Advertisement

বিউটি প্রোডাক্টস নিয়ে নানা তথ্য

মেকআপ টিপস: জেনে নিন কীভাবে লিপস্টিক লাগালে তা ঠোঁটে দীর্ঘক্ষণ স্থায়ী হবে!

Debapriya BhattacharyyaDebapriya Bhattacharyya  |  Sep 26, 2019
মেকআপ টিপস: জেনে নিন কীভাবে লিপস্টিক লাগালে তা ঠোঁটে দীর্ঘক্ষণ স্থায়ী হবে!

আচ্ছা, এমন কখনও হয়েছে যে আপনি একটা লিপস্টিক (lipstick) লাগিয়েছেন, আর একটু পরেই লিপস্টিক উঠে গেছে বা মুছে গেছে? খুব কমন না এই সমস্যাটা? অনেক ভেবেচিন্তে এক খানা long lasting lipstick কিনলেন, বেশ করে ঠোঁটে লাগালেনও, তারপর যেই কিছু খেলেন অমনি দেখলেন যে ঠোঁটের চার ধারে লিপস্টিকের শুধু বর্ডারটুকু থেকে গেছে কিন্তু মাঝখানে আর কোনও লিপস্টিক অবশিষ্ট নেই! কী বিশ্রী ব্যাপার বলুন দেখি! ঠিক কী কী করলে লিপস্টিক দীর্ঘক্ষণ স্থায়ী হবে সে ব্যাপারে জানতে ইচ্ছে করছে নিশ্চয়ই? তবে তার আগে জেনে নেওয়া ভাল যে কীভাবে লিপস্টিক সঠিক পদ্ধতিতে লাগানো উচিত।

লিপস্টিক লাগানোর সঠিক পদ্ধতি (How To Apply Lipstick Perfectly)

শাটারস্টক

ভাবছেন লিপস্টিক (lipstick) লাগানোর আবার সঠিক পদ্ধতি আর বেঠিক পদ্ধতির কি আছে! লিপস্টিক তো ব্যস ঠোঁটে ঘষে নিলেই হল! আজ্ঞে না, অত সহজে যদি হয়ে যেত সব কাজ, তাহলে কি আর আমি এই আর্টিকেল লিখতে বসতাম? দুভাবে লিপস্টিক লাগাতে পারেন আপনি, লিপ লাইনারের সাহায্যে আর লিপ লাইনার না লাগিয়ে। দুটি পদ্ধতিরই স্টেপ বাই স্টেপ টিউটোরিয়াল রইল, শুধু দেখে দেখে অনুকরণ করুন –

https://bangla.popxo.com/article/how-to-maintain-natural-pink-lips-in-bengali

লিপ লাইনারের সাহায্যে কীভাবে লিপস্টিক লাগাবেন (How To Apply Lip Liner Like A Pro)

যা যা সরঞ্জাম প্রয়োজন – লিপ বাম, লিপ লাইনার, কনসিলার, কমপ্যাক্ট পাউডার, আপনার পছন্দের লিপস্টিক আর লিপ গ্লস

ধাপ ১: প্রস্তুতি নিন (Prep Your Lips)

প্রথমেই ঠোঁট পরিষ্কার করে নিন। চাইলে ঠোঁটের স্ক্রাবিং করতে পারেন চিনি দিয়ে আর তা না হলে নরম একটা টুথব্রাশের সাহায্যে ঠোঁটের উপরের মরা চামড়া ঘষে তুলে নিন। শরীরের সব শক্তি প্রয়োগ না করলেও চলবে, হালকা হাতে ঘষে নিন। এবার নরম একটা তোয়ালে বা গামছার কিছুটা ভিজিয়ে ঠোঁটে বুলিয়ে নিন এবং লিপ বাম লাগান। এতে ঠোঁট নরম থাকবে এবং আর্দ্রতা ধরে রাখতে পারবে অনেকক্ষণ।

POPxo বাংলার পছন্দের লিপ বাম – কামা আয়ুর্বেদা রোজ লিপ বাম 

ধাপ ২: বেস তৈরি করুন (Apply A Base)

এবারে আঙুলের ডগায় সামান্য পরিমাণে কনসিলার নিন এবং ঠোঁটে ড্যাব করুন। চাইলে একটু ময়শ্চারাইজার মিশিয়ে নিতে পারেন। অনেকের ঠোঁটের কোন গুলো কালচে হয়ে থাকে, কনসিলার দিয়ে এই কালচেভাবটা লুকোনো যায় এবং একটা মসৃণ ক্যানভাসের মত ব্যাপার তৈরি হয়, যার উপরে লিপস্টিক লাগানো সহজ হয়। কনসিলার লাগানো হয়ে গেলে খুব ভাল করে ব্লেন্ড করে একটা ছোট মেকআপ ব্রাশের সাহায্যে অল্প কমপ্যাক্ট পাউডার নিয়ে ঠোঁটের উপর লাগিয়ে নিন। এতে বেস সিল হয়ে যাবে এবং লিপস্টিকও দীর্ঘক্ষণ ঠোঁটে স্থায়ী হবে।

ধাপ ৩: লিপ লাইনার দিয়ে আউটলাইন টানুন (Outline The Lips)

ঠোঁটের বেস তৈরি হয়ে গেলে এবার পালা ঠোঁটের আকার ঠিক করার। যাঁদের ঠোঁটের শেপ ঠিক নয় তাঁরা লিপ লাইনারের সাহায্যে ঠিক করে নিতে পারেন। আবার অনেকের ঠোঁট খুব পাতলা হয় বা মোটা হয়, রি-ডিফাইন করার জন্য কিন্তু লিপ লাইনার দিয়ে আউটলাইন টেনে নিতে পারেন। যে রঙের লিপস্টিক লাগাবেন, সেই একই শেডের লিপ লাইনার দিয়ে ঠোঁটের আউটলাইনটা করে নিন। যদি একই শেডের লিপ লাইনার না থাকে তাহলে কাছাকাছি শেডের লিপ লাইনার লাগাতে পারেন।

POPxo বাংলার পছন্দের লিপ লাইনার – Maybelline New York Color Sensational Lip Liner 

ধাপ ৪: লিপস্টিক লাগান (Apply The Lipstick)

এবারে লিপস্টিক লাগাতে হবে। আমরা সবাই-ই যে ভুল টা করি লিপস্টিক লাগানোর সময়ে তা হল, ব্রাশে করে লিপস্টিক লাগাই না। প্রথমেই একটা ছোট মেকআপ ব্রাশ নিন এবং তাতে লিপস্টিক লাগিয়ে নিন। এবার লিপ লাইনারের ইনার কর্নার অর্থাৎ যে আউটলাইনটা টেনেছেন তার ভেতর দিক দিয়ে ব্রাশের সাহায্যে লিপস্টিক লাগাতে থাকুন। প্রয়োজনে একের বেশি কোট লাগাতে পারেন। ঠোঁটের ভেতরের দিকে অর্থাৎ হা-মুখের দিকেও কিন্তু লিপস্টিক লাগাতে ভুলবেন না।

POPxo বাংলার পছন্দের লিপস্টিক – Nykaa Matte To Last! Mini Liquid Lipstick – Mishti 10

ধাপ ৫: ফিনিশিং টাচ দিন (Complete Your Look)

অনেকসময়েই লিপস্টিক লাগাতে গিয়ে ঠোঁটের বাইরেও লিপস্টিক লেগে যায়। সেক্ষেত্রে কিন্তু দেখতে খুব খারাপ লাগে। ফিনিশিং টাচ দেওয়া সেজন্য জরুরি। সামান্য কনসিলার নিন এবং ব্রাশের সাহায্যে যেখানে যেখানে লিপস্টিক লেগেছে সেখানটা ঢাকতে থাকুন। ভাল করে ব্লেন্ড করুন যাতে ত্বকের সঙ্গে মিশে যায়। ব্যস! হয়ে গেল।

শাটারস্টক

লিপ লাইনার ছাড়া কীভাবে লিপস্টিক লাগাবেন (How To Apply Lipstick Without Lip Liner)

যা যা সরঞ্জাম প্রয়োজন – লিপ বাম, লিপ লাইনার, কনসিলার, কমপ্যাক্ট পাউডার, আপনার পছন্দের লিপস্টিক আর লিপ গ্লস

ধাপ ১: প্রস্তুতি নিন (Prep Your Lips)

প্রথমেই ঠোঁট পরিষ্কার করে নিন। চাইলে স্ক্রাবিং করতে পারেন চিনি দিয়ে আর তা না হলে নরম একটা টুথব্রাশের সাহায্যে ঠোঁটের উপরের মরা চামড়া ঘষে তুলে নিন। শরীরের সব শক্তি প্রয়োগ না করলেও চলবে, হালকা হাতে ঘষে নিন। এবার নরম একটা তোয়ালে বা গামছার কিছুটা ভিজিয়ে ঠোঁটে বুলিয়ে নিন এবং লিপ বাম লাগান। এতে ঠোঁট নরম থাকবে এবং আর্দ্রতা ধরে রাখতে পারবে অনেকক্ষণ।

ধাপ ২: বেস তৈরি করুন (Apply A Base)

এবারে আঙুলের ডগায় সামান্য পরিমাণে কনসিলার নিন এবং ঠোঁটে ড্যাব করুন। চাইলে একটু ময়শ্চারাইজার মিশিয়ে নিতে পারেন। অনেকের ঠোঁটের কোন গুলো কালচে হয়ে থাকে, কনসিলার দিয়ে এই কালচেভাবটা লুকোনো যায় এবং একটা মসৃণ ক্যানভাসের মত ব্যাপার তৈরি হয়, যার উপরে লিপস্টিক লাগানো সহজ হয়। কনসিলার লাগানো হয়ে গেলে খুব ভাল করে ব্লেন্ড করে একটা ছোট মেকআপ ব্রাশের সাহায্যে অল্প কমপ্যাক্ট পাউডার নিয়ে ঠোঁটের উপর লাগিয়ে নিন। এতে বেস সিল হয়ে যাবে এবং লিপস্টিকও দীর্ঘক্ষণ ঠোঁটে স্থায়ী হবে।

POPxo বাংলার পছন্দের কনসিলার – L.A. Girl Pro Conceal HD

ধাপ ৩: লিপস্টিক লাগান (Apply The Lipstick)

এবারে লিপস্টিক লাগাতে হবে। আমরা সবাই-ই যে ভুল টা করি লিপস্টিক লাগানোর সময়ে তা হল, ব্রাশে করে লিপস্টিক লাগাই না। প্রথমেই একটা ছোট মেকআপ ব্রাশ নিন এবং তাতে লিপস্টিক লাগিয়ে নিন। এবার পাতলা ব্রাশটির সাহায্যে সামান্য লিপস্টিক নিয়ে খুব সাবধানে ঠোঁটের চারদিকে একটা আউটলাইন টেনে এবং ঠোঁটের বাকি অংশেও লিপস্টিক লাগান। প্রয়োজনে একের বেশি কোট লাগাতে পারেন। ঠোঁটের ভেতরের দিকে অর্থাৎ হা-মুখের দিকেও কিন্তু লিপস্টিক লাগাতে ভুলবেন না।

ধাপ ৪: ফিনিশিং টাচ দিন (Finish The Look)

অনেকসময়েই লিপস্টিক লাগাতে গিয়ে ঠোঁটের বাইরেও লিপস্টিক লেগে যায়। সেক্ষেত্রে কিন্তু দেখতে খুব খারাপ লাগে। ফিনিশিং টাচ দেওয়া সেজন্য জরুরি। সামান্য কনসিলার নিন এবং ব্রাশের সাহায্যে যেখানে যেখানে লিপস্টিক লেগেছে সেখানটা ঢাকতে থাকুন। ভাল করে ব্লেন্ড করুন যাতে ত্বকের সঙ্গে মিশে যায়। ব্যস! হয়ে গেল।

POPxo বাংলার পছন্দের লিপ গ্লস – Lakme Absolute Plump And Shine Lip Gloss – Candy Shine

জেনে নিন, কীভাবে লিপস্টিক লাগালে দীর্ঘক্ষণ স্থায়ী হবে (How To Make Your Lipstick Stay Longer)

শাটারস্টক

কার আর বারবার টাচ আপ করতে ভাল লাগে বলুন তো? বাইরে বেরিয়ে যদি বারবার লিপস্টিক (lipstick) লাগাতে হয় তাহলে বাকি কাজ আর কখন করবেন! জেনে নিন কীভাবে লিপস্টিক লাগালে তা ঠোঁটে দীর্ঘক্ষণ স্থায়ী হবে –

স্টেপ বাই স্টেপ টিউটোরিয়াল (Step By Step Tutorial)

যা যা সরঞ্জাম প্রয়োজন – পুরনো একটি নরম ব্রিসলের টুথব্রাশ, এক বাটি উষ্ণ জল, লিপ বাম, কনসিলার, ফাউন্ডেশন, মেকআপের পাতলা ব্রাশ, লিপ লাইনার, লিপস্টিক এবং লিপ গ্লস

ধাপ ১ – মরা চামড়া তোলা (Exfoliate Your Lips)

উষ্ণ জলে টুথ ব্রাশটি ভিজিয়ে নিন যাতে নরম হয়ে যায়, এবারে ঠোঁটের উপর সার্কুলার মোশনে টুথব্রাশটি হালকা হাতে বোলাতে থাকুন। এতে ঠোঁটের উপরের মরা চামড়া অনায়াসে উঠে আসবে। এই কাজটি খুব সাবধানে করবেন তা না হলে কিন্তু ঠোঁট ফেটে যেতে পারে এবং রক্তপাত হতে পারে। যে টুথব্রাশটি প্রতিদিন ব্যবহার করেন সেই টুথব্রাশটি দিয়েই এই কাজটি করতে পারেন।

ধাপ ২ – ঠোঁট নমনীয় করা (Moisturize Your Lips)

এবারে আঙুলের ডগায় পরিমাণমত লিপ বাম নিয়ে ঠোঁটে লাগিয়ে নিন। একটু সময় দিন যাতে ত্বকের ভেতরে লিপ বাম প্রবেশ করতে পারে এবং ভেতর থেকে ঠোঁট নরম করে তোলে। আপনি যদি প্রতিদিন লিপস্টিক নাও ব্যবহার করেন তাহলেও কিন্তু ঠোঁট নমনীয় রাখতে প্রতিদিন লি বাম ব্যবহার করতে পারেন।

ধাপ ৩ – কনসিলার লাগান (Apply Concealer As A Lip Primer)

এবারে সানাম্য পরিমাণে কনসিলার নিয়ে আঙুলের ডগা দিয়ে চেপে চেপে ঠোঁটে লাগিয়ে নিন। ঠোঁটের চার ধারেও লাগাতে ভুলবেন না। এতে ঠোঁটের উপর একটা বেস তৈরি হয় যাতে লিপস্টিক দীর্ঘক্ষণ স্থায়ী হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

ধাপ ৪ – ফাউন্ডেশন লাগান (Use Foundation)

কনসিলার ভাল করে ব্লেন্ড হয়ে গেলে উপরের ও নীচের ঠোঁটে ফাউন্ডেশন লাগান। ছোট ছোট ফুটকির মতো করে ফাউন্ডেশনের ফোঁটা লাগান এবং ব্রাশ দিয়ে তা ভাল করে ব্লেন্ড করুন। এতে ঠোঁটের উপর একটা মসৃণ ভাব আসবে এবং লিপস্টিক লাগাতে সুবিধে হবে।

ধাপ ৫ – লিপ লাইনার দিয়ে আউটলাইন টানুন (Outline The Lips)

ঠোঁটের বেস তৈরি হয়ে গেলে এবার পালা ঠোঁটের আকার ঠিক করার। যাঁদের ঠোঁটের শেপ ঠিক নয় তাঁরা লিপ লাইনারের সাহায্যে ঠিক করে নিতে পারেন। আবার অনেকের ঠোঁট খুব পাতলা হয় বা মোটা হয়, রি-ডিফাইন করার জন্য কিন্তু লিপ লাইনার দিয়ে আউটলাইন টেনে নিতে পারেন। যে রঙের লিপস্টিক লাগাবেন, সেই একই শেডের লিপ লাইনার দিয়ে ঠোঁটের আউটলাইনটা করে নিন। যদি একই শেডের লিপ লাইনার না থাকে তাহলে কাছাকাছি শেডের লিপ লাইনার লাগাতে পারেন।

ধাপ ৬ – লিপস্টিক লাগান (Apply Lipstick)

এবারে নিজের পছন্দের লিপস্টিক দিয়ে (অবশ্যই লিপ লাইনারের সঙ্গে ম্যাচ করে) ঠোঁট ভরিয়ে দিন এবং ফিনিশিং টাচ হিসেবে ঠোঁটের মাঝখানে সামান্য লিপ গ্লস লাগাতে পারেন। ভাল করে ব্লেন্ড করতে ভুলবেন না কিন্তু!

https://bangla.popxo.com/article/grab-these-cheap-makeup-products-before-durga-puja-in-bengali

রইল ১৫টি সেরা লিপস্টিকের হদিশ যা ঠোঁটে দীর্ঘক্ষণ স্থায়ী থাকবে (15 Best Long Lasting Lipsticks)

রইল ১৫টি long lasting lipstick-এর হদিশ যা একবার লাগালে মোটামুটি ১২ ঘণ্টার জন্য আপনি নিশ্চিন্ত – 

১। ল্যাকমে নাইন টু ফাইভ ওয়েটলেস ম্যাট লিপ অ্যান্ড চিক কালার (Lakme 9 to 5 Weightless Matte Mousse Lip & Cheek Color)

সুবিধে (Advantages)

খুব হালকা

লাগানো সহজ

অনেকক্ষণ পর্যন্ত ঠোঁটে থাকে 

ঠোঁটের আর্দ্রতা বজায় রাখে এবং ঠোঁট শুকনো করে দেয় না 

অসুবিধে (Disadvantages)

লাগানোর পর শুকোতে একটু সময় লাগে 

২। সুগার স্মাজ মি নট – লিকুইড লিপস্টিক (Sugar Smudge Me Not Liquid Lipstick)

সুবিধে (Advantages)

ওয়াটার এবং স্মাজ প্রুফ

২০টি শেডে উপলব্ধ 

পকেটসই 

ডারমেটোলজিস্ট দ্বারা পরীক্ষিৎ 

অসুবিধে (Disadvantages)

কিছুই নেই তেমন 

৩। নায়েকা সো ম্যাট (Nykaa So Matte Lipstick)

সুবিধে (Advantages)

ওয়াটার এবং স্মাজ প্রুফ

৫০টিরও বেশি শেডে উপলব্ধ 

পকেটসই 

দীর্ঘক্ষণ ঠোঁটে স্থায়ী হয় 

অসুবিধে (Disadvantages)

শুষ্ক ঠোঁটের জন্য উপযুক্ত নয় 

৪। ল্যাকমে এনরিচড লিপ ক্রেয়ন (Lakme Enrich Lip Crayon)

সুবিধে (Advantages)

উজ্জ্বল রঙে উপলব্ধ 

স্মাজ প্রুফ

শিয়া বাটার ও কোকো বাটারের গুণে সমৃদ্ধ 

অসুবিধে (Disadvantages)

তেমন কিছু নেই 

৫। নায়েকা পেইন্টস্টিক্স (Nykaa Paintstix! Lipstick)

সুবিধে (Advantages)

 নুড থেকে ব্রাইট – সব ধরণের শেডে উপলব্ধ 

ক্রুয়েল্টি ফ্রি 

ভিটামিন ই সমৃদ্ধ 

একবার লাগালেই যথেষ্ট, ফলে খরচ কম 

অসুবিধে (Disadvantages)

তেমন কিছু নেই

৬। কালারবার ভেলভেট ম্যাট লিপস্টিক (Colorbar Velvet Matte Lipstick)

সুবিধে (Advantages)

ভিটামিন ই সমৃদ্ধ 

স্মুদ টেক্সচার, না খুব বেশি গ্লসি না ম্যাট

ঠোঁট নরম রাখতে সাহায্য করে 

অসুবিধে (Disadvantages)

তেমন কিছু নেই

৭। ল্যাকমে নাইন টু ফাইভ প্রাইমার প্লাস লিপ কালার (Lakmé 9 to 5 Primer + Matte Lip Color)

সুবিধে (Advantages)

প্রায় ১২ ঘন্টা পর্যন্ত ঠোঁটে একভাবে থাকে

আলাদা করে প্রাইমার লাগানোর প্রয়োজন নেই কারণ এতেই প্রাইমার রয়েছে

স্মুদ ফিনিশ দেয় 

অসুবিধে (Disadvantages)

তেমন কিছু নেই

৮। মেবিলিন নিউ ইয়র্ক কালার সেনসেশনাল ক্রিমই ম্যাট লিপস্টিক (Maybelline New York Color Sensational Creamy Matte Lipstick)

সুবিধে (Advantages)

দিরঘক্ষন ঠোঁটে স্থায়ী হয়

খাবার বা জল খেলেও ওঠে না 

পকেটসই 

৩৩ রকমের শেডে উপলব্ধ  

অসুবিধে (Disadvantages)

তেমন কিছু নেই

৯। মেবিলিন নিউ ইয়র্ক কালার সেনসেশনাল লিপ গ্রেডেশন (Maybelline New York Color Sensational Lip Gradation)

সুবিধে (Advantages)

দিরঘক্ষন ঠোঁটে স্থায়ী হয়

খাবার বা জল খেলেও ওঠে না 

পকেটসই 

অসুবিধে (Disadvantages)

খুব বেশি বৈচিত্র্য নেই 

১০। ল্যাকমে এনরিচ স্যাটিন লিপস্টিক (Lakme Enrich Satin Lipstick)

সুবিধে (Advantages)

৭০ টিরও বেশি শেডে উপলব্ধ 

পকেটসই 

অসুবিধে (Disadvantages)

স্মাজ প্রুফ নয় 

১১। ববি ব্রাউন লাক্স ম্যাট লিপ কালার (Bobbi Brown Luxe Matte Lip Color)

সুবিধে (Advantages)

ঠোঁটে একটা স্মুদ ফিনিশ দেয়

দীর্ঘক্ষণ স্থায়ী হয় ঠোঁটে 

পারাবেন, সালফেট বা গ্লুটেনের মত ক্ষতিকর রাসায়নিক নেই 

অসুবিধে (Disadvantages)

যথেষ্ট দামী 

খুব বেশি কালার ভ্যারাইটি নেই 

১২। স্টিলা স্টে অল ডে লিকুইড লিপস্টিক (Stila Stay All Day Liquid Lipstick)

সুবিধে (Advantages)

ভিটামিন ই ও অ্যাভোকাডো অয়েল সমৃদ্ধ 

অনেকক্ষণ ঠোঁটে থাকে

সামান্য পরিমাণে লাগে কাজেই অনেকদিন ধরে একটা লিপস্টিক চলে 

ফুল কভারেজ দেয়

ঠোঁট শুকনো হয় না 

অসুবিধে (Disadvantages)

যথেষ্ট দামী 

১৩। স্ম্যাশবক্স বি লেজেন্ডারি ম্যাট লিপস্টিক (Smashbox Be Legendary Matte Lipstick)

সুবিধে (Advantages)

ভিটামিন ই ও অ্যাভোকাডো অয়েল সমৃদ্ধ 

অনেক ক্ষণ ঠোঁটে থাকে

সামান্য পরিমাণে লাগে কাজেই অনেকদিন ধরে একটা লিপস্টিক চলে 

ফুল কভারেজ দেয়

ঠোঁট শুকনো হয় না 

অসুবিধে (Disadvantages)

অনেক দামী 

১৪। ম্যাক প্রো লং ওয়্যার লিপক্রিম (MAC Pro Longwear Lipcreme Lipstick)

সুবিধে (Advantages)

ভিটামিন ই ও অ্যাভোকাডো অয়েল সমৃদ্ধ 

অনেকক্ষণ ঠোঁটে থাকে

সামান্য পরিমাণে লাগে কাজেই অনেকদিন ধরে একটা লিপস্টিক চলে 

ফুল কভারেজ দেয়

ঠোঁট শুকনো হয় না 

মিষ্টি একটা গন্ধ আছে 

অসুবিধে (Disadvantages)

খুবই দামী

১৫। হুডা বিউটি লিকুইড ম্যাট লিপস্টিক (Huda Beauty Liquid Matte Lipstick)

সুবিধে (Advantages)

ভিটামিন ই ও অ্যাভোকাডো অয়েল সমৃদ্ধ 

অনেকক্ষণ ঠোঁটে থাকে

সামান্য পরিমাণে লাগে কাজেই অনেকদিন ধরে একটা লিপস্টিক চলে 

ফুল কভারেজ দেয়

ঠোঁট শুকনো হয় না 

মিষ্টি একটা গন্ধ আছে 

পকেটসই 

অসুবিধে (Disadvantages)

তেমন কোনও অসুবিধেই নেই 

দীর্ঘক্ষণ কীভাবে লিপস্টিক স্থায়ী হবে তা নিয়ে কয়েকটি প্রশ্নোত্তর (FAQs)

১। ম্যাট ফিনিশ যেকোনোও লিপস্টিকই বেশিক্ষন স্থায়ী হয়?

হ্যাঁ। ম্যাট ফিনিশ লিপস্টিক ঠোঁটে দীর্ঘক্ষণ স্থায়ী হয় তবে ঠোঁট শুকনো করে দিতে পারে। কাজেই ময়শ্চারাইজার লাগিয়ে তবেই ম্যাট ফিনিশ লিপস্টিক লাগান।

২। লিপস্টিক লাগানোর আগে কি লিপ বাম লাগানো উচিত?

নিশ্চয়ই! লিপ বাম লাগিয়ে আগে ঠোঁটের উপরের আস্তরণ মসৃণ করে নিন। অনেক সময়ে লিপস্টিক লাগালে ঠোঁট শুকিয়ে যায় কিছুক্ষণ পরেই, কিন্তু আগে থেকে যদি লিপ বাম লাগিয়ে নেন তাহলে ঠোঁটের আর্দ্রতা বজায় থাকবে এবং ঠোঁটে লিপস্টিক বেশিক্ষন থাকবেও।

৩। লিপস্টিক লাগানোর পরেই ঠোঁট শুকনো লাগে। এটা কেন হয়?

লিপস্টিক লাগানোর আগে ভাল করে ঠোঁটে ময়শ্চারাইজার লাগান, এতে ঠোঁটের আর্দ্রতা বজায় থাকবে। এছাড়াও যখন লিপস্টিক কিনবেন দেখে নেবেন তা যেন ক্রিম-বেসড হয় অথবা তাতে যেন আরগান বা অলিভ অয়েল থাকে। এই ধরনের লিপস্টিকগুলো ঠোঁট শুকনো হতে দেয় না।

৪।আমাকে প্রতিদিনই লিপস্টিক লাগাতে হয়। কীভাবে ঠোঁটের যত্ন নেব যাতে ঠোঁটের ক্ষতি না হয়?

অনেক মহিলাকেই কাজের সূত্রে প্রতিদিন লিপস্টিক লাগাতে হয়, আর এর ফলে অনেক সময়েই ঠোঁটের স্বাভাবিক রঙ হারিয়ে যায় এবং ঠোঁট কালচে হয়ে যায়। লিপস্টিক লাগানোর আগে লিপ বাম লাগিয়ে নিন ও তার পরেই লিপস্টিক লাগান। লিপস্টিক কেনার সময়ে কার্পণ্য করবেন না। মনে রাখবেন কম দামী লিপস্টিকে কিন্তু ক্ষতিকর রাসায়নিক ব্যবহার করা হয় যা ঠোঁটের চামড়া পুড়িয়ে দিতে পারে। বাড়ি ফিরে ভাল করে মেকআপ রিমুভার বা বেবি অয়েল দিয়ে লিপস্টিক তুলে তারপরেই শুতে যান। সপ্তাহে একবার করে চিনি আর লেবুর রস মিশিয়ে লিপ স্ক্রাব তৈরি করে এক্সফোলিয়েট করতে পারেন।

৫। লিপস্টিক লাগানোর কিছুক্ষন পরেই একটা আস্তরণ পড়ে যায়। কি করা উচিত সেক্ষেত্রে?

এই সমস্যাটা তখনই হয় যখন লিকুইড লিপস্টিক লাগানো হয়। প্রথমত লিপস্টিক লাগানোর আগে ভাল করে ঠোঁটের উপর থেকে মরা চামড়া তুলে পরিষ্কার করে নিন। এবার লিপ লাইনার দিয়ে আউটলাইন এঁকে নিন এবং তারপরে সামান্য পরিমাণে লিকুইড লিপস্টিক নিয়ে সমানভাবে ঠোঁটে লাগান। লিপ লাইনারের সঙ্গে কিন্তু ভাল করে ব্লেন্ড করে নেবেন।

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

এসে গেল #POPxoEverydayBeauty – POPxo Shop-এর স্কিন, বাথ, বডি এবং হেয়ার প্রোডাক্টস নিয়ে, যা ব্যবহার করা ১০০% সহজ, ব্যবহার করতে মজাও লাগবে আবার উপকারও পাবেন! এই নতুন লঞ্চ সেলিব্রেট করতে প্রি অর্ডারের উপর এখন পাবেন ২৫% ছাড়ও। সুতরাং দেরি না করে শিগগিরই ক্লিক করুন POPxo.com/beautyshop-এ এবার আপনার রোজকার বিউটি রুটিন POP আপ করুন এক ধাক্কায়…