home / Fitness
অফিস আছে বলে কি ফিট থাকা বারণ?

অফিস আছে বলে কি ফিট থাকা বারণ?

শপিংয়ে গিয়ে ফ্যাশনেবল ড্রেস ফিট না হওয়ার দুঃখে জিমের খাতায় নাম তো অনেকেই লেখান। কিন্তু ন’টা-ছ’টার অফিস আর ঘর-সংসার সামলানোর পরে শরীর-মনের এমন নয়-ছয় অবস্থা হয় যে সিংহভাগেরই নিয়মিত জিমে গিয়ে ঘাম ঝরানোর (fitness tips for working professionals) ইচ্ছে আর থাকে না। ফলে বৈশাখ মাসে বিয়েবাড়ির নিমন্ত্রণ আসার আগে ওজন কমানোর ধনুকভাঙা পণ করলেও তা স্বপ্ন হয়েই থেকে যায়। অগত্যা ছোট্ট ভুঁড়িটা লুকাতে ঢিলেঢালা পোশাক পরা ছাড়া আর কোনও গতি থাকে না। তাতে বিয়েবাড়ির  ফ্যাশনিস্তাদের আড্ডায় ‘ফেস লস’ হওয়ার চক্করে আপনাদের অনেকেরই যে মনের কোনে দুঃখের মেঘ জমে, সে খবর রাখি আমরাও।

তাই তো এবার আর এমন ঘটনা ঘটবে না। বরং বিয়ে বাড়ি যাওয়ার আগে ওজন তো কমবেই, সঙ্গে হালফিলের পোশাক পরার ইচ্ছেও ষোলো আনা পূরণ হবে। ভাববেন না, মশকরা করছি! কারণ, এই ফিটনেস টিপসগুলি মানলে ঘর-সংসার এবং অফিস সামলেও কিন্তু দিন কুড়ির মধ্যে কিলোখানেক ওজন ঝরিয়ে ফেলা সম্ভব!

হজমক্ষমতা বাড়াতে হবে

বললে হয়তো বিশ্বাস করবেন না, হজম ক্ষমতা ঠিক থাকলেও কিন্তু চটজলদি ওজন কমে যায়। তাই প্রতিদিন ফাইবার সমৃদ্ধ ফল বা সবজি খেতে হবে। তাতে মেটাবলিক রেটের উন্নতি ঘটার কারণে ফ্যাট বার্নের প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত হবে। ফলে ওজন কমতে শুরু করবে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বিয়ের মরসুমের আগে ‘টোনড’ বডি পাওয়ার ইচ্ছে থাকলে দিনে তিন-চার লিটার জল খেতে ভুলবেন না যেন! জলের সঙ্গে ওজন কমার কী সম্পর্ক? কম পরিমাণে জল খেলে শরীরে ওয়াটার রিটেনশন হয়। সেই কারণেও কিন্তু সহজে ওজন কমতে চায় না। তাই শরীরে যাতে জলের ঘাটতি না হয়, সেদিকে নজর রাখাটা জরুরি।

সুষম খাদ্যতালিকা মেনে চলুন

ওজন কমানোর একটা সহজ ফর্মুলা রয়েছে। কী ফর্মুলা? শরীরে ক্যালরির প্রবেশ যাতে কম করে হয়, সেদিকে নজর রাখতে হবে। আর যে পরিমাণ ক্যালরি ঢুকছে, তার থেকে বেশি ঝরাতে হবে, তাহলেই ওজন নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে। আর ঠিক এই কারণেই একেবারে প্রথমেই ডায়েটের দিকে নজর ফেরানোটা জরুরি।

  • আগামী কুড়ি-পঁচিশ দিন লুচি, সিঙারা এবং কচুরির মতো ভাজাজাতীয় খাবার এড়িয়ে চলতে হবে।
  • মিষ্টি খাওয়াও চলবে না।
  • ভাত-রুটির মতো সিম্পল কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার যতটা সম্ভব কম খেতে হবে।
  • বেশি করে খেতে হবে প্রোটিন, ফাইবার এবং কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেট সমৃদ্ধ খাবার, তাতে ভিটামিন এবং মিনারেলের চাহিদা তো মিটবেই, সেই সঙ্গে খিদেও কমবে। ফলে কম পরিমাণে খাওয়ার কারণে ওজন বাড়ার আশঙ্কা আর থাকবে না।

এক্ষেত্রে আরও কতগুলি বিষয় মাথায় রাখতে হবে। যেমন ধরুন, সকাল আটটার মধ্যে ব্রেকফাস্ট সেরে ফেলতে হবে। আর তার তিন ঘণ্টা পরে অল্প করে ছোলা, নয়তো ডাবের জল খেতে হবে। এর সাড়ে তিন ঘণ্টা পরে লাঞ্চ। চেষ্টা করবেন, একটা-দেড়টার মধ্যে দুপুরের খাবার খেয়ে ফেলতে। বিকালের দিকে অল্প করে ছোলা, নয়তো ভুট্টা, সঙ্গে এক কাপ গ্রিন টি পান মাস্ট। আর রাতের খাবার সন্ধে সাতটার মধ্যে সেরে ফেলবেন। যদি রাতের দিকে খিদে পায়, তা হলে অল্প করে ছানা খেতে পারেন। এই সব নিয়মগুলি মানলে ওজন কমতে সময় লাগবে না। তবে ডায়েটিংয়ের পাশাপাশি নিয়ম করে কিছু এক্সারসাইজও করতে হবে। তবেই কিন্তু ১০০ শতাংশ ফল মিলবে।

এক্সারসাইজ করতেই হবে

দ্রুত ওজন কমাতে ডায়েটিং-এর পাশাপাশি নিয়মিত এক্সারসাইজ করাটাও জরুরি। কিন্তু তাই বলে ভাববেন না জিমে যেতে হবে। বরং অফিসে যাওয়া-আসার সময়, এমনকী, কাজ করতে-করতেও মেদ ঝরিয়ে ফেলা সম্ভব! কীভাবে তাই ভাবছেন? চলুন জেনে নেওয়া যাক

হাঁটুন

বাড়ি থেকে অফিসের দূরত্ব যদি চার-পাঁচ কিলোমিটার হয়, তাহলে নিয়মিত হেঁটে অফিস যেতে হবে। ফেরার সময়ও বাস-অঠো নিলে চলবে না। নিয়মিত এই পরিমাণ হাঁটলে যে কোনও ফ্যাশনেবল ড্রেসেই যে আপনি ফিট হয়ে যাবেন, তা হলফ করে বলতে পারি। 

লিফটের পরিবর্তে সিঁড়ি ভাঙুন

বিশেষজ্ঞদের মতে মাত্র চব্বিশটা সিঁড়ি ভাঙলেই কম-বেশি প্রায় ১০ ক্যালরি বার্ন হয়, তাহলে একবার ভাবুন, দু’তলা বা তিন তলা পর্যন্ত সিঁড়ি দিয়ে উঠলে কতটাই না ক্যালরি বার্ন হবে! 

এক ঘন্টা অন্তর চেয়ার থেকে উঠে হাঁটুন

প্রতি ঘণ্টায় একবার করে চেয়ার থেকে উঠে মিনিটপাঁচেক একটু হাঁটাহাঁটি করতে হবে। তাতে দুটো উপকার মিলবে। এক তো জয়েন্টের সচলতা বাড়বে। সেই সঙ্গে অল্প পরিমাণে হলেও ক্যালরি বার্ন হবে। পাশাপাশি পায়ের পেশির ক্ষমতাও বাড়বে।

POPxo এখন চারটে ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!          

বাড়িতে থেকেই অনায়াসে নতুন নতুন বিষয় শিখে ফেলুন। শেখার জন্য জয়েন করুন #POPxoLive, যেখানে আপনি সরাসরি আমাদের অনেক ট্যালেন্ডেট হোস্টের থেকে নতুন নতুন বিষয় চট করে শিখে ফেলতে পারবেন। POPxo App আজই ডাউনলোড করুন আর জীবনকে আরও একটু পপ আপ করে ফেলুন!

26 Mar 2022

Read More

read more articles like this
good points logo

good points text