

রোদ বা পর্যাপ্ত পরিমানে আলো ঢোকে এমন জায়গায় বই রাখুন

সোজা হিসেব! কারণ, এমন জায়গায় বই রাখলে বইয়ের হাল বেহাল হতে সময় লাগে না। বিশেষ করে বইয়ের পাতায় হলুদ ছোপ পড়ে। সঙ্গে লেজুড় হয় দুর্গন্ধও। ফলে পোকামাকড়ের ভিড় বাড়তে থাকে। আর এমনটা হলে বইয়ের যে কী দশা হবে, তা নিশ্চয়ই আর বলে দিতে হবে না। তাছাড়া স্যাঁতস্যাঁতে ঘরে বই রাখলে অল্প দিনেই বইয়ের বাইন্ডিংও আলগা হতে শুরু করে। ফলে পাতাগুলি খুলে গিয়ে যা-তা অবস্থা হয়।

খেতে খেতে বই ধরবেন না

বইয়ে যেন জল, পানীয় বা খাবার না লাগে খেয়াল রাখবেন

মনে আছে, ছোটবেলায় বাড়ির বড়দের কড়া নিয়ম? এঁটো হাত বইয়ে যেন না লাগে! আপনারও খেতে-খেতে বই পড়ার অভ্যাস রয়েছে নাকি? তা হলে যে একটু সাবধান হতে হবে। না হলে যে বিপদ! কারণ, বইয়ের পাতায় খাবার লেগে গেলে সেখানে পোকামাকড় আর পিঁপড়ের উপদ্রব বাড়বে। ফলে বইয়ের পাতাগুলো নষ্ট হয়ে যাবে যে! তাই এঁটো হাতে নয়, সব সময় পরিষ্কার হাতে (smart tips to take care of your books) বই পড়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ।

বইয়েরও ডাস্টিং প্রয়োজন

বইয়ের ধুলো মুছে নীম পাতা রেখে দিন, এতে পোকা লাগবে না

কিলো-কিলো বই কিনুন না, কোনও ক্ষতি নেই! কিন্তু বইয়ের যত্নও তো নিতে হবে। আর তার জন্য সপ্তাহে বারতিনেক বইয়ের তাক ডাস্টিং করা মাস্ট! কারণ, বইরের খাঁজে-খাঁজে ধুলো জমলে সেখানে পোকামাকড়ের সংখ্যা বাড়বে। ফলে বইয়ের আয়ুও কমবে! এই কারণেই নিয়ম করে ডাস্টিং করার পরামর্শ দেওয়া হয়। এক্ষেত্রে পাতলা সুতির কাপড় ব্যবহার করা উচিত। কিন্তু ভুলেও ভেজা কাপড় দিয়ে বই মুছবেন না যেন! তাতে বই নষ্ট হয়ে যেতে পারে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বর্ষার সময় পরিবেশে আর্দ্রতা বেড়ে যায়, যা বইয়ের জন্য ক্ষতিকারক। তাই এই সময় মাঝে-মধ্যে বইয়ে একটু রোদ লাগানো উচিত।

Beauty

WIPEOUT Sanitizing Spray

INR 199 AT MyGlamm

জেনে নিন বুক শেলফে বই রাখার কিছু নিয়ম

ভালবাসার বইগুলোকে এমন অবহেলায় রাখবেন না

ঠিক-ঠিক নিয়ম মেন বুক শেলফে বই না রাখলে অল্প দিনেই বইয়ের বাঁধন আলগা হতে শুরু করে। এমনকী, বইয়ের পাতা ছিঁড়ে যাওয়ার আশঙ্কাও থাকে। তাই তো এই সম্পর্কে একটু জেনে বুঝে নেওয়াটা জরুরি। এক্ষেত্রে কী কী নিয়ম মানতে হবে?

ক) এক মাপের বই সব সময় একসঙ্গে রাখা উচিত। বড় বইয়ের (smart tips to take care of your books) মাঝে ভুলেও ছোট সাইজের বই রাখবেন না।

খ) মোটা-মোটা বইগুলি দাঁড় করিয়ে নয়, বরং শুইয়ে রাখাটাই বুদ্ধিমানের কাজ, তাতে বইয়ের বাইন্ডিং নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা আর থাকবে না।

গ) ইচ্ছে হলে প্রতিটি বইয়ে প্লাস্টিক কভার লাগাতে পারেন। তাতে ধুলো পড়ে অথবা পোকামাকড়ের অত্যাচারের কারণে বইয়ের পাতা নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা আর থাকবে না।

ঘ) বইয়ের র‍্যাকে ছোট বাটিতে কফি গুঁড়ো অথবা নিম পাতা রেখে দিতে পারেন। তাতে পোকামাকড়ের উপদ্রব কমবে। বইয়ের খাঁজে-খাঁজে কর্পূরও রাখতে পারেন, তাতেও সমান উপকার পাওয়া যায়।

POPxo এখন চারটে ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!        

বাড়িতে থেকেই অনায়াসে নতুন নতুন বিষয় শিখে ফেলুন। শেখার জন্য জয়েন করুন #POPxoLive, যেখানে আপনি সরাসরি আমাদের অনেক ট্যালেন্ডেট হোস্টের থেকে নতুন নতুন বিষয় চট করে শিখে ফেলতে পারবেন। POPxo App আজই ডাউনলোড করুন আর জীবনকে আরও একটু পপ আপ করে ফেলুন!