home / Diet
দ্রুত ওজন কমানোর জন্য লিকুইড ডায়েট প্ল্যান শুরু করার আগে ভাল-মন্দ সবটা জেনে নিন in bengali

দ্রুত ওজন কমানোর জন্য লিকুইড ডায়েট প্ল্যান শুরু করার আগে ভাল-মন্দ সবটা জেনে নিন

চটজলদি ওজন কমিয়ে ফেলতে লিকুইড ডায়েটের (pros and cons of liquid diet plan for weight lose) নাকি জুড়ি মেলা ভার। করিনা কপূর নাকি টানা তিন মাস স্রেফ কমলালেবুর রস খেয়ে অমন ছিপছিপে সাইজ জিরো ফিগারটি তৈরি করেছিলেন! বিপাশা বসু নাকি ধুম ২ করার সময় য়খন বিকিনি শুট করতে হয়েছিল, তখন সারা দিন ফলের রসের উপরেই বেঁচে থাকতেন! এমনিতে পোস্তপ্রিয় বিপাশা নাকি পোস্ত তো দূর কথা, সলিড কোনও খাবারই মুখে তুলতেন না! এত দূর পড়ে নিশ্চয়ই ভাবতে বসেছেন যে, আপনিও খাওয়াদাওয়া ভুলে এবার থেকে পানীয়তেই মনপ্রাণ সঁপে দেবেন?

লিকুইড ডায়েট মেনেই করিনা কপুর ‘সাইজ জিরো’ ফিগার করেছিলেন (ছবি – ইউটিউব)

দেখুন, লিকুইড ডায়েট ওজন দ্রুত কমাতে সাহায্য করে, একথা খাঁটি সত্যি। শুধু তাই নয়, শরীরে জমে থাকা ক্ষতিকর টক্সিক উপাদানগুলিকে ধ্বংস করে ফেলতে এবং হজম ক্ষমতার উন্নতিতেও এই বিশেষ ডায়েট প্ল্যান নানা ভাবে সাহায্য করে থাকে। তবে চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ না করে ইন্টারনেটে যে সব লিকুইড ডায়েট (pros and cons of liquid diet plan for weight lose) প্ল্যান পাওয়া যায়, সেগুলির কোনওটি অনুসরণ করে যদি খাওয়াদাওয়া বন্ধ করে দেন, তা হলে কতটা উপকার পাবেন জানা নেই, কিন্তু শরীরের যে নানা ক্ষতি হয়ে যাবে, সে বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই।

লিকুইড ডায়েট – ব্যাপারটা ঠিক কী?

কোনও শক্ত খাবার না খেয়ে সারা দিন পানীয় খেতে হবে (ছবি – পেক্সেলস ডট কম)

নাম থেকেই যেমনটা বুঝতে পারছেন, এক্ষেত্রে শক্ত খাবারের পরিবর্তে সারাদিন ধরে ফল বা সবজির রস বা স্মুদি খেতে হয়। যেসব খাবারে ক্যালরির পরিমাণ কম থাকে, সেই সব খাবার দিয়ে তৈরি সুপও খাওয়া যেতে পারে। তবে কত তাড়াতাড়ি ওজন কমাতে চাইছেন, তার উপর নির্ভের করে ডায়েট চার্ট তৈরি করতে হয়। চটজলদি ওজন কমাতে চাইলে আপনার শরীর বুঝে সারা দিন লিকুইড খাবার (pros and cons of liquid diet plan for weight lose) খাওয়ার পরামর্শ দিতে পারেন চিকিৎসক, নয়তো ব্রেকফাস্ট বা লাঞ্চে লিকুইড খাবার খেলেও উপকার পাওয়া যায়। তবে সবটাই নির্ভর করছে আপনার শরীরের গঠনের উপরে।

লিকুইড ডায়েট প্ল্যান মেনে চললে কি সত্যিই ওজন কমে?

ডায়েটিশিয়ানের পরামর্শ না মেনে লিকুইড ডায়েট প্ল্যান ফলো করতে যাবেন না যেন! (ছবি – পেক্সেলস ডট কম)

ঠিক-ঠিক নিয়ম মেনে যদি এই ডায়েট প্ল্যান অনুসরণ করা যায়, তা হলে শরীরের ইতি-উতি জমে থাকা মেদ ঝরে যেতে যেমন সময় লাগে না, তেমনই হজম ক্ষমতারও উন্নতি ঘটে, যে কারণেও ওজন নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। তবে চিকিৎসকের পরামর্শ মতো যদি লিকুইড ডায়েট প্ল্যান মানা না হয়, তাহলে দেহের ইমিউনিটি কমে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে, সেই সঙ্গে লেজুড় হতে পারে মাথা ঘোরা, হাড় এবং পেশির ক্ষমতা কমে যাওয়া, ব্রেন পাওয়ার কমে যাওয়া এবং অল্পতেই ক্লান্ত হয়ে পড়ার মতো (pros and cons of liquid diet plan for weight lose) সমস্যাও। তাই শরীরের ভাল চান তো ডায়াটেশিয়ানের পরামর্শ ছাড়া লিকুইড ডায়েট অনুসরণ করার কথা ভুলেও ভাববেন না যেন!

POPxo এখন চারটে  ভাষায়! ইংরেজি, হিন্দি, মারাঠি আর বাংলাতেও!

বাড়িতে থেকেই অনায়াসে নতুন নতুন বিষয় শিখে ফেলুন। শেখার জন্য জয়েন করুন #POPxoLive, যেখানে আপনি সরাসরি আমাদের অনেক ট্যালেন্ডেট হোস্টের থেকে নতুন নতুন বিষয় চট করে শিখে ফেলতে পারবেন। POPxo App আজই ডাউনলোড করুন আর জীবনকে আরও একটু পপ আপ করে ফেলুন!

21 Dec 2020

Read More

read more articles like this
good points logo

good points text