পেরেন্টিং টিপস

অভিভাবক হিসেবে সন্তানের স্মার্টফোন বারবার চেক করা কি ঠিক?

Indrani BoseIndrani Bose  |  Mar 18, 2021
অভিভাবক হিসেবে সন্তানের স্মার্টফোন বারবার চেক করা কি ঠিক?

লকডাউন আমাদের জীবনশৈলী অনেকাংশেই বদলে দিয়েছে। সন্তানের স্কুল চলছে কিন্তু অনেককেই স্কুলে যেতে হচ্ছে না। বরং, অনলাইনেই চলছে ক্লাস আজ প্রায় এক বছর হতে চলল। তাই যেসব অভিভাবক তাঁর সন্তানের হাতে স্মার্টফোন দিতে চাইতেন না তাঁদেরও সন্তানের হাতে স্মার্টফোন দিতেই হচ্ছে শুধুমাত্র ক্লাস করার জন্য। পড়াশোনার জন্য়ই তো এখন স্মার্টফোন প্রয়োজন। কিন্তু এই স্মার্টফোনের যেমন ভাল দিকও আছে, আবার কিছু খারাপ দিকও আছে। বিশেষ করে যদি আপনার সন্তান কৈশোরে থাকে। 

আর তার জন্যই অভিভাবকরা দুশ্চিন্তা করেন, এবং এক সময় সন্তানের স্মার্টফোনও চেক করতে থাকেন তাঁরা। বিশেষ করে সন্তানের চ্যাট বক্স ও গ্যালারি চেক (check your kids phone) করে থাকেন বারবার। কখনও লুকিয়ে স্মার্টফোন চেক করেন কিংবা কখনও প্রকাশ্যেই দেখতে চান। এটা কি শুধুই দুশ্চিন্তা থেকে করেন না কি সন্তানের উপর সন্দেহের কারণেও এমন করে থাকেন?

তাকে লুকিয়ে চেক করছেন?

সন্তানকে বিশ্বাস করুন

প্রথমেই বলি আপনার সন্তানকে আপনার বিশ্বাস করা প্রয়োজন। কখনও তার উপর অবিশ্বাস রাখবেন না। অবিশ্বাসের উপর ভিত্তি করে কোনও সম্পর্ক মজবুত হতে পারে না। আপনি তাকে বিশ্বাস করছেন না দেখেই হয়তো (check your kids phone) তার আরও খারাপ লাগতে পারে সেই বিষয়ে ভেবে দেখবেন।

সন্তানের প্রাইভেসির কথা ভাবুন

আপনার সন্তান বড় হয়েছে। সন্তানের প্রাইভেসির কথা ভাবুন। তারও একটি ব্যক্তিগত জীবন থাকতে পারে। শুধুমাত্র সন্দেহের বশে ও দুশ্চিন্তার দোহাই দিয়ে বারবার তার ব্যক্তিগত জীবনে ঢুকে পড়বেন না। তাকে স্পেস দিন। তার ব্যক্তিগত জীবনকে সম্মান করুন। আপনি যদি তার ব্য়ক্তিগত জীবনকে সম্মান করেন তবেই সে অন্যের ব্য়ক্তিগত জীবনকে সম্মান করতে শিখবে। স্মার্টফোন চেক করবেন (check your kids phone) না। 

ঠিক কিনা ভেবে দেখবেন

স্মার্টফোনের খারাপ দিকটাও বুঝিয়ে বলুন

আপনি যখনই তাকে স্মার্টফোন কিনে দিচ্ছেন সেই সময়ে তার খারাপ দিকটিও তাকে বুঝিয়ে বলে দিন। এতে তার কাছে স্মার্টফোনের খারাপ দিক সম্পর্কেও একটি ধারণা থাকবে। সে সহজেই ভুল পদক্ষেপ করবে না। অচেনা কারও সঙ্গে চ্যাট কিংবা নম্বর শেয়ার করতেও বারণ করুন (check your kids phone) আপনার সন্তানকে।

সন্তানকে বিশ্বাস না করলে হয়?

ইন্টারনেটের খারাপ প্রভাব সম্পর্কেও বলুন

আপনি যখনই সন্তানকে স্মার্টফোন দিচ্ছেন তখন সে ইন্টারনেট ব্যবহার করবে সেটাই স্বাভাবিক, তাই এই ইন্টারনেট ব্যবহারের খারাপ ও ভাল দিক দুই বিষয়েই তাকে বুঝিয়ে বলুন। তার জানা থাকলে হয়তো সে ভুল পথে পদক্ষেপ করবে না।

তার আচার-আচরণ, তার বন্ধু-বান্ধব সবার ব্যাপারেই আপনি ওয়াকিবহাল থাকুন। কিন্তু তার ব্যক্তিগত জীবনে ঢুকে পড়বেন না। এই বিষয়টি আপনার মাথায় রাখা জরুরি। একে অপরকে স্পেস দিন। অভিভাবক হিসেবে দায়িত্ব পালন করুন। কিন্তু নিয়মিত সন্তানের স্মার্ট ফোন চেক একদমই নয়। যদিও বা তার কোনও ব্যক্তিগত জিনিস আপনার চোখে পড়ে যায়, তার সামনে সরাসরি প্রকাশ না করে বিষয়টি বিবেচনা করুন। যদি দেখেন যে বিষয়টি ঠিক আছে তবে কিছু বলার দরকার নেই। যদি সন্তান ভুল পথে যায় তখনই তাকে সাবধান করুন। ভাল থাকুন।

POPxo এখন চারটে  ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!       

বাড়িতে থেকেই অনায়াসে নতুন নতুন বিষয় শিখে ফেলুন। শেখার জন্য জয়েন করুন #POPxoLive, যেখানে আপনি সরাসরি আমাদের অনেক ট্যালেন্ডেট হোস্টের থেকে নতুন নতুন বিষয় চট করে শিখে ফেলতে পারবেন। POPxo App আজই ডাউনলোড করুন আর জীবনকে আরও একটু পপ আপ করে ফেলুন!