home / ডি আই ওয়াই বিউটি টিপস
পুজোর আগে কীভাবে করবেন হাইড্রেটিং ফেসিয়াল

পুজোর আগে কীভাবে করবেন হাইড্রেটিং ফেসিয়াল

নাম শুনেই নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন হাইড্রেটিং ফেসিয়াল ব্যাপারটি কী। কিন্তু তবুও যখন কষ্ট করে লিখতে বসেছি, তখন আমি আপনাদের বেশ বিশদে জানাবো কিভাবে হাইড্রেটিং ফেসিয়াল করতে হয়, আপনি বাড়িতে বসেই কিভাবে হাইড্রেটিং ফেসিয়াল করতে পারেন, ইত্যাদি। (how to do hydrating facial at home)

ত্বকের, বিশেষ করে মুখের যত্ন নেওয়া খুব জরুরি কারণ আমাদের মুখের ত্বক শরীরের বাকি অংশের ত্বকের থেকে অনেক বেশি নরম ও সংবেদনশীল হয়। কাজেই, মাসে অন্তত একবার করে হাইড্রেটিং ফেসিয়াল করা খুব প্রয়োজন। ত্বকের উপরিভাগ থেকে মরা কোষ দূর করা, গভীরভাবে ত্বকে আর্দ্রতা জোগানো, ত্বক পরিষ্কার করা – এগুলো সবই হয় ফেসিয়ালের মাধ্যমে। আমরা বলে দিচ্ছি ঘরোয়া কিছু উপকরণ দিয়েই কীভাবে আপনি বাড়িতেই হাইড্রেটিং ফেসিয়াল করতে পারবেন

যা যা প্রয়োজন

  • দুই টেবিল চামচ দুধ
  • তুলো
  • স্ক্রাব
  • আপনার রোজকার মাখার ফেস ক্রিম
  • এক টেবিল চামচ মধু

কীভাবে করবেন

ফেসিয়াল করার প্রথম ধাপ হল ক্লেনজিং। মুখের উপরিভাগে থাকা ময়লা পরিষ্কার না করে যদি আপনি বাকি ধাপগুলো ফলো করেন তাহলে ত্বকের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা বেশি। দুধে তুলো চুবিয়ে নিয়ে তা দিয়ে মুখ পরিষ্কার করে নিন। (how to do hydrating facial at home)

এবারে প্রয়োজন ত্বকের উপরিভাগের মরাকোষ দূর করা। তার জন্য আপনাকে স্ক্রাব করতে হবে। জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ভাল করে স্ক্রাব করুন। বিশেষ করে নাকের পাশে, চিবুকে এবং কপালে স্ক্রাবিং খুব দরকার কারণ এখানে ব্ল্যাকহেডস বেশি থাকে।

স্ক্রাব করা হয়ে গেলে মুখ ধুয়ে নরম একটি তোয়ালে দিয়ে মুখ মুছে ফেস ক্রিম লাগান। প্রতিদিন যে ক্রিমটি ব্যবহার করেন, আপাতত তা দিয়েই মাসাজ করুন। মিনিট ২০ মাসাজ করে মুখ ধুয়ে নিন।

এবারে ফেসপ্যাক লাগাতে হবে। ফেসপ্যাক হিসেবে মধু ব্যবহার করতে পারেন কারণ সব ধরনের ত্বকেই মধু ব্যবহার করা যায়। সামান্য জলের সঙ্গে মধু মিশিয়ে একটা পেস্ট তৈরি করে নিন এবং মুখে ও গলায় লাগিয়ে নিন। শুকিয়ে গেলে ঠান্ডা জলে মুখ ধুয়ে নিন। (how to do hydrating facial at home)

মনে রাখবেন যেদিন ফেসিয়াল করবেন সেদিন মুখে কোনও রাসায়নিক ক্রিম বা কসমেটিকস ব্যবহার না করাই ভাল।

মনে রাখুন বিশেষ কিছু বিষয়

ত্বক ভিতর থেকে আর্দ্র রাখছেন তো?

শুধুমাত্র হাইড্রেটিং ফেসিয়াল করলে অথবা সিরাম ও মাস্ক ব্যবহার করলেই কিন্তু ত্বকের ভিতরের আর্দ্রতা বজায় থাকবে না। প্রতিদিন ছয় থেকে আট গ্লাস জল অবশ্যই খেতে হবে। এছাড়াও, ফলের রস, লিকার চা, দইয়ের ঘোল এবং লেবু জাতীয় ফল ও শাক সব্জি বেশি করে খাওয়া প্রয়োজন।

হাইড্রেটিং ফেসিয়ালের সঙ্গে নিয়মিত ত্বকের যত্ন নিতে হবে

এক রাতের মধ্যেই ত্বকে আর্দ্রতা বাড়ানো সম্ভব না। নিয়মিত ত্বকের পরিচর্যা করেই ত্বকের কমনীয়তা ও আর্দ্রতা বাড়িয়ে তোলা যায়। তবুও যদি হাতে সময় না থাকে অথবা আপনার উপরে আলসেমি ভর করে, সেক্ষেত্রে কোনও হাইড্রেটিং ফেস মাস্ক সারা রাত লাগিয়ে রেখে নিমেষেই ত্বকের আর্দ্রতা বাড়াতে পারেন। তবে এক্ষেত্রে একটি বিষয় মনে রাখবেন, নিয়মিত ত্বকের পরিচর্যা না করলে কিন্তু এই জেল্লা ও আর্দ্রতা বেশিদিন স্থায়ী হবে না। (how to do hydrating facial at home)

হাইড্রেটিং ফেসিয়াল কিট কেনার আগে সতর্ক থাকুন

আমাদের এক এক জনের ত্বকের ধরন এক এক রকমের হয়। কারও ত্বক স্বাভাবিকভাবেই তৈলাক্ত হয়, আবার কারও শুষ্ক তো কারও কম্বিনেশন ত্বক হয়। তবে আপনার ত্বক যেমনই হোক না কেন, নিয়মিত হাইড্রেট করা জরুরি। আপনি যদি বাড়িতে হাইড্রেটিং ফেসিয়াল করতে চান, সেক্ষেত্রে ফেসিয়াল কিট বা ফেস মাস্ক ও ফেস সিরাম কেনার সময়ে দেখে নেবেন যে আপনার কেনা প্রোডাক্টে গ্লিসারিন, সেরামাইডস, ফ্যাটি অ্যালকোহল, ল্যাকটিক অ্যাসিড – এই উপকরণগুলি যেন অবশ্যই থাকে।

POPxo এখন চারটে ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!      

বাড়িতে থেকেই অনায়াসে নতুন নতুন বিষয় শিখে ফেলুন। শেখার জন্য জয়েন করুন #POPxoLive, যেখানে আপনি সরাসরি আমাদের অনেক ট্যালেন্ডেট হোস্টের থেকে নতুন নতুন বিষয় চট করে শিখে ফেলতে পারবেন। POPxo App আজই ডাউনলোড করুন আর জীবনকে আরও একটু পপ আপ করে ফেলুন!

08 Sep 2021

Read More

read more articles like this
good points logo

good points text