Care

মাথার চুলকানির (itchy scalp) মতো সমস্যার পিছু ছাড়ান ঘরোয়া টোটকার সাহায্যে

popadminpopadmin  |  Jul 4, 2019
মাথার চুলকানির (itchy scalp) মতো সমস্যার পিছু ছাড়ান ঘরোয়া টোটকার সাহায্যে

গরমকালে তো বটেই, বর্ষাকালেও সিংহভাগ মহিলাই itchy scalp-এর মতো সমস্যার খপ্পরে পড়ে থাকেন। এক্ষেত্রে খুশকির কারণে যেমন চুলকানি বাড়তে পারে, তেমনই seborrheic dermatitis নামক এক ধরনের একজিমার কারণেও এমন সমস্যা দেখা দেয়। অনেক সময় স্ক্যাল্পের আর্দ্রতা কমে গেলে এবং বিশেষ কিছু অ্যালার্জির কারণেও চুলকানি বাড়ে। বিশেষ কিছু সংক্রমণও এক্ষেত্রে দায়ী থাকে। কিন্তু প্রশ্ন হল, এমন সমস্যার প্রকোপ কমানো যায় কীভাবে? আজকাল বাজারে এমন অনেক প্রসাধনী বিক্রি হয়, যা এই ধরনের সমস্যাকে গোড়া থেকে নির্মূল করে। কিন্তু সে সব প্রসাধনীর দাম কিন্তু কম নয়! তা হলে উপায়? আমাদের হাতের কাছেই যখন সমাধান রয়েছে, তখন চিন্তা কীসের! বেশ কিছু প্রাকৃতিক উপাদান কাজে লাগিয়ে নিমেষে এমন ধরনের সমস্যার খপ্পর থেকে নিস্তার পাওয়া সম্ভব। কিন্তু কী-কী উপাদান কাজে লাগালে উপকার মিলবে, সে সম্পর্কে জানা আছে কি? জানা না থাকলে জেনে নিন আমাদের কাছ থেকে।

স্ক্যাল্পের চুলকানি কমাতে কাজে লাগান এই ঘরোয়া টোটকাগুলি

১. নারকেল তেল

একটা বাটিতে কয়েক ড্রপ নারকেল তেল এবং ভিটামিন ই তেল নিয়ে গরম করে নিন। এবার সেই মিশ্রণটা চুলে এবং স্ক্যাল্পে লাগিয়ে মিনিটপাঁচেক মালিশ করুন। নিয়মিত বারদুয়েক এই মিশ্রণটি চুলে লাগালে স্ক্যাল্পের আর্দ্রতা বাড়বে, কমবে সংক্রমণের প্রকোপ। ফলে চুলকানি কমতে সময় লাগবে না।

২. টি-ট্রি তেল

এতে উপস্থিত terpenes নামক উপাদান প্রকৃতিতে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি-ফাঙ্গাল, যা নিমেষে জীবাণু ঘটিত সংক্রমণের প্রকোপ কমায়। সেই সঙ্গে স্ক্যাল্পকে আর্দ্র রাখতেও বিশেষ ভূমিকা নেয়। ফলে খুশকির প্রকোপ তো কমেই, সঙ্গে কমে চুলকানিও। এত সব উপকার পেতে দিনে বারদুয়েক ট্রি-ট্রি তেল চুলে এবং স্ক্যাল্প ( Scalp) লগিয়ে মালিশ করতে হবে। প্রতিদিন মিনিটদশেক মালিশ করলেই ফল মিলবে!

৩. অ্যাপেল সাইডার ভিনিগার

চার চামচ জলে এক চামচ অ্যাপেল সাইডার ভিনিগার মিশিয়ে সেই মিশ্রণ চুলে এবং স্ক্যাল্প লাগিয়ে মিনিটপাঁচেক মালিশ করতে হবে। সপ্তাহে বারচারেক এই মিশ্রণটি স্ক্যাল্প লাগালে চুলকানি তো কমবেই, সঙ্গে চুলের গোড়ায় জমে থাকা ময়লা এবং জীবাণুও মারা পড়বে। ফলে স্ক্যাল্প কোনও ধরনের ইনফেকশন হওয়া আশঙ্কা আর থাকবে না। কিন্তু প্রশ্ন হল অ্যাপেল সাইডার ভিনিগারে এমন কী আছে, যা এত উপকারে লাগে? এতে উপস্থিত malic acid এক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।

৪. বেকিং সোডা

চামচতিনেক বেকিং সোডার সঙ্গে অল্প করে জল মিশিয়ে তৈরি পেস্ট, চুলের গোড়ায় লাগিয়ে মিনিটপনেরো অপেক্ষা করুন। সময় হলে ঠান্ডা চল দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে বারচারেক এই পেস্টটি স্ক্যাল্প লাগালে ক্ষতিকর জীবাণু এবং microbes সব মার পড়বে। ফলে চুলকানি কমতে সময় লাগবে না। সঙ্গে মাত্রাতিরিক্ত চুল পড়ার সমস্যাও দূরে পালায়। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বেকিং সোডায় উপস্থিত নানা উপকারী উপাদানের কারণে স্ক্যাল্পের pH ব্যালেন্স ঠিক থাকে, যে কারণেও itchy scalp-এর মতো সমস্যা দূরে পালাতে সময় লাগে না।

৫. লেবুর রস

একটা বাটিতে চামচতিনেক লেবুর রস নিয়ে তুলোর সাহায্যে তা স্ক্যাল্পে লাগিয়ে ফেলুন। মিনিটদশেক অপেক্ষা করার পরে চুলটা ভাল করে ধুয়ে নিন। সপ্তাহে বারদুয়েক চুলের গোড়ায় লেবুর রস লাগালে যে সব জীবাণুর কারণে চুলকানি বেড়েছে, সেগুলি সব মারা পড়বে। কমবে খুশকির প্রকোপ। সঙ্গে স্ক্যাল্পের প্রদাহও কমতে শুরু করবে, যে কারণে কোনও ধরনের স্কিন ডিজিজে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা আর থাকবে না।

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

আপনি যদি রংচঙে, মিষ্টি জিনিস কিনতে পছন্দ করেন, তা হলে POPxo Shop-এর কালেকশনে ঢুঁ মারুন। এখানে পাবেন মজার-মজার সব কফি মগ, মোবাইল কভার, কুশন, ল্যাপটপ স্লিভ ও আরও অনেক কিছু!