Advertisement

ফ্যাশন

গর্ভাবস্থায়ও বজায় থাকুক ফ্যাশন, সঙ্গে আরাম তো আছেই। রইল দারুণ কয়েকটি পোশাকের হদিশ

Debapriya BhattacharyyaDebapriya Bhattacharyya  |  Oct 21, 2019
গর্ভাবস্থায়ও বজায় থাকুক ফ্যাশন, সঙ্গে আরাম তো আছেই। রইল দারুণ কয়েকটি পোশাকের হদিশ

মহিলাদের জীবনের একটি নতুন অধ্যায় শুরু হয় মা হওয়ার মধ্য দিয়ে। বলা হয় একজন সন্তানের জন্মের সঙ্গে সঙ্গেই একজন মায়েরও জন্ম হয়। সেসব না হয় ঠিক আছে, কিন্তু গর্ভাবস্থায় বেশিরভাগ মহিলাই সেভাবে সাজগোজ করে উঠতে পারেন না এবং পোশাকও (pregnancy outfits) যেমন-তেমন একটা কিছু পরে নেন। সবচেয়ে অদ্ভুত ব্যাপার হল, এ সময়ে অন্যান্যদের মতামত এত বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে, বিশেষ করে হবু মায়ের পোশাক সম্পর্কে যে হবু মায়ের মনেও অনেকসময়ে এমন এক ধারণা তৈরি হয়ে যায় যে গর্ভাবস্থায় স্টাইলিশ পোশাক পরা যাবে না! এই ধারণা কিন্তু সম্পূর্ণ ভুল, কারণ গর্ভাবস্থায় ঢিলেঢালা পোশাক পরা বাঞ্ছনীয় হলেও কোথাও কেউ বলেননি যে এসময়ে স্টাইলিশ পোশাক পরা যাবেনা। হবু মা-দের জন্যও কিন্তু নানা ধরনের পোশাক কিনতে পাওয়া যায়। একটু চোখ কান খোলা রাখলে আপনিও গর্ভাবস্থায় ফ্যশনেবল হয়ে উঠতে পারেন। সে’রকম কয়েকটি স্টাইল নিয়েই আজকে আলোচনা করব।

আরও পড়ুনঃ বাচ্চার নামকরণ করার আগে কী কী খেয়াল রেখে করবেন

গর্ভাবস্থায় পরার মতো দারুণ কয়েকটি পোশাকের হদিশ

আগেই যেমন বললাম, এমন কথা কোথাও বলা নেই যে একজন গর্ভবতী মহিলা স্টাইলিশ ও ফ্যশনেবল পোশাক পরতে পারবেন না, এখানে এমন কিছু পোশাকের হদিশ দেওয়া হল, যেগুলো স্টাইলিশ অথচ গর্ভাবস্থায় পরার (pregnancy outfits) জন্যও আদর্শ!

১। ম্যাটেরনিটি জিনস (Maternity Jeans)

শাটারস্টক

আগেকার দিনে বেশিরভাগ মহিলা যেমন শাড়িতে বেশি স্বচ্ছন্দবোধ করতেন, এখন কিন্তু ব্যাপারটা উল্টে গিয়েছে; এখনকার এই ব্যাস্ততার যুগে বেশিরভাগ মহিলাই জিনস ও টপ পরতে বেশি স্বচ্ছন্দবোধ করেন। তবে গর্ভাবস্থায় জিনস পরাটা একটু চাপের হয়ে যায় কোনও কোনও সময়ে। তবে চিন্তার কোনও কারণ নেই, এখন গর্ভবতী মহিলাদের কথা মাথায় রেখে বাজারে নানা ডিজাইনের ও প্যাটার্নের ম্যাটেরনিটি জিনস কিনতে পাওয়া যায় যেগুলো পরে ফ্যশন করা তো যায়ই সঙ্গে এগুলো খুব আরামদায়কও হয়।

২। আরামদায়ক লেগিংস (Maternity Leggings)

শাটারস্টক

অনেকেই আছেন যারা কর্মরতা, গর্ভাবস্থায়ও তাঁরা একটা নির্দিষ্ট সময়মত নিয়মিত অফিসে যান। তাঁরা কিন্তু আরামসে লেগিংস পরে অফিসে যেতে পারেন। সুতি বা লিনেনের কুর্তির সঙ্গে লেগিংস খুবই মানানসই। সবচেয়ে মজার ব্যাপার হল লেগিংস যে ফ্যাব্রিক দিয়ে তৈরি কয় সেটি অত্যন্ত আরামদায়ক এবং নরম।

৩। ওভারসাইজড পোশাক (Plus Size Maternity Dresses)

শাটারস্টক

গর্ভাবস্থায় অনেকেই ঢিলেঢালা পোশাক (pregnancy outfit) পরতে বেশি স্বচ্ছন্দবোধ করেন, প্রথমত এতে ঘাম হয় না বা শরীরে অস্বস্তি হয় না এবং দ্বিতিয়ত, অনেকেই চান না প্রথমদিকে তাঁর গর্ভাবস্থার কথা বাকিদের জানাতে। এক্ষেত্রে কিন্তু ওভারসাইজড পোশাক সবচেয়ে উপযোগী। টপ থেকে শুরু করে সোয়েটার, ডাংরি থেকে শুরু করে শ্রাগ – যেমন পছন্দ সেরকম পোশাক বেছে নিন। এতে ফ্যশন তো করাই হয় সঙ্গে আরামও হয় বেশ। শুধু পোশাক বাঁচার সময় খেয়াল রাখবেন নিজের সাইজের থেকে একটু বড় সাইজের পোশাক কিনবেন।

৪। টিউনিক

মিন্ত্রা

টিউনিক কিন্তু স্টাইল স্টেটমেন্ট হিসেবেই বলুন বা ফ্যশন কোশেন্ট হিসেবেই বলুন, বহুকাল ধরেই ফ্যশনের ক্ষেত্রে একটি জায়গা করে নিয়েছে। নানা মাপের, নানা ডিজাইনের এই পোশাকটি কিন্তু গর্ভাবস্থায় পরার জন্য আদর্শ।  টিউনিক যেহেতু ডিজাইন হিসেবেই একটু ঢিলেধালা পোশাক, কাজেই গর্ভবতী মহিলাদের কাছে এটি অত্যন্ত প্রিয় একটি পোশাক। আর যেখানে ফ্যাশন আর আরাম একসঙ্গে মিশে যায়, সেখানে অন্য কিছু আর খুব একটা ম্যাটার করে না।

৫। র‍্যাপ ড্রেস

মিন্ত্রা

অনেক মহিলাই র‍্যাপ ড্রেস বা র‍্যাপ অ্যারাউন্ড স্কার্ট পরতে ভালবাসেন, বিশেষ করে যাঁদের একটু ভুঁড়ি রয়েছে তাঁরা এই পোশাকটি খুব বেশি পছন্দ করেন কারণ এতে ভুঁড়ি বেশ চট করে লুকোনো যায়। আর গর্ভাবস্থায় ভুঁড়ি লুকোনোর জন্যও কিন্তু র‍্যাপ ড্রেস অনেকেই পছন্দ করেন।

৬। বডিকন ড্রেস

মিন্ত্রা

বডিকন ড্রেস হল এমন এক ধরনের পোশাক যেগুলো গায়ের সঙ্গে সেঁটে থাকে, তবে সমস্যা নেই, এই পোশাকের ফ্যাব্রিকটি এমন হয় যাতে কষ্ট হয় না। কোনও গর্ভবতী মহিলা যদি তাঁর বেবি বাম্প একটু ফ্লন্ট করতে চান, সেক্ষেত্রে বডিকন ড্রেস পরতে পারেন। আরও একটু ফ্যাশনেবল হয়ে চাইলে নরম কোট বা লং জ্যাকেট আর স্কার্ফ দিয়ে টীমআপ করে বডিকন ড্রেস (pregnancy outfits) পরা যেতে পারে।

৭। শিফট ড্রেস

মিন্ত্রা

কাঁধের থেকে শুরু করে হাঁটু বা গোড়ালি পর্যন্ত এককাটের পোশাকের ডিজাইনকে বলা হয় শিফট ড্রেস। এই পোশাকের কাটটা সাধারণত সোজা হয়, ফলে গর্ভাবস্থার সময়ে যে সব মহিলারা একটু ঢিলেঢালা পোশাক পরতে চান অথচ সঙ্গে এও চান যে ফ্যশনও করবেন, তাঁরা কিন্তু শিফট ড্রেস পরতে পারেন আরামসে!

৮। স্কার্ট

মিন্ত্রা

ম্যক্সি স্কার্ট থেকে শুরু করে এ-লাইন স্কার্ট, প্লিটেড স্কার্ট, এমনকি শর্ট লেয়ারড স্কার্ট – গর্ভাবস্থায় কিন্তু এরকম ধরণের পোশাকও পরা যেতে পারে মানানসই টপ বা শার্ট বা ব্লাউজের সঙ্গে টীমআপ করে। আসলে গর্ভাবস্থায় স্কার্ট পরার অনেক সুবিধে রয়েছে; স্কার্ট বেশ আরামদায়ক যেহেতু এটি ঢিলেঢালা পোশাক, কাজেই অনেক গর্ভবতী মহিলাই নিজেকে ফ্যশনেবল করে তুলতে এসময়ে স্কার্ট পরতে পছন্দ করেন।

৯। এ-লাইন ড্রেস

মিন্ত্রা

এ-লাইন ড্রেস কিন্তু এমন একটি পোশাক বা স্টাইল বা ডিজাইন – যাই বলুন না কেন, কোনওদিন পুরনো বা আউট অফ ফ্যশন হবে না। গর্ভবতী থাকাকালীন হোক বা শিশুর জন্মের পরে হোক অথবা অন্য যে-কোনও সময়ে হোক, এ-লাইন ড্রেস সবসময়েই আরামদায়ক এবং ফ্যশনেবল!

১০। সুতির শাড়ি

অনেক মহিলা আছেন যারা শাড়ি পরতে পছন্দ করেন, আবার অনেকসময়ে গর্ভবতী মহিলাদেরকে এমন কোনও অনুষ্ঠানে যেতে হতে পারে যেখানে শাড়ি পরে যাওয়াটাই বাঞ্ছনীয় অথবা এমন অনেক পেশা আছে যেখানে শাড়ি পরেই যেতে হয় অফিসে; সেক্ষেত্রে চেষ্টা করুন সুতির শাড়ি পরতে। সুতির শাড়িতে ঘাম কম হয়, শরীরে র‍্যাশ বেরনোর আশঙ্কা কম থাকে এবং শাড়ি যে দারুণ একটি স্টাইল স্টেটমেন্ট সেকথা তো বলার অপেক্ষাই রাখে না!

১১। অ্যাসেমিট্রিক্যাল টিশার্ট ড্রেস

অ্যামাজন

ফ্যসনের ক্ষেত্রে তো এখন অ্যাসেমিট্রিক্যাল ড্রেস এমনিতেই ইন, আর গর্ভাবস্থায় যদি কোনও মহিলা ফ্যশন এবং আরাম – দুটোই সমানভাবে বজায় রাখতে চান তাহলে অনায়াসে অ্যাসেমিট্রিক্যাল টিশার্ট ড্রেস পরতে পারেন। আশেপাশে কোথাও যাওয়ার জন্য হোক অথবা বাড়িতে থাকার সময়ে এই অ্যাসেমিট্রিক্যাল টিশার্ট ড্রেসগুলো খুব উপযোগী।

১২। শর্ট শিফন ড্রেস

আজিও

গর্ভবতী বলে কি কখনও কোথাও একটু বেড়াতে যাবেন না অথবা কোনও পার্টি বা অনুষ্ঠানে যাবেন না? নিশ্চয়ই তা নয়। এরকম কোনও অনুষ্ঠানে যাওয়ার জন্য শর্ট শিফন ড্রেস বেশ ভাল অপশন।

১৩। ট্র্যাক প্যান্টস ও টপ

শাটারস্টক

গর্ভাবস্থায় চিকিৎসকেরা পরামর্শ দেন বিশেষ কিছু যোগ ব্যায়াম করার জন্য যাতে মা এবং শিশু দুজনেরই শরীর ঠিক থাকে এবং শিশুর শারীরিক বিকাশ ও গঠন ঠিকভাবে হয়। যোগ ব্যায়ামের জন্য বা হাঁটার জন্য কিন্তু নরম ও ঢিলেঢালা ট্র্যাক প্যান্টস ও টপ উপযোগী। যখন ট্র্যাক প্যান্টস কিনবেন মনে রাখবেন তা যেন গেঞ্জি কাপড় বা সুতির হয়। সিন্থেটিক কাপড়ের ট্র্যাক প্যান্টস ও টপ এসময়ে পরা ঠিক না, র‍্যাশ বেরতে পারে।

১৪। ওভারসাইজড টিশার্ট

আজিও

শিশুর জন্মের আগে অনেক হবু মা-বাবা বেবিমুনে যান, সেক্ষেত্রে যদি তাঁরা সমুদ্রে যান তাহলে ওভারসাইজড টিশার্ট পরতে পারেন হবু মা, সঙ্গে মানানসই সানগ্লাস ও ব্যান্ডানা পরে নিন, ফ্যাশনেবল (pregnancy outfits) দেখতে লাগবে। কোথাও বেড়াতে না গেলেও বাড়িতে পরার জন্যও কিন্তু এই বড় ও ঢিলে টিশার্ট বেশ আরামদায়ক।

১৫। কোট

ফার্স্ট ক্রাই

একজন মহিলা যখন গর্ভবতী হন, তখন থেকে শুরু করে শিশুর জন্ম হওয়া পর্যন্ত সময়টা কিন্তু প্রায় নয় মাসের। আর এই সময়ের মধ্যে শীতকালও আসে। তখন গরম পোশাকের দরকার পড়ে। সবসময়ে চাদর বা শাল নেওয়া সম্ভব হয় না। কাজেই কোট পরতে পারেন অন্যান্য পোশাকের উপরে। এতে ফ্যশন করার সঙ্গে আরামও পাবেন।

১৬। ম্যাক্সি ড্রেস

ক্লাব ফ্যক্টরি

যাঁদের চেহারা এমনিতেই একটু বালকি, তাঁদের ম্যাক্সি ড্রেস পরলে দেখতে বেশি ভাল লাগে কারণ তাতে ভুঁড়ি বোঝা যায় না। আর গর্ভাবস্থায় যদি আপনি চান যে আপনার পেটের দিকে কারও নজর নেশি না পড়ুক তাহলে ম্যাক্সি ড্রেস (pregnancy outfits) পরে নিন। দারুণ দারুণ ডিজাইনের, সলিড রঙের বা ফুলছাপের অথবা অন্যান্য প্যাটার্ন করা ম্যাক্সি ড্রেস কিনতে পাওয়া যায়। আপনি রুচি অনুযায়ী কিনে পরে নিন ব্যস!

১৭। জগার

অ্যামাজন

আগেই বললাম, প্রেগন্যান্সিতে যোগ ব্যায়াম করাটা জরুরি। আর আপনি যদি পার্কে হাঁটেন বা বাড়িতেই ব্যায়াম করেন তাহলে এক জোড়া জগারস কিন্তু আপনার অনেক কাজে লাগবে!

গর্ভবতী মহিলার আলমারিতে কী কী থাকা চাই-ই!

একজন মহিলা যখন মা হতে চলেন তখন তাঁর জীবনযাত্রায় নানা পরিবর্তন আসে। তাঁর খাওয়াদাওয়ার চার্ট থেকে শুরু করে ঘুমোনোর প্যাটার্ন – সব কিছুই পরিবর্তন হয়; তাহলে আলমারিতে তাঁর পোশাকের বদল কেন হবে না? গর্ভাবস্থায় তো এমনিতেই নরম ও আরামদায়ক পোশাক (pregnancy outfits) পরা উচিত যাতে ত্বকে র‍্যশ না বেরোয়। যেহেতু এসময়ে শরীরের নানা অভ্যন্তরীণ পরিবর্তন হতে থাকে কাজেই একজন গর্ভবতী মহিলার কিন্তু ওয়ারড্রব মেকওভার করাটা খুব জরুরি। কিছু কিছু বিশেষ পোশাক বা জিনিস আলমারিতে রাখাটাও প্রয়োজন।

১। নরম ফ্যাব্রিকের পোশাক

উপরিল্লিখিত যে পোশাকই আপনার পছন্দের হোক না কেন, যখন ফ্যাব্রিক বাছবেন তখন কিন্তু ভেবেচিন্তে বাছবেন। গর্ভাবস্থায় সাধারণত সুতি, লিলেন, শিফন – এরকম ফ্যাব্রিকের পোশাক পরা উচিত যেহেতু এগুলো গায়ের সঙ্গে সেঁটে থাকে না, কাজেই হাওয়া পাস করতে পারে এবং স্কিন র‍্যাশের কোনও আশঙ্কাই থাকে না।

২। স্ট্রচেবল ফ্যাব্রিকের পোশাক

যেহেতু গর্ভাবস্থায় মহিলাদের শারীরিক আয়তন একটা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত বাড়তে থাকে, বিশেষ করে তাঁদের পেট, কাজেই যদি এসময়ে এমন ফ্যাব্রিকের পোশাক কেনা যায় যেগুলো টানলে বাড়ে অর্থাৎ স্ট্রেচেবল তাহলে প্রতি মাসে নতুন নতুন পোশাক কেনার দরকার হয় না। গেঞ্জি কাপড়ের পোশাক বা লাইক্রা ফ্যাব্রিকের পোশাক কিন্তু স্ট্রেচেবল অর্থাৎ এগুলো পরলে তা শরীরের মাপ অনুযায়ী নিজে থেকেই প্রসারিত বা সঙ্কুচিত হয়ে যায়।

৩। ব্রিজি ফ্যাব্রিক

এমন ফ্যাব্রিকও রাখবেন আলমারিতে যা পরলে আপনার শরীরে বাতাস খেলতে পারে এবং ত্বক শ্বাস নিতে পারে, অর্থাৎ আঁটোসাঁটো পোশাক এসময়ে না পরাই ভাল।

 

৪। ইলাস্টিক ওয়েস্টব্যান্ড

ইলাস্টিক ওয়েস্টব্যান্ড যেন পোশাকের আলমারিতে অ্যাক্সেসরিজ হিসেবে অবশ্যই থাকে সেদিকে নজর দিন। ইলাস্টিক ওয়েস্টব্যান্ড কিন্তু বেল্ট নয় যে গর্ভাবস্থায় পেটে চাপ লাগবে, বরং জিনস বা অন্য কোনও পোশাক (pregnancy outfits) পরলে তার নীচে যদি ইলাস্টিক ওয়েস্টব্যান্ড পরে নেন তাহলে পেটে ঘষাও লাগবে না এবং ফ্যশন করাও হবে।

৫। কীভাবে লেয়ারিং করবেন জেনে নিন

যদি কোনও মহিলা গর্ভবতী থাকাকালীন প্রথম দিকে অথবা অ্যাডভ্যান্সড স্টেজে গিয়েও সবার সামনে নিজের বেবি বাম্প প্রকাশ করতে না চান, সেক্ষেত্রে কিন্তু লেয়ারিং করে পোশাক পরলে অর্থাৎ একটা পোশাকের উপরে আরও একটি বা একাধিক স্তর চাপালে বেবি বাম্প লুকিয়ে রাখা সম্ভব। কিন্তু লেয়ারিং করতে গিয়ে এমন যেন না হয় যে এত বেশি পোশাক পরে ফেললেন যে চলতে ফিরতে সমস্যা হয়। যদি আপনি কোনও ড্রেস পরেন তাহলে তার উপরে একটি লম্বা শ্রাগ পরে নিতে পারেন অথবা শীতকাল হলে বা ঠাণ্ডা জায়গায় বেড়াতে গেলে লং কোট পরতে পারেন।

৬। ম্যাটেরনিটি ব্রা

গর্ভাবস্থায় মহিলাদের স্তন প্রসারিত হতে থাকে এবং সেজন্য এক বিশেষ ধরনের অন্তর্বাস পাওয়া যায়। অবশ্যই সেই অন্তর্বাসগুলোই পরুন। এছাড়াও শিশুর জন্মের পরেও ওই বিশেষ অন্তর্বাসই পরুন এতে শিশুকে স্তন্যপান করাতে সুবিধে হবে।

৭। গরম পোশাক

শীতের পোশাকের (pregnancy outfits) ক্ষেত্রে নরম উলের বা ফারের পোশাক পরলেই ভাল। এতে অ্যালার্জির মতো সমস্যা কম হয়। এছাড়া কিছু নরম স্টোল, শাল বা উলের চাদর সঙ্গে রাখুন। শাল নেওয়ার সময়ে এমন ফ্যাব্রিক বাছবেন না যেগুলোতে গায়ে কুটকুট করে।

৮। প্যাটার্ন আর রঙ সম্পর্কেও জেনে নিন

কেমন প্যাটার্নের পোশাক পরবেন সেটা নির্ভর করছে আপনার উপরে। আর রঙের ক্ষেত্রে যদি উজ্জ্বল রঙ পরেন তাহলে মন ভাল থাকবে!

POPxo এখন ৬টা ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু, মারাঠি আর বাংলাতেও!

এসে গেল #POPxoEverydayBeauty – POPxo Shop-এর স্কিন, বাথ, বডি এবং হেয়ার প্রোডাক্টস নিয়ে, যা ব্যবহার করা ১০০% সহজ, ব্যবহার করতে মজাও লাগবে আবার উপকারও পাবেন! এই নতুন লঞ্চ সেলিব্রেট করতে প্রি অর্ডারের উপর এখন পাবেন ২৫% ছাড়ও। সুতরাং দেরি না করে শিগগিরই ক্লিক করুন POPxo.com/beautyshop-এ এবার আপনার রোজকার বিউটি রুটিন POP আপ করুন এক ধাক্কায়…