Self Help

কাঁচা হলুদের সুপ, চা কিংবা ডিটক্স ওয়াটার খেয়ে সুস্থ থাকুন, সুন্দর থাকুন

popadminpopadmin  |  Jan 10, 2020
কাঁচা হলুদের সুপ, চা কিংবা ডিটক্স ওয়াটার খেয়ে সুস্থ থাকুন, সুন্দর থাকুন

ভারতীয় রান্নার এই এক গুণ! আমরা এত রকমের মশলা সহযোগে নানা পদ তৈরি করি যে সেগুলি স্বাদে যেমন খাসা হয়, তেমনই নানা মশলার গুণে শরীরও সুস্থ থাকে। বিশেষ করে হলুদের কথা তো না বললেই নয়। আমরা, মানে বাঙালিরা রান্নায় এত পরিমাণে হলুদ দিই বলেই কিন্তু অনেক রোগ দূরে থাকতে বাধ্য হয়। তবে এখন যা পরিস্থিতি, তাতে শুধু রান্নায় হলুদ দিলেই চলবে না। সুস্থ থাকতে হলে আরও নানা ভাবে হলুদ খেতে হবে। তাতে কি সত্যিই উপকার মিলবে? আলবাত মিলবে! কেন জানেন? হলুদে উপস্থিত Curcumin নামে একটি উপাদানের গুণে শরীরে প্রদাহের মাত্রা কমে, যে কারণে দেহের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলির কোনও ধরনের ক্ষতি হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা আর থাকে না। সেই সঙ্গে আর্থ্রাইটিসের প্রকোপ কমতেও সময় লাগে না। স্ট্রেস এবং অ্যাংজাইটি কমাতেও হলুদের জুড়ি মেলা ভার। শুধু তাই নয়, এই প্রাকৃতিক উপাদানটিতে উপস্থিত অন্যান্য উপকারী উপাদানের কারণে আরও নানা ধরনের উপকার মেলে। আর সে কথা ncbi-এর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক স্টাডিতেও প্রমাণ হয়ে গেছে। আজকের দিনে যেখানে অল্প বয়সেই হার্টের রোগ, ডায়াবেটিস, ব্লাড প্রেসার এবং কোলেস্টেরলের মতো রোগ ঘাড়ে চেপে বসছে, সেখানে নিয়ম করে হলুদ খাওয়ার প্রয়োজন যে বেড়েছে, সে বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই। কিন্তু প্রশ্ন হল, রান্নায় দেওয়া ছাড়া আর কীভাবে হলুদ (Turmeric) খেলে উপকার মিলবে? ইচ্ছা হলে নিয়মিত কাঁচা হলুদ খেতেই পারেন। তবে হলুদ দিয়ে তৈরি এই পানীয়গুলি খেলেও কিন্তু সমান উপকার পাওয়া যায়।

১. হলুদ মিশিয়ে তৈরি ডিটক্স ওয়াটার

pixabay

ডিটক্স ওয়াটার কী জিনিস, যাঁরা জানেন না, তাঁদের জানিয়ে রাখি, আমাদের শরীরে জমে থাকা নানা টক্সিক উপাদানগুলিকে ঠিক সময়ে মেরে ফেলা একান্ত প্রয়োজন। না হলে নানা ছোট-বড় রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। আর ঠিক সেই কারণেই ডিটক্স ওয়াটার খাওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। যে সব ফল বা সবজিতে ভিটামিন সি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে সেগুলি রস খেলেই উপকার মিলবে। আর এমন পানীয়কেই ডিটক্স ড্রিঙ্ক বলা হয়। সেই লিস্টে হলুদের অন্তর্ভুক্তি মাস্ট! কারণ, শরীরকে বিষমুক্ত করতে হলুদও নানা ভাবে সাহায্য করে থাকে। এক কাপ জলে এক চামচ হলুদ গুঁড়ো মিশিয়ে জলটা ফুটিয়ে নিন। এবার তাতে অল্প করে মধু মিশিয়ে ঘুম থেকে ওঠার পর পরই পান করুন। নিয়মিত হলুদ দিয়ে তৈরি এই ডিটক্স ওয়াটার খেলে শরীর নিয়ে আর কোনও চিন্তাই থাকবে না।

২. হলুদের সুপ

pixabay

না, না, শুধু হলুদ দিয়ে সুপ করতে বলছি না! আপনার পছন্দের যে কোনও সুপ তৈরি করে নিতে তাতে আধ চামচ হলুদ গুঁড়ো মিশিয়ে খেয়ে ফেলুন। চিকেন সুপেও হলুদ মিশিয়ে খেতে পারেন। মোট কথা, যেনতেন প্রকারেণ Curcumin যাতে শরীরে প্রবেশ করে, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। বিশেষ করে সুপের সঙ্গে হলুদ খেলে তো কথাই নেই! কারণ, সুপে এমনিতেই টোম্যাটো, মাশরুম, নয়তো মাংস থাকে। সঙ্গে নানা ধরনের সবজিও মজুত থাকে। এর পাশাপাশি যদি হলুদ মিশিয়ে খাওয়া যায়, তা হলে শরীরের প্রয়োজনীয় পুষ্টিকর উপাদানগুলির ঘাটতি মিটতে সময় লাগবে না।

৩. হলুদ দিয়ে তৈরি চা

pixabay

এবার থেকে দিনে বারদু’য়েক Turmeric Tea খাওয়া শুরু করুন। দেখবেন, শরীরের উপকারই হবে! কীভাবে এই পানীয় তৈরি করতে হবে? এক কাপ জল ফুটিয়ে নিয়ে তাতে পরিমাণ মতো চা পাতা মিশিয়ে মিনিটখানেক ভিজিয়ে নিয়ে কাপে ঢেলে নিন। এবার তাতে অল্প পরিমাণে হলুদ এবং মধু মিশিয়ে ঝটপট খেয়ে ফেলুন। জানলে খুশি হবেন, স্ট্রেস কমাতেও হলুদ চায়ের কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে। তাই যেদিন যেদিন অফিসে কাজের চাপ একটু বেশি থাকবে, সেদিন লিকার বা দুধ চায়ের পরিবর্তে Turmeric Tea খেতে পারেন, তাতে উপকার পাবেন।

৪. দুধেও হলুদ মিশিয়ে খেতে পারেন

pixabay

পরিমাণমতো কাঁচা হলুদ থেঁতো করে তার রস কাপে ঢেলে নিয়ে দুধ মিশিয়ে পান করুন। নিয়মিত রাতে শুতে যাওয়ার আগে এক কাপ হলুদ দুধ যদি খেতে পারেন, তা হলে শরীর নিয়ে যে আর কোনও চিন্তাই থাকবে না, তাতে কোনও সন্দেহ নেই। হাতের কাছে কাঁচা হলুদ নেই? কোনও চিন্তা নেই! এক কাপ দুধে এক চামচ হলুদ গুঁড়ো মিশিয়েও খেতে পারেন। জেনে রাখুন, হলুদ গুঁড়ো খেলেও কিন্তু প্রায় সমান উপকার মেলে।

আরও নানা ভাবে হলুদ খাওয়া যেতে পারে

pixabay

সেদ্ধ ডিম বা অমলেটের উপরে এক চিমটে হলুদ গুঁড়ো ছড়িয়ে দিয়ে খাওয়া চলতে পারে। আবার এক বাটি টক দইয়েও হলুদ মিশিয়ে খেতে পারেন। ব্রেকফাস্টের সময় ওটসের সঙ্গে অল্প করে হলুদ গুঁড়ো মিশিয়ে যদি খাওয়া যায়, তা হলেও নাকি নানা উপকার মেলে। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বাসিন্দারা আবার নারকেল দুধের সঙ্গে হলুদ এবং মধু মিশিয়ে খান। আপনিও একবার এই পদটি চেখে দেখতে পারেন।

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

২০২০ সালটা শুরু করুন আমাদের দারুণ সব প্ল্যানার এবং সেটমেন্ট মেকিং সোয়েটশার্ট দিয়ে, যেগুলো দারুণ ঝকঝকে তো বটেই, আর একেবারে আপনার কথা ভেবেই তৈরি করা হয়েছে। হুমম…আরও একটা এক্সাইটিং ব্যাপার হল, এখন আপনি পাবেন ২০% বাড়তি ছাড়ও। দেরি কীসের, এখনই POPxo.com/shop-এ যান আর আপনার এই বছরটা POPup করে ফেলুন!