home / ওয়েলনেস
আবহাওয়া পরিবর্তনের এরকম সময়ে শ্বাসকষ্ট বাড়তে পারে, সাবধানে থাকুন

আবহাওয়া পরিবর্তনের এরকম সময়ে শ্বাসকষ্ট বাড়তে পারে, সাবধানে থাকুন

শরৎকাল এসেছে। কিন্তু বর্ষা থামেনি। প্রতিদিন যেভাবে বৃষ্টি নামছে, মনেই হচ্ছে না শরতের সেই তুলোর মতো মেঘ আকাশে দেখা যাবে। কোনওদিন রোদ থাকলে পরদিনই বৃষ্টি নামছে। সে জন্য়ই পরিবর্তন হচ্ছে তাপমাত্রায়। আবহাওয়া পরিবর্তন হচ্ছে। এতে সমস্যা হচ্ছে অ্যাস্থমা রোগীদের। আবহাওয়া পরিবর্তনের সময় অ্যাস্থমা রোগীদের খুব সাবধানে থাকতে হয়। আপনারও কি আবহাওয়া পরিবর্তনে শ্বাসকষ্টের সমস্যা বেড়ে যায়? তাহলে আপনাকে আরও সাবধানে থাকতে (climate change on asthma) হবে। এই সময় কী কী সাবধানতা অবলম্বন করবেন, তা নিয়েই আজ আলোচনা করব আমরা।

সব সময় নাক ও মুখ ঢেকে রাখার চেষ্টা (climate change on asthma) করুন

শ্বাসকষ্টের সমস্যার সঙ্গে অ্যালার্জি জনিত সমস্য়া জড়িত। তাই ঠান্ডা বাতাসে অনেকেরই অ্যালার্জির সমস্যা হয়। কিংবা বাতাসে আর্দ্রতার পরিমাণ বেশি থাকলেও শ্বাসকষ্টের সমস্যা হতে পারে। ঠান্ডা বাতাস নাকে ও মুখে ঢুকলে হাঁচি কাশির সমস্যা হতে শুরু করে। শেষে শ্বাসকষ্ট শুরু হয় (climate change on asthma) । তাই এই সময় কী করবেন? চেষ্টা করবেন সব সময় নাক ও মুখ ঢেকে রাখার। তার জন্য আপনি বাড়িতেও মাস্ক পরতে পারেন। বেশিরভাগ সময়টাই ঘরের মধ্যে থাকার চেষ্টা করুন। একান্তই বাইরে যেতে হলে মাস্ক পরে যান। এতে বাতাস গরম হয়ে আপনার নাকের মধ্যে ঢুকবে। সরাসরি ঠান্ডা বাতাস নাকের মধ্যে না যাওয়ায় অ্যালার্জি অ্যাটাক হওয়ার সম্ভাবনা কম থেকে যায়।

ইনহেলার সঙ্গে রাখবেন

গরম জলে স্নান করার চেষ্টা করুন

বর্ষার এই কয়েকটি দিন ঠান্ডা জল এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করবেন (climate change on asthma)। হালকা গরম জলে স্নান করুন। এতে আপনার শরীরও ভাল থাকবে। চট করে ঠান্ডা লেগে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে না। আবহাওয়া ঠিক হলে পুরনো রুটিনে ফিরে আসুন।

ঘরের মধ্যে ব্যায়াম করবেন

খুব কঠোর পরিশ্রম করার প্রয়োজন নেই। তবে সামান্য ফ্রি হ্যান্ড এক্সারসাইজ করবেন প্রতিদিন। খুব ভাল হয় যদি আপনি ব্রিদিং এক্সারসাইজ করতে পারেন। এতে আপনার শরীরও ভাল থাকবে। যোগাসন করলে শ্বাসকষ্টের সমস্যা অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে থাকে। তাই প্রতিদিন সকালে উঠে যোগাসন করার চেষ্টা করুন। আপনার শ্বাসকষ্টের সমস্যা বাড়বে না। হাত জীবাণুমুক্ত রাখুন।

পর্যাপ্ত পরিমাণে জল খান

আপনার সব সময় পর্যাপ্ত জল প্রয়োজন। কখনওই যেন আপনার শরীরে জলের ঘাটতি না হয়। কারণ জলের ঘাটতি হওয়া মানেই কিন্তু শরীরে অক্সিজেনের ঘাটতি হওয়া। তাই পর্যাপ্ত জল প্রতিদিন খেতেই হবে। নির্দিষ্ট রুটিন মেনে চললে আপনিই সুস্থ থাকবেন (climate change on asthma) ।

জল খাবেন

নির্দিষ্ট সময়ে ওষুধ খেয়ে নেবেন (climate change on asthma)

অ্যাস্থমা রোগীদের প্রতিদিনই একটি নির্দিষ্ট মেডিকেশন (climate change on asthma) থাকে। সেই ওষুধ কখনওই মিস করবেন না। কারণ, আবহাওয়া পরিবর্তনের সময়টা খুবই সাবধানে থাকা প্রয়োজন। তাই ওষুধ খান সময়ে।

চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ রাখুন (climate change on asthma)

আবহাওয়া পরিবর্তনে শ্বাসকষ্টের সমস্যা (climate change on asthma) খুবই বাড়লে সব সময় চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ রাখুন। একটু সমস্যা হলেই সঙ্গে সঙ্গে আপনার চিকিৎসককে ফোন করে কথা বলুন। আপনার ইনহেলার সঙ্গে রাখুন। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী আপনার ইনহেলার ও অন্যান্য ওষুধ নিন।

POPxo এখন চারটে ভাষায়!ইংরেজিহিন্দিমারাঠি আর বাংলাতেও!

বাড়িতে থেকেই অনায়াসে নতুন নতুন বিষয় শিখে ফেলুন। শেখার জন্য জয়েন করুন
#POPxoLive, যেখানে আপনি সরাসরি আমাদের অনেক ট্যালেন্ডেট হোস্টের থেকে নতুন
নতুন বিষয় চট করে শিখে ফেলতে পারবেন। POPxo App আজই ডাউনলোড করুন আর জীবনকে আরও একটু পপ আপ করে ফেলুন!

01 Oct 2021

Read More

read more articles like this
good points logo

good points text